• সোমবার, ২৭ জুন ২০২২, ০৮:৪৬ পূর্বাহ্ন |
শিরোনাম :
পদ্মা সেতুর রেলিংয়ের নাট খোলা বায়েজিদ আটক নীলফামারী জেলা শিক্ষা অফিসার শফিকুল ইসলামের শ্বশুড়ের ইন্তেকাল সৈয়দপুর সরকারি বিজ্ঞান কলেজের গ্রন্থাগারের মূল্যবান বইপত্র গোপনে বিক্রি ফেনসিডিলসহ সেচ্ছাসেবক লীগের নেতা গ্রেপ্তার এ সেতু আমাদের অহংকার, আমাদের গর্ব: প্রধানমন্ত্রী বাংলাদেশ-ভারতে রেল যোগাযোগ বন্ধ থাকবে ৮ দিন পদ্মা সেতুর উদ্বোধন বাংলাদেশের জন্য এক গৌরবোজ্জ্বল ঐতিহাসিক দিন: প্রধানমন্ত্রী পদ্মা সেতুর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে যেতে মানতে হবে যেসব নির্দেশনা সৈয়দপুরে বিস্কুট দেয়ার প্রলোভনে শিশুকে ধর্ষণের অভিযোগ গণমানুষের সমর্থনেই পদ্মা সেতু নির্মাণ সম্ভব হয়েছে: প্রধানমন্ত্রী

বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যানরা পদে আছেন, মাঠে নেই

BNP Flagসিসি নিউজ: বিএনপির জাতীয় নির্বাহী কমিটির ভাইস চেয়ারম্যানদের মধ্যে অনেক নেতা রয়েছেন যাদের কোনো দলীয় কর্মকাণ্ডে দেখা যায় না। দলের ১৬ জন ভাইস চেয়ারম্যানের মধ্যে হাতেগোনা কয়েকজন নেতা সক্রিয় রয়েছেন। বাকীরা পদে আছেন কিন্তু তাদের মাঠে দেখা যায় না।

তবে দলের চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া নতুন করে বিএনপির সব কমিটি পুনর্গঠনের ঘোষণা দেওয়ার পর নিজেদের পদ ধরে রাখার স্বার্থে অনেক নিষ্ক্রিয় নেতারা আবার দলের মধ্যে সক্রিয় হওয়ার চেষ্টা করছেন।

মাঝে মধ্যে এসব নেতাদের সরব উপস্থিতি দেখা যায় মিডিয়া নির্ভর আলোচনা সভা, টিভি চ্যানেলের টক শো গুলোতে, যাতে ভবিষ্যতে দলের আরও গুরুত্বপুর্ণ পদ পাওয়া যায়।

২০০৮ সালে বিএনপির কমিটি গঠন করা হয়। এই কমিটিতে বেগম খালেদা জিয়ার জ্যেষ্ঠ পুত্র তারেক রহমানকে সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান করা হয়। তখন কমিটিতে তাকেসহ ১৬ জন নেতাকে ভাইস চেয়ারম্যানের দায়িত্ব দেওয়া হয়। উদ্দেশ্য ছিল এসব নেতারা দায়িত্ব পাওয়ার পর দলের নেতৃত্বে গতিশীলতা আসবে। সংগঠনকে শক্তিশালী করার ক্ষেত্রে তাদের মেধাকে কাজে লাগিয়ে দলকে সমৃদ্ধ করবেন। কিন্তু বাস্তব অবস্থা তা হয়নি। বরং অধিকাংশ নেতার বিরুদ্ধে দলের দুর্দিনে দলের পাশে না দাঁড়ানোর অভিযোগ রয়েছে।

বিগত ৫ জানুয়ারি নির্বাচনের আগে বিএনপির অধিকাংশ নেতৃত্ব যখন কারাগারে কিংবা গ্রেফতার এড়াতে পালিয়ে বেড়িয়েছেন সে সময় দলের পক্ষে কথা বলার মতো কোনো নেতাকে পাওয়া যায়নি।

দলের সুত্র জানায়, ওই সময় বেগম খালেদা জিয়া দলের স্থায়ী কমিটির সদস্য, চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্যসহ কয়েকজন ভাইস চেয়ারম্যানকে দলের মুখপাত্র হিসেবে এগিয়ে আসার জন্য বললেও তারা নিজেদের স্বার্থের দিকে তাকিয়ে এই দায়িত্ব পালনে অস্বীকার করেন।

পরে অবশ্য সংস্কারবাদী নেতা হিসেবে দলের মধ্যে পরিচিত এবং অনেকাংশে কোনঠাসা নেতা মেজর (অব.) হাফিজ উদ্দিন আহমেদ খালেদা জিয়ার ডাকে সাড়া দিয়ে দলের মুখপাত্র হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। সংবাদ সম্মেলন শেষে বের হবার পর জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে থেকে তাকে গ্রেফতার হতে হয়। জেল থেকে বের হওয়ার পর এই নেতাকে এখন দলের বিভিন্ন অনুষ্ঠানে দেখা যায়।

দলের সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমান ওয়ান ইলেভেনে নির্যাতনের শিকার হয়ে লন্ডনে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। সেখান থেকে তিনি দলের খোঁজখবর রাখেন। মাঝে মধ্যে রাজনৈতিক বক্তব্য দিয়ে তিনি দেশে বিদেশে আলোচিত সমালোচিত হন।

আগামী দিনে বিএনপির কাণ্ডারি এই নেতার সঙ্গে এখন সহসা কোনো নেতা দেখা করতে পারেন না বলে অভিযোগ রয়েছে। লন্ডন গিয়েছেন এমন অনেক নেতা নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন, দলের সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যানের সঙ্গে লন্ডনে সাক্ষাৎ করা সম্ভব হয় না। কারণ তিনি সবাইকে তার সঙ্গে দেখা করার অনুমতি দেন না।

সাদেক হোসেন খোকা একাধারে ঢাকা মহানগর বিএনপির আহ্বায়ক আবার কেন্দ্রীয় বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান। দলের নেতাকর্মীদের মধ্যে তার ভূমিকা নিয়ে রয়েছে অনেক প্রশ্ন। তার সাংগঠনিক কর্মকাণ্ড নিয়ে রয়েছে বিতর্ক।

ওয়ান ইলেভেনে সংস্কারপন্থী নেতাদের মধ্যে তিনি ছিলেন অন্যতম। সংস্কারপন্থী এই নেতা আবার দলের মধ্যে নানা প্রশ্নের জন্ম দেন সর্বশেষ ২৯ ডিসেম্বর মার্চ ফর ডেমোক্রেসির আন্দোলন, ৫ জানুয়ারি নির্বাচন প্রতিহতের ঘোষণাসহ বিভিন্ন সময়ে সরকারবিরোধী আন্দোলনে কোনো কর্মকাণ্ড না দেখিয়ে। তবে নিবার্চনের আগে তিনি গ্রেফতার হয়ে জেলে যান। এখন দলের মধ্যে তার নেতৃত্ব নিয়ে চলছে টানাপোড়ন। তার পদ ধরে রাখার জন্য ব্যস্ত রয়েছেন।

দলের প্রবীণ নেতা বিচারপতি টি এইচ খানকে ৫ জানুয়ারির নির্বাচনের আগে তাকে কয়েক ঘণ্টার জন্য আটক করে পুলিশ। বর্তমানে বয়সের কারণে এই নেতাকে বিএনপির তেমন কোনো কর্মকাণ্ডে খুব একটা দেখা যায় না।

একই অবস্থা দলের আরেক ভাইস চেয়ারম্যান এম মোর্শেদ খানের। দলের কর্মকাণ্ডে উপস্থিতি নেই বললেই চলে। তিনি এখন নিজের ব্যবসা নিয়ে বেশি ব্যস্ত থাকেন বলে জানা গেছে।

এক সময়ে জাতীয় পার্টির অত্যন্ত প্রভাবশালী মন্ত্রী হিসেবে পরিচিত শাহ মোয়াজ্জেম হোসেন বিএনপিতে ফিরে আসার পর তিনি দলের ভাইস চেয়ারম্যানের দায়িত্ব পান। গরম গরম বক্তৃতা দিয়ে তিনি মাঝে মধ্যে দলের মধ্যে তার উপস্থিতির জানান দেন।

বেগম রাবেয়া চৌধুরীকে দলের অনেক নেতাকর্মীরা চেনেন না। তাকে প্রকাশ্যে কোনো সভা সমাবেশ বা কর্মসূচিতে দেখা যায় না বলে জানা গেছে।

মন্ত্রী থাকাকালীন বিভিন্ন মন্তব্য করে দারুণভাবে আলোচিত ও সমালোচিত এক সময়ের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী এয়ার ভাইস মার্শাল (অব.) আলতাফ হোসেন চৌধুরী। তিনিও দলের অন্যতম ভাইস চেয়ারম্যান। দলের কর্মকাণ্ডে তাকে খুব বেশি দেখা যায় না। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী থাকার সময় একটি শিশুর মৃত্যুর পর তিনি বলেছিলেন, আল্লাহর মাল আল্লাহ নিয়ে গেছেন। তার এই উক্তি নিয়ে ওই সময় সারাদেশে ব্যাপকভাবে সমালোচিত হয়ে ছিলেন এই নেতা।

অ্যাডভোকেট হারুন আল রশিদ দলের একজন ভাইস চেয়ারম্যান। তাকে আদৌ কোনো কর্মকাণ্ডে পাওয়া যায় না বলে দলের সূত্রে জানা গেছে।

ভাইস চেয়ারম্যান আবদুল্লাহ আল নোমান দলের সাংগঠনিক কর্মকাণ্ডের মধ্যে থাকেন। তিনি আগে যেভাবে দলের জন্য কাজ করেছেন এখনও সেই ধারা অব্যাহত রেখেছেন। অনেক গুরুত্বপুর্ণ বিষয়ে তিনি দলের মধ্যে দায়িত্বপালন করে যাচ্ছেন। ৫ জানুয়ারির নির্বাচন প্রতিহতের ঘোষণাসহ সরকারের বিরুদ্ধে আন্দোলনে তিনি চট্টগ্রামে ঝুঁকি নিয়ে আন্দোলন সংগ্রাম চালিয়ে গেছেন। যেখানে ঢাকার নেতারা সর্ম্পূণভাবে আন্দোলন করতে ব্যর্থ হয়েছেন সেখানে তিনি সফল ছিলেন।

চৌধুরী কামাল ইবনে ইউছুফ দলের কর্মকাণ্ডে একেবারেই অনুপস্থিত।

বিএনপির অন্যতম ভাইস চেয়ারম্যান বেগম সেলিমা রহমান। তিনি দলের বিভিন্ন কর্মকাণ্ডে অনিয়মিত। তবে বিগত আন্দোলনের সময় তিনি দলের মুখপাত্র হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। পরে তাকে তার বাসার সামনে থেকে গ্রেফতার করা হয়। তার বিরুদ্ধে উপজেলা নির্বাচনে প্রার্থী বাচাই নিয়ে অনিয়মের অভিযোগ রয়েছে। তার আরেকটি পরিচয় তিনি বর্তমান সরকারের মন্ত্রী ও ওয়ার্কার্স পার্টির সভাপতি রাশেদ খান মেননের বোন।

কাজী শাহ মোফাজ্জল হোসেন (কায়কোবাদ) যে দলের ভাইস চেয়ারম্যান এটা দলের অনেক নেতাকর্মীরা জানেন না বলে জানা গেছে। দীর্ঘদিন ধরে অসুস্থ থাকায় তিনি দেশের বাইরে রয়েছেন।

শমসের মবিন চৌধুরী (বীর বিক্রম) চেয়ারপারসনের পাশে থেকেছেন সব সময়। জীবনের ঝুঁকি নিয়ে গ্রেফতার এড়িয়ে অনেকটা দৃঢ়তার সঙ্গে ৫ জানুয়ারির নির্বাচনের আগে পরিস্থিতি মোকাবেলা করেছেন। তাকেও আটক করে পুলিশ। তিনি মূলত আর্ন্তজাতিক লবিংসহ দলের সাংগঠনিক বিষয় নিয়ে কাজ করেন।

আরেক ভাইস চেয়ারম্যান দলের প্রবীণ সদস্য রাজিয়া ফয়েজ ইন্তেকাল করেছেন।

উৎসঃ   প্রাইমনিউজ


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ