• মঙ্গলবার, ০৫ জুলাই ২০২২, ০২:৩৬ পূর্বাহ্ন |
শিরোনাম :

আদর্শনিষ্ঠা এবং ক্লিন ইমেজ জামায়াতের মূল পুঁজি

Jamatসিসি ডেস্ক: ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের সাথে জামায়াতের আঁতাত আবিষ্কার করতে মরিয়া একটি মহলের চেষ্টার অন্ত নেই। সদ্য সমাপ্ত উপজেলা নির্বাচনে জামায়াতের বিরাট বিজয়কে তারা জনপ্রিয়তার পরিবর্তে আঁতাতে রূপ দেয়ার চেষ্টা করছেন। বিগত ৫ বছরে জামায়াতের বিরুদ্ধে পরিচালিত নির্যাতনের স্টিম রোলার সত্ত্বেও মহল বিশেষ অদ্ভুত সব কথা বলে জনগণকে বিভ্রান্ত করার চেষ্টা করছেন। আল্লাহর জমিনে আল্লাহর দ্বীন তথা আল্লাহর আইন ও সৎ লোকের শাসন কায়েম করতে আপোষহীন আদর্শিক দৃঢ়তা এবং মাঠ পর্যায়ে দলের নেতা-কর্মীদের ক্লিন ইমেজ শত জুলুম-নির্যাতন সত্ত্বেও জামায়াতের জনপ্রিয়তা বাড়িয়ে দিলেও সেই সত্যকে আড়াল করে জনগণের দৃষ্টিকে ভিন্ন দিকে নিয়ে যাওয়াই হিংসুকদের এই কোশেস। জামায়াত গণবিচ্ছিন্ন নাস্তিক কমিউনিষ্টদের মতো কোনো পরজীবি বা উচ্ছিষ্টভোগী দল নয়।

সদ্য সমাপ্ত উপজিলা নির্বাচনে জামায়াতের ভাল ফলাফল কিছু লোকের মাথা যেন খারাপই করে দিয়েছে। পাঁচ ধাপে সমাপ্ত এই নির্বাচনের শেষ তিন ধাপে ব্যাপক ভোট ডাকতি, কেন্দ্র দখল, প্রতিপক্ষের এজেন্টদের বের করে দেয়াসহ নানা অনিয়ম ও জোর করে বিজয় ছিনিয়ে নেয়া সত্ত্বেও তুলনামূলকভাবে জামায়াত ভাল ফলাফল করেছে।

মোট ৪৮৭টি উপজেলার মধ্যে ৫ দফায় সর্বমোট ৪৫৯টি উপজেলায় নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়েছে। তার মধ্যে ৪৫৫টির ফলাফল ঘোষিত হয়েছে। গত পাঁচদফা নির্বাচনে বিএনপি-জামায়াত জোট উপজেলা চেয়ারম্যান পদে ১৯৬টিতে বিজয়ী হয়েছে। সরকারদলীয়রা দখলী শক্তি দেখিয়ে মাত্র ২২৫টি চেয়ারম্যান পদে বিজয়ী হয়েছে। অপরদিকে পুরুষ ভাইস চেয়ারম্যান পদে ১৯ দলীয় জোট প্রার্থীরা ২২৬টি উপজেলায় বিজয়ী হয়েছেন। এর মধ্যে জামায়াতে ইসলামীর ১২০ জন এবং বিএনপি’র ১০৬ জন। সরকারদলীয়দের দখলে গেছে ১৫৩টি উপজেলার পুরুষ ভাইস চেয়ারম্যান। মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে সরকারদলীয় ১৫৫ জন এবং ১৯ দলীয় জোটের প্রার্থীরা ১৭৮টি উপজেলা পরিষদে নির্বাচিত হয়েছেন। এর মধ্যে জামায়াতের ৩৪ জন মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান রয়েছেন। গত পাঁচ দফায় জামায়াতে ইসলামী থেকে ৩৬ জন চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন।

উপজেলা নির্বাচনে জামায়াতে ইসলামী সীমিত আসনে প্রার্থী দিয়েছিল এবং তাতে জনগণের ব্যাপক সাড়াও পেয়েছে। এবার জামায়াত চেয়ারম্যান পদে ১১৩টি, ভাইস চেয়ারম্যানপদে ২৪৮টি ও মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে ৬৬টিতে প্রার্থী দিয়েছিল। ইতোপূর্বে ২০০৯ সালে তৃতীয় উপজেলা নির্বাচনে জামায়াত চেয়ারম্যান পদে ৭০টিতে প্রার্থী দিয়ে ২৪টিতে বিজয়ী হয়। ভাইস চেয়ারম্যান পদে ৭১টিতে প্রার্থী দিয়ে ২৭টিতে ও মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে ১৬টিতে প্রার্থী দিয়ে ১৩টিতে বিজয়ী হয়েছিল। এতে স্পষ্ট যে, জামায়াত হঠাৎ করে অনেক উপজেলায় বিজয়ী হয়েছে- বিষয়টি এমন নয়। আগে থেকেই জামায়াতের গণভিত্তি ছিল এবং আছে। ভোটের ফলাফল বলছে যে, জামায়াতের সেই গণভিত্তি বা জনপ্রিয়তা আগের চেয়ে বেড়েছে। স্বাধীনতা পরবর্তি প্রতিটি সংসদেই জামায়াতের প্রতিনিধিত্ব ছিল।

উপজেলা নির্বাচনে জামায়াতের এই ফলাফলের পর থেকেই মহল বিশেষ জনপ্রিয়তার পরিবর্তে এ থেকে অন্য কিছু আবিষ্কারের চেষ্টা করছেন। এর মধ্যে সর্বাধিক চেষ্টা করা হচ্ছে ক্ষমতাসীনদের সাথে আতাত আবিষ্কার করার জন্য। যে জামায়াতের উপর বিগত ৫ বছর ক্ষমতাসীনরা চালিয়েছে স্টিম রোলার তাদের সাথে আতাতের অভিযোগ করে তারা মুলত নিজেদেরই হিংসুক হিসেবে পরিচয় দিচ্ছেন। এই ৫ বছরে জামায়াত ও শিবিরের কয়েক শ নেতা-কর্মীকে হত্যার শিকার হতে হয়েছে, আহত হয়েছে হাজার হাজার নেতা-কর্মী যাদের অনেকেই পঙ্গুত্ব বরণ করেছে, অর্ধ লক্ষাধিক নেতা-কর্মীকে কারাবরণ করতে হয়েছে, লাখ লাখ কর্মীর বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা দিয়ে হয়রানি করা হচ্ছে, সারা দেশে জামায়াত-শিবির এবং তাদের সমস্ত অঙ্গ ও সহযোগি সংগঠনগুলোর অফিস পর্যন্ত বন্ধ কর রাখা হয়েছে, রাস্তায় কোনো মিছিল-মিটিং করতে দেয়া হয়না, দেখা মাত্র গুলী করা হয়, এমনকি বাসা বাড়িতে ঘুমাতেও দেয়না- গ্রেফতার করে নিয়ে যাওয়া হয়। দলের শীর্ষ নেতাদের মিথ্যা মামলায় গ্রেফতার করে বিচারের নামে প্রহসন করে ফাঁসিতে ঝুলিয়ে হত্যা করা হচ্ছে। হিংসুকেরা সেই ক্ষমতাসীন আওয়ামীলীগের সাথে জামায়াতের আঁতাত আবিষ্কার করছেন যা সত্যের অপলাপ মাত্র। তারা সত্যের অনুসন্ধান করেনা, প্রতিহিংসা চরিতার্থ করতে মরিয়া। সত্য কথা বললে বা লিখলে জামায়াতের জনপ্রিয়তা আরো বাড়বে- হয়তো এটাই তাদের ভয়।

তথ্যানুসন্ধানে দেখা যায়, এবারের উপজেলা নির্বাচনে ১৯ দলীয় জোটে সমঝোতা না হওয়ার কারণ ৫ জানুয়ারির প্রহসনের নির্বাচনের পর অতি দ্রুততার সাথে উপজিলা নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করা হয়। এতে সরকারি নির্যাতন, গ্রেফতার, হামলা মামলায় বিধ্বস্ত বিএনপি-জামায়াত প্রয়োজনীয় প্রস্তুতি নেয়ার সময় পায়নি। তাছাড়াও স্থানীয় নির্বাচন অনেকটাই ব্যক্তি ইমেজের উপর নির্ভরশীল। কেউ আসন ছাড়তে রাজি নয়। এসব কারণে সমঝোতা হয়নি মাঠ পর্যায়ে। তাই যে যার মতো দাড়িয়ে গেছে। এটা যেমন আওয়ামী লীগে হয়েছে তেমনি বিএনপিতেও হয়েছে। জামায়াত সেখানে নিজের দলের প্রার্থীর ব্যাপারে অন্তত একক সিদ্ধান্ত নিতে পেরেছিল যা তাদেরকে ভাল ফল পেতে সহায়তা করেছে। দ্বিতীয়ত সারাদেশের সাধারণ মানুষ এখনও ভাল মানুষের সন্ধান করছে। তারা ভাল মানুষ চায়। এদিক দিয়ে জামায়াতের প্রার্থীরা নিঃসন্দেহে সবার উপরে। কারণ তাদের কারো বিরুদ্ধে চাঁদাবাজি, ধান্ধাবাজি, টেন্ডারবাজি, অপরের সম্পদ আত্মসাৎ বা কোনো প্রকার অপরাধের সাথে তাদের সম্পৃক্ততা নেই। সবাই সুশিক্ষিত এবং সমাজে ভাল মানুষ হিসেবেই তারা পরিচিত। এ ধরণের ক্লিন ইমেজ অন্য দলে খুঁজে পাওয়া কঠিন। এটা জামায়াতকে অনেক উপরে নিয়ে গেছে এবং ভবিষ্যতেও এই পুঁজির উপর ভর করে জামায়াত এগিয়ে যাবে। তৃতীয় কারণ হলো এদেশের ইতিহাস হলো সাধারণ মানুষ কখনো জালিমের পক্ষে থাকেনা বরং মজলুমের পক্ষেই তারা তাদের অবস্থান সর্বদা ব্যক্ত করে এসেছে, এখনও তাই করছে, ভবিষ্যতেও এই অবস্থানের কোনো পরিবর্তন হবেনা। বিগত ৫ বছরে জামায়াত-শিবিরের উপর পরিচালিত জুলুম জনগণের কাছে নিয়ে গিয়েছে জামায়াতকে।

সর্বোপরি জামায়াত শত জুলুমকে তুচ্ছ জ্ঞান করে বাংলাদেশের এই জমিনে আল্লাহর আইন আর সৎ লোকের শাসন কায়েমের যে অঙ্গীকার নিয়ে কাজ করছে তা থেকে এক বিন্দুও সরে আসেনি। ৯০ ভাগ মুসলমান অধ্যুসিত বাংলাদেশের মানুষের প্রাণের আদর্শ ইসলাম। গুটিকয়েক পরজীবি সেকুলার বামপন্থি পত্রিকার লিখন আর টিভি টক শোতে বিশেষজ্ঞ মতামত শুনে এদেশের জনগণ যেমন ভোট দেয়না তেমনি ইসলামকেও দুরে ঠেলে দেয়না। এদেশ থেকে ইসলামকে নির্বাসিত করার যে ষড়যন্ত্র করছে দেশী বিদেশী চক্র সে সম্পর্কে গ্রামের খেটে খাওয়া সাধারণ মানুষও কম-বেশী জানে। যারা জামায়াতের জনপ্রিয়তা বৃদ্ধিকে ভিন্ন খাতে প্রবাহিত করতে চাচ্ছেন তাদের উচিত প্রকৃত সত্যের অনুসন্ধান করা। সাদাকে সাদা, কালোকে কালো, ভালোকে ভালো, মন্দকে মন্দ বলার অভ্যাস ছেড়ে দিলে এসব বুদ্ধিজীবি, সাংবাদিক আর টক শো’র বিশেষজ্ঞরা জনগণের কাছে মতলববাজ বলেই হয়তো বিবেচিত হবেন। সূত্র: বিডি টুডে


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ