• সোমবার, ২৭ জুন ২০২২, ০৬:০৮ পূর্বাহ্ন |
শিরোনাম :
পদ্মা সেতুর রেলিংয়ের নাট খোলা বায়েজিদ আটক নীলফামারী জেলা শিক্ষা অফিসার শফিকুল ইসলামের শ্বশুড়ের ইন্তেকাল সৈয়দপুর সরকারি বিজ্ঞান কলেজের গ্রন্থাগারের মূল্যবান বইপত্র গোপনে বিক্রি ফেনসিডিলসহ সেচ্ছাসেবক লীগের নেতা গ্রেপ্তার এ সেতু আমাদের অহংকার, আমাদের গর্ব: প্রধানমন্ত্রী বাংলাদেশ-ভারতে রেল যোগাযোগ বন্ধ থাকবে ৮ দিন পদ্মা সেতুর উদ্বোধন বাংলাদেশের জন্য এক গৌরবোজ্জ্বল ঐতিহাসিক দিন: প্রধানমন্ত্রী পদ্মা সেতুর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে যেতে মানতে হবে যেসব নির্দেশনা সৈয়দপুরে বিস্কুট দেয়ার প্রলোভনে শিশুকে ধর্ষণের অভিযোগ গণমানুষের সমর্থনেই পদ্মা সেতু নির্মাণ সম্ভব হয়েছে: প্রধানমন্ত্রী

আজ ভয়াল ২৯ এপ্রিল

jhor2সিসি নিউজ : আজ ভয়াল ২৯ এপ্রিল। ১৯৯১ সালের এই দিনে ঘূর্ণিঝড় তার প্রলয়ঙ্করী শক্তি নিয়ে আঘাত হেনেছিল বাংলাদেশের দক্ষিণ-পূর্বাঞ্চলীয় উপকূল অঞ্চলে। ঘূর্ণিঝড়ের ফলে তীব্র জলোচ্ছাসে ফুঁসে ওঠা সমুদ্রের ২৫ ফুট উঁচু ঢেউয়ের ছোবলে টেকনাফ থেকে ভোলার উপকূল। লাখো মানুষ প্রাণ হারায়। ভেসে যায় ফসলের ক্ষেত ও গবাদি পশু। কিন্তু এখনও অরক্ষিত উপকূল। এ ধরনের আরেকটি আঘাতে ঘটতে পারে ভয়াবহ বিপর্যয়।

সরকারি হিসাব মতে, ঘূর্ণিঝড় ও জলোচ্ছ্বাসে মৃতের সংখ্যা ১ লাখ ৩৮ হাজার হলেও বেসরকারি হিসাবে এ সংখ্যা ছিল দ্বিগুণ। মারা গিয়েছিল প্রায় ২০ লাখ গবাদি পশু। গৃহহারা হয়েছিল ৫০ লাখ মানুষ।

দিনটি স্মরণে উপদ্রুত এলাকার অনেকে ব্যক্তিগতভাবে এবং বিভিন্ন সামাজিক, সাংস্কৃতিক ও রাজনৈতিক সংগঠন আলোচনা সভা, র‌্যালিসহ নানা কর্মসূচি গ্রহণ করেছে।

১৯৯১ এর ২৯ শে এপ্রিল প্রলয়ংকরী ঘূর্ণিঝড় ও জলোচ্ছ্বাসে নিহতদের স্মরণে ‘২৯ শে এপ্রিল স্মৃতি ফাউন্ডেশন’ বাংলাদেশ এর উদ্যোগে মঙ্গলবার সকাল ১০টায় রাজধানীর জাতীয় প্রেসক্লাবের তৃতীয় তলার সম্মেলন কক্ষে আয়োজিত স্মরণ সভা ও সেমিনার অনুষ্ঠিত হবে।

উক্ত স্মরণ সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন গৃহায়ণ ও গণপূর্ত মন্ত্রী ইঞ্জি. মোশাররফ হোসেন। মূল প্রবন্ধ পাঠ করবেন আন্তর্জাতিক পরিবেশ বিজ্ঞানী ড. আনছারুল করিম। এছাড়াও উপস্থিত থাকবেন সাইমুম সরওয়ার কমল এমপি, আশেক উল্লাহ রফিক, আব্দুর রহমান বদি এমপি, আলহাজ্ব মো. ইলিয়াছ এমপি।

এছাড়া সকাল ৮টায় নিহতদের স্মরণ ও আত্মার মাগফেরাত কামনায় বায়তুল মোকাররম মসজিদে কোরআনখানি ও মিলাদ মাহফিল অনুষ্ঠিত হবে।

উল্লেখ্য, ঘূর্ণ ঝড়ের ২৩ বছর পার হলেও বিধ্বস্ত বেড়িবাঁধের অধিকাংশ এখনও সংস্কার হয়নি। এ ছাড়া প্যারাবন ধ্বংস করে চিংড়ি ঘের ও শিপইয়ার্ড করায় ঝুঁকির মুখে আছে উপকূল। অভিযোগ রয়েছে, মহেশখালী উপজেলায় প্রভাবশালী ও রাজনৈতিক দুর্বৃত্তরা শত শত একর প্যারাবন ধ্বংস করে চিংড়ি ঘের করায় সোনাদিয়া ও মহেশখালীর দক্ষিণ-পশ্চিমাংশ ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে পড়েছে। কুতুবদিয়া, মাতারবাড়ী, ধলঘাট, চকরিয়ার চরণদ্বীপ, সদর উপজেলার চৌফলদন্ডী, টেকনাফের শাহপরীর দ্বীপসহ বিভিন্ন এলাকায় এখনও প্যারাবনের ধ্বংস চলছে। অন্যদিকে সন্দ্বীপ চ্যানেলে প্যারাবন ধ্বংস করে নির্মাণ করা হয়েছে শিপইয়ার্ড।

এদিকে ১৯৯১ সালের পর জেলায় ৪৫০টি সাইক্লোন শেল্টার নির্মাণ করা হয়। কিন্তু পরিকল্পনায় ত্রুটির কারণে প্রায় ১৫টি সাইক্লোন শেল্টার সমুদ্রে তলিয়ে গেছে। অর্ধশতাধিক বেদখল হয়ে গেছে ও ২০টি নির্মাণজনিত ত্রুটির ফলে ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে পড়েছে। জানা যায়, ঘূর্ণিঝড়ের পর বিশ্বের ৩৮টি দেশ থেকে প্রায় সাড়ে ৪ কোটি ডলারের বেশি সাহায্য আসে। ওই টাকায় সারাদেশে নির্মিত হয়েছে ১ হাজার ৮৬১টি সাইক্লোন শেল্টার। আরও অভিযোগ রয়েছে, বেড়িবাঁধ নির্মাণের নামে লোপাট হয়েছে কোটি কোটি টাকা। বিধ্বস্ত হওয়া অনেক সরকারি হাসপাতাল, পরিবার কল্যাণ কেন্দ্র ও স্কুল এখনও নির্মিত হয়নি।

jhor

সংশ্লিষ্টরা বলেন, উপকূলবাসীদের রক্ষায় এখনই সঠিক পরিকল্পনা নিতে হবে। বেড়িবাঁধের বাইরে সবুজ বেষ্টনীর প্যারাবন সৃজন করতে হবে। বেড়িবাঁধকে শক্ত ও মজবুত করার জন্য এর শতভাগ কাজ নিশ্চিত করতে হবে। এ ছাড়া বালি ও পাথর উত্তোলন এবং প্যারাবন ধ্বংসকারীদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে। কুতুবদিয়া উপজেলার সাবেক চেয়ারম্যান এটিএম নুরুল বশর চৌধুরী, মহেশখালী উপজেলা চেয়ারম্যান আবু বক্কর সিদ্দিকী ও কুতুবদিয়া উপজেলা জামায়াতের আমির আনোয়ার হোসেন অরক্ষিত দ্বীপাঞ্চলকে রক্ষা করতে যথাযথ ব্যবস্থার নেওয়ার দাবি জানান।

এ দিনটিকে যথাযথভাবে পালনের জন্য কক্সবাজার জেলা ও উপজেলা প্রশাসন, ২৯ এপ্রিল স্মৃতি পরিষদ, কুতুবদিয়া বাঁচাও আন্দোলন, কুতুবদিয়া ছাত্র পরিষদ, উপকূল রক্ষা কমিটি, স্বজনহারা স্মৃতি পরিষদসহ বিভিন্ন সামাজিক সংগঠন দিনব্যাপী কর্মসূচি হাতে নিয়েছে। কর্মসূচির মধ্যে রয়েছে- মিলাদ মাহফিল, স্মরণ সভা ও শোক র‌্যালি। কক্সবাজার ২ আসনের (মহেশখালী-কুতুবদিয়া) সাবেক সংসদ সদস্য এএইচএম হামিদুর রহমান আযাদ বলেন, ‘ঘূর্ণিঝড়ের ২৩ বছর পরও উপকূলবাসী ঝুঁকিমুক্ত হতে পারেননি। উপকূলীয় জনপদের মানুষ প্রতিনিয়তই দুর্যোগের সঙ্গে সংগ্রাম করছেন। ১৯৯১ সালের ঘূর্ণিঝড়ে যে সব পরিবার ও অঞ্চল ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে তাদের ভাগ্যোন্নয়ন হয়নি। বরং পরবর্তী সময়ে নার্গিস ও আইলাসহ অসংখ্য দুর্যোগের কবলে পড়ে তারা নিঃস্ব হয়ে পড়েছে। এ অঞ্চলের বেড়িবাঁধ, রাস্তাঘাট ও শিক্ষা প্রতিষ্ঠানসহ অন্যান্য প্রতিষ্ঠান সে দিনের ক্ষয়ক্ষতির দাগ কাটিয়ে উঠতে পারেনি।’

এরই মধ্যে জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাবে উপকূলীয় অঞ্চল ও এখানকার নাগরিকদের ঝুঁকি আরও বেড়েছে। যার কারণে যেকোনো বিপর্যয়ে সাড়ে ৩ কোটি মানুষ উদ্বাস্তু হয়ে যেতে পারেন।

সোমবার বিকেলে এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ