• মঙ্গলবার, ০৫ জুলাই ২০২২, ০৩:৫২ পূর্বাহ্ন |
শিরোনাম :

পার্বতীপুরের শতাধিক গ্রামে বিশুদ্ধ খাবার পানির সংকট

nolkup

মাহবুবুল হক খান, দিনাজপুর: পার্বতীপুরের বড়পুকুরিয়ায় বিশুদ্ধ পানি ও বিদ্যুতের চরম সংকট দেখা দিয়েছে। ৫০ ফুট থেকে ৫৫ ফুট নিচে নেমে গেছে পানির স্তর।  ৪ মাস ধরে  ৮ হাজারের বেশি টিউবওয়েল ও শতাধিক তারা পাম্পে উঠছেনা পানি। এতে বড়পুকুরিয়া কয়লা খনি ও তাপ বিদুুৎকেন্দ্রসহ আশপাশ এলাকার প্রায় শতাধিক গ্রামের লক্ষাধিক মানুষ বিপাকে পড়েছেন। এলাকাবাসি বিশুদ্ধ পানি, নিরবচ্ছিন্ন বিদ্যুতের দাবিতে বিক্ষোভ মিছিল এবং বড়পুকুরিয়া তাপ বিদ্যুৎকেন্দ্র ও কয়লা খনি ঘেরাও কর্মসূচী পালন করেছে।
পার্বতীপুরে ৬ দশমিক ৬৮ কিলোমিটার এলাকা বিস্তৃত বড়পুকুরিয়া কয়লা খনি। এ কয়লা খনির ৬টি স্তরে রয়েছে ৬৯০ মিলিয়ন মেট্রিক টন কয়লা। নানান প্রতিকূলতা অতিক্রম করে ১৯৯৪ সালের জুন মাসে এ কয়লা খনি থেকে আনুষ্ঠানিকভাবে কয়লা উত্তোলন শুরু হয়। এতে ভূ-কম্পনে এলাকার ঘর-বাড়ির ব্যাপক ক্ষতি হয়। শুধু তাই নয়, তলিয়ে যায়, অনেক আবাদি জমি। খনির কারণে ভূ-গর্ভস্থ পানির স্তর নেমে যাওয়ায় এখন নলকূপে পানি উঠছে না। এতে খাবার পানি সংকটে মারাত্মক সমস্যায় পড়েছেন বিদ্যুৎকেন্দ্র এলাকার শেরপুর, চৌহাটি, হামিদপুর, বাগড়া, ডাঙ্গাপাড়া, মজিদপুর, চককবির, ইসবপুর, রামভদ্রপুর, মধ্যদূর্গাপুর, জিগাগাড়ি, কালুপাড়া, বাঁশপুকুর, বলরামপুর ও শাহাগ্রামসহ আশপাশে বসবাসরত শতাধিক গ্রামের অসংখ্য মানুষ।
বড়পুকুরিয়া তাপ বিদ্যুৎকেন্দ্রের বিদ্যুৎ উৎপাদনে খনি এলাকার কয়েকটি গ্রামে বসানো হয়েছে ১৪টি গভীর নলকূপ। এসব নলকূপ থেকে প্রতিনিয়ত পানি উত্তোলনের ফলে ভূগর্ভের পানির স্তর নীচে নেমে গেছে। ফলে ওই এলাকার কোনো টিউবওয়েলে পানি উঠছে না। নলকূপে পানি না ওঠায় তারা পুকুরের নোংড়া-পঁচা-দুর্গন্ধযুক্ত পানি দিয়েই সংসারের যাবতীয় কাজ করছেন। একটি পুকুরে দূর-দূরান্ত থেকে এসে একই সঙ্গে গোসল করছেন নারী-পুরুষ, শিশুসহ অনেক মানুষ। একই পুকুরে গোসল করানো হচ্ছে গবাদিপশু।
এলাকার সমস্যা সৃষ্টি করে এখানে বিদ্যুৎ উৎপাদন করা হলেও এখানকার দু’টি গ্রামে এখনও পৌঁছেনি বিদ্যুৎ। এছাড়াও যেসব গ্রামে বিদ্যুৎ সংযোগ আছে সেখানে লোডশেডিং প্রতিনিয়ত ঘটছে। অন্ধকারে থাকছে এলাকার মানুষ। বিশুদ্ধ পানি, নিরবিচ্ছিন্ন বিদ্যুুতের দাবিতে বিােভ মিছিল এবং বড়পুকুরিয়া তাপ বিদ্যুৎকেন্দ্র ও কয়লা খনি ঘেরাও কর্মসূচি পালন করেছে এলাকার মানুষ।
বড়পুকুরিয়া তাপ বিদ্যুৎকেন্দ্রের প্রধান প্রকৌশলী মঞ্জুরুল হক বিশুদ্ধ পানি ও বিদ্যুতের চরম সংকটের কথা অস্বীকার করেছেন। তাপ বিদ্যুৎকেন্দ্রের আড়াই’শ মেগাওয়াটের দু’টি ইউনিটের বয়লারে প্রতিদিন এক হাজার মেট্রিক টন পানির প্রয়োজন। এজন্য ১৪টির মধ্যে ১১টি গভীর নলকূপ ২৪ ঘণ্টা চালু রাখতে হয়। এতে পানির স্তর কিছুটা নিচে নেমে গেলেও কেন্দ্রের অতিরিক্ত পানি এলাকার মানুষের জন্য কল্যাণ বয়ে এনেছে। এ পানি দিয়ে এলাকার  মানুষ ফসল উৎপন্ন করছে বলে জানান তিনি।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ