• বৃহস্পতিবার, ০৭ জুলাই ২০২২, ১০:৩৬ অপরাহ্ন |

তিস্তার ন্যায্য হিস্যার দাবি আদায়ে আমাদের আরো ঐক্যবদ্ধ হতে হবে- কমরেড দীলিপ বড়ুয়া

Dilip Borua Picture, Nilphamari.docনীলফামারী প্রতিনিধি: বাংলাদেশ সাম্যবাদি দলের সাধারণ সম্পাদক  ও সাবেক শিল্পমন্ত্রী কমরেড দীলিপ বড়ুয়া বলেছেন‘ বাংলাদেশ-ভারত সম্পর্কের ক্ষেত্রে নেতিবাচক সম্পর্ক সৃষ্টির লক্ষ্যে আন্তর্জাতিক কায়েমী স্বার্থবাদীদের শিখন্ডী মমতা ব্যানার্জীর চক্রান্তের বিরুদ্ধে এবং তিস্তার পানির ন্যায্য হিস্যার দাবীতে বাংলাদেশের জনগণকে আরোও ঐক্যবদ্ধ হতে হবে তবেই এই দাবি আদায় সম্ভব হবে। যতদিন না তিস্তার পানির ন্যায্য হিস্যা আদায় হচ্ছে ততদিন পর্যন্ত আমাদের আন্দোলন চলবে। বৃহস্পতিবার বিকালে তিস্তার পানির ন্যায্য হিস্যার দাবিতে তিস্তা ব্যারাজের ভাটিতে নীলফামারীর ডিমলা উপজেলার চাপানী ইউনিয়নের উত্তর ঝুনাগাছ চাপানী বালিকা উচ্চ বিদ্যালল মাঠে বাংলাদেশের সাম্যবাদী দলের সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।
তিস্তা নদী ঘিরে লাখ লাখ মানুষের জীবন জীবিকা নির্ভরশীল। নদীর পানিশূন্যতায় দেশের বৃহত্তম তিস্তা ব্যারাজ সেচ প্রকল্পটি সেচ প্রদানে প্রায় ব্যর্থ হয়ে পড়েছে। সেই সাথে এই নদীকে  ঘিরে চলা জীবন-জীবিকা থেমে গেছে কৃষিরসাথে জড়িত লাখ লাখ মানুষের।’ এসময় নদী, জীববৈচিত্র এবং তিস্তার অববাহিকার মানুষের জীবনমান রক্ষায় পানির নায্য হিস্যার দাবিতে বাংলাদেশের ১৬ কোটি মানুষকে ঐক্যবদ্ধ হওয়ার আহ্বান জানান।
এসময় দিলীপ বড়ুয়া বলেন,‘বাংলাদেশ-ভারত সুসম্পর্ক নষ্ট করতে বিদেশী একটি চক্র চক্রান্ত করছে। তরা ভারতের পশ্চিমবঙ্গের মূখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জীকে ব্যবহার করে তিস্তার পানি চুক্তিতে বাধা সৃষ্টি করেছে। উজানে নদীর পানি একতরফা প্রত্যাহার করায় প্রমত্তা তিস্তা আজ একটি মরা নদী। পানি শূন্যতায় থেমে গেছে তিস্তাঘিরে আমাদের অর্থনৈতিক জীবন প্রবাহ।’
পানি চুক্তির কথা উল্লেখ করে তিনি বলেন, ১৯৮৩ সালের জুলাই মাসে বাংলাদেশ-ভারত যৌথ দিল্লী বৈঠকের সিদ্ধান্ত মোতাবেক ৩৬ ভাগ বাংলাদেশ, ৩৯ ভাগ ভারত এবং ২৫ ভাগ পানি নদীর স্বভাবিক গতির জন্য সংরতি করার সিদ্ধান্ত হয়। কিন্তু সে সিদ্ধান্ত বাস্তবায়ন হয়নি আজও। এরপর ২০১১ সালের ৬ সেপ্টেম্বর ভারতের প্রধান মন্ত্রী মনমোহন সিং বাংলাদেশ সফরের সময় তিস্তার পানি চুক্তি চুড়ান্ত কথা থাকলেও সেই অপশক্তির পানি চুক্তি বিরোধী তৎপরতায় সেটি ব্যাহত হয়। ফলে তিস্তা হারাতে বসেছে নিজস্ব অস্তিত্ব। মানুষের অবাঞ্চিত হস্তক্ষেপে গতি হারিয়েছে প্রাকৃতিকভাবে প্রবাহিত ওই নদী।
সাম্যবাদী দলের নীলফামারী জেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক কমরেড ডা. মোস্তাফিজুর রহমান সবুজের সভাপতিত্বে অন্যান্যের মধ্যে বক্তৃতা দেন দলের পলিট ব্যুরো সদস্য কমরেড লুৎফর রহমান, কেন্দ্রীয় সদস্য কমরেড বাবুল বিশ্বাস, কমরেড অ্যাডভোকেট বীরেন সাহা, কেন্দ্রীয় নেতা কমরেড সাইমুম হক, রংপুর জেলা কমিটির অন্যতম সদস্য ফরিদুল ইসলাম ফরিদ, বাংলাদেশ যুব আন্দোলনের কেন্দ্রীয় সভাপতি মুশাহিদ আহমেদ, বাংলাদেশ ছাত্র আন্দোলনের কেন্দ্রীয় সভাপতি মনজুর রহমান মিঠু, নীলফামারী জেলা শাখা ছাত্র আন্দোলনের সাধারণ সম্পাদক মুরাদুজ্জামান মুরাদ প্রমুখ।
দিলীপ বড়ুয়া বলেন, তিস্তা নদীর পানি আমাদের অর্থনৈতিক জীবন প্রবাহ। ১৯৮৩ সালের জুলাই মাসে বাংলাদেশ-ভারত যৌথ দিল্লী বৈঠকের সিদ্ধান্ত মোতাবেক তিস্তার পানি ৩৬ ভাগ বাংলাদেশ ও ৩৯ ভাগ ভারত এবং ২৫ ভাগ পানি নদীর প্রবাহ সচল  রাখতে সংরতি করার কথা থাকলেও তা এখনও বাস্তবায়িত হয়নি।
২০১১ সালের ৬ সেপ্টেম্বর ভারতের প্রধান মন্ত্রী মনমোহন সিং এর বাংলাদেশ সফরের সময় তিস্তার পানি চুক্তির চুড়ান্ত করার কথা ছিল। কিন্তু বিদেশী অপশক্তি যারা বাংলাদেশ ভারত সুসম্পর্ক চায় না তারাই পশ্চিম বঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জীকে শিখন্ডী হিসাবে ব্যবহার করার ফলে মমতার বিরোধীতার কারণে তিস্তা চুক্তি হয়নি। ফলে তিস্তা নদী তার অস্তিত্ব হারাতে বসেছে। প্রাকৃতিক ভাবে প্রবাহিত নদীতে মানুষের অবাঞ্চিত হস্তেেপ এই অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে। তিস্তার উজানে ভারতের মাটিতে গজলডোবা বাঁধের সবগুলো গেইট বন্ধ করে দেওয়াতে প্রমত্ত এ নদী এখন পানি শূণ্য।
উল্লেখ্য যে, বিগত বছর গুলোর তুলনায় এবছর সকল রেকড ভঙ্গকরে চলতি শুস্ক মৌসুমে তিস্তার পানি প্রবাহ শওণ্যর কোঠায় পৌঁছলে শুরু হয় হৈচৈ। তিস্তার পানির নায্য হিস্যার দাবিতে উত্তাল এখন নীলফামারীর তিস্তাপাড় এলাকা। পানির দাবিতে অনুষ্ঠিত হচ্ছে লংমার্চ, সমাবেশ, পথসভাসহ নানা কর্মসূচী।
এর আগে পানির নায্য হিস্যার দাবিতে  গত ১০ এপ্রিল লালমনিারহাট জেলার হাতিবান্ধা উপজেলার ডালিয়ায় তিস্তা ব্যারাজ পয়েন্ট  প্রথম  লংমার্চ করে বাম মৌর্চা। এরপর  ১৯ এপ্রিল সিপিবি-বাসদ এবং ২৩ এপ্রিল দেশের বৃহৎ রাজনৈতিক দল বিএনপি সমাবেশে করে।
ডালিয়া পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী  প্রকৌশলী মাহবুবর রহমান জানান, বিএনপির সমাবেশের আগের দিন গত মঙ্গলবার নদীতে পানি প্রবাহ ছিল ৩হাজার ৬ কিউসেক। এক রাতেই সে প্রবাহ কমে বুধবার দাঁড়ার এক হাজার ২৪২ কিউসেকে। বৃহস্পতিবার সেখানে আরেক দফা কমে দাঁড়িয়েছে এক হাজার ১৮৬ কিউসেকে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ