• বৃহস্পতিবার, ৩০ জুন ২০২২, ০৩:৫৪ পূর্বাহ্ন |

মুন্সীগঞ্জের সাবেক এসপির বিরুদ্ধে বিভাগীয় মামলা

Mamla-2মুন্সীগঞ্জ: গজারিয়া উপজেলার সহকারী রির্টানিং অফিসারকে শারিরিকভাবে লাঞ্ছিত করার লিখিত অভিযোগ দাখিলের একমাসেও অভিযুক্ত এএসআই’র বিরুদ্ধে মামলা নেয়নি গজারিয়া থানা। এতে সাধারণ মানুষের মধ্যে আইনের শাসন নিয়ে প্রশ্ন উঠতে শুরু করেছে। বিষয়টি নিয়ে সোমবার জেলা আইন শৃঙ্খলা কমিটির সভায় গুরুত্বের সাথে আলোচনা হয়। এদিকে এই ঘটনায় গঠিত সরকারের উচ্চ পর্যায়ের তদন্ত কমিটির রিপোর্ট ২/১ দিনের মধ্যেই জমা হচ্ছে। এই রিপোর্টে অনেক গুরুত্বপূর্ণ বিষয় উঠে আসতে পারে। যা মাঠ পর্যায়ের প্রশাসনের জন্য দৃষ্টান্তমূলক ঘটনা হতে পারে। এমন ইঙ্গিত পাওয়া গেছে। তিন সদস্যের এই কমিটি ইতোমধ্যেই কমিটি গজারিয়ায় এসে ৪৯ জনের স্বাক্ষ্য গ্রহণ করেছেন। এর পর মুন্সীগঞ্জের জেলা প্রশাসক, অতিরিক্ত ডিআইজি, তৎকালীন পুলিশ সুপার, অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট, অতিরিক্ত পুলিশ সুপারসহ আরও ছয় জনের সাক্ষ্য নেয়া হয়। কমিটির রিপোর্ট পেশ করার সময় ছিল গত ১২ এপ্রিল। পরে দু’সপ্তাহ সময় সময় বর্ধিত করার আবেদন করা হয় বলে জানান কমিটির প্রধান এনএম জিয়াউল আলম। মন্ত্রী পরিষদ বিভাগের অতিরিক্ত সচিব এনএম জিয়াউল আলম সোমবার সন্ধ্যায় জানান, তদন্তের কাজ শেষ পর্যায়ে। তাই কাল (মঙ্গলবার) বা পরশুর (বুধবার) মধ্যেই রিপোর্ট পেশ করা হবে। কমিটির অপর দুই সদস্য হচ্ছেন- স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের যুগ্ম সচিব মোস্তাফিজুর রহমান ও পুলিশের ডিআইজি (হাইওয়ে) মো. আসাদুজ্জামান মিয়া।
এদিকে সরকারি নির্দেশ অমান্য ও অসদাচরণের অভিযোগে মুন্সীগঞ্জের সাবেক পুলিশ সুপার মো. হাবিবুর রহমানের বিরুদ্ধে রবিবার বিভাগীয় মামলা করেছে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়। একই সঙ্গে সরকারি কর্মচারী (শৃঙ্খলা ও আপিল) বিধিমালা অনুযায়ী, কেন তাঁকে চাকরি থেকে বরখাস্ত ও উপযুক্ত গুরুদন্ড দেওয়া হবে না- এ বিষয়ে কারণ দর্শানোর নোটিশ দেওয়া হয়েছে। মন্ত্রণালয় থেকে পাঠানো চিঠিতে আগামী ১০ কার্যদিবসের মধ্যে কারণ দর্শানোর জবাব দিতে এসপিকে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। তিনি ব্যক্তিগত শুনানি চান কি না, তা-ও জানাতে বলা হয়েছে। স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় থেকে এ সংক্রান্ত অভিযোগনামাসহ চিঠি এসপি হাবিবুর রহমানসহ পুলিশের মহাপরিদর্শকের কার্যালয়ে পাঠানো হয়েছে। অভিযোগনামায় সই করেছেন স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব সিকিউকে মুসতাক আহমদ। এই তথ্য স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় নিশ্চিত করেছে। মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা গেছে, নির্বাচন কমিশন ও স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের নির্দেশের পরও পুলিশের একজন এএসআই বিরুদ্ধে মামলা নেননি মুন্সীগঞ্জের সাবেক এসপি হাবিবুর রহমান।
গত ২২ মার্চ উপজেলা নির্বাচনের আগের দিন মুন্সীগঞ্জের গজারিয়ার ইউএনও এবং সহকারী রিটার্নিং কর্মকর্তা ড. এ টি এম মাহবুব-উল করিমকে শারীরিকভাবে লাঞ্ছিত, গালিগালাজ ও পিস্তল দেখিয়ে মেরে ফেলার হুমকি দেন লৌহজং থানার এএসআই মো. এমদাদুল হক। তাঁর বিরুদ্ধে সরকারি কাজে বাধা, নির্বাচনী মালামালসহ প্রয়োজনীয় কাগজপত্র নষ্ট করার অভিযোগও আনা হয়। এ ঘটনা নিয়ে বেশ কয়েক দিন নির্বাচন কমিশন, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়, মুন্সীগঞ্জ জেলা প্রশাসকের মধ্যে কয়েক দফা চিঠি চালাচালি হয়।
অভিযোগনামা : হাবিবুর রহমানের বিরুদ্ধে বিভাগীয় মামলার অভিযোগে বলা হয়েছে, উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের সময় দায়িত্বপ্রাপ্ত এএসআইয়ের অসদাচরণ, কোমরে থাকা পিস্তল ও পুলিশের পোশাক দেখিয়ে মেরে ফেলার হুমকি এবং গজারিয়ার ইউএনওর জামার কলার ধরে টানাটানি করায় ২৩ মার্চের মধ্যে ওই এএসআইয়ের বিরুদ্ধে মামলা করার জন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্হা নিতে তাঁকে অনুরোধ করা হয়। কিন্তু মামলা না করে এবং নির্দেশনা অমান্য করে সরকারের বিধিসম্মত আদেশ অমান্য করেছেন তিনি, যা অসদাচরণের শামিল। এ ছাড়া মামলা নিতে প্রয়োজনীয় ব্যবস্হা নেওয়ার জন্য ২৭ মার্চ পুনরায় নির্দেশ দেওয়া হলেও তিনি তা মান্য করেননি। কারণ দর্শানোর নোটিশ জারি করে সাত কার্যদিবসের মধ্যে জবাব দাখিল করতে বলার পরও তিনি জবাব দেননি। ঘটনার পর তাঁকে প্রথমে বাধ্যতামূলক ছুটি ও পরে মুন্সীগঞ্জের পুলিশ সুপার পদ থেকে প্রত্যাহার করে সদর দফতরে সংযুক্ত করা হয়।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ