• মঙ্গলবার, ০৫ জুলাই ২০২২, ০৪:২১ পূর্বাহ্ন |
শিরোনাম :

ভেঙে দেয়া হচ্ছে বিএনপির সব জেলা-উপজেলা কমিটি

BNP Flagসিসি ডেস্ক: সংগঠনকে শক্তিশালী করার প্রক্রিয়ার অংশ হিসেবে এবং দলের সর্বস্তরে নতুন নেতৃত্ব প্রতিষ্ঠা করতে বিএনপির সব জেলা, উপজেলা ও পৌর কমিটি ঢেলে সাজানো শুরু করেছে জাতীয়তাবাদী দল বিএনপি। কিন্তু এ প্রক্রিয়ায় কোনো কিছুর বাছ-বিচার না করে একতরফা জেলা কমিটি ভেঙে দেয়ার প্রবণতায় তৃণমূলে বাড়ছে হতাশা ও ক্ষোভ। পাশাপাশি আতঙ্ক বিরাজ করছে জেলা কমিটির নেতাকর্মীদের মধ্যে। আর এ সুযোগকে কাজে লাগিয়ে দলের মধ্যে ঘাপটি মারা সুবিধাবাধী নেতাদের উত্থান ঘটছে। ফলে দলের অভ্যন্তরে বাড়ছে কোন্দল আর গ্রুপিং।
তৃণমূল নেতাকর্মীরা জানান, কমিটি পুনর্গঠনের নামে ঢাকায় তলব করার আশঙ্কায় দিন অতিবাহিত করতে হচ্ছে তাদের। কারণ, এখন ঢাকায় যাওয়া মানেই হলো কমিটি ভেঙে দেয়া। ঢালাওভাবে জেলা-উপজেলা কমিটি ভাঙার পাশাপাশি কর্মীদের মনও ভাঙছে বলে মনে করছেন তারা।
বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয় সূত্রে জানা যায়, সরকারবিরোধী আন্দোলনের পূর্বপ্রস্তুতি হিসেবে বিএনপি চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়া গত ১০ এপ্রিল থেকে তৃণমূল নেতাদের সঙ্গে মতবিনিময় শুরু করেছেন। এর মধ্যে তিনি পঞ্চগড়, সৈয়দপুর, নীলফামারী, নওগাঁ, সিলেট, ব্রাহ্মণবাড়িয়া, সুনামগঞ্জ ও নেত্রকোনা জেলা নেতাদের সঙ্গে মতবিনিময় করেন এবং প্রতিটি কমিটি ভেঙে আহ্বায়ক কমিটি গঠন করেন। আজ রোববার খুলনা, সাতক্ষীরা, চুয়াডাঙ্গা ও নড়াইল জেলা বিএনপির সঙ্গে মতবিনিময় রয়েছে। এ ক্ষেত্রেও একই চিত্র প্রতিফলিত হতে পারে বলে ধারণা করা হচ্ছে।
এ বিষয়ে স্থানীয় নেতারা জানান, বিগত আন্দোলন সংগ্রামে যে সব নেতার জেলা পর্যায়ে কোনো যোগাযোগ পর্যন্ত ছিল না তারাই এখন কমিটি ভেঙে দেয়া জেলার আহ্বায়ক কমিটির সদস্য হয়েছেন। আর এসব সুবিধাবাদী নেতাদের বিভিন্নভাবে খুশি করে জেলা কমিটিতে জায়গা করে নিতে ইতোমধ্যে এক শ্রেণীর নেতাকর্মী দৌড়ঝাঁপ শুরু করেছেন বলেও অভিযোগ উঠেছে। জেলা কমিটির আহ্বায়কের বাসায় ইতোমধ্যে ফুল মিষ্টি নিয়ে ভিড় করছেন সুবিধাবাদীরা। এতে তৃণমূলের সক্রিয় এবং ত্যাগী নেতারা আবারো বঞ্চিত হওয়ার আশঙ্কা করছেন।
তৃণমূল নেতারা আরো জানান, যেসব জেলায় সাংগঠনিক দুর্বলতা রয়েছে অথবা কোন্দল আছে সেগুলোকে ভেঙে নতুন কমিটি করা হলে তা অবশ্যই ভালো হবে। তবে যে সব কমিটি ভালোভাবে সাংগঠনিক দায়িত্ব পালন করছে, আন্দোলন সংগ্রামে সফল হয়েছে সেখানে কমিটি ভেঙে নতুন কমিটি করতে গেলে কোন্দলের সৃষ্টি হতে পারে।
মতবিনিময় অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণকারী এক নেতা জানান, কমিটি করার ক্ষেত্রে কড়া অবস্থান নিয়েছেন খালেদা জিয়া। তিনি কমিটি ভাঙা-গড়ার প্রশ্নে মাঠ নেতাদের কোনো ওজর-আপত্তি কানে তুলছেন না। কোনো একটি জেলার সঙ্গে মতবিনিময়ের আগেই পুরনো কমিটি ভেঙে নতুন আহ্বায়ক কমিটি করে দিচ্ছেন। এই আহ্বায়ক কমিটি তিনি নিজেই আগে ঠিক করে রাখছেন। পরবর্তীতে মাঠ নেতাদের সামনে ঘোষণা দিচ্ছেন মাত্র। জানিয়ে দিচ্ছেন নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে পূর্ণাঙ্গ কমিটি করে তার সামনে হাজির করতে ব্যর্থ হলে ব্যবস্থা নেবেন তিনি। প্রায় প্রতিটি তৃণমূল মতবিনিময়ে খালেদা জিয়া বলছেন, নতুন নেতৃত্ব চাই। প্রবীণ-নবীনের সমন্বয়ে কমিটি করা হবে। পুরনো নেতৃত্ব দিয়ে আন্দোলন হবে না। প্রবীণরা পরামর্শ দেবেন। নেতৃত্বে থাকবেন তরুণরা। তারাই সরকার পতনের আন্দোলনে নেতৃত্ব দেবেন।
বিএনপির দফতর সূত্র জানায়, দলের ৭৫টি জেলা কমিটির প্রায় সবই মেয়াদ উত্তীর্ণ। অধিকাংশ জেলায় আধিপত্যের কারণে নেতায়-নেতায় কোন্দল রয়েছে। বিশেষ করে অভ্যন্তরীণ বিরোধ চূড়ান্ত থাকায় পটুয়াখালী, পিরোজপুর, মানিকগঞ্জসহ ১১ জেলায় প্রায় একযুগ কমিটি হয়নি। এছাড়া বাগেরহাট জেলার বর্তমান কমিটির মতো ‘বাড়ির ছাদে’ কিংবা ‘বাসে’র মধ্যে বসে সুবিধাবাদীদের দেয়া কমিটিও রয়েছে কেন্দ্রের নজরে। তবে গুটিকয়েক জেলার নেতৃত্বের ব্যর্থতার কারণে দেশের সব জেলার নেতাকে শাস্তি পেতে হবে তা মানতে নারাজ নেতাকর্মীরা। তারা বলেন, কেন্দ্র যে প্রক্রিয়ার মাধ্যমে জেলা কমিটি ভাঙছে আর আহ্বায়ক কমিটি দিচ্ছে তাতে ত্যাগীদের মূল্যায়ন নিয়ে এবারো অনিশ্চয়তায় পড়তে হবে। একমাত্র কেন্দ্রের তদারকিতে কাউন্সিল ছাড়া অন্য কোনো উপায়ে ত্যাগীদের মূল্যায়ন সম্ভব হবে না বলেও তারা মত প্রকাশ করেন।
নেতাকর্মীরা জানান, সরকারবিরোধী আন্দোলনসহ সর্বশেষ নির্বাচন বর্জনের আন্দোলনে গুটিকয়েক জেলা ও কেন্দ্রের ব্যর্থতার দায়ভার এখন তৃণমূল বিএনপির ওপর চাপিয়ে দেয়া হচ্ছে। কেন্দ্রের নেতারা অনেক উঁচুমাপের হওয়ায় তাদের বিরুদ্ধে দল কিছু করতে না পারলেও আন্দোলন সফলের জন্য শাস্তি খড়গ পেতে হচ্ছে তৃণমূলকে। তারা বলেন, আন্দোলনে সফল তৃণমূল। আর শাস্তি তাদেরই ওপর!
দলের দায়িত্বশীল এক নেতা বলেন, ব্যর্থ ঢাকা মহানগর বিএনপিসহ অঙ্গসংগঠন পুনর্গঠন না করে যে মফস্বল জেলাগুলো আন্দোলনে সফল হয়েছে তাদের ওপরই প্রথম খড়গ নামল। আবার এই কমিটি ভাঙা এবং আহ্বায়ক কমিটি গঠন নিয়েও মনকষাকষির পাশাপাশি এক আতঙ্ক তৈরি হচ্ছে। কারণ এর ফলে তৃণমূল পর্যায়ে দল শক্তিশালী হওয়ার পরিবর্তে আরো দুর্বল হয়ে যেতে পারে।
তবে এসব বিষয় অস্বীকার করে দলের স্থায়ী কমিটির সদস্য লে. জেনারেল (অব.) মাহবুবুর রহমান বলেন, দলের মধ্যে একটা পরিবর্তন আসছে। এতে দলের মধ্যে চাঙ্গাভাব চলে আসবে। নতুনরা নতুন উদ্যমে কাজ করবে।
দলীয় সূত্রে জানা যায়, দল পুনর্গঠনের ব্যাপারে বিএনপি চেয়ারপার্সন খালেদা জিয়াসহ নীতি-নির্ধারকরা বেশ কিছুদিন ধরেই চিন্তাভাবনা করে আসছিলেন। তবে সবচেয়ে গুরুত্ব দেয়া হচ্ছিল ঢাকা মহানগর বিএনপিসহ কয়েকটি অঙ্গসংগঠন পুনর্গঠনের ওপর। বিশেষ করে বিগত আন্দোলনে সারাদেশে জোরালো আন্দোলন হলেও রাজধানীতে ব্যর্থতা ছিল চরমে। এ কারণে দলের মধ্যে অনেক প্রশ্ন ও ক্ষোভ সৃষ্টি হয়। খালেদা জিয়া পেশাজীবী নেতাদেরসহ দলীয় নেতাদের বলেছিলেন, ঢাকা মহানগর বিএনপিসহ যেসব অঙ্গসংগঠন ঢাকায় আন্দোলনে জোরালো ভূমিকা রাখতে ব্যর্থ হয়েছে সেগুলো পুনর্গঠন করা হবে নতুন আন্দোলন শুরু করার আগে।
এর অংশ হিসেবেই দলের ৭৫টি সাংগঠনিক জেলা কমিটির সব ভেঙে নতুন কমিটি করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে দলের হাইকমান্ড। প্রতিটি কমিটি বিলুপ্তির ৩০-৪৫ দিনের মধ্যে সম্মেলনের মাধ্যমে পূর্ণাঙ্গ কমিটি করা হবে। এজন্য গঠন করে দিচ্ছেন আহ্বায়ক কমিটি। আহ্বায়ক কমিটি সংশ্লিষ্ট জেলাধীন সকল থানা-উপজেলা-পৌরসভায় বিএনপির কমিটি করবে।

উৎসঃ   মানবকন্ঠ


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ