• বৃহস্পতিবার, ৩০ জুন ২০২২, ০৪:৫৭ পূর্বাহ্ন |

মাটির রস পরিমাপক প্রযুক্তি উদ্ভাবন

1397813176.প্রযুক্তি ডেস্ক: প্রাচীন পদ্ধতির বদলে অতি অল্প সময়ে ফসলের মাটির রস মাপা এবং জমিতে পানির পরিমিত সেচ প্রদান কল্পে গবেষণা করে প্রযুক্তি উদ্ভাবন করেছেন বাংলাদেশ কৃষি গবেষণা ইনস্টিটিউটের (বারি) বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ফারুক বিন হোসেন ঈয়ামিন। গবেষণায় মাত্র আড়াই শ’ টাকা খরচে স্বল্প সময়ে উদ্ভাবিত প্রযুক্তির মাধ্যমে সেচ জনিত খরচ প্রায় ৩০-৪০ ভাগ কমানো সম্ভব বলে দাবি করেন ওই গবেষক ।

গবেষক ঈয়ামিন জানান, জমিতে সেচের প্রয়োজনীয়তা নিরূপনের জন্য ফসল বৃদ্ধির বিভিন্ন পর্যায় অনুযায়ী গাছের কার্যকরী মূলাঞ্চলে মাটিতে রসের পরিমান জানা জরুরী। বর্তমানে মাটির রস পরিমাপক প্রযুক্তিসমূহ পদ্ধতিগত কারনেই কিছুটা জটিল এবং সময় সাপেক্ষ। জমিতে সেচের সময় নির্ধারনের জন্য কিছু দিন অন্তর অন্তর ফসল বৃদ্ধির বিভিন্ন পর্যায় অনুযায়ী কার্যকরী মূলাঞ্চলের মাটির রস পরিমাপের প্রয়োজন। মাটির রস পরিমাপ করে সেচ দিলে খরচ প্রায় ৩০-৪০% কমানো সম্ভব। এক্ষেত্রে গতানুগতিক প্রযুক্তিতে মাটির নমুনা সরবরাহ করে পরীক্ষাগার হতে সঠিক সময়ে ফলাফল পাওয়া প্রায় অসম্ভব। এ সকল দিক বিবেচনা করেই এ প্রযুক্তিটি উদ্ভাবন করা হয় যেন কৃষক নিজ জমির মাটির রস কৃষক নিজেই কম সময়ে ও কম খরচে নিরূপন করে সেচের সঠিক সময় নির্ধারন করতে পারে। তিনি আরও বলেন, প্রযুক্তিটির তিনটি অংশ। এগুলো হলো-মাটির নমুনা সংগ্রাহক নল, শতকরা হারে মাটির রস পরিমাপক নিক্তি, মাটির রস পরিমাপক পদ্ধতি।

মাটির রস পরিমাপক পদ্ধতি :
নিজের উদ্ভাবিত প্রযুক্তির ব্যবহার সম্পর্কে ঈয়ামিন বলেন, নমুনা সংগ্রাহক নলটি জমির গাছ হতে ১ ফুট দূরে ডান দিকে ঘুরিয়ে ঘুরিয়ে কাঙ্খিত গভীরতা পর্যন্ত লম্বালম্বি প্রবেশ করাতে হবে। অতঃপর বামদিকে ঘুরিয়ে ঘুরিয়ে টেনে উপরে তুলতে হবে। এরপর একটি ছুরি দিয়ে প্রতি ২ ইঞ্চি পর পর নমুনাটিকে কেটে খালি টিনের কৌটায় নিয়ে ঢাকনা বন্ধ করে দিতে হবে এবং গভীরতা অনুযায়ী কৌটার গায়ে নমুনা চিহ্ন দিতে হবে। বিশেষ পরিপামক নিক্তির ডান পাল্লায় একটি খালি টিনের কৌটা ঢাকনা সহ নিয়ে পাথর/লোহার টুকরা দিয়ে সমতা (০) আনতে হবে। অতঃপর বাম দিকের পাল্লায় ১০০ গ্রাম ওজনের বাটখারা দিয়ে ডান দিকের খালি কৌটাতে ১০০ গ্রাম পরিমান নমুনা মাটি দিতে হবে, যাতে নির্দেশক কাটাটি (০) থাকে। কৌটাটির ঢাকনা বন্ধ করে রন্ধনরত চুলার ভিতরে ফেলে দিতে হবে। ১০-১৫ মিনিট পরে চিমটা দিয়ে কৌটাটি তুলে কিছুক্ষণ রেখে দিয়ে ঠান্ডা হলে উক্ত কৌটাটি পূর্বের ডান পাল্লায় দিয়ে মাটির রস নির্দেশক স্কেল পর্যবেক্ষণ করতে হবে। নির্দেশক কাটাটি তখন মাটির রসের পরিমান শতকরা হারে নির্দেশ করবে। উল্লেখ্য যে, শতকরা হারে মাটির রস নির্দেশক স্কেল-এর সাথে সবজি চাষের জন্য প্রযোজ্য একটি রঙভিত্তিক স্কেল রয়েছে।

বাংলাদেশের কৃষকরা সাধারণত জমির উপরিভাগ শুকিয়ে গেলেই সেচ দেয়। কিš‘ উক্ত সময়ে দেখা যায় যে, গাছের কার্যকরী মূলের নিকট¯’ মাটিতে পর্যাপ্ত পরিমান রস রয়েছে। এ সময়ের সেচ দিলে নতুন সেচকৃত পানি অতিরিক্ত হিসেবে জমিতে যোগ হয় এবং প্রায় সম্পূর্ণটাই অপচয় হয়। উপযুক্ত সময় নির্ধারণ না করে সেচ দিলে সেচের মূল্য বাবদ ফসল উৎপাদন খরচ বৃদ্ধি পায় আবার ফলন কম হওয়ার কারনে লাভ কম হয়। এই দুই ক্ষতি মিলে লাভের বড় একটা অংশ কৃষকের হাত ছাড়া হয়ে যায়। দেশের স্বার্থে সহজ এই প্রযুক্তিটি কৃষকের মাঝে দ্রুত ছড়িয়ে পড়লে ভূগর্ভস্থ পানির অপচয় কমবে বলে তিনি মনে করেন।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ