• সোমবার, ২৭ জুন ২০২২, ০৫:৫৯ অপরাহ্ন |

নিখোঁজ বিমানটির ধ্বংসাবশেষ বঙ্গোপসাগরে!

bimanআন্তর্জাতিক ডেস্ক : মালয়েশিয়ার নিখোঁজ বিমানটির ধ্বংসাবশেষ বঙ্গোপসাগরে রয়েছে বলে দাবি করেছে অস্ট্রেলিয়ার অনুসন্ধানী কোম্পানি জিওরিজোন্যান্স। অস্ট্রেলিয়ার সংবাদ মাধ্যম সেভেন নিউজ এ খবর দিয়েছে। জিওরিজোন্যান্স দাবি করেছে, তারা মালয়েশীয় ফ্লাইট এমএইচ ৩৭০’র ধ্বংসাবশেষ বঙ্গোপসাগরে ভাসতে দেখতে পেয়েছেন। প্রাপ্ত প্রমাণাদি তারা বিমানটি নিখোঁজের তিন দিন আগের তোলা ছবির সঙ্গে মিলিয়ে দেখে নিশ্চিতের পরেই এ দাবি করেছেন।
গত ১০ মার্চ নিখোঁজ এ বিমানটির অনুসন্ধান শুরু করেছে জিওরিজ্যোন্যান্স। গত ৮ মার্চ ২৩৯ আরোহীসহ মালয়েশিয়া থেকে চীনে যাওয়ার পথে এমএইচ ৩৭০ বিমানটি নিখোঁজ হয়।

এই অনুসন্ধান অভিযানের নেতা অস্ট্রেলিয়ার প্রধানমন্ত্রী টনি অ্যাবোট সোমবারই বলেছেন, সাগরের উপরিভাগে ধ্বংসাবশেষ পাওয়ার সম্ভাবনা এখন আর নেই বললেই চলে। কোম্পানিটির কর্মকর্তা ডেভিড পোপ বলেন, “২০ ধরনের প্রযুক্তি ব্যবহার করেছে আমাদের বিশেষজ্ঞরা। তারা তো প্রথমে বিশ্বাসই করতে পারেনি, তারা কী পেয়েছে বঙ্গোপসাগরে।”

তিনি বলেন, “সেখানে একটি বাণিজ্যিক বিমানের ধ্বংসাবশেষের চিহ্ন পেয়ে তারা খুবই উজ্জীবিত। আমাদের ধারণা, এটা মালয়েশিয়ার বিমানেরই কিছু উপাদান।” ‘জিওরেজোন্যান্স’ এর কর্মকর্তা পাভেল কার্সা বলেন, তারা একটি বোয়িং-৭৭৭ বিমানের গঠন উপাদানের কিছু পেয়েছেন, যার মধ্যে রয়েছে অ্যালুমিনিয়াম, কপার, স্টিল ইত্যাদি।

নতুন পাওয়া এসব উপাদান মালয়েশিয়া এয়ারলাইন্সের বোয়িংটিরই কি না, তা খতিয়ে দেখতে ‘জিওরেজোন্যান্স’ সাগরের ওই এলাকার ৫ মার্চের অর্থাৎ বিমানটি নিখোঁজ হওয়ার তিন দিন আগে তোলা চিত্রের তুলনামূলক বিশ্লেষণ করে।

এরপর তারা মোটামুটি ধারণা নিলেও পোপ বলেন, “আমরা এখনো এটা বলছি না যে এই উপাদানগুলো নিখোঁজ বিমানটিরই। তবে এর সূত্র ধরে বিমানটির হদিস মিলতে পারে।” বিমানটি নিখোঁজ হওয়ার পর বাংলাদেশের নৌবাহিনী বঙ্গোপসাগরে অনুসন্ধান চালিয়েছিল, কিন্তু ১২ দিন খুঁজেও এর কোনো সন্ধান মেলেনি। সৌজন্য-নতুন বার্তা


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ