• বুধবার, ২৯ জুন ২০২২, ১০:৪০ অপরাহ্ন |
শিরোনাম :
শিক্ষকের মামলায় রাবির বহিষ্কৃত সেই শিক্ষার্থী গ্রেপ্তার নিজ আসন থেকে উঠে এসে রওশনের সঙ্গে কথা বললেন প্রধানমন্ত্রী গ্রামীণফোনের সিম বিক্রি নিষিদ্ধ করেছে বিটিআরসি শিক্ষককে পিটিয়ে হত্যা: প্রধান আসামি জিতু গ্রেপ্তার সৈয়দপুরে কিশোরী ধর্ষণের ঘটনায় বিজিবি সদস্যকে আত্মসমর্পণের নির্দেশ শ্রেণিকক্ষে রাবি শিক্ষিকাকে মারতে গেলেন ছাত্র! অর্থ হাতিয়ে নেওয়ার অভিযােগ এনজিও’র দুই কর্মকর্তা গ্রেফতার জলঢাকায় মাদকদ্রব্যের অপব্যবহার রোধকল্পে সমন্বিত কর্মপরিকল্পনা প্রণয়নে কর্মশালা ইউনূস, হিলারি ও চেরি ব্লেয়ারের ওপর নিষেধাজ্ঞা দেওয়ার দাবি সংসদে মার্কেট-শপিং মলে মাস্ক বাধ্যতামূলক করে প্রজ্ঞাপন

রাজপথে সক্রিয় হচ্ছে আওয়ামী লীগ

Awamili Flagসিসি নিউজ: প্রশাসনের ওপর নির্ভরতা কমিয়ে এবার রাজপথে সক্রিয় হচ্ছে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ। তৃণমূল নেতাকর্মীদের চাঙ্গা করার পাশাপাশি জনসম্পৃক্ততা বাড়িয়ে আগাম রাজপথ দখলের পরিকল্পনা করছে দলটি। এ জন্য জোটের শরিকদের সাথে নিয়ে বিভাগীয় শহর থেকে শুরু করে পর্যায়ক্রমে জেলায় জেলায় সমাবেশ করার চিন্তা করছে ক্ষমতাসীনরা। তারই ধারাবাহিকতায় আজ শনিবার খুলনায় সমাবেশের মধ্য দিয়ে সাংগঠনিক শক্তির মহড়া শুরু হচ্ছে ক্ষমতাসীন দলের।
দলটির নেতারা মনে করছেন, ৫ জানুয়ারির নির্বাচনের আগে শুধু রাজধানী ছাড়া দেশের কোথাও বিএনপি-জামায়াত জোটের নেতাকর্মীদের তোপের মুখে মাঠে দাঁড়াতে পারেনি আওয়ামী লীগ নেতৃত্বাধীন জোট। উপজেলা নির্বাচনের পরে বিএনপি-জামায়াত জোট আবারো সরকার হটানোর আন্দোলনে যাওয়ার হুমকি দিয়ে রেখেছে। ইতোমধ্যে তারই মহড়া হিসেবে বিরোধী জোট তিস্তা অভিমুখে লংমার্চের নামে তাদের নেতাকর্মীদের আবার চাঙ্গা করার কৌশল নিয়েছে। এ দিকে নির্বাচনকে কেন্দ্র করে বিএনপি-জামায়াত জোটের শক্তির প্রভাব পড়েছে ক্ষমতাসীন দলের ওপর। এতে জনগণের সাথে আওয়ামী লীগের দূরত্ব অনেকাংশে বেড়েছে। সাধারণ জনগণের পাশাপাশি নেতাকর্মীদের মধ্যেও ক্ষোভের সঞ্চার হয়েছে।
আওয়ামী লীগ সূত্র জানায়, ৫ জানুয়ারির নির্বাচনে বিএনপি-জামায়াত অংশগ্রহণ না করে বিতর্ক সৃষ্টি করে রেখেছে। তাই দলের চাইতে এখন দেশের স্থিতিশীলতা বেশি প্রয়োজন। সরকার ও দল একই সাথে পরিচালনা করতে পারলে সেই সফলতা আসবে। সেই ল্েযই জোটের শরিকদের সাথে নিয়ে দেশের বিভাগীয় শহর থেকে শুরু করে জেলায় জেলায় সফর ও সমাবেশ করলে নেতাকর্মীরা মাঠে সক্রিয় থাকবে। নইলে ১৪ দলের নেতাকর্মীদের নিষ্ক্রিয়তার সুযোগে বিরোধী জোট আবার গা ঝাড়া দিয়ে উঠবে। তাই গত ২২ এপ্রিল আওয়ামী লীগ সভাপতির ধানমন্ডির রাজনৈতিক কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত ১৪ দলের বৈঠকে আপাতত দেশের তিন জেলায় সমাবেশ করার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। আজ শনিবার খুলনায় প্রথম সমাবেশ হবে। স্বাস্থ্যমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন। এ ছাড়া আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব উল-আলম হানিফ এমপি, সাংগঠনিক সম্পাদক বি এম মোজাম্মেল হক এমপি, জাসদের স্থায়ী কমিটির সদস্য শিরিন আক্তার এমপি, গণতন্ত্রী পার্টির প্রেসিডিয়াম সদস্য মাহমুদুর রহমান বাবু, বাসদের আহ্বায়ক রেজাউর রশিদ খান উপস্থিত থাকবেন।
কাল রোববার সমাবেশ হবে ঢাকার সাভারে। ওই সমাবেশে আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য ও বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ এবং সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য ও স্বাস্থ্যমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম উপস্থিত থাকবেন। আগামী ২৭ এপ্রিল সোমবার ময়মনসিংহ জেলায় সমাবেশ অনুষ্ঠিত হবে। ওই সমাবেশে প্রধান অতিথি থাকবেন আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য, ডাক ও টেলিযোগাযোগমন্ত্রী আবদুল লতিফ সিদ্দিকী। এর প্রতিটি সমাবেশেই ক্ষমতাসীন জোটের শরিক দলগুলোর শীর্য পর্যায়ের নেতারা উপস্থিত থাকবেন। এই তিনটি সমাবেশ সফলভাবে অনুষ্ঠানের পর ১৪ দলের পরবর্তী বৈঠকে নতুন কর্মসূচি বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেয়া হবে।
গণতন্ত্রী পার্টির সাধারণ সম্পাদক নূরুর রহমান সেলিম নয়া দিগন্তকে বলেন, জোটকে শক্তিশালী করার জন্য অনেক আগে থেকেই তৃণমূলে যাওয়ার পরিকল্পনা ছিল। তবে বিভিন্ন সমস্যার কারণে তা সম্ভব হয়নি। এখন সময় এসেছে তৃণমূলে গিয়ে জোটকে শক্তিশালী করা। সমাবেশের মধ্য দিয়ে নেতাকর্মীদের সক্রিয় রাখার চেষ্টা করা হবে।
বাসদের আহ্বায়ক রেজাউল রশিদ খান বলেন, অতীতে যারা সরকারে ছিল তারা কখনোই জনগণের পক্ষে কাজ করেনি। এখন এ সরকার জনগণের পক্ষে কাজ করার চেষ্টা করছে। যদি বর্তমান সরকার ভালো ও উন্নয়নমূলক কাজ করে দেখাতে পারলে সরকারের সাথে জনসম্পৃক্ততা বাড়বে। এতে ইতিবাচক প্রভাব পড়বে। তিনি জানান, আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি ঠিক রাখার জন্য প্রত্যেক জেলায় কমিটি আছে। ওই কমিটিগুলোকে কার্যকর করতে এবং জনগণকে সাথে নিয়ে উন্নয়নমূলক কার্যক্রমকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার জন্য জেলায় জেলায় সমাবেশ করা হবে।
সংশ্লিষ্ট সূত্র বলছে, বাংলাদেশের জনগণ অতীত খুব কম মনে রাখে। বর্তমানের সাফল্য-ব্যর্থতাকেই বেশি প্রাধান্য দিয়ে থাকে। তাই সরকারের উন্নয়নমূলক কর্মকাণ্ড তুলে ধরার পাশাপাশি জনগণকে নিয়ে সরকারের ভবিষ্যৎ পরিকল্পনার কথা তুলে ধরা গেল সরকার ও দলের সাথে জনগণের যেসব সমস্যা তৈরি হয়েছে ও দূরত্ব বেড়েছে সেসব সমস্যা দ্রুত সমাধান সম্ভব। এতে সরকার ও আওয়ামী লীগ নেতাদের ওপর জনগণের ইতিবাচক মনোভাব সৃষ্টি হবে। এ ছাড়া আওয়ামী লীগের বেশির ভাগ শরিক দল সরকারে জায়গা পায়নি। এ জন্য অনেকের মনে ক্ষত সৃষ্টি হয়েছে। তারাও অনেকটা নিষ্ক্রিয় হয়ে পড়েছে। আপাতত তাদের সাথে নিয়ে দেশব্যাপী সভা সমাবেশ করলে তারাও চাঙ্গা হবে এবং ব্যস্ততার মধ্যে সরকারে ঠাঁই না পাওয়ার বেদনা ভুলে থাকবে। একই সাথে ক্ষমতাসীন জোটের মধ্যকার সম্পর্ক যে অটুট রয়েছে দেশবাসী তা বুঝতে সক্ষম হবে। জোটের একটি অংশের মতে, ৫ জানুয়ারির নির্বাচনকে কেন্দ্র করে ক্ষমতাসীনরা প্রশাসনকে ব্যবহার করে বিএনপি নেতাকর্মীদের অনেকটা পঙ্গু করে দিয়েছে। বিএনপি আবার সরকার পতন আন্দোলনে যাওয়ার জন্য ওই নেতাকর্মীদের চাঙ্গা করতে উসকানিমূলক বক্তব্য দিচ্ছে। এটি তাদের রাজনৈতিক কৌশল। সে ক্ষেত্রে ক্ষমতাসীন জোটেরও পাল্টা কৌশল হাতে নিতে হবে।
আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য ইউসুফ হোসেন হুমায়ুন বলেন, ৫ জানুয়ারির নির্বাচনে অংশ না নিয়ে বিএনপি দিশেহারা হয়ে পড়েছে। এখন তারা হতাশ নেতাকর্মীদের চাঙ্গা করতে বিভিন্ন বিভ্রান্তিমূলক বক্তব্য দিচ্ছে এবং দেশের মানুষকে বিভ্রান্ত করছে। তাই দেশের মানুষকে সঠিক ইতিহাসের ওপর সচেতন করা দরকার। তিনি বলেন, দীর্ঘ দিন রাজনৈতিক কোনো কর্মসূচি না থাকায় তৃণমূল পর্যায়ের নেতাকর্মীদের অনেকটা নিষ্ক্রিয়ভাব এসেছে। এসব সমাবেশের মাধ্যমে এক দিকে সাংগঠনিকভাবে নেতাকর্মীরা চাঙ্গা হবে, অপর দিকে বিএনপির বিভ্রান্তিমূলক বক্তব্যের জবাবের পাশাপাশি জনসম্পৃক্ততার মাধ্যমে সরকারের উন্নয়নমূলক কর্মকাণ্ড এগিয়ে নেয়া সম্ভব হবে। নয়াদিগন্ত


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ