• শনিবার, ২৫ জুন ২০২২, ০৫:২৫ পূর্বাহ্ন |

খানসামায় একটি ব্রীজের অভাবে হাজারো মানুষের দুর্ভোগ

Khansama news (setu) 20.04বিশেষ প্রতিনিধি: মানুষের মৌলিক চাহিদার অন্যতম হলো শিক্ষা, স্বাস্থ্য আর খাদ্য। তাই এসব চাহিদা পুরণ করে সুস্থ জীবনধারা সন্ধ্যানে মানুষকে ছুটতে হয় নানা জায়গায়। আর তা যদি আটকে থাকে মাত্র একটি ব্রীজের কারণে। তাহলে মানুষের জীবনধারাটাই আটকে পরে। ঠিক এমনটিই ঘটেছে দিনাজপুর জেলার খানসামা উপজেলার গোয়ালডিহি, দুবলিয়া ও গছাহার গ্রামের মানুষের ভাগ্যে।
উপজেলার ওই এলাকায় প্রায় সাড়ে তিন হাজার পরিবারের লোকজন সহ হাজার হাজার পথচারী আর স্কুল, কলেজ, মাদরাসার শিক্ষার্থীদের একমাত্র যাতায়াতের রাস্তা ইছামতি নদীর সাঁকোরপাড়। স্বাধীনতা পূর্ববর্তী সময় থেকে ওই স্থান দিয়ে নৌকায় করে লোকজন যাতায়াত করত। পরে কালের ধারায় নৌকার পরিবর্তে স্থানীয় উদ্যোগে নির্মিত হয় একটি অস্থায়ী বাঁশের সাঁকো। ফলে, ওই সাঁকো দিয়ে এলাকাবাসী আর পথচারীদের যাতায়াত ক্রমে বেড়ে যায় এবং নদীর ধারে ঘন জনসবতি গড়ে ওঠে।
সাঁকোরপাড়ের সত্তরোর্ধ হারিমামুন শাহ, নছিমদ্দিন, বাচ্ছা ভায়া ও অছুরত ঢাঙাসহ অনেকের সাথে কথা বলে জানা যায়, অনেক আগে ওই এলাকার মানুষের সওদাপাতি বেচাকেনা করতে চড়কডাঙ্গা এবং পীরের হাট নামে দুটি নামকরা হাট নিয়মিত ভাবে চালু ছিল। কিন্তু ইছামতি নদী পারাপারে ভীষণ অসুবিধা হওয়ায় হাট দুটি এখন বিলুপ্ত হয়ে গেছে। তবে, তার পরিবর্তে সাঁকোর পশ্চিম পাড়ের লোকজন বটতলী বাজার এবং পূর্ব পাড়ের লোকজন লালদিঘী নাকম স্থানে পৃথক দুটি বাজার শুরু করেছে।
শিক্ষা বিষয়ে জানতে চাইলে তারা বলেন, সাঁকোরপাড় এলাকার ছেলে মেয়েদের লেখাপড়া করাতে ১৯৭২ সালে চড়কডাঙ্গা প্রাথমিক বিদ্যালয়, ১৯৮২ সালে সাঁকোটির নামানুসারে সাঁকোরপাড় আকবর আলী শাহ সিনিয়র আলিম মাদরাসা, ১৯৮৮ সালে চড়কডাঙ্গা উচ্চ বিদ্যালয় এবং গোয়ালডিহি দুবলিয়া গ্রামের সীমান্তবর্তী গছাহার গ্রামে ১৯৯১ সালে পীরেরহাট প্রাথমিক বিদ্যালয় নামে আরেকটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান করা হয়। এছাড়া গরীব নারী ও শিশুদের চিকিৎসা সেবা দিতে ১৯৯৮ সালে লালদিঘী স্ট্যাটিক কিনিক স্থাপন করা হয়। কিন্তু এসব প্রতিষ্ঠান হলেও মাত্র একটি ব্রীজের অভাবে ভাঙা সাঁকোর নিচ দিয়ে ওই এলাকার হাজার হাজার মানুষ ও শিক্ষার্থীদের চড়ম দুর্ভোগে চলাচল করতে দেখা গেছে। তারা পণ্য সদাই ক্রয় করতে পশ্চিমপাড় থেকে নদী পার হয়ে সৈয়দপুর শহরে আর পূর্ব পাড়ের মানুষের উৎপাদিত পণ্য নিয়ে নদী পার হয়ে পশ্চিম পাড়ের বিখ্যাতা পাকেরহাট  ও রাণীরবন্দরে যাতায়াত করে। এছাড়াও সারা বছর নদী পার হয়ে দুবলিয়া ও গছাহার গ্রামের প্রায় দেড়শ শিক্ষার্থী পশ্চিমপাড়ের সাঁকোরপাড় মাদরসা এবং  বাংলাভাষা কলেজে আর পশ্চিম পাড়ের প্রায় আড়াইশ শিক্ষার্থী পূর্বপাড়ের চড়কডাঙ্গা উচ্চ বিদ্যালয়, প্রাথমিক বিদ্যালয় ও পীরেরহাট সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে যাতায়াত করে। একই ভাবে মাত্র দেড় কি.মি. দূরের অবস্থিত লালদিঘী ক্লিনিকে গর্ভবতী মহিলাদের নিয়ে যাতায়াতে নিত্যদিন চরম দুর্ভোগের শিকার হয় সাধারণ মানুষ।
অপরদিকে, অধিক চলাচল আর রোদ-বৃষ্টি-ঝড়ে নষ্ট সাঁকো পারাপার হতে গিয়ে বিভিন্ন সময় ওই এলাকার ব্যবসায়ী আব্দুল মজিদ, সিরাজুল ইসলাম, বাবলু রহমান, আজাদ আলী, শিক্ষক মোহাম্মদ আলী মিস্টার, চিকিৎসক আব্দুস সালাম, ডা. আকবর আলী, ইউপি সদস্য গণেশ চন্দ্র, সার্ভেয়ার শওকত আলী সরকার, ভ্যান চালক এনামুল হক, ছকেত আলী এবং মোটর সাইকেল আরোহী গোলাম রব্বানী গুরুতর আহত হন। বর্তমানে এলাকাবাসী সাঁকোর জায়গাটিতে একটি ব্রীজ নির্মাণ করে যাতায়াত সমস্যার সমাধান করে দিতে সরকারের হস্তক্ষেপ কামনা করেন।
কথা হয়, সাঁকোরপাড়া আকবর আলী শাহ্ মাদরাসার অধ্যক্ষ মোহাম্মদ আলী জিন্নাহ, চড়কডাঙ্গা উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ময়জুল আলম বাচ্চু, প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক রাবেয়া খাতুন ও পীরেরহাট সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক দূর্গাচরণ রায়ের সাথে। তারা বলেন, বর্ষার পানিতে এবং অধিক চলাচলের কারণে সাঁকোটি বারবার ভেঙে যায়। তাই ভাঙা সাঁকো দিয়ে নদী পার হয়ে শিক্ষার্থীদের যাওয়অ আসা করতে ভীষণ কষ্ট হয়।
এ ব্যাপারে সংশ্লিষ্ট ইউপি চেয়ারম্যান সাখাওয়াত হোসেন লিটনের সাথে কথা হলে তিনি সিসি নিউজকে জানান, গুরুত্বপূর্ণ ওই স্থানটিতে একটি ব্রীজের ব্যবস্থা করতে আমি জোড় প্রচেষ্টা চালাচ্ছি। আশা রাখি সমাধান হয়ে যেতে পারে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ