• বুধবার, ২৯ জুন ২০২২, ১২:০১ অপরাহ্ন |
শিরোনাম :
ইউনূস, হিলারি ও চেরি ব্লেয়ারের ওপর নিষেধাজ্ঞা দেওয়ার দাবি সংসদে মার্কেট-শপিং মলে মাস্ক বাধ্যতামূলক করে প্রজ্ঞাপন খানসামায় র‌্যাবের অভিযান ইয়াবাসহ দুই মাদককারবারী গ্রেপ্তার ডোমার ও ডিমলায় প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ ১০ উদ্যোগ নিয়ে কর্মশালা নীলফামারীতে ৫ সহযোগীসহ কুখ্যাত চোর ফজল গ্রেপ্তার সৈয়দপুরে তথ্যসংগ্রহকারী ও সুপারভাইজারদের দিনব্যাপী প্রশিক্ষণ অনুষ্ঠিত জয়পুরহাট বিনা খরচে আইনের সেবা পেতে সেমিনার শিক্ষক লাঞ্চনা ও হেনস্তার বিরুদ্ধে সৈয়দপুরে উদীচী শিল্পী গোষ্ঠীর প্রতিবাদ সমাবেশ সৈয়দপুরে শহীদ আমিনুল হকের স্মরণসভা অনুষ্ঠিত ফুলবাড়ীতে বিনামূ‌ল্যে বীজ ও সার বিতরণ

সংকুচিত হচ্ছে পাহাড়ের বাঁশক্ষেত্র

BASসিসি নিউজ: ক্রমেই সংকুচিত হয়ে আসছে পাহাড়ের বাঁশক্ষেত্র। অথচ একসময় নিত্যদিনের চাহিদা পূরণের জন্য জোগান আসত বাঁশ থেকে এবং পার্বত্য চট্টগ্রামে অর্থ সঞ্চালনের প্রধান উৎস ছিল এই বাঁশ। প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে এ অঞ্চলের ৩৫ শতাংশ মানুষ এই বাঁশশিল্প, ব্যবসা, পরিবহন ও কর্তনের মাধ্যমে পরিচালিত ব্যবসার ওপর নির্ভরশীল। মাত্র চার দশক আগেও পাহাড়ের বিভিন্ন প্রজাতির প্রাকৃতিক ও সৃজিত বাঁশই ছিল অর্থনীতির মূল চালিকাশক্তি। পাহাড়ের বিস্তীর্ণ বাঁশক্ষেত্রকে পুঁজি করেই একসময় গড়ে উঠেছিল কর্ণফুলী পেপার মিল (কেপিএম)। বর্তমানে বাঁশ কমে যাওয়ায় যেমন কেপিএমের উৎপাদন ব্যাহত হচ্ছে, তেমনি ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে অনেকের জীবন-জীবিকা।
তারপরও পার্বত্যাঞ্চল এখন পর্যন্ত দেশের সবচেয়ে বাঁশবহুল এলাকা, কিন্তু গবেষণা ও পরিকল্পনার সমন্বয় না থাকায় পাহাড়ের বাঁশক্ষেত্র ক্রমেই ছোট হয়ে আসছে। বাঁশ নিয়ে চট্টগ্রামে সরকারি একটি গবেষণা প্রতিষ্ঠান আছে, কিন্তু তা থেকে স্থানীয় কৃষকরা প্রয়োজনীয় উপদেশ ও সহায়তা পান না বলে অনেকের অভিযোগ।
এদিকে খাগড়াছড়ি জেলার দুই উদ্যমী যুবক উদ্ভাবন করেছেন বাঁশ চাষের এক নতুন কৌশল। এই কৌশল কাজে লাগিয়ে পার্বত্যাঞ্চলে বাণিজ্যিক ভিত্তিতে বাঁশ চাষের ব্যাপক সম্ভাবনা রয়েছে। কিন্তু পৃষ্ঠপোষকতার অভাবে তারাও এগোতে পারছে না না।
গবেষকরা জানিয়েছেন, পার্বত্যাঞ্চলের মাটি, পানি আর আবহাওয়া বাঁশ চাষের উপযোগী এদেশে বাণিজ্যিক ভিত্তিতে বাঁশ চাষ করে লাভবান হওয়ার ব্যাপক সম্ভাবনাও রয়েছে। এতে পরিবেশের ভারসাম্যও রক্ষা হবে।
বিশেষজ্ঞদের মতে, পৃথিবীতে প্রায় ৩৫০ প্রজাতির বাঁশ রয়েছে। এর মধ্যে পার্বত্যাঞ্চলে মুলি, বাজালি, রফাই, মৃতিঙ্গাসহ প্রায় ২০ প্রজাতির বাঁশ পাওয়া যায়।
বাঁশ নিয়ে গবেষণায় জড়িত মোহসীন আলী জানান, ১০০ বছর পরপর বাঁশে এক ধরনের ফুল হয়। তখন বাঁশ মরতে শুরু করে। এই মড়কের কবলে পড়ে কয়েক বছর আগে এই এলাকায় ব্যাপক হারে বাঁশ মরে যায়। এতে বেশির ভাগ বাঁশবাগানের বিলুপ্তি ঘটে। বর্তমানে একেবারে দুর্গম অঞ্চলে যে বাঁশক্ষেত্রগুলো অবশিষ্ট আছে, সেখান থেকে বাঁশ সংগ্রহ করতে কষ্ট আর খরচ দুই-ই বেশি পড়ে যায়।
বিগত ২০০৫ সালে পাহাড়ে মড়কের কারণে বিপুল পরিমাণ বাঁশ ধ্বংস হয়ে যাওয়ায় কর্ণফুলী পেপার মিলে কাঁচামাল সংকট দেখা দিয়েছিল। এ কথা জানিয়ে পার্বত্য চট্টগ্রাম দক্ষিণ বনবিভাগের কর্মকর্তা হোসাইন মোহাম্মদ নিশাত বলেন, ‘বাঁশ নিয়ে আমরা নতুন পরিকল্পনা নেওয়ার চেষ্টা করছি। আশা করি শিগগিরই এ ব্যাপারে প্রকল্প হাতে নেওয়া হবে।’
উদ্ভিদবিজ্ঞানী ও চট্টগ্রাম বাঁশ গবেষণা কেন্দ্রের কর্মকর্তা সৈয়দা ফাহমিদা বানু জানান, শুধু উৎপাদন নয়, বিভিন্ন কাজে লাগানো বাঁশের স্থায়িত্ব বাড়ানোর বিষয়েও গবেষণা করছেন তারা।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ