• শনিবার, ০২ জুলাই ২০২২, ০২:২৩ অপরাহ্ন |

আসামীর স্বীকারোক্তি: মিনিকে পালাক্রমে ধর্ষনের পর হত্যা

Followup-Logo2নীলফামারী প্রতিনিধি: নীলফামারীর ডিমলায় পঞ্চম শ্রেণীর ছাত্রী মিনি আক্তারকে পালাক্রমে ধর্ষনের পর শ্বাসরুদ্ধ করে হত্যা করা হয়। রোববার নীলফামারী সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট আদালতের বিচারকের কাছে ১৬৪ ধারার জবানবন্দিতে ঘটনার বিবরন কালে এসব কথা বলেন মিনি হত্যাকান্ডে আটক আশরাফুল আলম ও রিপন। সোমবার সকালে একথা জানান মিনি হত্যা মামলার তদস্তকারী কর্মকর্তা ও ডিমলা থানার  ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (তদন্ত) হারিছুল ইসলাম।
জবানবন্দীতে আটককৃতরা জানায় নিজ সুন্দরখাতা গ্রামের আব্দুর রাজ্জাকের ছেলে মিঠু (২০) সাথে মিনির প্রেমের সম্পর্ক ছিল। গত শুক্রবার রাতে মিঠু  মিনিকে চুপিসারে বাড়ীর পাশ্ববর্তী বাঁশঝাড়ে ডেকে আনে। মিনিকে তার ইচ্ছের বিরুদ্ধে প্রথমে মিঠু এবং পরে আশরাফুল ও রিপন ধর্ষন করে। মিনি বিষয়টি সবাইকে বলে দেয়ার কথা বললে তিনজনে পরিকল্পিত ভাবে তাকে শ্বাসরোধ করে হত্যার পর পাশ্ববর্তী ভুট্টা ক্ষেতে লাশ ফেলে রাখে।
উল্লেখ্য, গত শনিবার সকালে নীলফামারীর ডিমলা উপজেলার বালাপাড়া ইউনিয়নের সুন্দরখাতা গ্রামের একটি ভুট্টাক্ষেতে মিনি আক্তার (১২) লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। মিনি ওই ইউনিয়নের সুন্দর খাতা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পঞ্চশ শ্রেণীর ছাত্রী ও একই গ্রামের মৃত আব্বাস আলীর মেয়ে। হত্যার সাথে জড়িত সন্দেহে একই গ্রামের মজিবর রহমানের ছেলে রিপন (১৮) ও ফয়জার রহমানের ছেলে আশরাফুল আলম (২০) নামের দুইজনকে আটক করে পুলিশ। ঘটনার দিন সন্ধ্যায় মিনির মা মনতাহানা বেগম বাদী হয়ে  মিঠুকে প্রধান আসামী করে তিনজনের বিরুদ্ধে একটি হত্যা মামলা (নং-৬) দায়ের করেন। মামলা দায়ের ওয়ার সাথে সাথে আটককৃত আশরাফুল  ও  রিপনকে গ্রেফতার দেখিয়ে পরের দিন রোববার আদালতে হাজির করা হলে তারা ধর্ষন ও  হত্যাকান্ডের সাথে প্রত্যক্ষভাবে জড়িত থাকার কথা স্বীকার করে। তবে মামলার প্রধান আসামীকে এখনও  গ্রেফতার করতে পারেনি পুলিশ। এ ব্যাপারে  মামলার তদন্ত কর্মকর্তা ডিমলা থানার ওসি (তদন্ত) হারিছুল ইসলাম জানায়, ডিমলা থানার ওসি (তদন্ত) হারিছুল ইসলাম জানায়, মিমির প্রেমিক মিঠুকে গ্রেফতারের চেষ্টা করা হচ্ছে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ