• শনিবার, ২৫ জুন ২০২২, ০৫:২৫ পূর্বাহ্ন |

ভোটার একজন কেন্দ্রও একটি!

jakia..vote_22944

সিসি নিউজ: সপ্তম দফা লোকসভা ভোটে শুধুমাত্র একজন নাগরিককে ভোট দেওয়ার সুযোগ করে দিতে ৩৫ কিলোমিটার দূরের এক বুথের উদ্দেশে যেতে হবে ছয়জন ভোটকর্মী ও তিনজন বনকর্মী।
দক্ষিণ-পশ্চিম গুজরাটের এক হাজার ৪১২ বর্গ কিলোমিটার জুড়ে ভারতের একমাত্র সিংহ অভয়ারণ্য গির। সেই অরণ্যের প্রায় মাঝামাঝি জায়গায় রয়েছে সরস্বতী দাস বাপুর আশ্রম।
জনশ্রুতি আছে পাণ্ডবেরা বনবাসে এসে এখানে বাণেশ্বর শিবলিঙ্গ প্রতিষ্ঠা করেছিলেন, স্থানীয়দের কাছে যা বাণেজ তীর্থক্ষেত্র হিসাবেই পরিচিত। বর্তমানে উদাসীন আখড়ার একমাত্র আশ্রমিক এই ভরতদাস মহারাজ দর্শনদাস। জুনাগড় লোকসভা কেন্দ্র শুধু নয়, গোটা দেশের তিনিই একমাত্র নাগরিক, যাঁর ভোটের ব্যবস্থা করে দিতে থাকছে গোটা একটি বুথ। অরণ্যচারী ওই ভোটার যাতে নিজের ভোটটি স্বচ্ছন্দে দিতে পারেন, তার জন্য সব রকমের ব্যবস্থা করে নির্বাচন কমিশন।
স্বরসতী দাস বাপুর আশ্রমের মন্দির চত্বর তো বটেই, অরণ্যের ওই গোটা অংশে দর্শনার্থীদের রাত্রিযাপনে রয়েছে কড়া নিষেধাজ্ঞা।
এই আশ্রমের একমাত্র আশ্রমিক ভরতদাসের ভোটের বন্দোবস্ত করতেই কয়েকজন বনকর্মীকে সঙ্গে নিয়ে উনা থেকে প্রায় ৩৫ কিলোমিটার দূরে উজিয়ে এসেছেন ছয় ভোট কর্মী। শেষ পাঁচ কিলোমিটার হেঁটেই আসতে হবে এখানে।আশ্রম চত্বরে বানানো হয়েছে ভোট কেন্দ্র। সকাল সকালই নিজের ভোটটি দিয়েছেন ভরতদাস।
২০০৪ সাল থেকে শুরু হয়েছে এই ব্যবস্থা। ২০০৯-র লোকসভা ভোট ও ২০০৭ ও ২০১২ সালের বিধানসভা ভোটেও এ ভাবেই ভোট দিয়েছেন ভরতদাস।
এক জনের ভোটারের জন্য কেন এত আয়োজন জানতে চাইলে স্থানীয় জেলা প্রশাসনের এক কর্মকর্তা বলেন, কোনও ভোটারের বাড়ি থেকে তাঁর নিকটতম বুথের সর্বাধিক দূরত্ব হতে পারে দুই কিলোমিটার। কিন্তু ভরতদাসের আশ্রম থেকে সব চেয়ে কাছের বুথটি প্রায় ২৫ কিলোমিটার দূরে। জঙ্গলের ঠিক বাইরে সেটি। তাই কমিশনই তাঁর কাছে পৌঁছনোর সিদ্ধান্ত নিয়েছে।
আর যার জন্যে এতো আয়েজন সেই ভরতদাস বলেন, এই ঘন জঙ্গলে ভোটের অধিকারটুকু ছাড়া আমার আর কী-ই বা আছে? ভাল লাগে যে, শুধু আমার জন্যই এখানে আস্ত একটা বুথ তৈরি হয়। এটাই আমার গুপ্তধন।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ