• শনিবার, ০২ জুলাই ২০২২, ০২:১৮ পূর্বাহ্ন |

গরমে রাজধানীতে ডায়রিয়ার প্রকোপ

imagesঢাকা: প্রচণ্ড গরমে রাজধানীসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে ডায়রিয়ার প্রকোপ বেড়ে গেছে। বিশুদ্ধ পানির সংকট, খোলা ও বাসি খাবার গ্রহণের কারণে ডায়রিয়ার প্রকোপ বাড়ছে বলে জানিয়েছেন ডাক্তাররা।
মহাখালী আন্তর্জাতিক উদারাময় কেন্দ্র (আইসিডিডিআরবি) সূত্রে জানা গেছে, প্রচণ্ড গরমে রাজধানীতে প্রতিদিনই ডায়রিয়ায় আক্রান্তের সংখ্যা বাড়ছে। রবিবার রাত ৮টা পর্যন্ত প্রায় ৭শ রোগী আইসিডিডিআরবিতে ভর্তি হয়েছে। ডায়রিয়া আক্রান্তদের মধ্যে ৬০ ভাগ বয়স্ক ও ৪০ ভাগ শিশু।
আইসিডিডিআরবির চিফ ফিজিশিয়ান ডা. পি কে বর্ধন জানান, এখন ডায়রিয়ার মৌসুম। প্রচণ্ড গরমে বিশুদ্ধ খাবার পানির তীব্র সংকট দেখা যাচ্ছে। তাছাড়া বেশির ভাগ মানুষ ওয়াসার সরবরাহ করা পানি কিংবা অনিরাপদ পানি ব্যবহার করে থাকে। এছাড়া খোলা ও বাসি খাবারের কারণেও ডায়রিয়ায় আক্রান্ত হচ্ছে মানুষ।
সমাজ কল্যাণ অধিদপ্তর সূত্র জানায়, রাজধানীর ফুটপাত ও বস্তিতে ভাসমান প্রায় ৩০ লাখ মানুষ আছে। তারা রাস্তার পাশে খোলা বাসি খাবার খাচ্ছে। ফুটপাত, রেলস্টেশন, লঞ্চঘাট, বাস টার্মিনাল এবং রাস্তার পাশে অস্বাস্থ্যকর পরিবেশে তাদের বাস। ওয়াসার পানিই তাদের একমাত্র ভরসা। তবে যারা অফিস আদালতে মিনারেল ওয়াটার খাচ্ছেন, তাদের অনেকেও ডায়রিয়ায় আক্রান্ত হচ্ছেন।
আইসিডিডিআরবির বিশেষজ্ঞ ডাক্তাররা বলছেন, বাজারজাত করা ৯৮ ভাগ মিনারেল ওয়াটার ওয়াসার কিংবা অনিরাপদ পানি বোতলজাত করে বিক্রি করছে। ওই পানিতে ডায়রিয়ার জীবাণু থাকা স্বাভাবিক।
ডা. বর্ধন বলেন, বিশুদ্ধ পানি সংকট থাকা মানুষ যেখানে সেখানে ওয়াসার সরবরাহ করা পানি ব্যবহার করে আসছে। শিশু ও বৃদ্ধ বয়সে মানুষের রোগ প্রতিরোধের ক্ষমতা কম থাকে। এ কারণে এই দুই শ্রেণির মানুষ ডায়রিয়ায় বেশি আক্রান্ত হয়। রাজধানীর প্রায় সব এলাকা থেকে ডায়রিয়ায় আক্রান্ত রোগী আইসিডিডিআরবিতে ভর্তি হচ্ছে।
তবে বাড্ডা, তেজগাঁও, যাত্রাবাড়ী, পুরাতন ঢাকা ও কাঁঠাল বাগান এলাকা থেকে আসা ডায়রিয়ায় আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা বেশি। আইসিডিডিআরবির দীর্ঘ মেয়াদী ডায়রিয়া ইউনিটের প্রধান ডা. আজহারুল ইসলাম জানান, আক্রান্ত রোগীদের শরীরে পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে বিশেষ কোনো জীবাণু পাওয়া যায়নি। তারা শুধু ডায়রিয়াই আক্রান্ত হয়েছেন। তবে এসময় মানুষজন চিকেন পক্স, টাইফয়েড, ভাইরাস জ্বর, আমাশাসহ সংক্রামক ও পানিবাহিত রোগে আক্রান্ত হচ্ছে।
এদিকে, ডাক্তাররা এই গরমে ওরস্যালাইন খাওয়ার পরামর্শ দিচ্ছেন। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের মেডিসিন বিভাগের বিশেষজ্ঞ অধ্যাপক ডা. এ বি এম আব্দুল্লাহ বলেন, সবারই এসময় পারলে গরম পরিহার করা ভাল। মাঠে যারা কাজ করেন কিংবা শ্রমিকদের দেহ থেকে এ সময় ঘামের সঙ্গে প্রচুর লবণ বের হয়ে যায়। প্রচুর পানি পান করলে ও লবণ মিশ্রিত পানি পান করলে শরীর থেকে বের হওয়া লবণ পূরণ হয়ে যাবে।
এছাড়া জন্ডিস, আমাশয় ও প্রচণ্ড জ্বর হলে বিশেষজ্ঞ ডাক্তারদের কাছে যেতে পরামর্শ দিয়েছেন ডাক্তাররা।

ঢাকাটাইমস


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ