• সোমবার, ২৭ জুন ২০২২, ০৬:২৩ অপরাহ্ন |

অলৌকিক খেজুরগাছ!

0920140422090245সাতক্ষীরা: পুকুরপাড়ে জন্মানো একটি খেজুরগাছ দিন-রাতে একটি নির্দিষ্ট সময় মেনে উঁচু-নিচু হচ্ছে। খেজুরগাছের এই অলৌকিক ঘটনা স্বচোখে দেখার জন্য ভিড় করছে হাজার হাজার মানুষ। আবার রোগমুক্তির আশায় অনেক নারী-পুরুষ ভক্তিসহকারে পান করছেন ওই পুকুরের পানি।

সোমবার বিকেলে সরেজমিন কালীগঞ্জের নলতা ইউনিয়নের কাশিবাটি ফুটবল মাঠসংলগ্ন শেখপাড়া এলাকায় নজরুল ইসলামের মালিকানাধীন পুকুরপাড়ে গিয়ে দেখা গেছে এই বিচিত্র ঘটনা।

পুকুর মালিকের ভাই শেখ খায়রুল ইসলাম জানান, তাদের ৫ শতাংশ জায়গায় অবস্থিত পুকুরের পাড়ে জন্মানো খেজুরগাছটি অনেকদিন আগে থেকে হেলানো অবস্থায় বৃদ্ধি পেয়েছে। কিন্তু প্রায় ১৫ দিন যাবৎ ওই খেজুরগাছটি মাঝ বরাবর থেকে ওপরের অংশ পানিতে তালিয়ে যাচ্ছে। নির্দিষ্ট সময়ের ব্যবধানে সেটি আবার উঁচু হয়ে স্বাভাবিক অবস্থায় ফিরে আসছে। এই উত্থান-পতনের ব্যবধান কমপক্ষে ৫-৬ ফুট।

পুকুরের মালিকসহ কয়েকজন এলাকাবাসী জানান, সকাল ৮টার পর থেকে খেজুরগাছের মাঝ থেকে ওপরের অংশ (পাতাসহ) পানিতে ডুবে যায়। এ অবস্থা থাকে বিকেল পর্যন্ত। আবার পড়ন্ত বিকেল থেকে খেজুরগাছটি আস্তে আস্তে পানির ওপরে উঠে যায়। রাত ১০টা নাগাদ খেজুরগাছের ওপরের অংশ পানি থেকে ৫-৬ ফুট উঁচুতে উঠে। এভাবেই থাকে সকাল পর্যন্ত। তবে ওপরের অংশ উত্থান-পতন হলেও এর গোড়ার মাটি সম্পূর্ণ স্বাভাবিক অবস্থায় রয়েছে।

এ খবর ব্যাপকভাবে জানাজানি হলে প্রায় এক সপ্তাহ যাবৎ দূরদূরান্ত থেকে বিভিন্ন বয়সের হাজার হাজার নারী-পুরুষ ঘটনাটি একনজর দেখার জন্য ওই স্থানে ভিড় করছেন। অনেক নারী, পুরুষ ও শিশু-কিশোর রোগমুক্তির আশায় পুকুরের পানি তুলে পুকুরপাড়ে বসেই পান করছেন। আবার আগত অনেক ব্যক্তিকে বোতলে বা বিভিন্ন পাত্রে পানি নিয়ে যেতে দেখা গেছে।

উপজেলার বয়ারডাঙ্গা গ্রামের মুরাদ হোসেন (২৮) জানান, তার অ্যাপেন্ডিসাইটিসের জন্য পেটব্যথা ছিল। কিন্তু পুকুরের পানি খেয়ে কয়েকদিন হলো পেটব্যথা সম্পূর্ণ উপশম হয়েছে। এ ছাড়া, উপজেলার সন্ন্যাসীরচক গ্রামের ইসমাইল হোসেন (১৪), কাশিবাটি গ্রামের জাহেদা বেগম (৩০), পাইকাড়া গ্রামের সাহারা খাতুনসহ (৪০) অনেককে পানি পান করতে দেখা গেছে।

পানি পান করার কারণ জিজ্ঞাসা করলে তাদের সবার একই উত্তর, আল্লাহর ওপর আস্থা রেখে ওই পানি পান করলে তাদের রোগবালাই সেরে যাবে বা নানা বালামুসিবত দূর হবে- এমন আশায় তারা খেজুরগাছ ডোবা ওই পুকুরের পানি পান করছেন। লোকজনের সমাগম উপলক্ষে পুকুরপাড়ে বসেছে কয়েকটি খাদ্যদ্রবের দোকান। তবে অলৌকিক এ ঘটনাটিকে বিভিন্নভাবে ব্যাখ্যা দেওয়ার চেষ্টা করছেন স্থানীয় এলাকাবাসীসহ দূরদূরান্ত থেকে নানা শ্রেণি-পেশার মানুষ।

আবার একই মালিকের পুকুরপাড়ের একটি ডয়রা কলাগাছের কাঁধিতে একটি বোঁটায় চারটি কলা ধরতে দেখা গেছে। এ যেন আরো একটি ব্যতিক্রম ঘটনা!

 রাইজিংবিডি


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ