• মঙ্গলবার, ০৫ জুলাই ২০২২, ০৪:১৩ পূর্বাহ্ন |
শিরোনাম :

বৃষ্টির অভাবে বোরো আবাদ হুমকির মূখে

Danমাহবুবুল হক খান, দিনাজপুর: বৃষ্টির অভাবে চলতি বোরো মৌসুমে দিনাজপুরে বোরো আবাদ হুমকির মূখে পড়েছে। বৃষ্টির অভাবে অসহনীয় তাপদাহের কারনে ভু-গর্ভস্থ পানির স্তর নিচে নেমে যাওয়ায় উৎপাদন ব্যাহত হওয়ার আশঙ্কা করছেন কৃষকরা। কৃষকরা জমিতে ৮-১০ ফুট গর্ত করে তাতে সেচপাম্প বসিয়ে পানি উত্তোলন করছেন। অনেক স্থানে এ চেষ্টাও ব্যর্থ হচ্ছে তাদের।
দিনাজপুর কৃষি সম্প্রসারন অধিদপ্তর সূত্রে জানায়, চলতি বোরো মৌসুমে জেলার ১৩ উপজেলায় ১ লাখ ৭৫ হাজার ৬৭৯ হেক্টর জমিতে বোরো আবাদ করা হয়। এর মধ্যে ১ লাখ ৫৮ হাজার ৮৫৬ হেক্টরে উচ্চ ফলনশীল ও ১৬ হাজার ৮২৩ হেক্টর জমিতে হাইব্রীড জাতের ধান রোপন করা হয়। আর উৎপাদণের লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে ৬ লাখ ৮২ হাজার ৪০ মেট্রিক টন চাল।
ধান উৎপাদনে দেশের প্রথম সারির জেলা দিনাজপুরে বৈশাখের শুরুতে ভরা বোরো মৌসুমে ভূ-গর্ভস্থ পানির স্তর নিচে নেমে যাওয়ায় এবারে বোরো চাষ হুমকির মুখে পড়ে। সেচ সুবিধা দিতে কৃষকেরা নানা কৌশল অবলম্বন করছেন। গত ২ মাস ধরে কোন বৃষ্টিপাত না হওয়ায় ভূগর্ভস্থ পানির স্তর নিচে নেমে গেছে। এর ফলে কৃষকেরা তাদের গভীর ও অগভীর নলকূপ স্থাপনে কাঙ্খিত পানি পেতে মাটিতে গর্ত করছেন। কোন কোন স্থানে এ পদ্ধতিও কাজে আসছে না।
দিনাজপুরের সদর উপজেলার রাজাপুকুর গ্রামের মোঃ আমিরুল ইসলাম ডাল্টন জানান, নতুন নতুন সেচযন্ত্র বসাতে বিগত কয়েক বছর আগে যে পরিমাণ গভীরতায় পানি পাওয়া যেত তা এখন পাওয়া যাচ্ছে না। ফলে কোথাও ১২০ ফুট আবার কোথাও আরো বেশী গভীরে পাইপ বসিয়ে পানি তুলতে হচ্ছে। যা এক যুগ আগে ৬৫-৮০ ফুটের বেশি ছিল না। এত গভীরে নলকূপ বসানোর পর আগের তুলনায় অর্ধেক পানি উঠছে। বর্তমানে এলাকার বেশীরভাগ টিউবওয়েলে পানি উটছে না। এলাকাবাসিকে অনেক দুর থেকে খাবার পানি সংগ্রহ করতে হয় বলে তিনি জানান।
সদর উপজেলার পাঁচবাড়ী গ্রামের কৃষক আনাফ জানান, এ বছর তিনি সেচযন্ত্র বসাতে গিয়ে গত বছরের চেয়ে প্রায় ২০ ফুট বেশি গভীরতায় পানির পাইপ স্থাপন করেছেন। তারপরও আগে সেচযন্ত্রে যে পরিমাণ পানি পেয়েছেন বর্তমানে তা প্রায় অর্ধেকে নেমে এসেছে। তারা জানান, আগের তুলনায় সেচযন্ত্রে পানি কম ওঠায় তাদের জ্বালানি খরচও অর্ধেক বেড়ে গেছে। পূর্বে প্রতি মৌসুমে ১ বিঘা জমিতে ১৫-১৮ লিটার ডিজেল ব্যয় হলেও বর্তমানে তা বেড়ে ২৮-৩০ লিটারে দাড়িয়েছে। এছাড়া পানির স্তর নিচে নেমে যাওয়ায় জমিতে সেচ দিতে গিয়ে আগের তুলনায় সময়ও বেশি ব্যয় হচ্ছে।
সরেজমিন সদর উপজেলার কয়েকটি এলাকা ঘুরে দেখা গেছে, ভরা বোরো মৌসুমে ভু-গর্ভস্থ পানির স্তর নিচে নেমে যাওয়ায় কৃষকরা ৮-১০ ফুট কোন কোন েেত্র এর চেয়েও বেশি গর্ত করে সেচযন্ত্র (শ্যালোমেশিন) নিচে বসিয়ে পানি তোলার প্রাণান্তর  চেষ্টা করছেন। বিরল উপজেলার সারঙ্গাই-পলাশবাড়ী  গ্রামের কৃষক মোঃ মোমতাজ মিয়া জানান, আশপাশের মাঠের বেশিরভাগ স্থানে গর্ত করে শ্যালোমেশিন বসিয়ে পানি পানি তোলা হচ্ছে। তার পর পানি আগের তুলনায় অর্ধেক পানি পাওয়া যাচ্ছে। এতে খরচ প্রায় দ্বিগুন বেড়ে গেছে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ