• শনিবার, ২৫ জুন ২০২২, ০৯:৫৭ পূর্বাহ্ন |

চিরিরবন্দরের সুফিয়া এক কোটিপতি আয়ার নাম

Taka-2দিনাজপুর প্রতিনিধি: চিরিরবন্দরের সুফিয়া এক কোটিপতি আয়ার নাম। সুফিয়া আকতার অনেক ধন-সম্পদের মালিক। অথচ তিনি চিরিরবন্দর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার অফিসের একজন আয়া মাত্র।
সুফিয়া ২০০০ সালের ১ অক্টোবর তারিখে উপজেলা নির্বাহী অফিসে যোগদান করেন। দীর্ঘ ১৪ বছর ধরে এ অফিসেই চাকুরি করছেন। তিনি দিনাজপুর শহরের বালুবাড়ি মহল্লার মো. তৈয়বুর রহমানের স্ত্রী। এ উপজেলায় চাকুরিতে থাকার সুবাদে তিনি বিভিন্ন গ্রামের লোকের সাথে গড়ে তোলেন সখ্যতা। এ সুযোগকে কাজে লাগিয়ে তিনি বিভিন্ন লোকের নিকট থেকে সুকৌশলে হাতিয়ে নিয়েছেন লাখ লাখ টাকা। সামান্য আয়া পদে চাকুরি করে নামে-বেনামে বিপুল ধন-সম্পদের মালিক বনে গেছেন। বিভিন্ন ব্যক্তিকে চাকরি দেয়ার নাম করে হাতিয়ে নিয়েছেন লাখ লাখ টাকা। চাকরি প্রার্থীরা চাকরি না পেয়ে তার নিকট গচ্ছিত টাকা ফেরত চাইতে গিয়ে বিভিন্নভাবে লাঞ্চিতও হচ্ছেন।
এমন একজন চাকরি প্রার্থীর স্বামী হলেন মো. ওবায়দুর রহমান। চিরিরবন্দর উপজেলার জোত সাতনালা গ্রামের ওবায়দুর রহমানের স্ত্রীকে পরিবার পরিকল্পনা সহকারী (টিএফপিএ) পদে চাকরি দেয়ার নাম করে সুফিয়া ৮ লাখ টাকা হাতিয়ে নেন। এ টাকা নেয়ার পরেও তাকে চাকরি দিতে ব্যর্থ হন। চাকরি দিতে না পারায় তিনি ওবায়দুর রহমানের স্ত্রীকে ৩ মাসের মধ্যে সমুদয় টাকার ফেরত দেয়ার জন্য অগ্রনী ব্যাংক লিমিটেড’র একটি চেক প্রদান করেন। যার সঞ্চয়ী হিসাব নং ১০১৪২১৯ চেক নং ০১এক্স-১৯৯৯৯৭৪ অগ্রনী ব্যাংক লিমিটেড স্টেশন রোড শাখা, দিনাজপুর।
ওবায়দুর ও তার স্ত্রী ব্যাংকে টাকা উত্তোলন করতে গিয়ে জানতে পারেন যে ওই ব্যাংক একাউন্টে কোন টাকা নেই। ওবায়দুর দম্পতি তাদের অনেক কষ্টের জমানো টাকা ফেরত পাওয়ার আশায় ধর্ণা দেন সুফিয়ার নিকট। সুফিয়া তাদের টাকা দেব-দিচ্ছি করে সময়পেন করতে থাকে। নিরুপায় হয়ে ওবায়দুর রহমান গত ১২ মার্চ’২০১৪ তারিখে প্রতিকার চেয়ে জেলা প্রশাসক, জেলা পুলিশ সুপার, জেলা দূর্নীতি দমন কমিশন, চিরিরবন্দর উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও চিরিরবন্দর থানার ওসির নিকট অভিযোগ করেছেন। শুধু ওবায়দুর দম্পতিই নয়। তাদের মত মোকলেছ ড্রাইভার, হোটেল মালিক আবুল, রাণীরবন্দরের টেম্পু মালিক শফিকুলসহ আরো অনেকেই সুফিয়াকে চাকুরির জন্য টাকা দিয়েছেন। কিন্তু চাকুরি পাননি। তারা ওবায়দুর দম্পতির মত পথে পথে ঘুরে বেড়াচ্ছছন।
সুফিয়া বিগত সরকারের ভূমি প্রতিমন্ত্রী মোস্তাফিজুর রহমান ফিজারকে ভাই সম্বোধন করে এবং তাঁর নাম ভাঙ্গিয়ে বিভিন্ন ব্যক্তিকে চাকুরি দেয়ার নাম করে লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নিয়েছেন। গড়ে তুলেছেন দিনাজপুর শহরে কয়েকটি বিল্ডিং বাড়ি। রংপুর বিভাগীয় শহরে বিশাল বাড়ি গড়ে তুলেছেন। শুধু তাই নয়- চিরিরবন্দর উপজেলার নশরতপুর ইউনিয়নের দণি নশরতপুর গ্রামে এমএমবি নামে একটি ইটভাটাও রয়েছে তার। দিনাজপুরে মার্কেন্টাইল ব্যাংক, অগ্রণী ব্যাংক, ইসলামি ব্যাংক, চিরিরবন্দরে জনতা ব্যাংক এবং মোবাইল ব্যাংকে বিপুল পরিমাণ টাকা রয়েছে।
উল্লেখ্য যে, ১৯৯৯ সালে দিনাজপুর জেলার পার্বতীপুর উপজেলার যশাই উচ্চ বিদ্যালয়ে আয়া পদে চাকুরিকালীন সময়ে অসামাজিক কার্যকলাপের দায়ে চাকুরিচ্যুত হন এই সুফিয়া। পরবর্তীতে প্রতিবেশী চাচা আজগর মাষ্টারের সহায়তায় তৎকালীন মোস্তাফিজুর রহমান ফিজার এমপির মাধ্যমে বিনা সার্কুলারে দিনাজপুর জেলা প্রশাসক অফিসে আয়া পদে নিয়োগ পান।
সচেতন মহলের প্রশ্ন আয়া পদে চাকরি করে সুফিয়া এত বিপুল অর্থের মালিক ও বিত্তশালী হলেন কিভাবে ? এ ব্যাপারে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের নিকট তদন্ত করে ব্যবস্থা গ্রহনের দাবী জানিছেন তারা।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ