• শনিবার, ২৫ জুন ২০২২, ১১:২২ পূর্বাহ্ন |

তিস্তা অভিমুখে লংমার্চ: আ’লীগ সতর্ক

Awamili Flagসিসি ডেস্ক: তিস্তা অভিমুখে বিএনপির লংমার্চে বাধা না দিলেও সতর্ক অবস্থানে থাকবে মতাসীন আওয়ামী লীগ। লংমার্চকে কেন্দ্র করে রাজনৈতিক সুবিধা নিতে কোনো ধরনের বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি হয় কি না সে ব্যাপারে কঠোর দৃষ্টি রাখবেন সরকারের নীতিনির্ধারকেরা। ইতোমধ্যেই দলীয় নেতাকর্মী ও স্থানীয় প্রশাসনকে এ বিষয়ে প্রয়োজনীয় নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। সে অনুযায়ী লংমার্চ কর্মসূচির রুটের ওপর ভিত্তি করে সতর্ক অবস্থান নেবে মতাসীন দলের নেতাকর্মীরা। আর আজ থেকে শুরু হওয়া দুই দিনের এ লংমার্চ কেন্দ্র থেকে মনিটর করবেন দলের দায়িত্বপ্রাপ্ত একাধিক কেন্দ্রীয় নেতা।
এ ব্যাপারে দলের সভাপতিমণ্ডলীর অন্যতম সদস্য নূহ উল আলম লেনিন বলেন, ‘তারা (বিএনপি) যদি শান্তিপূর্ণভাবে লংমার্চ করে তবে কারো আপত্তি থাকার কথা নয়; কিন্তু লংমার্চের নামে কোনো ধরনের বিশৃঙ্খলা করতে চাইলে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সাথে জনগণও তা প্রতিরোধ করবে। তাই অন্যদের মতো আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীরাও লংমার্চের ওপর নজর রেখেছে।’
সরকারের নীতিনির্ধারকদের একটি অংশের মতে, আওয়ামী লীগ দ্বিতীয় মেয়াদে সরকার গঠনের পর এখনো পর্যন্ত বিএনপি সরকারবিরোধী বড় ধরনের কোনো আন্দোলন গড়ে তুলতে পারেনি। বলতে গেলে তারা এখনো পর্যন্ত কোনো ইস্যুতে রাজপথে দাঁড়াতে পারেনি। তাই সরকারবিরোধী আন্দোলন না হলেও জনস্বার্থে অতিগুরুত্বপূর্ণ তিস্তা অভিমুখে লংমার্চকে সরকার বেশ গুরুত্বের সাথে দেখছে। এ লংমার্চে সরাসরি কোনো ধরনের বাধা সরকার দিতে চায় না। তবে রাজনৈতিক সুবিধা নিতে লংমার্চকে কেন্দ্র করে যেকোনো ধরনের অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটতে পারে বলেও আশঙ্কা করছে আওয়ামী লীগ। এর মাধ্যমে বিএনপি একটি ইস্যু তৈরি করে সরকারবিরোধী আন্দোলনের জন্য রাজপথে নামার সুযোগ নিতে চায়। এর আগেও ঢাকার বাইরে বিভিন্ন কর্মসূচিতে সংঘর্ষ বাধিয়ে সরকারের ওপর দোষ চাপানোর চেষ্টা করেছে তারা। তাই এবার যাতে এমন ঘটনা না ঘটে সে দিকে কড়া দৃষ্টি রাখবে মতাসীনেরা।
এ ব্যাপারে খাদ্যমন্ত্রী অ্যাডভোকেট কামরুল ইসলাম এক আলোচনা সভায় বলেছেন, তিস্তা অভিমুখে বিএনপি লংমার্চ নিয়ে যে আস্ফালন করছে তাতে মনে হয় শান্ত দেশে আবার  নৈরাজ্য ফিরে আসবে। এই লংমার্চকে কেন্দ্র করে যদি কোনো  নৈরাজ্যকর পরিস্থিতি সৃষ্টি করা হয় তার পরিণতি হবে ভয়াবহ।
তবে নীতিনির্ধারকদের অন্য অংশের মতে, বিএনপি জোটবিহীন একতরফা নির্বাচনের মাধ্যমে আওয়ামী লীগ সরকার গঠন করলেও বিএনপি অপ্রত্যাশিতভাবে সেই সরকারকে মেনে নিয়েছে। তাই তারা সরকারবিরোধী কোনো আন্দোলনে না গিয়ে দল গোছানোর কাজে মন দিয়েছে। সে জন্য আপাতত কোনো ইস্যু তৈরি করে তারা সরকারের বিরুদ্ধে মাঠে নামবে বলে মনে হয় না। এ কারণে তাদের তিস্তা অভিমুখে লংমার্চ নিয়ে সরকারের আপাতত তেমন কোনো মাথাব্যথা নেই।
নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক দলের সম্পাদকমণ্ডলীর এক সদস্য আলাপকালে বলেন, অনেকটা গায়ের জোরে একতরফাভাবে আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় এলেও বিএনপি সরকারকে সহযোগিতা করে যাচ্ছে। এখন পর্যন্ত তারা সরকারবিরোধী কোনো আন্দোলন গড়ে তুলতে পারেনি। সরকারের বিরোধিতা না করে তারা এখন নিজেদের ঘর সামলাতে ব্যস্ত। এটি সরকারের জন্য  বেশ ভালো। তাই শুধু লংমার্চ কেন আরো বড় কিছু নিয়েও সরকার বিন্দুমাত্র ভাবছে না।
দলীয় সূত্রগুলো জানায়, বিএনপির এই লংমার্চ কর্মসূচির রাজনৈতিক রূপের ওপর নির্ভর করছে এটিকে ঘিরে সরকার বা আওয়ামী লীগ কোন ধরনের অবস্থান নেবে। তবে লংমার্চের নামে অস্থিতিশীল পরিস্থিতি বা সরকারের জন্য চ্যালেঞ্জ হতে পারে এমন কোনো পরিস্থিতি সৃষ্টি হতে দেয়া হবে না। তাই লংমার্চের পুরো সময় কেন্দ্রীয়ভাবে মনিটর করবে আওয়ামী লীগ।
এ বিষয়ে আওয়ামী লীগের প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক হাছান মাহমুদ বলেন, লংমার্চের নামে কাউকে নৈরাজ্য সৃষ্টি করতে দেয়া হবে না। নৈরাজ্যকারীদের কঠোর হস্তে দমন করতে সরকার ও আওয়ামী লীগের প্রতিটি সদস্যকে সজাগ থাকতে হবে। জনগণ ও দেশবাসীর জানমাল রায় সরকার সর্বদা সচেষ্ট থাকবে। কোনো ধরনের নৈরাজ্য সরকার বরদাশত করবে না।
দলের উপদেষ্টামণ্ডলীর সদস্য সুরঞ্জিত সেনগুপ্ত বলেন, ‘এই লংমার্চ যদি ভায়োলেন্ট (সহিংস) মার্চ হয়, তাহলে আইনশৃঙ্খলা রাকারী বাহিনী ব্যবস্থা নেবে। আর যদি আপনারা শান্তিপূর্ণভাবে লংমার্চের কর্মসূচি পালন করেন তাহলে সরকার ও আইনশৃঙ্খলা বাহিনী আপনাদের সহযোগিতা করবে।’ সূত্র: নয়াদিগন্ত


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ