• শনিবার, ২৫ জুন ২০২২, ১১:২৪ পূর্বাহ্ন |

ট্রেন চলাচল শুরু, তদন্তে কমিটি গঠন

Trainসিসি নিউজ: কালবৈশাখী ঝড় টর্নেডোর ধাক্কায় বঙ্গবন্ধু সেতুর উপর ঢাকা থেকে দিনাজপুরগামী দ্রুতযান এক্সপ্রেস ট্রেনের নয়টি বগি লাইনচ্যুত হয়ে সেতুর বাম দিকের রেলিংয়ের উপর হেলে পড়ে। রবিবার রাত ১০টা ৫৫ মিনিটে এ দুর্ঘটনা ঘটে। এ সময় তাড়াহুড়ো করে নামতে গিয়ে অনন্ত সাতজন আহত হলেও সাড়ে ৬শ’ যাত্রীসহ ট্রেনের স্টাফরা অল্পের জন্য রক্ষা পেয়েছেন। দুর্ঘটনার পর থেকে ঢাকা-সিলেট-চট্টগ্রামের সঙ্গে উত্তর ও দক্ষিণ পশ্চিমাঞ্চলের সব জেলার প্রায় ১৮ ঘণ্টা রেল যোগাযোগ বন্ধ থাকে। দুর্ঘটনার পর সেতুতে গাড়ি পারাপারের উত্তরলেন বন্ধ করে দেয়া হয়। সোমবার সকাল থেকে রেলবিভাগ উদ্ধারকাজ শুরু করে পর্যায়ক্রমে বগিগুলো সরিয়ে নিলে বিকেল ৫টার পর ট্রেন চলাচল স্বাভাবিক হয়।

সংবাদ পেয়ে রাত সাড়ে ৩টার দিকে রেলমন্ত্রী মুজিবুল হক ও সচিব আবুল কালাম আজাদসহ পদস্থ কর্মকর্তারা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন। এ সময় মন্ত্রীর নির্দেশে দুর্ঘটনার তদন্ত ও ক্ষয়ক্ষতি নিরূপনে চার সদস্য বিশিষ্ট তদন্ত টিম গঠন করা হয়েছে। এছাড়া সেনাবাহিনী, ফায়ার সার্ভিস, পুলিশ, সেতু ও রেলবিভাগের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উদ্ধার কাজে সহযোগিতা করে।

দ্রুতযান এক্সপ্রেস ট্রেনের পরিচালক আব্দুস সবুর খান জানান, রাত ১০টা ১০ মিনিটের সময় ট্রেনটি বঙ্গবন্ধু সেতুর ওপর ওঠে। ট্রেনটি ধীরে ধীরে চলছিল। এ সময় উত্তর দিক ঝড়ো হাওয়া বইছিল। চালককে আরো ধীরে ট্রেনটি চালানোর জন্য মোবাইল নির্দেশ দেয়া হয়। তিনি বলেন, রাত ১০টা ৫৫ মিনিটের সময় ট্রেনটি সেতুর সাত নম্বর পিলারের কাছে পৌঁছলে বাতাসের গতি বেড়ে গিয়ে প্রচণ্ড শব্দে নয়টি বগি লাইনচ্যুত হয়ে সেতুর রেলিংয়ের উপর হেলে পড়ে। ট্রেনটিতে প্রায় সাড়ে ৬শ’ যাত্রী ছিল। তিনি আরও জানান, ট্রেনটি যদি ডান দিকে হেলে যেতো, তবে সবগুলো বগিই যমুনা নদীতে পড়ে যেত। অল্পের জন্য আল্লাহ সকলকে রক্ষা করেছেন।

দুর্ঘটনার পরই যাত্রীরা আতঙ্কে জানালায় দিয়ে বাইরে বেরোনোর চেষ্টা করে। এ সময় অনেক যাত্রী কমবেশি আহত হয়। ট্রেনের যাত্রী ফিরোজ খান ও রবি নাহার জানান, প্রচণ্ড বাতাসের ধাক্কায় ট্রেনটি হেলে যাওয়ার পর মনে হলো আমরা আর বাঁচব না। ব্যাগ-পত্র রেখে দ্রুত জানালা দিয়ে বাইরে বের হয়ে রেলিংয়ের ধারে আশ্রয় নেই। বাঁচার জন্য আল্লাহর নাম জপতে শুরু করি। অপর যাত্রী মিরাজুল ইসলাম জানান, ব্যাগ-লাগেজ ফেলে রেখেই জীবনের বাঁচানোর তাগিদে বাইরে বের হয়ে আসি। ঝড় থেমে যাবার আর ট্রেনের মধ্যে গিয়ে সেগুলো আর খুঁজে পাইনি। তারপরেও বেঁচে আছি এটাই বড় কথা।

বঙ্গবন্ধু সেতু পশ্চিম থানার ওসি আমিনুল ইসলাম জানান, সংবাদ পেয়ে দ্রুত পুলিশ টিম নিয়ে যাত্রীদের উদ্ধার করা হয়। ৭ জন আহত হলেও একজনকে শুধু সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। দুর্ঘটনার পর সেতুর উত্তর লেন বন্ধ করে দেয়া হয়। এতে দুইপাশে কিছুটা যানজটের সৃষ্টি হয়। সোমবার সকাল ৮টার দিকে দুটি লেন চালু করে দেয়া হয়েছে। ফায়ার সার্ভিসের উপপরিচালক আব্দুল হামিদ জানান, সংবাদ পেয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে সবগুলো বগিই সার্চ করা হয়েছে। ভেতরে কোন আহত ব্যক্তিকে পাওয়া যায়নি।

বঙ্গবন্ধু সেতুর প্রধান নির্বাহী প্রকৌশলী আবুল কালাম আজাদ জানান, ট্রেনটি সেতুতে ওঠার পর সাত নম্বর পিলারের কাছে এলে টর্নেডো আঘাত করে। আঘাতে ট্রেনটির ১৩টি বগির মধ্যে ৯টি বগি লাইনচ্যুত হয়ে রেলিংয়ের উপর হেলে পড়ে। গুরুতরভাবে কেউ আহত হয়নি। তাছাড়া কোন যাত্রী পানিতে পড়েছে কিনা সেজন্য রাতেই সেতুর নিচের সেনাবাহিনীর একটি টিম পানিতেও তল্লাশি চালিয়েছে।

পশ্চিমাঞ্চল রেলওয়ের প্রধান প্রকৌশলী মাহবুবুল হক বকশী জানান, মিটারগেজ লাইন থেকে ট্রেনটি লাইনচ্যুত হলেও লাইনের তেমন ক্ষতি হয়নি। দুর্ঘটনার কারণে ২৪টি ট্রেন চলাচল বন্ধ থাকায় ঢাকা-সিলেট-চট্টগ্রামের সঙ্গে ১৮ ঘণ্টা উত্তর-দক্ষিণ ও পশ্চিমাঞ্চলের সঙ্গে রেল যোগাযোগ বন্ধ থাকে। সোয়া ৪টার দিকে লাইন ক্লিয়ার হলে প্রথমে চিত্রা ট্রেনটি সেতু পার হয়।

পশ্চিমাঞ্চল রেলওয়ের মহাব্যবস্থাপক (জিএম) আব্দুল আউয়াল ভুঁইয়া জানান, ট্রেনটি উদ্ধারের জন্য পাবনার পাকশী ও ঢাকা থেকে দুটি রিলিফ ট্রেন আনা হয়। ভোর থেকে উদ্ধার কাজ শুরু করা হয়। সেতুর উপর ক্রেন ব্যবহার করতে না পারায় উদ্ধার কাজে বেশি সময় লাগে। শুধু হাইড্রোলিক যন্ত্রের সাহায্যে বগিগুলো উদ্ধার করা হয়েছে। তিনি জানান, বগিগুলো বঙ্গবন্ধু সেতু পশ্চিমপাড় রেলস্টেশনে রাখা হয়েছে। বিকেল ৪টার মধ্যে বগিগুলো উদ্ধার করার পর ট্রেন চলাচল স্বাভাবিক হতে থাকে।

তদন্ত কমিটি গঠন: দুর্ঘটনার কারণ ও ক্ষয়ক্ষতি নিরূপনে রেলমন্ত্রী মুজিবুল হকের নির্দেশে রেল বিভাগের অতিরিক্ত মহাপরিচালক (অবকাঠামো) আমজাদ হোসেন ভূঁইয়াকে প্রধান করে চার সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। এ কমিটিকে আগামী তিন কর্মদিবসের প্রতিবেদন জমা দিতে বলা হয়েছে। কমিটির অন্য সদস্যরা হলেন- অতিরিক্ত মহাপরিচালক (অপারেশন) শাহ জহির, অতিরিক্ত মহাপরিচালক (রোলিং স্টক) খলিলুর রহমান ও পশ্চিমাঞ্চল রেলওয়ের মহাব্যবস্থাপক আব্দুল আউয়াল ভুইয়া।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ