• সোমবার, ২৭ জুন ২০২২, ০৫:২৩ পূর্বাহ্ন |
শিরোনাম :
পদ্মা সেতুর রেলিংয়ের নাট খোলা বায়েজিদ আটক নীলফামারী জেলা শিক্ষা অফিসার শফিকুল ইসলামের শ্বশুড়ের ইন্তেকাল সৈয়দপুর সরকারি বিজ্ঞান কলেজের গ্রন্থাগারের মূল্যবান বইপত্র গোপনে বিক্রি ফেনসিডিলসহ সেচ্ছাসেবক লীগের নেতা গ্রেপ্তার এ সেতু আমাদের অহংকার, আমাদের গর্ব: প্রধানমন্ত্রী বাংলাদেশ-ভারতে রেল যোগাযোগ বন্ধ থাকবে ৮ দিন পদ্মা সেতুর উদ্বোধন বাংলাদেশের জন্য এক গৌরবোজ্জ্বল ঐতিহাসিক দিন: প্রধানমন্ত্রী পদ্মা সেতুর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে যেতে মানতে হবে যেসব নির্দেশনা সৈয়দপুরে বিস্কুট দেয়ার প্রলোভনে শিশুকে ধর্ষণের অভিযোগ গণমানুষের সমর্থনেই পদ্মা সেতু নির্মাণ সম্ভব হয়েছে: প্রধানমন্ত্রী

আমি গোপালগঞ্জের মেয়ে …..

Gopalgongসিসি ডেস্ক: রাজধানীর শেরে বাংলা নগর থানাধীন সোহরাওয়ার্দী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে আদনান নামের ৫ বছর বয়সী পুড়ে যাওয়া শিশুকে সুস্থ্য হওয়ার আগেই হাসপাতাল ত্যাগ করার নিদের্শ দেওয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে ডা. আমিনুল ও তার সহযোগী ডা. সুমনের নামে। স্বজনরা আরো কিছু দিন রোগীকে হাসপাতালে রেখে চিকিৎসা দেয়ার অনুরোধ করলে, সায় দেননি ডাক্তাররা। এ সময় বার্ন ইউনিটে কর্তব্যরত বনানী নামের এক নার্স দাপট দেখিয়ে বলেন ’আমি গোপালগঞ্জের মেয়ে যখন-তখন চাইলে যে কোন রোগীকে ঘাড় ধরে বের করে দেওয়ার ক্ষমতা রাখি’।

শনিবার বিকেল ৬ টায় এ ঘটনা ঘটে।

বার্ন ইউনিটে ভর্তি হওয়া শিশু আদনানের ছোট খালা জোবায়দা শারমিন শীর্ষ নিউজকে জানান, আদনানকে গতকাল (শুক্রবার) দুপুরে অগ্নিদগ্ধ অবস্থায় সোহরাওয়ার্দী হাসপাতালের বার্ন ইউনিটের পুরুষ ওয়ার্ডের ১ নম্বর বেডে ভর্তি করা হয়। শিশুটিকে ডা. ফরহাদের অধীনে ভর্তি করা হয়। পরে ডা. ফরহাদ গতকাল বিকেলে আদনানসহ বার্ন ইউনিটের আরো অন্যান্য রোগীদের দেখতে যান।

শিশুটির স্বজন জোবায়দা জানান, ডা. ফরহাদ প্রাথমিকভাবে জানিয়েছিলেন আদনানের শরীরের মুখ ও বুকের অংশ সবমিলিয়ে ১০ ভাগ পুড়ে গেছে তাই তাকে তাৎক্ষনিক চিকিৎসা সেবা দেয়া হয়। পরে রাতে তার শরীরে সেলাইন দেওয়া হয়। এরপর ডা. ফরহাদ চলে গেলে বার্ন ইউনিটের অপর দুজন ডা. আমিন ও তার সহযোগী ডা.সুমন দায়িত্ব পালনে আসার কথা থাকলেও তারা আজ সারা দিনে বিকেল বেলায় এসে বার্ন ইউনিটে আসলে রোগীরা তাদের অসুবিধার কথা জানাতে যায় ডাক্তার আমিন ও সুমনকে। কিন্তু উভয় ডাক্তার রোগীদের সহ্য করতে না পেরে বিরক্ত বোধ করেন এবং ধমক দেন। এ সময় শিশু রোগী আদনানের খালা জোবায়দা তার রোগীর সমস্যাবলী জানাতে চাইলে তার সাথে খারপ আচরণ করেন এবং তাৎক্ষণিকভাবে হাসপাতাল ত্যাগ করার নির্দেশ দেন, অন্যথায় হাসপাতালের সিকিউরিটি গার্ড দিয়ে টেনে-হেছড়ে বের করে দেওয়ার হুমকি দেন।

জোবায়দা আরো অভিযোগ করে বলেন, গতকাল বিকেল ৩ টায় হাসপাতালে ভর্তির পর প্রফেসর ডা. আব্দুল বারী শিশু আদনানের রক্তের ২ ধরণের পরীক্ষা দেন। কিন্তু রক্ত পরীক্ষার আগেই আজ শনিবার ডা. আমিনুলের সহযোগী ডা. সুমন রোগীর শারীরিক অবস্থা খারপ থাকা পরও রিলিজ দিয়ে জোর করে বের করে দেয়ার প্রচেষ্টা চালাচ্ছেন।

শিশুটির মা অভিযোগ করে বলেন, শিশু আদনানের বয়স মাত্র পাঁচ। কিন্তু আজ সন্ধ্যায় রোগীকে জোর করে দেয়া রিলিজ পেপারে লিখা হয়েছে তার বয়স ৫৪ বছর। আর বাসার ঠিকানায় হিসেবে কিছুই লেখা নেই।

এ ঘটনায় হাসপাতালের বার্ন ইউনিটের সিনিয়র ডা. প্রফেসর ফরহাদ শীর্ষ নিউজকে বলেন, ‘আমরা মুলত এডাল্ট (বয়স্ক) পুরুষদের ক্ষেত্রে বার্ন এর পরিমাণ ১৫ ভাগের বেশি হলে এবং শিশুদের ক্ষেত্রে বার্ন এর পরিমাণ ১০ ভাগের এর বেশি হলে ভর্তি নেই। কিন্তু শিশু আদনানের বার্নের পরিমাণ প্রায় ৮ ভাগ থাকা পরও তার মায়ের অনুরোধে তাকে হাসপাতালে ভর্তি নেয়া হয়। কিন্তু আজ সে সুস্থ হয়ে গেছে। ফলে তাকে আজ বাসায় নিয়ে যেতে বলা হয়েছে। তার পরেও তারা ইচ্ছে করলে আজ থেকে যেতে পারে। আর ডা. আমিনুল ও তার সহযোগী ডা. সুমনকে বলে দেয়া হবে যাতে তার আর খারপ আচরণ না করে রোগীদের সাথে।’

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক হাসাপাতালের বার্ন ইউনিটের কয়েকজন রোগী অভিযোগ করেছেন এখানে ডা.আমিনুল, ডা. সুমন এবং নার্স বানানীর মতো আরো কয়েক জন রয়েছেন যারা রীতিমত রোগীদের সাথে খারাপ আচরণ করে থাকেন।

উৎসঃ   শীর্ষ নিউজ


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ