• বৃহস্পতিবার, ০৭ জুলাই ২০২২, ১০:২২ অপরাহ্ন |

রানা প্লাজা ট্রাজেডির এক বছর আজ

Rana Plazaসিসি নিউজ: আজ ২৪ এপ্রিল বৃহস্পতিবার, সাভারের ভয়াবহ রানা প্লাজা ট্রাজেডির এক বছর পূর্ণ হচ্ছে। রাজধানীর উপকণ্ঠ সাভারে ২০১৩ সালের ২৪ এপ্রিল একটি ৯তলা ভবন ধসে পড়লে ১১৩৬ জন পোশাক শ্রমিক নিহত হয়। এছাড়াও এ দুর্ঘটনায় আহত ও নিখোঁজ হয় শত শত শ্রমিক। গত বছরের ২৪ এপ্রিল রানা প্লাজা ট্র্যাজেডিতে প্রাণ হারায় ১১৩৬ জন পেশাক শ্রমিক। এটি ছিল বিশ্বের মধ্যে সবচেয়ে বড় একটি ট্র্যাজেডি। ওই দুর্ঘটনার পর প্রায় মাসব্যাপী ধ্বংসস্তুপের পুরো উদ্ধার কাজ পরিচালনা করে সেনাবাহিনীর নবম পদাতিক ডিভিশন। পৃথিবীর ইতিহাসে ভয়াবহতম ট্র্যাজেডির ১ বছর পেরিয়ে গেলেও এখনো শরীরে দগদগে ক্ষত নিয়ে অনেক শ্রমিক চলে-ফিরে বেড়াচ্ছেন।
এ ঘটনার পর দেশব্যাপী নিন্দার ঝড় উঠায় বহুতল ভবনের অনুমোদন দেওয়া পৌর মেয়রসহ ওই ভবনের মালিক সোহেল রানাকে গ্রেফতার করা হয়। তবে এখনও পর্যন্ত তাদের শাস্তি নিশ্চিত হয়নি। সাভারে ২০১৩ সালের ২৪ এপ্রিল সকালে ৯তলা বিশিষ্ট বানিজ্যিক ভবন রানা প্লাজা ধসে সৃষ্টি হয় একহৃদয বদারক ট্র্যাজেডির। ধসে পড়া ভবনের নীচে চাপা পড়ে হাজার-হাজার শ্রমিক।
পুলিশ ও ফায়ার সার্ভিসের পাশাপাশি স্থানীয়রা প্রথমদিকে উদ্ধার কাজে যোগ দিলে পরবর্তীতে সাভার সেনানিবাসের জিওসি চৌধুরী হাসান সোহওয়ার্দীর সার্বিক তত্ত্বাবধানে উদ্ধার কাজ শুরু করে ৯ পদাতিক ডিভিশন। উদ্ধার কাজ চলার সময়ে জন্ম নেয় নানা ঘটনা- দুর্ঘটনার। আটকে পড়াদের উদ্ধার করতে গিয়ে মারাত্মক অগ্নিদগ্ধ হয়ে প্রাণ হারায় স্বেচ্ছাসেবী উদ্ধারকর্মী কায়কোবাদ। ধ্বংসস্তুপের ভেতর থেকে ১৭দিন পর উদ্ধার করা হয় পোশাক শ্রমিক রেশমাকে।
সেনাবাহিনীর নেতৃত্বে সকলের সহযোগীতায় ২০ দিনের অবিরাম চেষ্টার পর সমাপ্ত হয় ধ্বংসস্তুপের উদ্ধার কাজ। সরকারিভাবে বলা হয়, ভয়াবহ এ ভবন ধসে প্রাণ হারায় ১১৩৬ জন শ্রমিক। ভবনটিতে ৬টি পোশাক কারখানাসহ ছিল বানিজ্যিক শপিং মলও। ভবন ধসের এ ঘটনায় আহত হয় অন্তত: ১৫০০ শ্রমিক। পঙ্গুত্ব বরণ করে অনেকেই।
ঢাকা জেলা প্রশাসন সূত্র জানায়, লাশ হস্তান্তরের সময়ই প্রতিটি লাশের সৎকার বাবদ ২০ হাজার টাকা করে প্রদান করা হয়। পরবর্তীতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নিহত ও আহত শ্রমিকদের ক্ষতিপূরণ প্রদান করেন। এ দুর্ঘটনায় নিহত ১১৩৬ জন শ্রমিকের মধ্যে ৯৫৪ জনকে তাদের পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। এছাড়া আঞ্জুমানে মফিদুল ইসলামের মাধ্যমে রাজধানীর জুরাইন কবরস্থানে দাফন করা ৩০১টি অজ্ঞাত মৃতদেহের মধ্যে ২০৬ জনের পরিচয় ডিএনএ টেষ্টের মাধ্যমে সনাক্ত করা হয়েছে। এছাড়াও বাকি ৯৫ জনের পরিচয় এখন পর্যন্ত সনাক্ত করা সম্ভব হয়নি।
সাভার উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা কামরুল হাসান মোল্যা বলেন, ২০১৩ এর ৯নং সোয়ামোটো মামলার আদেশ অনুযায়ী ইতিমধ্যেই রানা প্লাজার ১৮ শতক, রানা টাওয়ারের ১০ শতক এবং ইট ভাটার ১ একর ৪৮ শতাংশ জমি ক্ষতিগ্রস্ত শ্রমিক পরিবারগুলোর মাঝে বন্টন করার উদ্দেশ্যে বাজেয়াপ্ত করা হয়েছে। পরবর্তীতে যা নিলামে তোলা হবে বলে তিনি উল্লেখ করেন।
পক্ষান্তরে রানা প্লাজা ধসের এক বছর পূর্তি উপলক্ষে আলাপকালে ওই দুর্ঘটনায় নিখোঁজ পোশাক শ্রমিক বিল্লালের মা সাহানারা বেগম ও বাবা চাঁন মিয়া বলেন, আমরা কিছুই চাই না,আমাদের ছেলে বিল্লালের লাশ চাই। পরিবারের একমাত্র উপার্জনক্ষম সন্তান বিল্লালের ছবি বুকে নিয়ে সারাক্ষণ ছেলেকে খোঁজে বেড়ায় মা সাহানারা বেগম। ছেলেকে হারিয়ে বয়সের ভারে ন্যূব্জ বাবা চাঁন মিয়াও নির্বাক।
প্রতিবেশী শাহনাজ, ইমানী, ময়নাসহ আরও অনেকে জানান, ছেলেকে হারিয়ে বিল্লালের হতভাগ্য বাবা-মা কোন কিছুই আর স্বাভাবিকভাবে করতে পারছেন না। সারাক্ষণই ছেলে হারানোর যন্ত্রণায় ডুকড়ে কাদেন তারা। শুধু বিল্লাল নয়, চাঁদপুরের আকতার হোসেন, রংপুরের রেহেনা বেগম, রাজশাহীর শাহিনাসহ আরও অনেকেই হারিয়ে গেছে রানা প্লাজার অতল গহবরে। বছর পেরিয়ে গেলেও সন্ধান মেলেনি তাদের। এসব পরিবার লাশের সন্ধানতো পায়নি উপরন্ত সরকারি সহায়তাও তাদের মিলেনি।
অপরদিকে স্থানীয় সরকারের প্রতিনিধি কামরুল হাসান মোল্যা জানান, রানা প্লাজা ধ্বসের ঘটনায় গত এক বছর ধরেই প্রধানমন্ত্রীর তহবিল থেকে ক্ষতিপূরণ দেয়া হচ্ছে। প্রথমত নিহত এবং পর্যায়ক্রমে আহত শ্রমিকদেরও ক্ষতিপূরণ দেয়া হবে। তিনি বলেন, মূলত ক্ষতিগ্রস্ত সকল শ্রমিক ও তাদের পরিবারের সদস্যরা পর্যায়ক্রমে সাহায্য-সহায়তা পাবে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ