• সোমবার, ২৭ জুন ২০২২, ০৬:২৩ পূর্বাহ্ন |
শিরোনাম :
পদ্মা সেতুর রেলিংয়ের নাট খোলা বায়েজিদ আটক নীলফামারী জেলা শিক্ষা অফিসার শফিকুল ইসলামের শ্বশুড়ের ইন্তেকাল সৈয়দপুর সরকারি বিজ্ঞান কলেজের গ্রন্থাগারের মূল্যবান বইপত্র গোপনে বিক্রি ফেনসিডিলসহ সেচ্ছাসেবক লীগের নেতা গ্রেপ্তার এ সেতু আমাদের অহংকার, আমাদের গর্ব: প্রধানমন্ত্রী বাংলাদেশ-ভারতে রেল যোগাযোগ বন্ধ থাকবে ৮ দিন পদ্মা সেতুর উদ্বোধন বাংলাদেশের জন্য এক গৌরবোজ্জ্বল ঐতিহাসিক দিন: প্রধানমন্ত্রী পদ্মা সেতুর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে যেতে মানতে হবে যেসব নির্দেশনা সৈয়দপুরে বিস্কুট দেয়ার প্রলোভনে শিশুকে ধর্ষণের অভিযোগ গণমানুষের সমর্থনেই পদ্মা সেতু নির্মাণ সম্ভব হয়েছে: প্রধানমন্ত্রী

লংমার্চ শেষ: ১০ হাজার কিউসেক পানি দাবি ফখরুলের

pic 03হাসান মাহমুদ, তিস্তা ব্যারেজ থেকে: বাংলাদেশের জন্য তিস্তা নদীতে ১০ হাজার কিউসেক পানি নিশ্চিত করার জন্য ভারতের প্রতি দাবি জানিয়েছেন বিএনপির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। আজ বুধবার ডালিয়া পয়েন্টে দুই দিনের লংমার্চের সমাপনী অনুষ্ঠানে বক্তৃতাকালে এই দাবি জানিয়েছেন।

মির্জা ফখরুল বড় প্রতিবেশীর বিভিন্ন ধরনের বিশেষ করে পানি আগ্রাসনের শিকার ছোট দেশগুলোকে পরিবেশ, প্রকৃতি ও নিজেদের স্বার্থ রক্ষার জন্য ঐক্যবদ্ধ হওয়ার আহ্বানও জানান।
তিস্তা ব্যারেজের কাছে হাতিবান্ধা হেলিপ্যাডে অনুষ্ঠিত হয় সমাপনী জনসভা। মির্জা ফখরুল বলেন, জনগণের স্বতঃস্ফূর্ত অংশগ্রহণের মধ্য দিয়ে এই কর্মসূচী সফল হয়েছে। বিএনপির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন, উত্তাল তরঙ্গ তিস্তা আজ ধূ-ধূ বালু চর। তিস্তা নদীতে পানি না থাকায় ৩ কোটি মানুষের জীবন আজ বিপন্ন। যখন এই তিস্তা নদী স্থাপন করা হয় তখন এখানকার কৃষক স্বপ্ন দেখে নতুন করে বাচঁতে। এখানকার মানুষ মাছ ধরে মাছ বিক্রি করে জীবিকা নির্বাহ করে। কিন্তু নদীতে পানি না থাকায় আজ তারা চালাতে পারছে না তারা তাদের পরিবারকে ভাত দিতে পারছে না। এসবের জন্য দায়ী ভারত। ভারত থেকে যে সব নদী এসেছে তাতে একাধিক বাঁধ দিয়েছে তারা। ভারত সরকার কখনও অনুমতি নেওয়ার প্রয়োজন মনে করেনি। ভারত সরকারের সাথে এই সরকারের ভালোবাসা ও প্রেম রয়েছে। পরাষ্ট্রমন্ত্রী আসলেন তবুও পানি চুক্তি হলো না, মমতা ব্যানার্জি পানি চুক্তি নিয়ে কোন কথা বলেননি ও পানিও দেননি। তারা আজ এদেশের মানুষের জীবন বিপন্ন করেছে। আমাদের এ সংগ্রাম সরকারের বিরুদ্ধে নয়, ভারতের বিরুদ্ধে নয়। আমাদের এই সংগ্রাম তিস্তার পানির ন্যায্য হিস্যার দাবির সংগ্রাম। তিস্তায় যে পাখি এবং দু’পাড়ে যে বন দেখা যায়, পানির কারনে তা একদিন ধ্বংস হয়ে যাবে।

জনসভায় বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য লে. জে. (অব.) মাহবুবুর রহমান বলেন, তিস্তার পানি প্রবাহ বন্ধ করে ভারত মানবাধিকার লঙ্ঘন করছে। আমাদের কৃষি ও মানুষের জীবন যাত্রা হুমকির মুখে পড়েছে। কৃষি ধ্বংস হয়ে যাচ্ছে। আমরা তিস্তার সন্তান, আমাদের শ্লোগান তুলতে হবে- ভেঙে দাও, গুঁড়িয়ে দাও- গজলডোবায় তিস্তার বাঁধ।’
বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার জমির উদ্দিন সরকার বলেন, ‘ভারত ১৯৩৫ সালে আন্তর্জাতিক নদী আইনের বরখেলাপ করে হিমালয় থেকে সৃষ্ট আন্তর্জাতিক নদী তিস্তার পানি একতরফা বন্ধ করেছে। ভারতের এই পদক্ষেপ স্পষ্টতই আন্তর্জাতিক আইনের লঙ্ঘন।’
বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম খান বলেন, ‘অনুরোধে কোনো দাবি আদায় না হলে তা আদায় করতে কৌশল নিতে হয়। আন্দোলন করতে হয়। আমরা আমাদের পানির হিস্যার জন্য ভারতকে বারবার অনুরোধ করেছি, কিন্তু তারা সাড়া দেয়নি। এজন্য আমরা আন্দোলনে নামতে বাধ্য হয়েছি। এ আন্দোলনে কাজ না হলে ভবিষ্যতে আরও কঠোর আন্দোলনের মাধ্যমে পানির দাবি আদায় করা হবে।’
জামায়াতের কেন্দ্রীয় সেক্রেটারি জেনারেল অধ্যাপক মুজিবুর রহমান বিএনপির লংমার্চে পূর্ণ সমর্থন জানিয়ে বলেন, ‘এ সরকারের পতন ছাড়া তিস্তার পানিসহ কোনো অধিকার আদায় সম্ভম নয়। ভারত বাংলাদেশের মানুষকে মারার জন্য সব নদীর গলা টিপে ধরেছে। আমরা জীবন দেব, তবু ন্যায্য অধিকার আদায় করে ছাড়বো ইনশাআল্লাহ । তিনি আরও বলেন, ‘এ সরকার নির্দোষ মানুষগুলোকে জুডিশিয়াল কিলিংয়ের মাধ্যমে হত্যা করতে চায়। আমাদের জীবন থাকতে তা হতে দেব না।’
জাগপা সভাপতি শফিউল আলম প্রধান বলেন, ‘বাঘের গর্জন শুনে ৩ হাজার ৬শ’ কিউসিক পানি দিতে বাধ্য হয়েছে। আমরা পানির ন্যায্য হিস্যা চাই। আমরা কাল্পনিক বিয়ে মানি না। আমরা কাবিননামা চাই। গোপন চুক্তি মানি না। পানি চুক্তি প্রকাশ করো। বাংলার মসনদে আমরা হিন্দুস্থানের দালালকে থাকতে দেব না।’
বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান মেজর (অব.) হাফিজ উদ্দিন আহমেদ বলেন, ‘বিএনপির লংমার্চকে সামনে রেখে তিস্তায় কিছুটা পানি এসেছে। দীর্ঘ দিন নদীতে পানি না থাকায় এ পানি মাটি শুষে নিয়েছে। এ পানি আমাদের কাজে কোনো আসেনি। এ স্বল্প পানি প্রবাহ আমরা মানি না। আমরা পানির ন্যায্য হিস্যা চাই।’ তিনি আরও বলেন, ‘এ সরকারের কোনো বৈধতা না থাকায় তাদের কোনো যোগ্যতা নেই। এ কারণে তারা ভারতের কাছ থেকে পানি আনতে পারে না। আমাদের ন্যায্য পানির হিস্যা পেতে হলে এ সরকারকে হঠাতে হবে। বেগম খালেদা জিয়ার নেতৃত্বে গণমানুষের সরকার গঠন করে আন্তর্জাতিক আদালতে গিয়ে অধিকার আদায় করতে হবে।’
সভাপতির বক্তব্যে রংপুর বিভাগ সাংগঠনিক সম্পাদক ও জনসভার সভাপতি আসাদুল হাবিব দুলু বলেন, ‘জিয়াউর রহমান তিস্তার উত্তাল তরঙ্গ দেখে ১৯৮৯ সালে ব্যারেজ নির্মাণ করেছিলেন। আজ সেই তিস্তাকে মেরে ফেলা হয়েছে। তিস্তা ব্যারেজ বালুচরে পরিণত হয়েছে। এক ফোঁটা পানি নেই। তিস্তাপাড়ে আজ হাহাকার। কৃষিকাজ ব্যাহত হচ্ছে। প্রাকৃতিক বিপর্যয় ঘটছে। আমরা মরুভূমির প্রতিচ্ছবি দেখছি।’ তিনি আরও বলেন, ‘বিএসএফ পাখির মতো গুলি করে মানুষ মারছে। ফেলানীকে হত্যা করে কাঁটাতারে ঝুলিয়ে রেখেছিল তারা। কিন্তু আমাদের পদলেহী সরকার এর কোনো প্রতিবাদ করেনি।’
জনসভায় অন্যদের মধ্যে বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান আব্দুল্লাহ আল নোমান, সেলিমা রহমান, চৌধুরী কামাল ইবনে ইউসুফ, বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা ড. ওসমান ফারুক, শামসুজ্জামান দুদু, ইকবাল হাসান মাহমুদ টুকু, অ্যাডভোকেট আহমেদ আযম খান, ডা. এ জেড এম জাহিদ হোসেন, বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব মিজানুর রহমান মিনু, সাংগঠনিক সম্পাদক হারুনর রশিদ, আন্তর্জাতিক সম্পাদক আসাদুজ্জামান রিপন, নাজিম উদ্দিন আলম, যুবদল সভাপতি মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল ও অর্থ সম্পাদক আব্দুস সালাম উপস্থিত ছিলেন।
এ সময় আরও উপস্থিত ছিলেন রাজশাহী সিটি মেয়র মোসাদ্দেক হোসেন বুলবুল, সিলেট বিভাগের সহাকারী সাংগঠনিক সম্পাদক ডা. সাখাওয়াত হোসেন জীবন ও স্বেচ্ছাসেবক দলের সিলেট জেলা সভাপতি অ্যাডভোকেট শামসুজ্জামান জামান।
জনসভায় আগতদের জন্য স্থানীয় বিএনপির উদ্যোগে পানি ও স্যালাইন এবং ড্যাবের উদ্যোগে দু’টি অ্যাম্বুলেন্স প্রস্তুত রাখা হয়।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ