• বুধবার, ২৯ জুন ২০২২, ১২:২৩ অপরাহ্ন |
শিরোনাম :
ইউনূস, হিলারি ও চেরি ব্লেয়ারের ওপর নিষেধাজ্ঞা দেওয়ার দাবি সংসদে মার্কেট-শপিং মলে মাস্ক বাধ্যতামূলক করে প্রজ্ঞাপন খানসামায় র‌্যাবের অভিযান ইয়াবাসহ দুই মাদককারবারী গ্রেপ্তার ডোমার ও ডিমলায় প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ ১০ উদ্যোগ নিয়ে কর্মশালা নীলফামারীতে ৫ সহযোগীসহ কুখ্যাত চোর ফজল গ্রেপ্তার সৈয়দপুরে তথ্যসংগ্রহকারী ও সুপারভাইজারদের দিনব্যাপী প্রশিক্ষণ অনুষ্ঠিত জয়পুরহাট বিনা খরচে আইনের সেবা পেতে সেমিনার শিক্ষক লাঞ্চনা ও হেনস্তার বিরুদ্ধে সৈয়দপুরে উদীচী শিল্পী গোষ্ঠীর প্রতিবাদ সমাবেশ সৈয়দপুরে শহীদ আমিনুল হকের স্মরণসভা অনুষ্ঠিত ফুলবাড়ীতে বিনামূ‌ল্যে বীজ ও সার বিতরণ

ইটভাটার বিষাক্ত কালো ধোয়ায় কৃষকের সর্বনাশ

Badarganj Photo-01সারোয়ার আলম সুমন, বদরগঞ্জ (রংপুর): বারবার যে ইটভাটার কারণে ঝলসে যাচ্ছে জমির ধান। বিষাক্ত কালো ধোয়ায় পুড়ছে ফসলের ক্ষেত। নষ্ট হচ্ছে আবাদ। সেই ইউনিক ব্রিক্স লিমিটেড (ইউবিএল) নামে ইটভাটার বিষাক্ত ধোয়ায় আবারও পুড়ছে কৃষকের কষ্টের ফসল। ওই ইটভাটার ইটপোড়ানোর একটি অংশ (ব্যাটারী) ভেঙে গিয়ে প্রায় ২’শ বিঘা বোরো ধানের শীষ শুকিয়ে পাতান হয়েছে। গত ৫দিনে রংপুরের বদরগঞ্জ উপজেলার দামোদরপুর ইউনিয়নের আসমতপাড়ায় এ ঘটনা ঘটে। অসহায় কৃষকরা এর প্রতিবাদ করেও কোন ফল পাচ্ছেন না। ঘটনা ভিন্নখাতে নিতে কিছু কৃষককে ম্যানেজ করে ভাটার মালিক বলছে বাতাসের কারণে ধানের শীষ শুকিয়ে এ অবস্থা হয়েছে।
গত ২ এপ্রিল হাইকোর্টের নির্দেশে রংপুরের বদরগঞ্জে লাইসেন্সবিহীন ও পরিবেশের ক্ষতি করছে এমন ৩৭টি ইটভাটার মধ্যে ১৪টি যৌথ অভিযান চালিয়ে বন্ধ করে দেওয়া হয়। এদের মধ্যে ইউবিএল ইটভাটার মালিককে স্পর্শ করতে পারেনি প্রশাসন। যাদের কারণে এত কিছু। তারাই নির্বিঘ্নে পুড়ছে ইট। অথচ সেই ইটভাটার কারণে এবারেও উপজেলার দামোদরপুর ইউনিয়নের আসমতপাড়ার শত শত কৃষককে সর্বনাশের ফাঁদে পড়তে হয়েছে। ইটভাটার কালো ধোয়ায় প্রায় ২শ বিঘা জমির বোরো ধানের ক্ষেত নষ্ট হয়েছে। ইটভাটার বিষাক্ত গরম ধোয়ায় দিগন্ত জোড়া বোরো ধানের শীষ শুকিয়ে পাতানে পরিণত হয়েছে। ইটভাটার মালিকের বিরুদ্ধে কোন ব্যবস্থা না নেওয়ায় এলাকার কৃষকরা ফুসে উঠছে।
সরেজমিন দেখা যায়, উপজেলার দামোদরপুর ইউনিয়নের আমরুলবাড়ীর আসমতপাড়ায় ইউনিক ব্রিক্স লিমিটেড (ইউবিএল), এইউবিএলসহ ও ইউবিবিএল নামে পাশাপাশি তিনটি ইটভাটা। এর মধ্যে আবাদী জমি দখল করে ইউবিএল, এইউবিএল নামে দুইটি ইটভাটা দুইটি শিা প্রতিষ্ঠানের মাঝে স্থাপন করা হয়েছে। গত বছর ইউবিএল ইটভাটার আগাম আগুন নিভিয়ে দেওয়ার কারণে ওই এলাকার সাড়ে ৪০০ বিঘা জমির উঠতি বোরো ধান ঝলসে যায়। ধানের এমন পরিনতি দেখে কৃষকরা আর্তনাদ করে কাঁদতে থাকে। এ নিয়ে কৃষকদের মধ্যে হৈচৈ শুরু হয়। এতে টনক নড়ে প্রশাসনের। এ নিয়ে এলাকার কৃষকরা ইউএনও কাছে অভিযোগ করে। কৃষি জমি থেকে ইটভাটা উচ্ছেদ ও ইটভাটার কালো ধোয়ায় পরিবেশের চরম ক্ষতি হওয়ার কারণে ৩৭টি ইটভাটা কেন বন্ধ করা হবে না তা জানতে উচ্চ আদালত থেকে রুলনিশিও জারি করা হয়। রাষ্ট্রীয় নীতির মৌলিক অধিকার ক্ষুন্ন হওয়ায় হাইকোর্ট বিভাগের আইনজীবি ইকবাল হোসাইন সংক্ষুব্ধ হয়ে ৩৭টি ইটভাটা কেন বন্ধ করা হবে না তার জন্য উচ্চ আদালতে লিখিত আবেদন করেন। ওই আবেদনের প্রেক্ষিতে বাংলাদেশ সুপ্রিম কোর্ট হাইকোর্ট ডিভিশনের মাননীয় বিচারপতি কাজী রেজাউল হক ও মাননীয় বিচারপতি এ বি এম আলতাফ হোসাইনের চেম্বার আদালত থেকে গত ২১ জানুয়ারি ওই রুলনিশি জারি করে। এ ঘটনায় গত ২ এপ্রিল রংপুরের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মো.শহিদুল ইসলামের নেতৃত্বে আটজন ম্যাজিষ্ট্রেট, র‌্যাব, পুলিশসহ আইনশৃংখলা রক্ষাকারী বাহিনীর শতাধিক সদস্য যৌথ অভিযান চালিয়ে দমকল বাহিনীর সদস্যরা পানি দিয়ে ১৪টি ভাটাগুলো বন্ধ করে দেন। কিন্তু এতকিছু যে ইটভাটার জন্য প্রশাসন ওই ইটভাটার বিরুদ্ধে কোন ব্যবস্থা না নেওয়ায় তারা এবারও বেপরোয়া হয়ে ওঠে। এলাকার কৃষক মহেব্বুল হোসেনের অভিযোগ, গত চারদিন আগে হঠাৎ করে ওই ইউবিএল ভাটার একটি অংশ ভেঙে (ব্যাটারী) যায়। ভাটার নিচ দিয়ে ছড়িয়ে পড়ে কালো ধোয়া। এতে আবারও আসমতপাড়ার অন্তত ২’শ বিঘা জমির বোরো ধান ঝলসে যায়। আমরুলবাড়ীর কৃষক আনিছুল হক(৩৫) বলেন, ধানোত শীষ নাই। পাতান হয়া গেইচে। এবারো হামার সর্ব্বনাশ হইবে। কৃষক সুমন বাবু(২৫) বলেন, গতবার হামরা কান্দি মরচি। কায়ো হামার কথা শোনে নাই। ভাটার ধোয়া যে পাশে গেইছে ওইপাকে ক্ষতি হইচে। এবারো হামার মরণ ছাড়া বাঁচার উপায় নাই।

অভিযোগ অস্বীকার করে ইউবিএল ইটভাটার ম্যানেজার গৌতম কুন্ডু ও দুলাল মিয়া বলেন, গত বছর বোরো ধানের কিছুটা ক্ষতি হলেও এবার তা হয়নি। এবারে বৈশাখী ঝড় ও বাতাসে ধানের এমন অবস্থা হয়েছে। আমাদের বিপদে ফেলার জন্য কিছু কৃষক ধান নষ্ট হওয়ার অপপ্রচার চালাচ্ছে।
রংপুর বিভাগের ইট প্রস্তুতকারী মালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক আজিজুল হক বলেন, সরকারের নিয়ম মেনে আমরা ইটভাটা পরিচালনা করছি। টেকনিক্যাল কারণে যদি কোন ইটভাটার মালিক কৃষকের এমন ক্ষতি সাধন করে তার দায়ভার সংশ্লিষ্ট ইটভাটার মালিককে নিতে হবে।
উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা জিয়াউল হক বলেন, ইটভাটা এলাকার ক্ষতিগ্রস্থ বোরো ক্ষেত পরিদর্শন করা হয়েছে। তদন্ত করে প্রয়োজনীয় প্রতিবেদন দেওয়া হবে।
বদরগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা খন্দকার ইসতিয়াক আহমেদ বলেন, ইটভাটা এলাকায় বোরো ধানের জমি নষ্ট হওয়ার বিষয়টি তদন্ত করার জন্য উপজেলা কৃষি বিভাগকে দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে। বারবার কৃষকদের ক্ষতি হলে সংশ্লিষ্ট ইটভাটা কর্তৃপক্ষের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ