• শনিবার, ০২ জুলাই ২০২২, ০২:৩৪ পূর্বাহ্ন |

সৈয়দপুরে তীব্র তাপদাহে সামাজিক বনায়নের গাছ মরে যাচ্ছে

DSC06531
এম আর মহসিন: গ্রীষ্মের শুরুতে উত্তরের জনপদ সৈয়দপুরের তাপমাত্রা ক্রমান্বয়ে বাড়ছে। এতে সামাজিক বনায়নের প্রায় ছয় হাজার গাছ মরে গেছে। গাছগুলো রক্ষায় প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা না নেয়ায় এ অবস্থা হয়েছে বলে জানান উপকারভোগী বন মালিকরা। তবে স্থানীয় সংশ্লিষ্টরা এ দায় নিতে নারাজ। তাদের দাবি অর্থ ও জনবল সংকট নিয়ে ও সামর্থ্য অনুযায়ী চেষ্টা করছি বাকিগুলো যাতে রা পায়। আর পর্যাপ্ত যত্নের অভাবে তাপদাহে গাছ মরে যাওয়া উত্তরাঞ্চলে মরুকরণের আশংকা করছেন পরিবেশবিদরা।
সৈয়দপুর বিমানবন্দর আবহাওয়া অফিসের ইনচার্জ মো. আসাদুজ্জামান জানান, গত ১০ দিন ধরে এ জনপদে তাপমাত্রা শুধু বাড়ছে। ৩০ ডিগ্রি থেকে শনিবার ৩৭ ডিগ্রি সেলসিয়াসে উন্নিত হয়েছে। তাই আগামী ২০ দিনের মধ্যে বৃষ্টিপাত না হয় এর মাত্রা আরও বাড়বে। এ তাপমাত্রা বাড়ার কারণে এ জনপদের খেটে খাওয়া বিভিন্ন শ্রেণী পেশার নিম্ন আয়ের মানুষজন চরম কষ্টে পড়েছে। আর এ তাপমাত্রাতেই সৈয়দপুর উপজেলার সামাজিক বনায়নের ৩ বৎসর আগে লাগানো চারাগুলোর ওপর প্রভাব পড়েছে।
সরেজমিনে শুক্রবার উপজেলার কামারপুকুর ইউনিয়নে গিয়ে দেখা যায়, আইসঢাল পতিরাম পাড়া থেকে দুলুয়া ৩ কি.মি. কাচা সড়কের ২ পার্শ্বের আকাশমনি, ইউক্যালিপটাস, সালটি, জারুল মেহগনি, বকাইন ৩ থেকে ৫ ফুট উচ্চতার গাছগুলো মরে গেছে। গাছের পাতাগুলো লালচে বর্ণের হয়ে মারা গেছে। অনেক গাছের পাতা নেই, শুকিয়ে কাঠ খড়িতে পরিণত হয়েছে। একই চিত্র দেখা যায় ওই ইউনিয়নের ইউনিয়ন পরিষদের অফিস থেকে ৩ কি.মি. মোবারক বাড়ি পর্যন্ত সড়কে। আবার মাছুয়াপাড়া থেকে নিজ বাড়ি কাচারীপাড়া সড়কেও।
সৈয়দপুর বন বিভাগ অফিস জানায়, ২০১০-১১ অর্থ বৎসরে এ সকল এলাকার কাচা ওই সড়কগুলিতে ৯ কি.মি. ৯ হাজার বিভিন্ন বনজ চারা লাগানো হয়। প্রশিণের মাধ্যমে ৪৫ সদস্য বিশিষ্ট কমিটি করে উপকারভোগীদের তত্ত্বাবধানে দেয়া দায়িত্ব। যত্ন ও পাহারায় ৯ কি. মিটারে ৭ জনকে প্রতি মাসে ৭ হাজার টাকা দেয়া হয়। এরপর প্রতি বৎসর এ সকল গাছের চারা মারা গেলে সেখানে পরিবর্তিত চারা রোপণ করা হয়। তবে পর্যাপ্ত যত্নের অভাবে এ সকল গাছের মধ্যে ৬ হাজার গাছ মরে গেছে।
উপকারভোগী বন মালিক সমিতি জানায়, সংশ্লিষ্টরা এ সকল গাছের রোপণ, বাঁশ, সুতলী বাবদ গাছ প্রতি তিন টাকা দিয়েছিল। পরে গাছগুলো বাড়তে থাকায় নিরাপত্তার ৯ কিলোমিটারে ৯ জন পাহারাদার দেওয়ার কথা থাকলেও ৭ জনকে দিয়েছে। আর তাদের বেতন বাবদ ১ হাজার টাকা প্রদান করে কর্তৃপ। এতে ওই টাকায় তাদের সংকুলনা না হওয়ায় তারা তেমন গুরুত্ব দেয় না, আর তাপদাহে সেচ দেয়ার ব্যবস্থা না থাকায় গাছগুলো মরে গেছে।
এ নিয়ে ওই কমিটির সভাপতি মো. আশরাফ আলী জানান, গাছকে বাঁচাতে যখন যা প্রয়োজন সংশ্লিষ্টরা তা না দেয়ায় গাছগুলো মরে গেছে। ক্ষেত্রে আমাদের করার কিছুই নেই। সৈয়দপুর বন বিভাগ অফিসের রেঞ্জ কর্মকর্তা আঃ মজিদ জানান, মৃত এবং মৃতপ্রায় গাছগুলো পুনরুদ্ধারে গত ১৮ এপ্রিল উপকারভোগীদের নিয়ে আলোচনা করা হয়েছে। তাদের প্রয়োজনীয় উপকরণ দেয়া না হলেও সামর্থ্যরে মধ্যেই যেন বাকি গাছগুলোকে বাঁচা যায় সেদিকে নির্দেশনা দেয়া হয়েছে।
তবে পরিবেশবিদরা রোপিত গাছের যত্নের অভাবে মৃতকে সংশ্লিষ্টদের অবহেলাকে দায়ি করছেন। আর এ অবস্থা অব্যাহত থাকলে গাছের অভাবে জীববৈচিত্র্যর বিপর্যয় নেমে আসবে আর উত্তরাঞ্চল মরুভূমিতে পরিণত হবে। তাই এখনই গাছ বাঁচাতে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেয়ার দাবি জানান তারা সংশ্লিষ্ট উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের কাছে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ