• রবিবার, ০৩ জুলাই ২০২২, ০৪:৫০ পূর্বাহ্ন |

নিবন্ধন জটিলতায় ৫ হাজার ফার্মাসিস্ট

Farmasitঢাকা: নিবন্ধন জটিলতায় ভুগছেন দেশের পাঁচ হাজার ফার্মাসিস্ট। আর এ জটিলতায় থমকে গেছে তাদের জীবনমানের উন্নয়ন। গ্রাজুয়েশন ডিগ্রি নিয়েও নিছক নিবন্ধন না থাকায় নামমাত্র বেতনে চাকরি করতে বাধ্য হচ্ছেন এসব ফার্মাসিস্ট। আর উচ্চতর শিক্ষার ক্ষেত্রেও প্রধান বাধা হয়ে দাঁড়িয়েছে নিবন্ধনহীনতা।
দেশের সরকারি ও বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় থেকে গ্রাজুয়েশন নেওয়া এসব ফার্মাসিস্ট নিবন্ধন জটিলতার সমস্যা থেকে মুক্তি পেতে ঐক্যবদ্ধ হয়েছেন। গড়েছেন ফার্মাসিস্ট গ্রাজুয়েটস অ্যাসোসিয়েশন। নিবন্ধনের জন্য পরীক্ষা এড়ানোর দাবিতে গতকাল তারা ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে একত্রিত হয়ে সম্মেলন করেছেন।
ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের নবাব নওয়াব আলী সিনেট ভবনে অনুষ্ঠিত সম্মেলনে তারা জানিয়েছেন, ‘ফার্মেসি অর্ডিন্যান্স ১৯৭৬’ অমান্য করে ফার্মেসি কাউন্সিল পরীক্ষা নেওয়ার নামে নবীন ফার্মসিস্টদের নিবন্ধনে সংকট সৃষ্টি করেছে। তারা জানিয়েছেন, ১৯৭৬ সাল থেকে ২০০৪ সাল পর্যন্ত ‘এ’ ক্যাটাগরির এক হাজার নিবন্ধন দেওয়া হলেও তারপর থেকেই নানা জটিলতায় আটকে গেছে প্রায় পাঁচ হাজার ফার্মাসিস্টের নিবন্ধন। এ সম্মেলন থেকে নিবন্ধন জটিলতা কাটাতে ১৫ দিনের  আলটিমেটামও দেওয়া হয়েছে।
সম্মেলনে উপস্থিত হয়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ফার্মেসি বিভাগের অধ্যাপক আ ব ম ফারুক বলেন, ওষুধশিল্পে বাংলাদেশ প্রায় স্বয়ংসম্পূর্ণ। কানাডা, আমেরিকা, অস্ট্রেলিয়াসহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশের বড় বড় কোম্পানির ফার্মাসিস্ট বাংলাদেশের। বাইরের দেশে যাওয়ার জন্য ফরম পূরণ করতে গেলেই রেজিস্ট্রেশন নম্বর লাগে কিন্তু ফার্মেসি কাউন্সিল কর্তৃক নিবন্ধন না দেওয়ায় এবং অহেতুক জটিলতা তৈরি করায় দেশের ফার্মাসিস্টরা বিদেশে স্কলারশিপ নিয়ে যেতে পারছেন না।
তিনি জানান, ভারত, পাকিস্তান, নেপালের ফার্মাসিস্টরা বেশি বেতন পাচ্ছে। অথচ এখানে মাত্র ১০ হাজার বা কিছু ক্ষেত্রে তারও কম বেতনে চাকরি শুরু করতে হচ্ছে। রেজিস্ট্রেশন জটিলতার কারণে ফার্মাসিস্টদের দক্ষ এবং মানবসম্পদে রূপান্তর করা সম্ভব হচ্ছে না। বর্তমানে বাংলাদেশে প্রায় পাঁচ হাজার ফার্মাসিস্ট রয়েছে। রেজিস্ট্রেশন না থাকায় চাকরি ক্ষেত্রে গেলে তাদের অর্ধেক বেতন দেওয়ার প্রস্তাব দেওয়া হচ্ছে বলে জানান তিনি।
বিশিষ্ট এই শিক্ষাবিদ বলেন, ফার্মাসিস্টদের রেজিস্ট্রেশন দেওয়ার নামে আইন অমান্য করে পরীক্ষার ফি নেওয়া হচ্ছে। প্রত্যেক রেজিস্ট্রেশনের বিপরীতে পরীক্ষার দেওয়ার জন্য এক হাজার টাকা করে নেওয়া হচ্ছে, যা আইনের সুস্পষ্ট লঙ্ঘন। তাই পূর্বে রেজিস্ট্রেশন পরীক্ষার ফি বাবদ নেওয়া টাকার হিসাব জনসম্মুখে তুলে ধরার দাবি জানান তিনি।
আ ব ম ফারুক আরো বলেন, ফার্মেসি অর্ডিনেন্স-১৯৭৬ অনুযায়ী ফার্মেসি কাউন্সিল অব বাংলাদেশ ফার্মাসিস্টদের এ, বি ও সি ক্যাটাগরির রেজিস্ট্রেশন দিয়ে থাকে। বাংলাদেশের স্বীকৃত বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বি ফার্ম পাসকৃত সবাইকেই ‘এ’ ক্যাটাগরির ফার্মাসিস্ট হিসেবে অন্তর্ভুক্ত করা হয়।
সম্মেলনে বলা হয়, ১৯৭৬ সালে থেকে ২০০৪ সাল পর্যন্ত ‘এ’ ক্যাটাগরির রেজিস্ট্রেশনের জন্য কোনো পরীক্ষা ছাড়াই গ্রাজুয়েট ফার্মাসিস্টদেরকে রেজিস্ট্রেশন দিয়ে এসেছে। কিন্তু ২০০৪ সাল থেকে ফার্মেসি কাউন্সিল বেআইনিভাবে আইন লঙ্ঘন করে নিবন্ধন দেওয়ার আগে একটি আলাদা পরীক্ষার নিয়ম চালু করে।
সম্মেলনের বক্তাদের অভিযোগ, যদি আলাদাভাবে পরীক্ষা নেওয়া জরুরি হতো তাহলে কাউন্সিল আইনটি সংশোধন করে নিত, তা না করে গায়ের জোরে পরীক্ষা পদ্ধতি চালু করেছে। এটি আইনের সুস্পষ্ট লঙ্ঘন। ছাত্ররা পরীক্ষা দেওয়ার ভয়ে ভীত নয়, কিন্তু তা হতে হবে আইন অনুযায়ী।
তারা জানান, এ ছাড়া ডাক্তার, ইঞ্জিনিয়ার, নার্স প্রভৃতি পেশার বেলায়ও এফিলিয়েটেড প্রতিষ্ঠান থেকে পাস করার পর তাদের যথাযথ কাউন্সিল থেকে পরীক্ষা ছাড়াই রেজিস্ট্রেশন দেওয়া হয়।
বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয় থেকে অংশ নেওয়া ফার্মাসিস্টরা বলেন, ‘আমরা অন্যায়ভাবে কোনো পরীক্ষা দেব না। প্রায় দুই হাজার পরীক্ষা দিয়ে আমরা পাস করেছি। পরীক্ষা দিতে আমাদের কোনো আপত্তি নেই। তবে তা আইন অনুযায়ী হতে হবে।’
এ ছাড়া সংগঠনের সভাপতি ইশতিয়াক আহমেদ আজ সোমবার থেকে আগামী ১৫ দিনের মধ্যে পরীক্ষা সংক্রান্ত কার্যক্রম বন্ধের দাবি জানান। অন্যথায় পরে কঠোর কর্মসূচিতে যাওয়ার ঘোষণা দেন।
অনুষ্ঠানে অন্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন স্বাধীনতা ফার্মাসিস্ট পরিষদের আহ্বায়ক সেলিম আজাদ চৌধুরী, সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক আমিনুল ইসলাম, সাংগঠনিক সম্পাদক এ কে লুৎফর কবিরসহ বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের গ্রাজুয়েট ফার্মাসিস্ট।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ