• সোমবার, ২৭ জুন ২০২২, ০৫:১২ অপরাহ্ন |

বদরগঞ্জে মাতব্বরের নিদের্শে গৃহবধু তালাক!

Badarganj photo-02jjবদরগঞ্জ (রংপুর) প্রতিনিধি: রংপুরের বদরগঞ্জে গ্রাম্য মাতব্বরদের নির্দেশে গৃহবধুসহ এক ব্যক্তিকে বর্বর নির্যাতন করা হয়েছে। শালিস বৈঠক করে প্রকাশ্যে তাদের শাস্তি দেওয়া হয়। এক পর্যায়ে ওই দুজনকে প্রকাশ্যে আগুন ধরিয়ে দেওয়ার চেষ্টা করা হয়। বৃহস্পতিবার দুপুরে গুরুতর আহত অবস্থায় তাদের বদরগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কেন্দ্রে ভর্তি করা হয়েছে। মাতব্বরের নির্দেশে গৃহবধূর কাছ থেকে তালাক নামায় স্বাক্ষর নিয়ে অভিযুক্ত ওই ব্যক্তির সঙ্গে বিবাহ দেওয়ার চেষ্টা করে মাতব্বররা। আর এ ঘটনায় দায়ীত্ব পালন করেন কাজী মোকছেদুল হকের প্রতিনিধি মোবারক হোসেন নামে এক মাদ্রাসা শিক্ষক। ওই তালাক নামায় জোর করে স্বাক্ষর নেন তিনি। বৃহস্পতিবার এ ঘটনা ঘটে রংপুরের বদরগঞ্জ পৌরশহরের শংকরপুর বেলপাড়া গ্রামে।
প্রত্যক্ষদর্শী ও এলাকাবাসী সুত্রে জানা যায়, বুধবার রাতে ওই গ্রামের সাইফুল ইসলামের(৩৫) সঙ্গে এক গৃহবধুর ঘরে প্রবেশ করার ঘটনা নিয়ে অভিযোগ আনা হয়। অভিযোগে রাতে সাইফুলসহ ওই গৃহবধুকে আটকে রেখে নির্মম নির্যাতন করা হয়। জড়ো করা হয় আশপাশের লোকজনকে। বৃহস্পতিবার সকালে উপস্থিত নারী পুরুষের সামনে মাতব্বররা বসায় শালিস বৈঠক। ওই বৈঠকে অন্যান্যের মধ্যে নেতৃত্ব দেন বদরগঞ্জ উপজেলা যুবদলের নেতা জিয়ারুল ইসলাম(৩৭) ও সজিবার রহমান মন্ডল(৫০)। শালিস বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন, আজিজুল ইসলাম মেম্বার, আব্দুল জলিল, শাহ আলম ও মোফাজ্জল হোসেন মন্ডল ওরফে কান্দুরাসহ আরও অনেকেই। তাদের নির্দেশে বেদম পেটানো হয় অভিযুক্তদের। বৈঠকে তাদের এ অপকর্মের জন্য শরীরে আগুন ধরিয়ে দিতে বলেন অনেকেই। মাতব্বররা সিদ্ধান্ত দেন, আপত্তিকর অবস্থায় যেহেতু তারা আটক হয়েছে। ওই অপরাধে জনসম্মুখে ওই গৃহবধু তার স্বামীকে তালাক দিয়ে সাইফুলকে বিয়ে করতে হবে। মাতব্বরদের সিদ্ধান্তে ওই গৃহবধু কাজীর সামনে নিকাহনামা রেজিস্টার স্বাক্ষর করতে বাধ্য হন।  এক পর্যায়ে ধর্মীয় রীতিতে তালাক দিতে বাধ্য করেন কাজী মোবারক হোসেন। এ খবর পেয়ে বেলপাড়ায় ছুটে যান বদরগঞ্জ উপজেলার স্থানীয় সাংবাদিকরা। এ সময় সাংবাদিকদের উপস্থিতির খবর পেয়ে ঘটনাস্থল থেকে মাতব্বররা সঠকে পড়েন। পরে গুরুতর আহত অবস্থায় তাদের স্বজনরা বদরগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কেন্দ্রে ভর্তি করায়। Badarganj photo-01jj
পৌরসভার  সংশ্লিষ্ট ৯ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর এমদাদুল হক বলেন, গ্রাম্য শালিস বৈঠক করার আইন নেই। যারা আইনকে উপেক্ষা করে ওই দুজনকে শাস্তি দিয়েছে। তারা ঠিক কাজ করেননি। এখন ওই মাতব্বরদের শাস্তি হওয়া উচিত। ওই গৃহবধুর বড় ভাই রায়হান বলেন, শালিসের নামে আমার বোনকে পিটিয়ে জখম করা হয়েছে। আবার অন্যায়ভাবে তাকে তালাক দিতে বাধ্য করা হয়। এটা কোন ধর্মে পড়ে না।
মাতব্বর সজিবর রহমান মন্ডল ও জিয়ারুল ইসলাম তাদের বিরুদ্ধে সকল অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, গ্রামের মানুষের মতামত নিয়ে তাদের এ সাজা দেওয়া হয়েছে। এটা তেমন কিছু নয়।
বদরগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা: সালাহ উদ্দিন মাহমুদ বলেন, আহতদের দুইজনের শরীরের বিভিন্ন স্থানে আঘাত রয়েছে। কয়েকদিন চিকিৎসায় থাকলে মোটামুটি সুস্থ্য হয়ে উঠবে।
বদরগঞ্জ থানার অফিসার্স ইন চার্জ(ওসি) জাহিদুর রহমান চৌধুরী বলেন, এখনও এমন ঘটনা আমার কানে আসেনি। তবে লিখিত অভিযোগ পাওয়া গেলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ