• সোমবার, ২৭ জুন ২০২২, ০৬:০৪ পূর্বাহ্ন |
শিরোনাম :
পদ্মা সেতুর রেলিংয়ের নাট খোলা বায়েজিদ আটক নীলফামারী জেলা শিক্ষা অফিসার শফিকুল ইসলামের শ্বশুড়ের ইন্তেকাল সৈয়দপুর সরকারি বিজ্ঞান কলেজের গ্রন্থাগারের মূল্যবান বইপত্র গোপনে বিক্রি ফেনসিডিলসহ সেচ্ছাসেবক লীগের নেতা গ্রেপ্তার এ সেতু আমাদের অহংকার, আমাদের গর্ব: প্রধানমন্ত্রী বাংলাদেশ-ভারতে রেল যোগাযোগ বন্ধ থাকবে ৮ দিন পদ্মা সেতুর উদ্বোধন বাংলাদেশের জন্য এক গৌরবোজ্জ্বল ঐতিহাসিক দিন: প্রধানমন্ত্রী পদ্মা সেতুর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে যেতে মানতে হবে যেসব নির্দেশনা সৈয়দপুরে বিস্কুট দেয়ার প্রলোভনে শিশুকে ধর্ষণের অভিযোগ গণমানুষের সমর্থনেই পদ্মা সেতু নির্মাণ সম্ভব হয়েছে: প্রধানমন্ত্রী

অঞ্চলভিত্তিক কর্মসূচি দিতে যাচ্ছে বিএনপি

BNP Flagঢাকা: খুব শিগগিরই অঞ্চলভিত্তিক কর্মসূচি ঘোষণা করতে যাচ্ছে বিএনপি। আন্দোলনে গতি আনতে ও জনসম্পৃক্ততা আর বাড়াতে তারা এই কৌশল নিচ্ছে বলে দলীয় সূত্রে জানা গেছে। যথাসম্ভব এড়িয়ে যাওয়া হবে জনদুর্ভোগ সৃষ্টিকারী ও তাৎক্ষণিক কর্মসূচি। আঞ্চলিক ইস্যু ও জনস্বার্থ সংশ্লিষ্ট জাতীয় ইস্যুতে শান্তিপূর্ণ কর্মসূচির ভেতর দিয়েই গণতান্ত্রিক আন্দোলনকে ফের তুঙ্গে নিতে চায় দলটি। এ জন্য জনসচেতনতা সৃষ্টি ও সাংগঠনিক পুনর্গঠনকে এ মুহূর্তে দেয়া হচ্ছে প্রাধান্য।
শিগগিরই কয়েকটি অঞ্চলভিত্তিক কর্মসূচি আসতে পারে বিএনপির তরফে। এছাড়া দেশের বিশেষ কিছু জেলা সফর করবেন বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া। সে সফরে তিনি গণতান্ত্রিক আন্দোলনে নিহত ও আহত নেতাকর্মীদের পরিবারের সঙ্গে সাক্ষাৎ করবেন। বিএনপির কয়েকজন সিনিয়র নেতার সঙ্গে আলাপে এমন তথ্য জানা গেছে।
বিএনপি নীতিনির্ধারণী ফোরামের এক নেতা জানান, বিএনপির লক্ষ্য, দাবি ও কর্মসূচির একটি সমন্বয় ঘটানো হয়েছে। বিএনপির লক্ষ্য হচ্ছে- গণতন্ত্র, দাবি হচ্ছে- নির্দলীয় সরকার এবং কর্মসূচি হচ্ছে- মার্চ ফর ডেমোক্রেসি। ভবিষ্যতে এ সমন্বয়ের ভিত্তিতে কর্মসূচি প্রণয়নের নীতিগত সিদ্ধান্তও হয়েছে দলের নীতিনির্ধারণী ফোরামে।
তিনি বলেন, আগামী দিনগুলোকে তাৎক্ষণিক ইস্যুর চেয়ে দূরদর্শী ও দীর্ঘমেয়াদি প্রভাব সৃষ্টিকারী কর্মসূচি প্রণয়নে জোর দেয়া হচ্ছে। পানির ন্যায্য হিস্যার দাবিতে তিস্তা ব্যারেজ অভিমুখে লংমার্চটিও তারই একটি অংশ। এ কর্মসূচির মাধ্যমে বিএনপি উত্তরাঞ্চলের দু’টি বিভাগের কৃষিজীবী জনগোষ্ঠীর মধ্যে একটি প্রভাব তৈরি করেছে। আগামী শীতের শুরুতে বড় পরিসরে আরেকটি লংমার্চের নীতিগত সিদ্ধান্তও রয়েছে বিএনপির। এখন থেকে দলের পক্ষ থেকে যে মোড়কেই কর্মসূচিই দেয়া হোক না কেন তার কেন্দ্রবিন্দুতে থাকবে গণতন্ত্রের স্বার্থে নির্দলীয় সরকার ব্যবস্থার দাবি।
তিস্তা অভিমুখে লংমার্চ কর্মসূচিকে সফল বিবেচনা করে বিএনপি নেতারা বলছেন, ৫ই জানুয়ারির পর এটাই বিএনপির জনসম্পৃক্ত বড় ধরনের একক কর্মসূচি। বিরোধী নেতা খালেদা জিয়ার অংশগ্রহণে প্রতিটি কর্মসূচিই জনসম্পৃক্ততায় সফল হয়। জোটের মধ্যে এককভাবে প্রণয়ন ও শীর্ষ নেতার অংশগ্রহণবিহীন এটা ছিল একটি পরীক্ষামূলক কর্মসূচি। নেতারা বলেন, বিএনপির একক কর্মসূচি হিসেবে লংমার্চ সফল। দলের দ্বিতীয় প্রধান ব্যক্তির নেতৃত্বে এ কর্মসূচি জনসম্পৃক্ততার পাশাপাশি সুশৃঙ্খল ও শান্তিপূর্ণ অনুষ্ঠিত হওয়াও ইতিবাচক লক্ষণ।
এর মধ্যদিয়ে দেশের উত্তরাঞ্চলের নেতাকর্মীরা নতুন করে চাঙ্গা হয়েছে। তারা বলেন, লংমার্চের প্রথম দিন হঠাৎ করে তিস্তায় কিছু পানি আসার কারণে স্থানীয় কৃষক ছিলেন মাঠে ব্যস্ত। যদি তিস্তায় পানির দেখা না মিলতো তবে লংমার্চের জনসভা হতো স্মরণকালের বিশাল। বিএনপির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন, পানির ন্যায্য হিস্যা আদায়ের দাবিতে তিস্তা অভিমুখে আমাদের লংমার্চ কর্মসূচি সফল হয়েছে। এর মাধ্যমে আমরা দেশে ও বিদেশে মানুষের দৃষ্টি আকর্ষণ করতে সক্ষম হয়েছি। এমনকি ভারত সরকারের দৃষ্টি আকর্ষণ হয়েছে। তিনি বলেন, তিস্তা নদীতে হঠাৎ করে যে কিছু পানি ছাড়া হয়েছে সেটা এমনি এমনি হয়নি। নিশ্চয়ই ভারত সরকার ও পশ্চিমবঙ্গ সরকারের আলোচনা সাপেক্ষেই হয়েছে। এছাড়া লংমার্চ কর্মসূচিতে জনসম্পৃক্ততা তৈরি করতে পেরেছি। তিনি বলেন, দেশের অভিন্ন ৫৪টি নদীর ব্যাপারে আমরা উদ্বিগ্ন। ফলে এ বিষয়ে দাবি আদায়ে আমাদের দল সময় উপযোগী সিদ্ধান্ত নেবে।
বিএনপি নেতারা জানান, আন্দোলনে বিএনপির সফলতা-ব্যর্থতা নিয়ে নানা মহলে চুলচেরা বিশ্লেষণ চলছে। সেখান থেকে উঠে আসে মতামতগুলো নিজেদের কর্মপরিকল্পনা তৈরিতে কাজ লাগানো হচ্ছে। কিন্তু বিএনপির বিবেচনায় ৫ই জানুয়ারির একতরফা নির্বাচন প্রতিরোধের আন্দোলন পুরোপুরি সফল।
নেতারা বলেন, আওয়ামী লীগের আন্দোলনের সুনাম আছে কিন্তু সেটা গণতান্ত্রিক পরিবেশে। বিএনপি কখনও আন্দোলনের প্রতিকূল পরিবেশ তৈরি করেনি। কিন্তু বর্তমান সরকার যে ধরনের প্রতিকূল পরিস্থিতি তৈরি করেছে তাতে বিরোধী জোটের আন্দোলনকে ব্যর্থ প্রমাণের কোন সুযোগ নেই। কারণ প্রতিদিনই দেশের কোন না কোন জায়গায় নিখোঁজ ও খুন হচ্ছে বিরোধী নেতাকর্মী। মামলা-হামলা ও পুলিশি হয়রানি তো আছেই। তারপরও আন্দোলন থেকে সরে আসেনি বিরোধী নেতাকর্মীরা। এই টিকে থাকার মাধ্যমেই প্রমাণ হয় বিএনপির আন্দোলন সফল।
বিএনপি নেতারা জানান, কেন্দ্রীয় কর্মসূচির চেয়ে দেশের বিভিন্ন অঞ্চলের আঞ্চলিক দাবিগুলোকে প্রাধান্য দিয়ে লংমার্চের মতো আরও কিছু কর্মসূচি প্রণয়ন করা হবে। কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎ প্রকল্প সুন্দরবন থেকে সরানো, টিপাইমুখসহ নানা আঞ্চলিক ইস্যুতে কর্মসূচি আসবে। বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব মোহাম্মদ শাহজাহান বলেন, জনদুর্ভোগ সৃষ্টি করে এমন কর্মসূচি দেয়ার পক্ষপাতী নয় বিএনপি। তাই রয়ে-সয়ে জনসম্পৃক্তমূলক কর্মসূচি প্রণয়নে জোর দেয়া হচ্ছে।
বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব সালাহউদ্দিন আহমেদ বলেন, লংমার্চের সফল হচ্ছে আন্তর্জাতিক অভিন্ন নদী আইন অনুযায়ী আমাদের ন্যায্য হিস্যা আদায়ে দেশে-বিদেশে একটি সাড়া ফেলতে পেরেছি। এখন সরকারের প্রতি আমাদের আহ্বান, পানির ন্যায্য হিস্যা আদায়ে জোরালো কূটনীতিক উদ্যোগ নিন। কারণ নতজানু নীতি ও কূটনীতিক ব্যর্থতার কারণে এমন বিপর্যয়ের সৃষ্টি হয়েছে। তিনি বলেন, দেশের গণতান্ত্রিক প্রক্রিয়া অব্যাহত রাখার মধ্যেই সব সমস্যার সমাধান। সেটার জন্য প্রয়োজন দেশে নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে একটি নির্বাচিত শক্তিশালী সরকার।
তিনি বলেন, সরকারের দমন নীতির কারণে যে পরিসরে আন্দোলন করার কথা সেটা এখনই আমরা করতে পারছি না। কিন্তু আন্দোলনের ধারাবাহিকতায় বিভিন্ন স্টেজে বিভিন্ন ফর্মে কর্মসূচি আসবে। পরিবেশ রক্ষার্থে রামপাল থেকে কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎ প্রকল্প সরানোর দাবি ও বিদ্যুতের মূল্যবৃদ্ধির প্রতিবাদে আরও আন্দোলন হবে। জনসম্পৃক্ততামূলক দূরদর্শী কর্মসূচির ভেতর দিয়েই গণতন্ত্রের আন্দোলনে আমরা তুঙ্গে নিয়ে যাবো।
ঢাকাটাইমস


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ