• শনিবার, ০২ জুলাই ২০২২, ০২:৫৫ অপরাহ্ন |

লালমনিরহাটে তিস্তার পানি বন্ধের দাবিতে মানববন্ধন

pp-2
হাসান মাহমুদ, লালমনিরহাট: পানির অপর নাম জীবন। আর এই পানি যদি হয় খেটে খাওয়া কৃষকের হতfশার কারন। একদিকে পানির জন্য কৃষক, জেলে ও সাধারন মানুষের জীবন বিপন্ন, হতাশা দুচিন্তায় ও কষ্টে দিন কাটাচ্ছে। অন্য দিকে হাজারো কৃষকের ফসল হুমকির মুখে এমনকি তিস্তার পানিতে তলিয়ে যেতে পারে হাজারো ঘর বাড়ি। তিস্তায় দীর্ঘদিন পানি না থাকায়, পানি শুন্য নদীতে জেগে উঠেছে বিশাল চর ও হয়ে উঠেছে চাষাবাদের উপযোগী যা অন্যান্য সময় পানিতে তলিয়ে থাকে। তাই পানি না থাকায় জেগে ওটা চরে তিস্তার বাম তীরের হাজারো কৃষক চাষ করেছে ভুট্টা, শসা, পিঁয়াচ, রসুন ও বিভিন্ন রকম ফসল । আর এই মূহুর্তে তিস্তায় পানি আসলে সব নষ্ট হয়ে যাবে।
তিস্তার বাম তীরে বাধঁ না থাকায় এমতাবস্থায় ভারত সরকার পানি ছাড়লে ব্যাপক ভাবে ক্ষতিগ্রস্থ হবে বাম তীরের কৃষকের আবাদী ফসল ও সাধারনের মানুষের ঘরবাড়ি। এ দুচিন্তায় ভুগছেন তিস্তার বাম তীরের কৃষক ও সাধারন মানুষ।
ভারত কর্তৃক এক তরফা ভাবে  তিস্তার পানি প্রত্যাহার করে উত্তরবঙ্গকে মরুভূমি বানানোর চক্রান্ত বন্ধ ও তিস্তার পানির ন্যায্য হিস্যার দাবিতে গত ১৯ এপ্রিল বামমোর্চা রোডমার্চ, ২৩ এপ্রিল বিএনপি লং মার্চ এবং জনসভা করেছে। এতে তিস্তার ডান তীরের মানুষের উপকার হলেও ব্যাপক ভাবে ক্ষতিগ্রস্থ হবে তিস্তার বাম তীরের মানুষ। তিস্তার পানির জন্য যখন রাজনৈতিক দলগুলো উঠে পড়ে লেগেছে ঠিক তখনি  পানি বন্ধের দাবীতে মানববন্ধন করলো হাতীবান্ধা উপজেলার মানুষ ।
তিস্তা নদীতে পানির আগে বাম তীরে বাধঁ চাই এই দাবিতে  শুক্রবার দুপুরে লালমনিরহাটের হাতীবান্ধা উপজেলার পারুলিয়া চরে মানব বন্ধন করেন ওই গ্রামের হাজারো কৃষক।
উক্ত মানব বন্ধনে বক্তব্যে রাখেন তিস্তা পূর্ববর্তী তীর রক্ষা কমিটির আহবায়ক অধ্যক্ষ সারোয়ার হায়াত খান । তিনি তার বক্তব্যে বলেন, তিস্তা ব্যারেজ আমাদের উপজেলায় আবস্থিত কিন্তু এর কোন সুবিধা আমরা পাই না । সব সুবিধা পাচ্ছে নীলফামারী জেলার মানুষ । তাই  তিস্তা নদীতে আমরা পানি চাই না । পানির আগে আমরা বাম তীরে বাধ চাই । নীলফামারী জেলার মানুষ শুধু শুকনো মৌসুমে পানি চায় কিন্তু তা হবে না পানি বর্ষাকালেও নিতে হবে । ১ লক্ষ ২০ হাজার হেক্টর জমিতে  ১ কোটি ৮৬ লক্ষ মন ভুট্টা চাষ করে এই উপজেলার কৃষকেরা যে স্বপ্ন দেখছে এই স্বপকে দু:স্বপ্নে  পরিনিত করতে দেওয়া যাবে না । এই তিস্তা পারের মানুষের স্বপ্নকে ভেঙ্গে তিস্তা নিয়ে রাজনীতি আমরা কোনদিন মেনে নেব না।
উক্ত মানব বন্ধনে অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, পাটিকা পাড়া ইউনিয়নের আওয়ামীলীগ সভাপতি শাহাদাৎ হোসেন, ডাউয়াবাড়ী ইউনিয়নের আওয়ামীলীগ সাধারন সম্পাদক আসাদুজ্জামান লাভলু প্রমুখ ।
মানব বন্ধনে অংশগ্রহনকারী  কৃষক ইয়াকুব আলী সাংবাদিককে জানায়, তারা তিস্তার পানি চায় না । তিস্তার পানিতে বিলিন হওয়া আমার ৪০ বিঘা জমি নতুন করে ফিরে পাওয়ায় সেই জমিতে ভুট্টার পাশাপাশি বিভিন্ন রকমের ফষল চাষাবাদ করছি । এই মূহের্তে যদি ভারত সরকার পানি দেয় তাহলে আমার ৪০ বিঘা জমির ফষল নষ্ট হয়ে যাবে ।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ