• রবিবার, ০৩ জুলাই ২০২২, ০২:৪৪ পূর্বাহ্ন |

দল পুনর্গঠন প্রক্রিয়া নিয়ে বিএনপিতেই নানা প্রশ্ন

BNP Flagসিসি নিউজ: দলের পুনর্গঠন প্রক্রিয়া নিয়ে বিএনপিতেই নানা প্রশ্ন। তৃণমূল নেতারা এ প্রতিবেদকের সঙ্গে আলাপকালে বলেন, গত ৫ জানুয়ারি নির্বাচনের আগে সরকারবিরোধী আন্দোলন-সংগ্রামে জেলা পর্যায়ে কঠোর আন্দোলন হয়েছে বলে প্রকাশ্যে স্বীকার করেছে বিএনপির হাইকমান্ড। একই সঙ্গে হাইকমান্ড প্রকাশ্যে এটাও বলেছে, তখন ব্যর্থ ছিল মহানগর বিএনপি, ছাত্র-যুবকদের সংগঠন ছাত্রদল ও যুবদল। দলের হাইকমান্ডের এমন বক্তব্যের পর তৃণমূল খুশি হয়েছিল। তাদের প্রত্যাশা ছিল, দলের হাইকমান্ড বুঝি এবার সমস্যাসঙ্কুল ইউনিটগুলোর সমস্যা দূর করবে। কিন্তু সেসব ইউনিট ঠিক না করে যখন সফল জেলা নেতাদের ডাকা শুরু হল তখন থেকেই প্রশ্ন উঠতে শুরু করে দলে। দলের তৃণমূল পর্যায়ের নেতাদের সঙ্গে আলাপ করে এসব তথ্য জানা গেছে। তৃণমূল নেতাদের এসব প্রশ্নের বিষয়ে জানতে চাইলে তৃণমূলের এমন প্রশ্ন ও সেন্টিমেন্টের সঙ্গে একমত পোষণ করেছেন বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব মো. শাহজাহান। তিনি বলেন, যে কয়টি জেলা কমিটিকে ডাকা হয়েছে তা তৃণমূলের অনুরোধেই ডাকা হয়েছে। এটা ঠিক, তাদের প্রত্যাশা অনুযায়ী মহানগর, ছাত্রদল ও যুবদলের কমিটি দ্রুত হচ্ছে না। এটি হলে তারা খুশি হতো। তবে তাদেরকে তিনি ধৈয ধরার পরামর্শ দিয়ে বলেন, ধৈর্যের ফল মিঠা হয়।
ছাত্রদলের এক কেন্দ্রীয় নেতা বিএনপির পুনর্গঠন নিয়ে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে একটি জোরালো স্ট্যাটাস দিয়েছেন। যার শিরোনাম-‘কোন পথে যাচ্ছে বিএনপি?’ এরপর তিনি লিখেছেন, গঠন-পুনর্গঠনে সীমাবদ্ধ হয়ে আছে তাদের দল বিএনপি। দল সংগঠিত করার পর বৃহত্ পরিসরে শুরু হবে আন্দোলন। এসব কথা শুনতে শুনতে অতৃপ্তি চলে এসেছে বিএনপি নেতাদের প্রতি। দেশব্যাপী সফল আন্দোলনের পর ব্যর্থতার দায়ে ঢাকা মহানগর নেতাদের যাচ্ছেতাই বলে এক সপ্তাহের মধ্যে মহানগর বিএনপির কমিটি ঘোষণা করার কথা। অথচ আজ প্রায় তিন মাস হতে চলছে কোনো খবর নেই। তাহলে কেন নেতাদের যাচ্ছেতাই বলে হেয়প্রতিপন্ন করা হল কর্মীদের কাছে। আবার যাদের হেয় করা হল, তাদের ছাড়া নাকি দল চলবে না। তাহলে তারা কি চেয়ারপারসনের চেয়ে ক্ষমতাবান? ওই ছাত্রনেতা দলের নীতিনির্ধারকদের কাছে জানতে চান-বিএনপির নীতিনির্ধারকদের কাছে জানতে চাই আসলেই তারা দলের পুনর্গঠন চান কি না, আন্দোলন চান কি না? তার প্রশ্ন-দলের পুনর্গঠন চাইলে বারবার বিএনপির জাতীয় কাউন্সিল পেছানোর জন্য নির্বাচন কমিশনের কাছে সময় চাওয়া হয় কেন? আন্দোলন চাইলে, আন্দোলনে সফলতার জন্য যাদের বাহবা দেওয়া হল, সেই তৃণমূলের কমিটি ভেঙে দেওয়া হচ্ছে অথচ ব্যর্থতার জন্য দায়ী যারা তাদের কমিটির খবর নেই।
খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, যেসব জেলার তৃণমূল নেতাদের ডাকা হচ্ছে, তারা দলের দায়িত্বশীল নেতাদের ওপর ক্ষুব্ধ। তাদের অভিযোগ, তারা তাদের জেলায় হামলা-মামলা-জেল-জুলুম মেনে নিয়ে আন্দোলন করেছেন। অথচ যারা দলের দুর্দিনে রাজপথে ছিলেন না, রাজপথে যাদের খুঁজে পাওয়া যায়নি, তাদের কাছেই বক্তব্য তুলে ধরতে হচ্ছে। ব্যর্থ নেতারাই তাদেরকে নির্দেশনা দিচ্ছেন। প্রথম দিকে জেলা নেতাদের বক্তব্যে এমন কথা উঠে এলেও এখন আর তাদের বক্তব্য রাখতে দেওয়া হচ্ছে না। তারা চেয়ারপারসনের গুলশানের রাজনৈতিক কার্যালয়ে গেলে শুধু চেয়ারপারসন তাদের উদ্দেশে সংক্ষিপ্ত দিকনির্দেশনামূলক বক্তব্য রেখে আগের কমিটি ভেঙে দিয়ে নতুন আহ্বায়ক কমিটি দিয়ে দিচ্ছেন।
তৃণমূল নেতাদের অভিযোগ, জেলা নেতাদের সঙ্গে মতবিনিময় করছেন যুগ্ম মহাসচিব আমান উল্লাহ আমান, মো. সালাহউদ্দিন আহমেদ, মিজানুর রহমান মিনু, মো. শাহজাহান, বরকতউল্লা বুলু ও রুহুল কবির রিজভী। এদের মধ্যে একমাত্র রিজভী দলের হাইকমান্ডের নির্দেশে নয়াপল্টনে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে ছিলেন। এ ছাড়া রাজশাহীর মিনুকে রাজশাহীর রাজপথে দেখা গেছে। বাকি কোনো যুগ্ম মহাসচিবকে রাজপথে দেখা যায়নি। রিজভী গ্রেফতার হওয়ার পর সালাহউদ্দিন আহমেদকে দলের হাইকমান্ড মুখপাত্রের দায়িত্ব পালন করতে বললেও তিনি কার্যালয়ে না গিয়ে গোপন ভিডিও বার্তা পাঠান, যা দলের ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ন করে। পরে দায়িত্ব দেওয়া হয় দলের স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. আর এ গনিকে। তৃণমূলের নেতারা বেশি ক্ষুব্ধ দলের যুগ্ম মহাসচিব আমান উল্লাহ আমান, সালাহউদ্দিন আহমেদ, বরকতউল্লা বুলুর ওপর। এদের মধ্যে আমান উল্লাহ জেলে। বুলু অসুস্থ। এ বিষয়ে জানতে গতকাল সন্ধ্যায় সালাহউদ্দিন আহমেদের মোবাইলে যোগাযোগ করা হলে তিনি ফোন রিসিভ করেননি।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ