• শনিবার, ২৫ জুন ২০২২, ০৩:৫৩ পূর্বাহ্ন |

প্রতি উপজেলায় টেকনিক্যাল কলেজ- প্রধানমন্ত্রী

hasinaঢাকা: প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, ‘বর্তমান সরকার গ্রামীণ উন্নয়ন, কৃষি ও শিক্ষার উন্নয়নে নানা কর্মসূচি হাতে নিয়েছে। এ জন্য প্রয়োজনীয় অবকাঠামো তৈরির লক্ষ্যে কাজ চলছে। দেশের প্রতিটি উপজেলায় টেকনিক্যাল কলেজ স্থাপন করে এর মাধ্যমে কারিগরি শিক্ষায় দক্ষ জনশক্তি গড়ে তুলতে প্রয়োজনীয় পরিকল্পনা হাতে নিয়েছে সরকার।’ রাজধানীর ইনস্টিটিউশন অব ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ার্স বাংলাদেশ (আইডিইবি) মিলনায়তনে বুধবার সংগঠনটির ২০তম জাতীয় সম্মেলন ও ৩৮তম কাউন্সিল অধিবেশনে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এ সব কথা বলেন তিনি।

তিন দিনব্যাপী ডিপ্লোমাদের জাতীয় সম্মেলন ও কাউন্সিলের উদ্বোধনী অধিবেশনে সভাপতিত্ব করেন সংগঠনটির সভাপতি একেএমএ হামিদ। সংগঠনটির পক্ষে দাবি দাওয়া তুলে ধরে মূল বক্তব্য উপস্থাপন করেন সাধারণ সম্পাদক শামসুর রহমান। শেখ হাসিনা বলেন, ‘বিশ্বব্যাপী অর্থনীতির ভাটায় অনেক দেশ এগোতে পারছে না। কিন্তু বাংলাদেশ এক্ষেত্রে ব্যতিক্রম। আমরা অনেক পরিশ্রম করে এগিয়ে যাচ্ছি। আমাদের অর্থনৈতিক উন্নয়ন এখন বিশ্ব দরবারে উন্নয়নের মডেল হিসেবে প্রতিষ্ঠিত হয়েছে।’

বর্তমান সরকার দেশের অবকাঠামোগত উন্নয়নের সঙ্গে সঙ্গে মানুষের মৌলিক চাহিদা পূরণে নিরলস কাজ করে যাচ্ছে উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘সরকারের আন্তরিক কার্যক্রমে দেশের মানুষ উন্নত জীবনযাপনের দিকে এগিয়ে যাচ্ছে। এর মাধ্যমে মুক্তিযুদ্ধের চেতনা পূরণ হতে চলেছে। দেশের মানুষ সুখে শান্তিতে বসবাস করবে এটাই জাতির পিতার স্বপ্ন ছিল।’

তিনি বলেন, ‘সুষ্ঠু পরিকল্পনা গ্রহণের মাধ্যমে বিশাল জনসংখ্যাকে জনশক্তিতে পরিণত করে আমরা আমাদের অর্থনীতিকে উন্নয়নের দিকে এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছি। এখন বাংলাদেশকে কেউ মঙ্গার দেশ বলতে পারবে না, খাদ্যের জন্য বাংলাদেশকে কারও দরবারে ভিক্ষা চাইতে হয় না। বাংলাদেশই খাদ্য উৎপাদনে স্বয়ংসম্পূর্ণ হয়ে এগিয়ে যাচ্ছে।’

আগামীতে বাংলাদেশ দক্ষিণ এশিয়ার শান্তিপূর্ণ, উন্নত, মর্যাদাশীল দেশে হিসেবে প্রতিষ্ঠিত হবে বলেও আশা প্রকাশ করেন প্রধানমন্ত্রী। দেশের উন্নয়নে সবাইকে একযোগে কাজ করার আহ্বান জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘আমরা গ্রামমুখী কর্মসূচি নিচ্ছি। আজ আর মানুষ আগের মতো শহরমুখী হচ্ছে না।’ শিক্ষার উন্নয়নে সরকারের সফলতার কথা তুলে ধরে শেখ হাসিনা বলেন, ‘আগামীতে প্রতিটি জেলায় সরকারি হোক আর বেসরকারি হোক বিশ্ববিদ্যালয় গড়ে তোলা হবে। যাতে ছেলেমেয়েরা বাড়ির কাছে মানসম্মত উচ্চশিক্ষা গ্রহণ করতে পারে।’

ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ারদের কল্যাণে সরকারে বিভিন্ন পদক্ষেপের কথা তুলে ধরে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘আওয়ামী লীগ সরকারই দেশে ১৮০০ বেসরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ে ভোকেশনাল কোর্স চালু করেছে, ৩টি মহিলা পলিটেকনিক্যাল ইনস্টিটিউটসহ ৫১টি পলিটেকনিক ইনস্টিটিউট, বেসরকারি পর্যায়ে ৪ শতাধিক পলিটেকনিক প্রতিষ্ঠা এবং মেয়েদের জন্য আরও ৩টিসহ মোট ২৫টি পলিটেকনিক ইনস্টিটিউট স্থাপনের সিদ্ধান্ত নিয়েছে।’

তিনি বলেন, ‘বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বেঁচে থাকলে খুব খুশি হতেন, তিনি দেখতেন তার স্বপ্নের সোনার বাংলা অনেক এগিয়ে গেছে।’ দেশের অগ্রযাত্রায় ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ারদের সার্বিক সহযোগিতা দেওয়ার আশ্বাস দিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘একটি প্রশিক্ষণ ইনস্টিটিউট স্থাপনের জন্য আপনারা আবেদন করেছেন, এ জন্য পদ্মার পাড়ে জমি বরাদ্দও চেয়েছেন। এ নিয়ে আলোচনা চলছে।’

প্রধানমন্ত্রী ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ারদের বেতন বৈষম্য দূর করার পাশাপাশি ডিপ্লোমা শিক্ষার্থীদের বৃত্তি ও অর্থের পরিমাণ বৃদ্ধি, ইন্ডাস্ট্রিয়াল ট্রেনিং ভাতা বৃদ্ধি, আইডিইবি ভবনে ইলেকট্রিক্যাল, ইলেকট্রনিক্স অ্যান্ড আইটি ল্যাব এবং সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিং ল্যাব প্রতিষ্ঠায় সহযোগিতা করার প্রতিশ্রুতি দেন।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ