• বৃহস্পতিবার, ০৭ জুলাই ২০২২, ১০:১৯ অপরাহ্ন |

হার্ডলাইনে সরকার

Awamili Flagসিসি ডেস্ক: হার্ডলাইনে সরকার। রাজনীতিতে নমনীয়তা কিংবা আপোষের কোনো লক্ষণই নেই সরকারের মধ্যে। বরং সরকারবিরোধী যে কোনো আন্দোলন বানচাল করে দিতে প্রয়োজনে মাঠে থাকবে ক্ষমতাসীন দল। রাজনীতির মাঠ দখলে রাখতে তাদের দিক-নির্দেশনাও পৌঁছে গেছে তৃণমুলে। নির্দেশনা পেয়ে জেলা-উপজেলায় বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত ও নির্বাচিত আওয়ামী লীগ দলীয় সংসদ সদস্য ও উপজেলায় নির্বাচিত চেয়ারম্যানরা মাঠ দখলের প্রস্তুতি নিচ্ছেন। আভাস পাওয়া গেছে, বিএনপিকে তারা মাঠেই নামতে দেবে না। এ নিয়ে খোদ খাদ্যমন্ত্রী অ্যাডভোকেট কামরুল ইসলাম বলেছেন, লংমার্চ কর্মসূচি পালনের নামে কোনো নৈরাজ্য সৃষ্টির পাঁয়তারা চললে সরকার তা কঠোরহস্তে দমন করবে।
এদিকে, সরকারবিরোধী আন্দোলন মোকাবিলায় দলের সিনিয়র নেতাদের মাঠে থাকার পরামর্শ দেয়া হয়েছে দলের হাইকমান্ড থেকে। সিনিয়র এসব নেতারা প্রয়োজনে অবস্থা বুঝে যে কোনাে ব্যবস্থা নেবেন। জানা গেছে, বিএনপির আন্দোলনের হুমকি রাজনৈতিকভাবে মোকাবিলার জন্য কেন্দ্রীয় নেতৃত্ব থেকে নানা দিক-নির্দেশনা দেয়া হচ্ছে দলের তৃণমুলে। এই নির্দেশনার মধ্যে রয়েছে, বিএনপি নেতৃত্বাধীন জোট যাতে দেশের কোথাও সরকারবিরোধী আন্দোলন করতে না পারে সেজন্য রাজধানী থেকে জেলা পর্যায়ে সজাগদৃষ্টি রাখা। কি দাবি নিয়ে আগামী দিনগুলোতে বিএনপি আন্দোলন করতে পারে, এ বিষয়টিও সরকারি দলের শীর্ষস্থানীয় নেতারা পর্যবেক্ষন করছেন বলে জানা গেছে।
সূত্র জানায়, বিএনপি ইস্যুবিহীন কোনো আন্দোলন করার চেষ্টা করলে তা কঠোরহস্তেই দমন করবে সরকার। সরকারের একাধিক সিনিয়র মন্ত্রীর সাথে আলাপ করে জানা গেছে-এই মুহূর্তে সরকার হার্ডলাইনে। আপস করার লেশমাত্রও নেই। তারা মনে করে, সাংবিধানিক প্রক্রিয়ার মধ্য দিয়ে দেশে দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়েছে। এ নির্বাচনে বিএনপি ও তাদের জোট অংশগ্রহণ না করে এখন পুনরায় জাতীয় সংসদ নির্বাচনের কথা বলা হচ্ছে। দাবি করা হচ্ছে তত্ত্বাবধায়ক সরকার।
আওয়ামী লীগ মনে করে, বিএনপির এ দাবি মানা সম্ভব হবে না। বিএনপি যদি এ দাবি নিয়ে আন্দোলন করার চেষ্টা করে তাহলে আওয়ামী লীগও ছাড় দেবে না। রাজনৈতিকভাবে তা মোকাবিলা করবে। আর আন্দোলনের নামে দেশে যদি আবারো হামলা-ভাঙচুর হত্যা-নৈরাজ্য ও অগ্নিসংযোগের মাধ্যমে মানুষ হত্যার পথ বেছে নেয় তাহলে প্রশাসনের মাধ্যমে তা কঠোর ব্যবস্থা নেয়া হবে। বিএনপি ও তাদের জোট এধরনের কোনো কর্মকা- না করতে পারে তার জন্য রাজপথ দখল রাখার জন্য সারাদেশে দলের তৃণমূল নেতাকর্মীদেরকে দিক-নির্দেশনা দেয়া হচ্ছে।
জানা গেছে, ভারতের জাতীয় নির্বাচন ও সরকার গঠনের পর থেকে বাংলাদেশের সরকারের রাজনৈতিক পলিসিও কিছুটা হেরফেরও হতে পারে। তবে উভয় দেশের স্বার্থসংশ্লিষ্ট বিষয়গুলোর কোনো পরিবর্তন হবে না বলে জানা গেছে। আওয়ামী লীগের সিনিয়র কয়েকজন সংসদ সদস্যের সাথে কথা বলে জানা গেছে, জাতীয় সংসদে যেহেতু বিএনপি-জামায়াতের কোনো সংসদ সদস্য নেই বা তাদের কোনো প্রতিনিধি এবার নেই তাই সংসদ পর্যন্ত এবার তাদের কোনো আন্দোলনও নেই। সংসদ ভবন পর্যন্ত তাদের কোনো উপস্থিতিও নেই। তাই সংসদ নিরাপদ। এমপিরা মাঠে থাকলে রাজনৈতিক কর্মীরাও তাদের সাথে থাকতে অনেকটা সাহস পায়। পাশাপাশি প্রশাসনও কিছুটা ছাড় দেয়ার মানসিকতা দেখাতে পারে। এবার বিএনপির ক্ষেত্রে তা না থাকায় কিছুটা হলেও সমস্যা হবে। কাজেই সরকারবিরোধী যে কোনো আন্দোলন দমাতে প্রশাসনও শক্ত অবস্থানে থাকতে পারছে।
এদিকে, ক্ষতাসীন আওয়ামী লীগের নেতারা মনে করেন আন্দোলন করতে যে ধরনের প্রস্তুতি-প্রক্রিয়া দরকার বিএনপি-জামায়াতের তা নেই। তাদের সংগঠনের সাংগঠনিক শক্তিও এখন আর নেই। তাদের দল-সংগঠন গোছাতে গোছাতেই পার হয়ে যাবে কমপক্ষে দু’বছর। সরকারের একাধিক সূত্রের সাথে আলাপ করে জানা গেছে, ১৯৯৬ সালে ত্রয়োদশ সংশোধনীর মাধ্যমে তত্ত্বাবধায়ক সরকার ব্যবস্থা প্রবর্তন করা হয়। এই ব্যবস্থার অধীনে সপ্তম, অষ্টম ও নবম জাতীয় সংসদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। ২০১১ সালের ১০ মে তত্ত্বাবধায়ক ব্যবস্থা বাতিল করে প্রাথমিক রায় ঘোষণা করে উচ্চ আদালত। এর রায় ঘোষণার ১৬ মাস পর ২০১২ সালের ১৬ সেপ্টেম্বর পূর্ণাঙ্গ রায় প্রকাশ করে উচ্চ আদালত। এ রায়টি বাস্তবায়নের মধ্য দিয়ে সাংবিধানিক ধারা অব্যাহত রাখতে গত ৫ জানুয়ারি দেশে দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়েছে।
আর এ নির্বাচনে বিএনপি নের্তৃত্বাধীন জোট অংশ না নেয়ায় খালি মাঠে গোল করে আওয়ামী লীগ। বিপুল বিজয় লাভ করে ক্ষমতাসীন দলটি। এবং পুনরায় সরকারও গঠন করে।
উৎসঃ   ইনকিলাব


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ