• সোমবার, ২৭ জুন ২০২২, ১১:৪২ পূর্বাহ্ন |
শিরোনাম :
পদ্মা সেতুর রেলিংয়ের নাট খোলা বায়েজিদ আটক নীলফামারী জেলা শিক্ষা অফিসার শফিকুল ইসলামের শ্বশুড়ের ইন্তেকাল সৈয়দপুর সরকারি বিজ্ঞান কলেজের গ্রন্থাগারের মূল্যবান বইপত্র গোপনে বিক্রি ফেনসিডিলসহ সেচ্ছাসেবক লীগের নেতা গ্রেপ্তার এ সেতু আমাদের অহংকার, আমাদের গর্ব: প্রধানমন্ত্রী বাংলাদেশ-ভারতে রেল যোগাযোগ বন্ধ থাকবে ৮ দিন পদ্মা সেতুর উদ্বোধন বাংলাদেশের জন্য এক গৌরবোজ্জ্বল ঐতিহাসিক দিন: প্রধানমন্ত্রী পদ্মা সেতুর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে যেতে মানতে হবে যেসব নির্দেশনা সৈয়দপুরে বিস্কুট দেয়ার প্রলোভনে শিশুকে ধর্ষণের অভিযোগ গণমানুষের সমর্থনেই পদ্মা সেতু নির্মাণ সম্ভব হয়েছে: প্রধানমন্ত্রী

বেতনবৈষম্য দূর করার দাবিতে শিক্ষকদের সংবাদ সম্মেলন

111ঢাকা: প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান ও সহকারী শিক্ষকদের মধ্যকার বেতনবৈষম্য দূরীকরণ, সকল শিক্ষকদের একই পদমর্যাদায় শ্রেণিভুক্ত করাসহ ১১ দফা দাবিতে সংবাদ সম্মেলন করেছেন প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষকেরা।

শুক্রবার দুপুরে জাতীয় প্রেসক্লাবের কনফারেন্স লাউঞ্জে বাংলাদেশ প্রাথমিক বিদ্যালয় সহকারী শিক্ষক সমিতি আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে তারা এ দাবি জানান।

বাংলাদেশ প্রাথমিক বিদ্যালয় সহকারী শিক্ষক সমিতির সদস্য সচিব মোহাম্মদ শামছুদ্দিন বলেন, ‘শিক্ষকদের দাবির প্রেক্ষিতে প্রধানমন্ত্রী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষকদের পদমর্যাদা এবং বেতন বৃদ্ধির সিধান্ত নেন। কিন্তু আমরা হতাশার সঙ্গে লক্ষ্য করলাম শুধুমাত্র প্রধান শিক্ষকদের দ্বিতীয় শ্রেণির পদমর্যাদা প্রদান এবং প্রধান শিক্ষকের সঙ্গে সহকারী শিক্ষকদের বেতনের ব্যবধান আগের চেয়ে এক ধাপ থেকে ‍বাড়িয়ে দেওয়া হয়েছে। ফলে প্রধান ও সহকারী শিক্ষকদের পদমর্যাদা ও বেতন বৈষম্য প্রকট আকার দেখা দিয়েছে।’

‘২০০৫ সাল প্রর্যন্ত প্রধান ও সহকারী শিক্ষকদের মধ্যে বেতনের পার্থক্য ছিল এক ধাপ। ২০০৬ সালে তা বাড়িয়ে করা হয় ২ ধাপ। বর্তমানে প্রধান ও সহকারী শিক্ষকদের বেতন স্কেলের পার্থক্য ৩ ধাপে দাঁড়িয়েছে। ১৫ বছর চাকরি করার পর ৩টি স্কেল পেয়ে সহকারী শিক্ষকগণ বেতন পাবেন ছয় হাজার চারশ’ টাকা। আর প্রধান শিক্ষকেরা পাবেন ১২ হাজার টাকা। এই বেতন কাঠামো আমাদের জন্য অমানবিক এবং ন্যায়সংগত নয়।’

তিনি আরো বলেন, ‘১৯৭৩ এবং ১৯৮৬ সালে জাতীয়করণকৃত সকল শিক্ষককে সহকারী শিক্ষক হিসাবে পদায়ন করে থানা ভিত্তিক সিনিয়রিটির ভিত্তিতে প্রধান শিক্ষক পদে পদায়ন করা হয়েছিল। কিন্তু বর্তমানে কর্মরত সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের যোগ্যতা সম্পন্ন, দক্ষ ও অভিজ্ঞ শিক্ষকদের বিবেচনায় না এনে সদ্য জাতীয়করণকৃত দুই হাজার ছয়শ’ জনকে প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক পদে বিদ্যালয়ের সিনিয়রিটির ভিত্তিতে পদায়ন করা হয়েছে। সহকারী শিক্ষকগণ গত ১৫ থেকে ২০ বছর ধরে একই পদে কর্মরত থাকলেও কাঙ্খিত পদোন্নতি পাচ্ছেন না।’

সংবাদ সম্মেলনে সহকারী শিক্ষকেরা কয়েকটি দাবি তুলে ধরেন। দাবিগুলো হলো: সকল শিক্ষকদের চাকরির পদমর্যাদা একই শ্রেণিভূক্ত করা, প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত সহকারী শিক্ষকদের বেতন গ্রেড ১২ এবং প্রশিক্ষণহীন সহকারী শিক্ষকদের বেতন গ্রেড ১৩ নির্ধারণ করা, যোগ্যতা ও দক্ষতার ভিক্তিতে পদোন্নতি, শিক্ষক নিয়োগ বিধিমালা পরিবর্তন করে পুরুষ-মহিলা সবার জন্য শিক্ষাগত যোগ্যতা নূন্যতম স্নাতক ডিগ্রি নির্ধারণ, উপজেলা ও জেলার সকল শিক্ষা কমিটিতে সহকারী শিক্ষক প্রতিনিধি নিয়োগ, শিক্ষক পরিবারের জন্য চিকিৎসা কার্ডের ব্যবস্থা, প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষকদের ছুটির বিধান প্রণয়ন, শিক্ষক নিয়োগে পোষ্য কোঠা শতকরা পঁচিশ ভাগ নির্ধারণ ও শিক্ষকদের পর্যাপ্ত আবাসনের ব্যবস্থা করা।

সংবাদ সম্মেলনে আরো উপস্থিত ছিলেন, বাংলাদেশ প্রথমিক বিদ্যালয় সহকারী শিক্ষক সমিতির আহ্বায়ক নাসরিন সুলতানা, যুগ্ম আহ্বায়ক মো. নুরুল ইসলামসহ বিভিন্ন জেলা থেকে আগত সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষকগণ।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ