• সোমবার, ২৭ জুন ২০২২, ০৬:১৪ পূর্বাহ্ন |
শিরোনাম :
পদ্মা সেতুর রেলিংয়ের নাট খোলা বায়েজিদ আটক নীলফামারী জেলা শিক্ষা অফিসার শফিকুল ইসলামের শ্বশুড়ের ইন্তেকাল সৈয়দপুর সরকারি বিজ্ঞান কলেজের গ্রন্থাগারের মূল্যবান বইপত্র গোপনে বিক্রি ফেনসিডিলসহ সেচ্ছাসেবক লীগের নেতা গ্রেপ্তার এ সেতু আমাদের অহংকার, আমাদের গর্ব: প্রধানমন্ত্রী বাংলাদেশ-ভারতে রেল যোগাযোগ বন্ধ থাকবে ৮ দিন পদ্মা সেতুর উদ্বোধন বাংলাদেশের জন্য এক গৌরবোজ্জ্বল ঐতিহাসিক দিন: প্রধানমন্ত্রী পদ্মা সেতুর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে যেতে মানতে হবে যেসব নির্দেশনা সৈয়দপুরে বিস্কুট দেয়ার প্রলোভনে শিশুকে ধর্ষণের অভিযোগ গণমানুষের সমর্থনেই পদ্মা সেতু নির্মাণ সম্ভব হয়েছে: প্রধানমন্ত্রী

দেশজুড়ে জামায়াতী অপকৌশল ॥ এবার নারী জঙ্গী!

74643_1সিসি ডেস্ক: যুদ্ধাপরাধীদের বিচারে জেগে ওঠা আন্দোলন গণজাগরণ মঞ্চের মুখপাত্রসহ ১৬ উদ্যোক্তার নাম উল্লেখ করে গত বছর তাদের হত্যা করার আহ্বান জানানো হয়েছিল জামায়াতে ছাত্রী সংগঠন ছাত্রীসংস্থার ফেসবুক পেজে। জামায়াতের এ সংগঠনটি নেতাকর্মীদের বলেছিল, ‘নাস্তিক আওয়ামী লীগ ও নাস্তিক জাগরণ মঞ্চের পাপিষ্ঠ ব্লগারদের হত্যা করা জায়েজ। এদের হত্যা করলে মৃত্যুর পর আল্লাহর কাছে কোন জবাবদিহি করতে হবে না। হত্যা না করলে কিয়ামতের দিন লাঞ্ছিত হতে হবে।’ দল নিষিদ্ধ ও যুদ্ধাপরাধীদের বিচারের প্রেক্ষাপটে এবার দাওয়াতী কর্মসূচীর নামে দেশজুড়ে সক্রিয় হয়ে উঠেছে দলগতভাবে যুদ্ধাপরাধের দায়ে অভিযুক্ত জামায়াতের মহিলা শাখাসহ তাদের অর্থপুষ্ট নারী জঙ্গীবাদীরা। স্কুল থেকে বিশ্ববিদ্যালয়, বাসাবাড়ি থেকে মসজিদ ‘ধর্মপ্রাণ নারী সেজে’ ইসলামী দাওয়াতের নামে সাধারণ ও সরল ধর্মপ্রাণ মানুষকে জামায়াতে ভেড়ানো, মিথ্যা তথ্য দিয়ে সাধারণ মুসল্লিদের সরকারের বিরুদ্ধে ক্ষেপিয়ে তোলা হচ্ছে। অনেক জেলা ও শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানকে জামায়াতী নারীরা রীতিমতো ঘাঁটি বানিয়ে ফেলেছে। মসজিদে মসজিদে বিতরণ করা হচ্ছে সরকারবিরোধী মিথ্যা তথ্যসংবলিত লিফলেট।
দাওয়াতের নামে দেশজুড়ে জামায়াত-শিবিরের অপতৎপরতা সম্পর্কে সংশ্লিষ্ট ব্যক্তি, সাধারণ মানুষ, আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী ও অন্যান্য ইসলামী চিন্তাবিদের সঙ্গে কথা বলে এসব উদ্বেগজনক সব তথ্য পাওয়া গেছে। সংশ্লিষ্টরা বলছেন, যুদ্ধাপরাধের বিচার বানচালে সরকারের বিরুদ্ধে অপপ্রচার আর বিকৃত তথ্য ছড়ানোর অপকৌশল বাস্তবায়নে দেশজুড়ে কাজ করছে অন্তত ৩০ থেকে ৪০ হাজার নারী, যারা জামায়াতের সক্রিয় সদস্য। ইসলামী ছাত্রী সংস্থার সরাসরি নিয়ন্ত্রণে এরা পরিচালিত হয়। এদের মধ্যে আছে ‘ফুল টাইমার’ ও ‘পার্ট টাইমার’ নেতাকর্মী। এরা জামায়াতের নির্বাহী কমিটি, মসলিশে শূরা, রোকন ও শিবিরের সদস্য, সাথীর মতো মাসিক বেতন পায়। সারাদেশে দাওয়াতের নামে সারা বছর যারা কাজ করে তাদের বেতন ৫ হাজার থেকে ২০ হাজার টাকা পর্যন্ত হয়ে থাকে বলে জানিয়েছে শিবিরের সাবেক ও বর্তমানের বেশ কয়েক নেতা। জামায়াত-শিবিরের দাওয়াত বিশেষত মহিলাদের দাওয়াতের নামে চলা জঙ্গীবাদী অপকর্ম চলে মূলত শিবিরের নিজস্ব প্রতিষ্ঠান ফুলকুঁড়ির আসরের অনুকরণেই। একই কৌশলে পরিবার, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানসহ সর্বত্র সাধারণ মানুষকে আকৃষ্ট করে সুবিধা দেয়া আর একপর্যায়ে চলে মগজধোলাই করে দলে ভেড়ানো। এই মুহূর্তেও দেশজুড়ে দাওয়াতী কাজের নামে চলছে এ কার্যক্রম। বাসাবাড়ি ও বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের সাধারণ মুসল্লি, ছাত্রীদের টার্গেট করেই চলছে এ কার্যক্রম। ছাত্রী সংস্থার নেত্রীরা বিদ্যালয়ের ছাত্রীদের কাছে বিভিন্ন বই ও দাওয়াতী কাজের নামে তাদের সংগঠনের লিফলেট বিতরণ করছে। এসব লিফলেটে সংগঠনের ইতিহাস, কার্যক্রম, লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য বর্ণনা করা হয়েছে। নিবন্ধন অবৈধ ঘোষণাসংক্রান্ত উচ্চ আদালতের রায়কে বিকৃত করে লক্ষ্য হাসিলে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর চোখ ফাঁকি দিয়ে সারাদেশের মসজিদে মসজিদে সরকারবিরোধী মিথ্যা আর বিকৃত তথ্য সংবলিত লিফলেট বিতরণ করা হচ্ছে। সাধারণ মুসল্লিসহ সকল ইসলামী দলকে ক্ষেপিয়ে তুলতে এসব লিফলেটে রায়কে বিকৃত করে প্রচার করা হচ্ছে, কেবল আল্লার সার্বভৌমত্বের কথা বলার জন্য জামায়াতের বিরুদ্ধে রায়!, আল্লার সার্বভৌমত্বের কথা বলা কি অপরাধ? রায়ের বিকৃত ব্যাখ্যা দিয়ে মসজিদ ছাড়াও নানা মাধ্যমে সরকারবিরোধী এসব লিফলেট ছড়ানো হচ্ছে। বলা হচ্ছে ‘মতিউর রহমান নিজামী সাহেব ছিলেন মুক্তিযোদ্ধা। প্রশিক্ষণ নিয়েই মুক্তিযুদ্ধ করেছিলেন তিনি’ ‘সাঈদী মুক্তিযুদ্ধের সময় নাবালক ছিলেন, বয়স সবে বারো কি তেরো বছর।’ সেই বয়সে লুটপাট, নির্যাতন ও ধর্ষণ কাকে বলে, কিছুই তিনি বুঝতেন না।’ শুধু তা-ই নয়, ‘আলবদর-আলশামসরা বুদ্ধিজীবীদের হত্যা করেনি, আওয়ামী লীগ, কমিউনিস্টরা বুদ্ধিজীবীদের হত্যা করে বহির্বিশ্বে জামায়াতকে বিতর্কিত করছে।’ এমন উদ্ভট, বিকৃত ঔদ্ধত্যপূর্ণ তথ্য ছড়িয়ে দেশ-বিদেশে মহান মুক্তিযুদ্ধ ও যুদ্ধাপরাধীদের বিচারের বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়েছে দলগতভাবে যুদ্ধাপরাধের দায়ে অভিযুক্ত দল জামায়াত-শিবির।

ফ্যাসিস্ট সংগঠন
একটি ফ্যাসিস্ট পার্টির মতোই জামায়াত অত্যন্ত সংঘবদ্ধ এবং নিবেদিত সংগঠন। আন্তর্জাতিক জঙ্গী সংগঠনগুলোর সঙ্গেও আছে এর যোগ্যসূত্র। সুকৌশলে, টার্গেট নির্ধারণ করে, প্রাথমিক পর্যায়ে ব্যক্তিগত প্রভাব খাটিয়ে এরা সদস্য সংগ্রহের কাজে হাত দেয়। প্রাথমিক পর্যায়ে কেউ জামায়াতের পূর্ণাঙ্গ সদস্যপদ পায় না। আনুগত্যের একটা পর্যায় শেষে এদের বলা হয় মুত্তাফিক বা সহযোগী সদস্য। দ্বিতীয় পর্যায় হচ্ছে রোকন বা পূর্ণাঙ্গ সদস্য। পরবর্তী পর্যায় সদস্য, মজলিশে শূরা। প্রায় একই অবস্থা ছাত্র সংগঠনেও। সেখানে পর্যায়গুলো হচ্ছে সমর্থক-কর্মী-সাথী-সদস্য। পূর্ণাঙ্গ সদস্য পদ লাভের পর সদস্যরা সর্বক্ষণিক কর্মী হিসেবে সংগঠনের কাজ করেন। এ জন্য তাঁরা সংগঠন থেকে মাসোহারাও লাভ করেন। পাকিস্তান আমল থেকেই এ নিয়ম চালু আছে। বর্তমানে এ নিয়ম ব্যাপকভাবে চালু রয়েছে। কেন্দ্র থেকে শুরু করে থানা পর্যায়ের কর্মীরা মাস শেষে বেতন পান। ঢাকা থেকে এই বেতন পাঠানো হয়। যাঁরা ‘রোকন’ তাঁদের বেতন বেশি। জেলাপর্যায়ে এখন সাধারণত তিন হাজার টাকা করে সাধারণ কর্মীদের বেতন দেয়া হয়। তবে কোন কোন জেলায় এই মাসোহারার পরিমাণ আরও বেশি। রোকনদের বেতন জেলা বিভাগ ভেদে ২৫ হাজার টাকাও আছে।

জামায়াতের এনজিও এবং আর্থিক প্রতিষ্ঠান
কেবল গবেষকদের হিসাব নয়, যুদ্ধাপরাধের অভিযোগে ‘রাজনৈতিক দল’ বা ‘সংগঠন’ হিসেবে জামায়াতের বিচার চেয়ে আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালের প্রসিকিউশনে তদন্ত সংস্থার ‘প্রতিবেদনে বেরিয়ে এসেছে জামায়াতের বিশাল আর্থিক সাম্রাজ্যের তথ্য।’ প্রমাণ পাওয়া গেছে, যুদ্ধাপরাধে অভিযুক্ত জামায়াতে ইসলামীর পৃষ্ঠপোষকতায় সারাদেশে পরিচালিত হচ্ছে দেশী-বিদেশী ৪৩টি এনজিওসহ ১২৭টিরও বেশি আর্থিক প্রতিষ্ঠান। এসব প্রতিষ্ঠান ধর্মের নাম ব্যবহার করে নানা কৌশলে তাদের কার্যক্রম রেখে আর্থিকভাবে শক্তিশালী হচ্ছে। যার সুফল নিচ্ছে জামায়াত। জামায়াতের প্রতিষ্ঠানের তালিকা রয়েছে দেশী-বিদেশী এনজিও ৪৩, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান ২২ এবং হাসপাতাল-ক্লিনিক ১০। যুদ্ধাপরাধী ‘দল’ বা ‘সংগঠন’ হিসেবে জামায়াতের বিচার শুরুর পাশাপাশি দলটির অর্থের উৎস চিহ্নিত করে রাষ্ট্রের অনুকূলে বাজেয়াফত করা এখন গণদাবি। মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় বিশ্বাসী প্রতিটি নাগরিক তাঁরা বলছেন, জামায়াতের বিচার করলেই হবে না, দলটির অর্থের উৎসও বন্ধ করতে হবে। অন্যথায় দেশকে জঙ্গী রাষ্ট্রে পরিণত করার অপতৎপরতা প্রতিরোধ করা যাবে না। গত ২৭ মার্চ ৩৭৩ পৃষ্ঠার ‘তদন্ত প্রতিবেদন’ ও ৯ হাজার ৫৫৭ পৃষ্ঠার আনুষঙ্গিক তথ্য-উপাত্ত ট্রাইব্যুনালের প্রসিকিউশন টিমের কাছে দাখিল করেন তদন্ত কর্মকর্তা অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মতিউর রহমান। ওই একই প্রতিবেদনে জামায়াত ও তার সহযোগী সংগঠন আলবদর, আলশামস, রাজাকারসহ তাদের মুখপত্র দৈনিক সংগ্রামকে বিচারের মুখোমুখি করতে আইনী বিষয় খতিয়ে দেখার জন্যও প্রস্তাব করা হয়।
একাত্তরের ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটির ভারপ্রাপ্ত সভাপতি শাহরিয়ার কবির বলেন, শুধু জামায়াতের বিচার করলেই হবে না; দলটির অর্থের উৎস বন্ধ করতে হবে। কারণ জামায়াত নানা কৌশলে দেশে-বিদেশে বিভিন্ন ধরনের আর্থিক প্রতিষ্ঠান গড়ার মাধ্যমে দলকে শক্তিশালী করছে এবং সেই অর্থ দেশকে জঙ্গী রাষ্ট্র হিসেবে পরিণত করতে ব্যয় করছে। তিনি বলেন, জামায়াতের বিচার দু’ভাবে অর্থাৎ একাত্তরে গণহত্যা ও বর্তমানে যেসব সন্ত্রাসী ভূমিকা দলটির রয়েছে, তার জন্য হতে পারে। এ ছাড়া দলটির অর্থের উৎস বন্ধ করতে হলে সহযোগী আর্থিক প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধেও ব্যবস্থা নিতে হবে। নিরাপত্তা বিশ্লেষকসহ সংশ্লিষ্ট সকলেই বলছেন, মৌলবাদীদের অর্থনীতি সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ একটি বিষয়। অধ্যাপক ড. আবুল বারকাত তাঁর এক গবেষণায় অন্তত আট বছর আগেই বলেছিলেন, মৌলবাদীদের অর্থনীতির প্রবৃদ্ধির হার সাড়ে ৭ থেকে ৯ ভাগ। তারা প্রতিবছর প্রায় ৩০০ কোটি টাকা ব্যয় করে শুধু রাজনৈতিক কর্মকা- পরিচালনা করতে। এর মধ্যে, জঙ্গী কর্মকা- ছাড়াও সাংগঠনিক কর্মকা- পরিচালনা ব্যয়, রাজনৈতিক কর্মীদের বেতন, জনসভা আয়োজন ও অস্ত্র প্রশিক্ষণ। তাদের এক হাজার ৫শ’ কোটি টাকা মুনাফার ২৭ শতাংশ আসে বিভিন্ন আর্থিক প্রতিষ্ঠান থেকে যার মধ্যে রয়েছে, ব্যাংক, বীমা ও লিজিং কোম্পানি। ২০ দশমিক ৮ শতাংশ আসে বিভিন্ন বেসরকারী সংস্থা থেকে, ১০ দশমিক ৮ ভাগ আসে বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠান থেকে। ১০ দশমিক ৪ ভাগ আসে ওষুধ শিল্প ও ডায়াগনস্টিক সেন্টারসহ স্বাস্থ্য প্রতিষ্ঠান থেকে। ৯.২ শতাংশ আসে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান থেকে। ৮.৩ শতাংশ আসে রিয়েল এস্টেট ব্যবসা থেকে।
যোগাযোগ ব্যবসা থেকে আসে ৭.৫ শতাংশ এবং তথ্যপ্রযুক্তি ও সংবাদ মাধ্যম থেকে আসে ৫.৮ শতাংশ। সংশ্লিষ্ট সূত্রগুলো বলছে, গত পাঁচ বছর ধরে জামায়াতের রাজনৈতিক এজেন্ডা বাস্তবায়নে ব্যয় ইতিহাসের যে কোন সময়ের তুলনায় বেশি। অধ্যাপক আবুল বারকাত বলেছেন, যুদ্ধাপরাধের অভিযোগে নিষিদ্ধের জনদাবির মুখে থাকা রাজনৈতিক দল জামায়াতে ইসলামী তার আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলো থেকে যে মুনাফা পাচ্ছে তার ১০ শতাংশ যুদ্ধাপরাধীদের রক্ষায় দেশে নৈরাজ্য সৃষ্টিতে ব্যবহার করছে। বাংলাদেশে জামায়াতের হাতে যেসব প্রতিষ্ঠান আছে তাতে তারা বছরে কমপক্ষে ৫০ হাজার কোটি টাকার লেনদেন করে। জামায়াতের আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলো দুই হাজার কোটি টাকার ওপরে নিট মুনাফা করেছে জানিয়ে বিশেষজ্ঞরা বলছেন, এখন তারা ১০% মুনাফা ব্যয় করছে যুদ্ধাপরাধীদের রক্ষায়, দেশের ভেতরেই অন্তত ৫ লাখ মানুষকে পূর্ণকালীন নানা নৈরাজ্যপূর্ণ কাজে ব্যবহারের জন্য নিয়মিত টাকা দিচ্ছে।
ফুলকুঁড়ি আসরের পথ ধরে
জানা গেছে, জামায়াত-শিবিরের দাওয়াত বিশেষত মহিলাদের দাওয়াতের নামে চলা জঙ্গীবাদী অপকর্ম চলে মূলত শিবিরের নিজস্ব প্রতিষ্ঠান ফুলকুঁড়ির আসরের অনুকরণেই। ফুলকুঁড়ি আসর হচ্ছে জামায়াত-শিবিরের এক পাতা ফাঁদ। ’৮০র দশক থেকেই শহরের নতুন কেউ এলে কিছু ভদ্রগোছের ছেলে ও বোরকা পরা মেয়ে উন্মুখ হয়ে থাকে। এখনও চলছে একই কৌশল। পাড়ায় আগত নতুন পরিবারটিতে স্কুল-কলেজপড়ুয়া ছেলেমেয়ে কজন আছে, তা জানার জন্য চেষ্টা চলে। সুযোগ বুঝে পাড়ায় আগত পরিবারটির কর্তাব্যক্তি বা অভিভাবককে (যার স্কুল-কলেজপড়ুয়া কিশোরী আছে) উৎসুক্য ঐ বোরকা পরা মেয়েরা আসা-যাওয়ার সময় অতি বিনয়ের সঙ্গে সালাম বিনিময় করেন। আগত নতুন প্রতিবেশীকে অতি আপন করে নেয়ার প্রচেষ্টা ও ভদ্রতার বহির্প্রকাশ অভিভাবকদের নজর কাড়া হয়। একসময় ঐ অভিভাবকগুলো ভাবতে শুরু, এই মেয়েরা মনে হয় পাড়ায় অতি ভদ্র, এরা তো ভালই আদব-কায়দা জানে। সাধারণত গরিব ও মধ্যবিত্ত পরিবার এদের প্রধান টার্গেট। একই প্রক্রিয়ায় ছাত্রশিবিরও চালাচ্ছে তার কর্মকা-। ছেলেরা সাধারণত আছর নামাজ পরে টুপি মাথায় তাদের ভালত্ব প্রকাশে অভিভাবকদের দৃষ্টি আকর্ষণের চেষ্টা করে। অভিভাবরকের তুষ্টি করা চেহারা দেখে ছেলেগুলো তাদের প্রথম মিশন সফল হওয়ার কৃতিত্বে পুলকিত অনুভব করে। আর বাসায় কয়েক দফা গিয়ে অভিভাবকদের হাসিখুশি মুখ দেখলে জামায়াতের মেয়েরা তাদের প্রথম মিশন সফল বলে ধরে নেয়।
অতঃপর দ্বিতীয় মিশন। মন জয় করা অভিভাবকদের সন্তানরা ছিল দ্বিতীয় মিশনের টার্গেট। পরিবারের খবর নেয়া, লেখাপড়ার খবর নেয়া, লেখাপড়া সম্পর্কে উৎসাহ প্রদান, প্রয়োজনে নোট আদান-প্রদান, নিয়মিত মসজিদে নামাজ আদায়ে উৎসাহ প্রদান, বিভিন্ন প্রকারের ইসলামী বই পাঠ করার জন্য উৎসাহিত করা এবং ভাল ভাল নীতি বাক্যের ফাঁদে ফেলে বন্ধুত্বের সম্পর্ক গড়ে তোলা হয়। বন্ধুত্বের দাবি রক্ষার্থে চক্ষু লজ্জার ভয়ে মসজিদে কথিত ধর্মভীরুর সঙ্গে ২-১ ওয়াক্ত নামাজও আদায় করা হয়। এশার নামাজের সময় বাসায় গিয়ে নামাজ আদায়ের জন্য ডেকে নিয়েও আসা হচ্ছে। নামাজের পর চলছে মগজধোলাই। সৎ মানুষের শাসন প্রতিষ্ঠার জন্য জিহাদী উদ্দীপনায় আল্লাহ্র রাস্তায় সিরিজ বোমা বিস্ফোরণের মাধ্যমে নিজের জীবনকে উৎসর্গ করার প্রত্যয়ে মরলে শহীদ, বাঁচলে গাজী জাতীয় নীতিবাক্যে উজ্জীবিত এ সব তরুণী বেহেস্তের আনন্দের অনুভূতি কল্পনায় অনুভব করতে করতে বিভোর হয়ে যায়। সরলমনা অভিভাবকরা এতে তেমন বাধা দেয় না। আর এটাই জামায়াতের সুযোগ। আকৃষ্ট হয়ে পড়লে অভিভাবকরা ভাবছেনÑ মেয়ে তো কোন মন্দ কাজ করছে না, নিয়মিত নামাজ পড়ছে। কোরান পড়ছে। ইসলামী রেঁনেসা আন্দোলন সম্পর্কে জানছে, আদর্শের বুলিভরা বই পড়ছে; মন্দ কী। যাদের সঙ্গে মিশছে, তারাও তো খারাপ মেয়ে নয়।
এভাবে ইসলামের নাম বিকিয়ে জামায়াত মধ্যবিত্ত ঘরের কোমলমতি ছেলেমেয়েদের রাজনীতিতে টেনে নিয়ে আসছে। অভিভাবকরা বুঝতেও পারেন না তাদের সন্তানদের আসলে বানানো হচ্ছে জঙ্গী। ঢাকায় ‘দিশারী’, বরিশালে ‘তরুণ সংঘ’, চট্টগ্রামে ‘ঝিঙেফুলের আসর’, সিলেটে ‘গোলাপকুঁড়ি’, ফরিদপুরে ‘সবুজ সংঘ’, রাজশাহীতে ‘অরুণ প্রাতের তরুণ দল’ নামে বেশকিছু আঞ্চলিক সংগঠন প্রতিষ্ঠা করে শিশু-কিশোরদের মাঝে কাজ চালিয়ে যাচ্ছে জামায়াত। স্থানীয় পর্যায়ের সংগঠনগুলো এক সময় মজবুত সাংগঠনিক ভিত তৈরি করতে সক্ষম হয়। উল্লেখ্য, ঢাকায় ‘দিশারী’ নামের সংগঠনটি পরীক্ষামূলকভাবে ১৯৭৪ সালের ২৮ সেপ্টেম্বর প্রতিষ্ঠিত হয়। দিশারী ছিল স্বাধীন বাংলাদেশে জামায়াতের একটি পাইলট প্রজেক্ট। দিশারীর সাফল্যে উৎসাহিত হয়ে জামায়াত নেতৃত্ব অন্যান্য জেলায় ভিন্ন ভিন্ন নামে এ জাতীয় সংগঠন প্রতিষ্ঠা করা হয়। দিশারীর পর জামায়াতের নির্দেশে এক সময় ইসলামী ছাত্র সংঘের নেতা বর্তমানে দিগন্ত গ্রুপের মালিক যুদ্ধাপরাধের দায়ে অভিযুক্ত মীর কাশেম আলীর সার্বিক তত্ত্বাবধানে চট্টগ্রামে ঝিঙেফুলের আসর নামের সংগঠনটি প্রতিষ্ঠা লাভ করে। দাওয়াতের মাধ্যমে নিজেদের মতবাদে আকৃষ্ট করার চেষ্টা চলছে এখন প্রকাশ্যেই। গেল সোমবার রাজধানীর কুড়িল বিশ্বরোড়ে কুইন মেরী কলেজের সামনে দেখা যায় এমনি এক অপচেষ্টা।
ছুটির পরপরই ১৬-২৫ বছর বয়সী কয়েক বোরকা পরিহিত নারী ও তরুণ লিফলেট বিলি করছিল ছাত্রছাত্রীদের মাঝে। সেখান থেকে সংগ্রহ করা একটি লিফলেটে দেখা যায়- সরকারকে দুর্নীতিগ্রস্ত উল্লেখ করে তাদের অপসারণ ও সংগ্রামে নামার আহ্বান। তাতে লেখা ছিল বর্তমান প্রধানমন্ত্রীর কারণে নিষ্ঠাবান অফিসারদের কাছে ‘দেশ জাহান্নাম’ হয়ে উঠেছে। বঙ্গবন্ধুকেও অবমাননা করা হয় লিফলেটে। আরও বলা হয় ইসলামী শাসনই মুসলিমদের বিশ্বে নেতৃত্ব দিতে সাহায্য করবে। কিছু না বুঝেই অনেকেই পড়ছিলেন সেটি। প্রতিবাদও জানান কেউ কেউ। বিষয়টি নজরে আনা হলে শিক্ষকরা বলছিলেন, অবশ্যই এই বিষয়টি উদ্বিগ্নের। সরকার এ বিষয়ে আইনী ব্যবস্থা গ্রহণ করবেন এটাই আশা করছি।

বিশ্ববিদ্যালয়ে গোপন ছাত্রী সংস্থা গড়ার চেষ্টা
অনুসন্ধানে জানা গেছে, জামায়াত বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে গোপনে একটি ছাত্রী সংগঠন গড়ে তোলার চেষ্টা করছে। বিশেষ করে, দেশের বড় বড় বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে এই গোপন তৎপরতা চলছে বেশ জোরেশোরে। প্রাথমিকভাবে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়, ইডেন কলেজ ও বুয়েটে প্রমাণ মিলেছে স্বাধীনতাবিরোধী ও মৌলবাদী এই রাজনৈতিক দলটির উল্লিখিত গোপন তৎপরতা। ইতোমধ্যে বেশ কয়েকজন ছাত্রীকে শনাক্ত করা হয়েছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন হল থেকে। সঙ্কটে নিপতিত, জনতার আস্থা বঞ্চিত এই গোঁড়া দলটি চাইছে তাদের রাজনৈতিক আকাক্ষা চরিতার্থ করার হাতিয়ার মজবুত করতে। তাদের মতাদর্শিক তৎপরতা যাতে আরও মজবুত হয়, বিভিন্ন গোপন মিশন বাস্তবায়নে তারা যাতে আরও সফল হয় সে লক্ষ্যেই বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের কথিত মেধাবী ছাত্রীদের একত্রিত করার পরিকল্পনা তারা হাতে নিয়েছে। রাষ্ট্র গঠন নয়, রাষ্ট্রকে বিপন্ন করে ক্ষমতায় আরোহণ করাই তাদের মৌলিক উদ্দেশ্য। গেল বছরের শেষের দিকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে আটক আট ছাত্রী জানিয়েছিল, নতুন ছাত্রী সংগঠনটির নব্য সদস্যরা গভীর রাত পর্যন্ত বৈঠক করছে এবং মগবাজারের একটি ভবনে তাদের যাতায়াত ছিল। ওই ভবনে বড় ধরনের একটি বৈঠকও নাকি অনুষ্ঠিত হয়েছে।
জামায়াত-শিবিরের ছাত্রী সংগঠন ইসলামী ছাত্রী সংস্থার নেতৃত্বে ইডেন কলেজে গড়ে তোলা হয়েছিল মহিলা জঙ্গী ঘাঁটি। ছাত্রী হোস্টেলে পড়াশোনার নামে ধর্মের নামে সরকারের বিরুদ্ধে বিষোদ্গার আর জিহাদে উদ্বুদ্ধ করে জঙ্গী হওয়ার বয়ান হতো। ‘বয়ানে বেহেশত লাভ করা যাবে’ এমন প্রলোভন দিয়ে ছাত্রীদের মগজধোলাই হচ্ছিল। সম্প্রতি এমন ঘটনাই ধরা পড়ে। পুলিশী অভিযানে জামায়াতের নিজামী-সাঈদীর বই থেকে তরজমা ও বয়ানে সরকারের বিরুদ্ধে জিহাদ ও জঙ্গী তৎপরতার জন্য উস্কানি, সাধারণ ছাত্রীদের ওপর হামলা ও বড় ধরনের অপ্রীতিকর ঘটনা আঁটছিল ইসলামী ছাত্রী সংস্থা। জামায়াত-শিবিরের ছাত্রী ক্যাডারদের এই তৎপরতার ঘটনা ফাঁস হয়ে যাওয়ায় পুলিশী অভিযান চালানো হয়। জানা গেছে, চারদলীয় জোট সরকারের আমল থেকেই জামায়াত-শিবিরের দুর্গ গড়ে তোলা হয়েছে ইডেন কলেজে। ইডেন কলেজের ৫ ছাত্রীনিবাস থেকে উদ্ধার করা ৬ বস্তা জিহাদী বইয়ের মধ্যে আছে জামায়াতের নিজামী-সাঈদীর লেখা বইও।

ইডেন কলেজে মওদুদীবাদ
ইডেনে প্রচার করা হতো মওদুদীবাদ। খোদেজা খাতুন হোস্টেল, রাজিয়া বেগম হোস্টেল, জেবুন্নেসা হোস্টেল, হাসনা বেগম হোস্টেল, আয়শা সিদ্দিকা হোস্টেল- ইডেন কলেজের ৫ ছাত্রী হোস্টেলে অভিযান চালিয়ে ৬ বস্তা জিহাদী বই উদ্ধার করা হয় কিছু দিন আগেও। বদরুন্নেসা সরকারী মহিলা কলেজের বিভিন্ন হোস্টেলে অভিযান চালিয়ে বেশ কিছু জিহাদী বই উদ্ধার করা হয় সম্প্রতি। সন্দেহজনক তৎপরতার অভিযোগ উঠায় প্রতিষ্ঠান দুটির আট শিক্ষার্থীকে তাদের অভিভাবকের হাতে তুলে দেয়া হয়েছে। কলেজের হোস্টেলের বিভিন্ন কক্ষ ও মসজিদ ব্যবহার করে গোপনে তৎপরতা চালানোর অভিযোগ পাওয়ার পরই এ ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে বলে পুলিশ ও কলেজ কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে। এ সময় জামায়াতের আদর্শিক নেতা মাওলানা মওদুদী, গোলাম আযম ও সাঈদীর লেখা অনেক বই ছাড়াও কথিত জিহাদের বিভিন্ন বই ও প্রচারপত্র উদ্ধার করা হয়।
জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্যাম্পাসে সক্রিয় হয়ে উঠেছে জামায়াত-শিবির সমর্থিত ছাত্রী সংস্থা। ক্যাম্পাসে সক্রিয় তৎপরতা চালাচ্ছে তাদের শতাধিক কর্মী। শিবির ক্যাডাররা ক্যাম্পাসে ঢুকতে না পারলেও এখনও ছাত্রী সংস্থা তাদের কার্যক্রম চালাচ্ছে। শিক্ষার্থী সূত্রে জানা যায়, সম্প্রতি বিশ্ববিদ্যালয়ের ব্যবস্থাপনা বিভাগ, বিজ্ঞান অনুষদের ছাত্রীদের কমন রুম, কলা অনুষদের ইসলামের ইতিহাস বিভাগ, ইসলামিক স্টাডিজ বিভাগ এবং অন্য কয়েকটি বিভাগের সেমিনারকক্ষে ছাত্রী সংস্থার কর্মীদের মিটিং করতে দেখা যাচ্ছে। ক্যাম্পাসে তাদের তৎপরতা আগের যে কোন সময় থেকে বেড়ে গেছে। তারা গ্রাম থেকে আসা সহজ-সরল ও দরিদ্র ছাত্রীদের বিভিন্নভাবে সহযোগিতা করে দলে ভেড়ানোর চেষ্টা করছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক ছাত্রী জানান, ‘বিজ্ঞান অনুষদের কমন রুমে বসেছিলাম। এর মধ্যে তিন-চারটি মেয়ে এসে আমাকে বলে, তুমি কি প্রথম সেমিস্টারের ছাত্রী। আমরা আল্লাহর পথে দাওয়াত দিই। আমাদের সংস্থার নাম ছাত্রী সংস্থা। তুমি আমাদের সংস্থায় যোগ দিলে সব সুযোগ-সুবিধা পাবে।’ ব্যবস্থাপনা বিভাগের কয়েক শিক্ষার্থী জানান, ‘মাঝে মধ্যে এ বিভাগের সামনে বোরকা পরা মেয়েদের মিটিং করতে দেখা যায়। মানুষ দেখলে তারা কথা বলা বন্ধ করে দেয়।’

চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়
চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় (চবি) স্কুল এ্যান্ড কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে দাওয়াতী কাজের নামে চলছে জামায়াতে ইসলামীর সহযোগী সংগঠন ছাত্রী সংস্থার কার্যক্রম। স্কুলের কোমলমতি ছাত্রীদের টার্গেট করেই চলছে এ কার্যক্রম। ছাত্রী সংস্থার নেত্রীরা বিদ্যালয়ের ছাত্রীদের কাছে বিভিন্ন বই ও দাওয়াতী কাজের নামে তাদের সংগঠনের লিফলেট বিতরণ করছে। এ সব লিফলেটে সংগঠনের ইতিহাস, কার্যক্রম, লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য বর্ণনা করা হয়েছে। কিছু দিন আগে বরিশালের মুলাদী উপজেলা থেকে আটক ছাত্রী সংস্থার ২২ কর্মীর মধ্যে ১৩ জনের বিরুদ্ধে পতিতাবৃত্তির ও ৭ জনের বিরুদ্ধে জঙ্গী সম্পৃক্ততার অভিযোগ পাওয়া গেছে। একটি সূত্র জানিয়েছে, ছাত্রী সংস্থার সদ্যগঠিত সুইসাইড স্কোয়াডের সদস্যও রয়েছে আটককৃতদের মধ্যে।
উল্লেখ্য, যুদ্ধাপরাধীদের বিচারে জেগে ওঠা আন্দোলন গণজাগরণ মঞ্চের মুখপাত্রসহ ১৬ উদ্যোক্তার নাম উল্লেখ করে গত বছর তাদের হত্যা করার আহ্বান জানানো হয়েছিল জামায়াতে ছাত্রী সংগঠন ছাত্রী সংস্থার ফেসবুক পেজে। বলা হয়েছিলÑ ‘এটা ইসলামবিদ্বেষী নাস্তিক ব্লগার কুলাঙ্গারদের তালিকা। অনতিবিলম্বে এই কুলাঙ্গারদের ফাঁসির দাবিতে দুনিয়ার মুসলিম এক হও। প্রয়োজনে আইন নিজের হাতে তুলে নিতেও কারও হাত কাঁপবে না।’ জামায়াতের মহিলা শাখার প্রকাশিত তালিকায় গণজাগরণ মঞ্চের মুখপাত্র ডা. ইমরান এইচ সরকার ছাড়াও ছিল লাকী আক্তার, অমি রহমান পিয়াল, আরিফ জেবতিক, প্রীতম আহমেদ, আসিফ মহিউদ্দীন, কামাল পাশা চৌধুরী, মাহবুব রশিদ, মুক্তা বাড়ৈ, শাকিল আহমেদ অরণ্য, মাহমুদুল হক মুন্সী, আলামিন বাবু, গোলাম রসুল মারুফ, কানিস আলমাস সুলতান কিনু, জাকির আহমেদ রনি ও মোরসালিন মিজানের নাম।

উৎসঃ   জনকন্ঠ


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ