• বৃহস্পতিবার, ০৭ জুলাই ২০২২, ১০:৫৫ অপরাহ্ন |

দিনাজপুরে হত্যা ঘটনাকে আত্মহত্যা বলে চালিয়ে দেয়ার ষড়যন্ত্র

Maderমাহবুবুল হক খান, দিনাজপুর: দিনাজপুরে হত্যা ঘটনাকে আত্মহত্যা বলে চালিয়ে দেয়ার ষড়যন্ত্র করছে ঘাতকরা। এই হত্যা ঘটনায় এবারে ঘাতকের সহযোগী হলেন পুলিশের সাথে একজন ডাক্তারও। নৈরাশ্যজনক অঘটন দিনাজপুর শহরের রামনগর এলাকার।
মামলা এবং বাদিনীর অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, দিনাজপুর শহরের খোদ মাধবপুর নিবাসী মোঃ আব্দুল মালেকের কন্যা মুক্তা পারভীনের সাথে গত ১৪-০৬-২০০১ তারিখে শহরের রামনগর এলাকার মৃত কুরবান আলীর পুত্র এস এম শামীম আলম রাজু’র বিয়ে হয়। বিয়ের পর ঘর সংসার করা অবস্থায় তাদের একটি কন্যা সন্তান জন্ম লাভ করে। এই কন্যা সন্তান জন্ম লাভ করার পর হতেই আনাম ৩ লাখ টাকা যৌতুকের জন্য মুক্তা পারভীনকে চাপ দিতে থাকে। মুক্তা এতে অপরগতা প্রকাশ করলে তার উপর যৌতুকের টাকা আনার জন্য প্রতিনিয়ত নির্যাতন শুরু করে।
এ ব্যাপারে কয়েক দফা সালিশ বৈঠক হয়। আসামী এস এম শামীম আলম রাজু তার শ্বশুড়ালয় হতে  যৌতুক চাইবে না এবং যৌতুকের জন্য মুক্তার উপর নির্যাতন করবে না মর্মে অঙ্গীকার করে। পরবর্তীতে তাদের আরো একটি কন্যা সন্তান জন্মগ্রহন করে। যার বর্তমান বয়স ৫ বছর। তাদের প্রথমা কন্যার বয়স ১১ বছর।
গত ২৭ মার্চ ২০১৪ তারিখে বিকালে মুক্তা তার মা মোসাঃ মোসলেমিনা খাতুনকে মোবাইলে জানায় যে, তার স্বামী ৩ লাখ টাকা যৌতুকের দাবী করে তাকে মারপিঠ করেছে। পরদিন ২৮ মার্চ বেলা ১১টার দিকে মুক্তার বড় মেয়ে শামীমা আক্তার রাইসা তার নানীকে মোবাইলে জানায় যে, তার মায়ের (মুক্তার) লাশ সিলিং ফ্যানে ঝুলছে। খবর পেয়ে মুক্তার মা মোসলেমিনা খাতুন, মুক্তার পিতা মোঃ আব্দুল মালেক ও চাচা আব্দুল মোত্তালেব সরকারসহ অন্যান্য লোকদের সাথে নিয়ে রাজুর বাড়ী রামনগরে যান। সেখানে তারা মুক্তার শয়নকক্ষে গিয়ে সিলিং ফ্যানে মুক্তার ঝুলন্ত লাশ দেখতে পান। লাশ সিলিং ফ্যানে ঝুলানো থাকলেও পা দু’টি ছিল বিছানার সাথে লাগানো অবস্থায়। তার শরীরের বিভিন্ন স্থানে ছিল কালো শিরার দাগ। মুখের ঠোট দু’টি ছিল থেঁতলানো। বাম গালে জমাট রক্ত।
ওই দিন জুমার পর কোতয়ালী থানা থেকে পুলিশ এসে লাশ নিচে নামায়। পুলিশ সবার সামনেই বলে লাশের শরীর শক্ত। গত রাতেই মারপিট করে মেয়েটিকে হত্যা করা হয়েছে। সুরতহাল রিপোর্ট তৈরী করে পুলিশ লাশটি ময়না তদন্তের জন্য হাসপাতাল মর্গে প্রেরণ করে। এই অবস্থায় মৃত পারভীনের পিতা-মাতা ময়না তদন্তকারী ডাক্তার আমির আলীর সাথে যোগাযোগ করেন। ওই ডাক্তার তাদেরকে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করে সরিয়ে দেন।
এ ব্যাপারে পারভীনের মাতা মোসলেমিনা খাতুন ৩১.০৩.২০১৪ তারিখ সন্ধ্যায় কোতয়ালী থানায় এজাহার করতে গেলে থানা কর্তৃপ মামলা নিতে অস্বীকার করেন। বাধ্য হয়ে মোসলেমিনা ২ এপ্রিল ২০১৪ তারিখে দিনাজপুরের নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল জজ আদালতে মামলা দায়ের করেন। মামলার প্রেক্ষিতে বিজ্ঞ আদালত এই অভিযোগনামাকে এজাহার হিসেবে রেকর্ড করে আসামীদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়ার জন্য কোতয়ালী থানা কর্র্তপকে নির্দেশ দেন। সে মোতাবেক কোতয়ালী থানা কর্তৃপক্ষ ১৭.০৪.২০১৪ তারিখে মামলাটি নথিভূক্ত করেন। যার নং-৪৭।
মামলার আসামীরা হলো মৃত কুরবান আলীর ছেলে এসএস শামিম আলম (রাজু) (৩৯), তার তালাক প্রাপ্তা বোন মোছাঃ মিনা (৩৫), রাজু’র ভাই মোঃ মজিবর রহমান (৫০) এবং একই এলাকার মিজুর স্ত্রী মোছাঃ ফেরদৌসী বেগম (৩২)।
এ রিপোর্ট লেখার সময় পর্যন্ত কোন আসামী গ্রেফতার হয়নি। বাদিনী অভিযোগ করেছেন ময়নাতদন্ত  রিপোর্ট তাদেরকে দেয়া হচ্ছে না। সংশ্লিষ্ট ডাক্তার রিপোর্টে কি লিখেছেন তা তারা জানতে পারছেন না। তবে তার আশঙ্কা, পুলিশের সাথে সাথে ওই ডাক্তারও ঘাতকের সাথে হাত মিলিয়েছেন। বাদিনী নিহত মুক্তার মা মোসলেমিনা খাতুন মেয়ে হত্যাকারীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবী করেছেন।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ