• শনিবার, ০২ জুলাই ২০২২, ০৩:১১ অপরাহ্ন |

দিমেক হাসপাতাল ইন্টার্ণ ডাক্তারদের দখলে!

Dinajpur-Medical-College-Pic
মাহবুবুল হক খান, দিনাজপুর: দিনাজপুর মেডিকেল কলেজ (দিমেক) হাসপাতাল ইন্টার্ণ ডাক্তারদের সন্ত্রাসী ও স্বেচ্ছাচারী কর্মকান্ডের আখড়ায় পরিণত হয়েছে। রোগিদের বিনা চিকিৎসায় ফেলে রাখা, রোগির স্বজনদের গালাগালাজ করা, তাদেরকে মারধর করা ইন্টার্ণ ডাক্তারদের নিত্যদিনের রুটিন ওয়ার্কে পরিণত হয়েছে। এমনকি হাসপাতালের নার্স ও অন্যান্য কর্মচারীরাও তাদের নির্যাতন ও লাঞ্চনার হাত থেকে রেহাই পাচ্ছেন না।
দিকেম হাসপাতালে ডাক্তারদের হাতে সর্বশেষ নিগৃহীত হয়েছেন দিনাজপুর শহরের খাসিপাড়া এলাকার কায়দেই আজম। দিমেক হাসপাতালের পরিচালক, দিমেক’র অধ্যক্ষ ও কোতয়ালী থানায় দায়েরকৃত পৃথক পৃথক অভিযোগে এসব তথ্য জানা গেছে। রোগির স্বজন কায়দেই আজম তার অভিযোগে বলেন, গত ১৬ এপ্রিল দুপুরে তার স্ত্রী মোছাঃ রিমাকে চিকিৎসার জন্য দিমেক হাসপাতালের মহিলা মেডিসিন বিভাগের ৪৪৪ নম্বর ক্যাবিনে ভর্তি করেন। কিন্তু দীর্ঘ প্রায় ২৩ ঘন্টা অতিবাহিত হওয়ার পরও তার কোন চিকিৎসা না হওয়ায় স্ত্রী অবস্থার অবনতি ঘটে। স্ত্রী এমন অবস্থা দেখে কায়দেই আজম এ ব্যাপারে কথা বলার জন্য পরদিন ১৭ এপ্রিল বেলা সাড়ে ১১টায় হাসপাতালের চতুর্থ তলার ৪৫৯ নম্বর কক্ষে অপেক্ষমান ইন্টার্ণ ডাক্তারদের কাছে যান এবং তার স্ত্রীর চিকিৎসা না হওয়ার কারণ জানতে চাইলে ইন্টার্ণ ডাক্তাররা ক্ষিপ্ত হয়ে তাকে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করেন। এর এক পর্যায়ে জনৈক ইন্টার্ণ ডাক্তার তাকে বলেন, আমরা তোমার স্ত্রীর চিকিৎসা করবো না, রোগি নিয়ে চলে যাও। এ কথা বলার পর তিনি ছাড়পত্র চাইলে ওই ইন্টার্ণ ডাক্তার আবারো বলেন, চাড়পত্র ছাড়াই রোগি নিয়ে যেতে হবে। তা না হলে তোমার রোগিকে পয়জনিং ইনজেকশন দিয়ে তাকে মেরে ফেলবো। কায়দেই আজম এর প্রতিবাদ করলে উপস্থিত সব ইন্টার্ণ ডাক্তাররা সংঘবদ্ধ হয়ে তার উপর ঝাপিয়ে পড়ে ও মারধর করে। ইন্টার্ণ ডাক্তাররা তার চশমা, মোবাইল ভেঙ্গে ফেলে ও গায়ের জামা-কাপড় ছিড়ে ফেলে তাকে এক রকম বিবস্ত্র করে দেয়। পরে আশপাশের লোকদের সহযোগিতায় তিনি ঘটনাস্থল থেকে চলে আসেন। এতেই তারা ক্ষান্ত হয়নি, ইন্টার্ণ ডাক্তাররা রোগির কক্ষে প্রবেশ করে রেজিস্ট্রারে স্বাক্ষর নেয়ার চেষ্টা করে।
ঘটনার পর কায়দেই আজম দিমেক হাসপাতালের পরিচালক বরাবর লিখিত অভিযোগ করলে পরিচালক একটি সমঝোতা সভার আয়োজন করেন। গত ২৪ এপ্রিল ওই সভা অনুষ্ঠিত হয়। ওই সভায় ইন্টার্ণ ডাক্তাররা দুঃখিত বলে দায়মুক্ত হন। কিন্তু কায়দেই আজমকে কোন ক্ষতিপূরণ দেয়া হয়নি। তবে হাসপাতালের পরিচালক ডা. আব্দুল ওয়াহাব হাওলাদার এ ব্যাপারে একটি তদন্ত কমিটি গঠন করবেন এবং ওই কমিটি রিপোর্ট দেয়ার পর তাদের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিবেন বলে জানান।
এত একটি মাত্র উদাহরণ। দিমেক হাসপাতালে ইন্টার্ণ ডাক্তারদের সাথে প্রতিদিন রোগির স্বজনদের এমন অনেক ঘটনা ঘটে। শুধু তাই নয়, ইন্টার্ণ ডাক্তারদের হাত থেকে রেহাই পাননা দিমেক হাসপাতালের নার্স ও অন্যান্য কর্মচারীরাও। গত ২২ এপ্রিল হাসপাতালের অপারেশন থিয়েটারে কাজ করার সময় প্রিন্স নামে এক ইন্টার্ণ ডাক্তার কর্তব্যরত এক নার্সকে গালিগালাজ করে ও লাথি মেরে নিচে ফেলে দেয়া হবে। এ ঘটনার পর ওই নার্স হাসপাতালের পরিচালক বরাবর লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন। তবে এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত ওই ইন্টার্ণ ডাক্তারের বিরুদ্ধে কোন ব্যবস্থা নেয়া হয়নি বলে জানায় নার্সরা।
দিমেক হাসপাতালে ভর্তি রোগিদের স্বজনরা জানায়, ইন্টার্ণ ডাক্তাররা প্রতিদিনই কোন না কোন রোগির সাথে অথবা রোগির স্বজনদের সাথে দুর্ব্যবহার করে। গ্রাম-গঞ্জ হতে চিকিৎসা নিতে আসা দরিদ্র-অসহায় মানুষ রোগির চিকিৎসা হবে না বা রোগিকে হাসপাতাল থেকে বের করে দেয়া হবে এমন আশঙ্কায় তারা ইন্টার্ণ ডাক্তারদের দুর্ব্যবহারের কোন প্রতিবাদ করেন না। অনেকেই মানসম্ম¥ানের কারো কাছে বলেন না।
ইন্টার্ণ ডাক্তারদের দুর্ব্যবহার এখানেই শেষ নয়, তাদের হাত থেকে রেহাই পায় না হাসপাতালে আসা বিভিন্ন ওষুধ কোম্পানীর রিপ্রেজেন্টেটিভরাও। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক ওষুধ কোম্পানীর রিপ্রেজেন্টেটিভ জানান, ইন্টার্ণ ডাক্তাররা তাদের বিদায়ী অনুষ্ঠানের নামে হাসপাতালের আসা বিভিন্ন ওষুধ কোম্পানীর রিপ্রেজেন্টেটিভদের নিকট মোটা অংকের চাঁদা দবী করেছেন। তাদের নির্ধারিত চাঁদা না দিলে ওষুধ কোম্পানীর কোন লোককে হাসপাতাল কম্পাউন্ডে প্রবেশ করতে দেয়া হবে না বলেও সতর্ক করে দেয়।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ