• শনিবার, ২৫ জুন ২০২২, ০৫:০৪ পূর্বাহ্ন |

রওশনের ফাঁদে এরশাদের পা

Arsadসিসি নিউজ: “রথযাত্রা, লোকারণ্য, মহা ধুমধাম…/ ভক্তেরা লুটায়ে পথে করিছে প্রণাম, পথ ভাবে ‘আমি দেব’, রথ ভাবে ‘আমি’/ মূর্তি ভাবে ‘আমি দেব’… হাসে অন্তর্যামী”। রবীন্দ্র নাথ ঠাকুরের এ কবিতা জাতীয় পার্টির রাজনীতিতে এখন ভীষণভাবে উপস্থিত। কার নেতৃত্বে জাতীয় পার্টি চলছে তা নিয়ে ধান্দায় পড়ে গেছেন দলের নেতাকর্মীরা। কেন্দ্র থেকে শুরু করে শেকড় পর্যায়ে একই অবস্থা। নেতাকর্মীরা বুঝতে পারছেন না তাদের প্রকৃত নেতা কে। নেতৃত্ব নিয়ে টানাটানির কারণে উপজেলা নির্বাচনে ভোটাররা দলটিকে ‘না’ করে দিয়েছে। সাবেক প্রেসিডেন্ট এইচএম এরশাদ দাবি করেন তিনিই দলের সর্বেসর্বা। যতদিন বেঁচে থাকবেন তাঁর নেতৃত্বে দল চলবে। রওশন এরশাদ দাবি করেন তিনি নেতা হিসেবে দলকে সরকার ও বিরোধী দলে নিয়েছেন। এমপিরা তার সঙ্গে রয়েছেন। দু’দিকে খেলে রুহুল আমিন হাওলাদার ছিঁটকে পড়লেও জিয়াউদ্দিন বাবলু মনে করেন তিনিই দল চালাচ্ছেন। সরকারের শীর্ষ নেতৃত্বের আশীর্বাদের হাত তার মাথায়। ব্যারিস্টার আনিসুল ইসলাম মাহমুদও মনে করেন তিনি রাজীব গান্ধীর বন্ধু। কংগ্রেস নেত্রী সোনিয়া গান্ধী স্বামীর বন্ধুকে যথেষ্ট সমাদর করেন। ওই সুতো ব্যবহার করে তিনি আওয়ামী লীগের সঙ্গে সমঝোতার নির্বাচন এবং জাতীয় পার্টিকে বিরোধী দল হওয়ার গৌরব এনে দিয়েছেন। অতএব তিনিই নেতা। সুনীল শুভ রায় মনে করেন এরশাদ তার কথার বাইরে এক পাঁ নড়েন না। কাজেই তিনিই দলের তাত্ত্বিক নেতা। কবির কবিতায় পথ, রথ, মূর্তির কা-কারখানা দেখে অন্তর্যামী হাসলেও জাতীয় পার্টির এই সব নেতার কা-কারাখানা দেখে দলের নেতাকর্মীরা যেমন হাসছেন। তেমনি দেশের সুশীল সমাজ, রাজনীতি সচেতন সাধারণ মানুষ হাসাহাসি করেন। আসলে জাতীয় পার্টির নেতা কে? কার নেতৃত্বে দলটি চলছে? মিলিয়ন ডলারের এ প্রশ্নের উত্তর খোঁজার চেষ্টা করছেন দলের নেতাকর্মীরা। উত্তর তারা মেলাতে পারছেন না।
জাতীয় পার্টি মানে এরশাদ আবার এরশাদ মনেই জাতীয় পার্টি। এক সময় দলটিতে এ বাস্তবতা থাকলেও বর্তমানে সেটা নেই। কিছু হিপোক্রেসী কর্মকা-, ব্যক্তিগত কর্মকা- আর সকাল-বিকেল সিদ্ধান্ত পরিবর্তনের কারণে জাতীয় পার্টির নিয়ন্ত্রণ এখন এককভাবে এরশাদের হাতে নেই। তবে সুবিধাবাদী কয়েকজন এমপি ছাড়া এখনো দলের সর্বস্তরের নেতাকর্মী এরশাদকে নেতা মেনে রাজনীতি করতে উদগ্রীব। কিন্তু জেল ভীতির কারণে ঘন ঘন সিদ্ধান্ত পরিবর্তন করায় এরশাদের রাজনৈতিক ভবিষ্যতের লাটাই স্ত্রী রওশন এরশাদ-আনিস-বাবলুর হাতে চলে গেছে। তারা ইচ্ছেমতো দল চালাচ্ছেন, ঘুড়ির মতো এরশাদকে ঘোড়াচ্ছেন। আগামী জাতীয় কাউন্সিলের মাধ্যমে এরশাদকে দল থেকে মাইনাস করে দলের নেতৃত্ব যাতে রওশন এরশাদের হাতে চলে যায় সে নীল-নকশা করে ফাঁদ পেতেছেন রওশন এরশাদ। রওশনের সেই ফাঁদে পা দিয়েছেন সাবেক প্রেসিডেন্ট এরশাদ। ৫ জানুয়ারীর বিতর্কিত নির্বাচন বর্জন করার ঘোষণা দেয়ায় এরশাদকে বাগে আনতে ‘অসুস্থ নাটক’ করে সিএমএইচএ নেয়া হয়। এ নীল-নকশা ছিল স্ত্রী রওশনের। এখন মামলা দিয়ে এরশাদকে জাতীয় পার্টি থেকে মাইনাস করা হবে। কয়েক মাস পর জাতীয় কাউন্সিলের মাধ্যমে এরশাদকে দলের ‘প্রতিষ্ঠাতা উপদেষ্টা’ করে দলের নেতৃত্ব রওশন এরশাদের হাতে তুলে দেয়ার নকশা চূড়ান্ত করা হয়েছে। হাওলাদারকে বাদ দিয়ে মহাসচিব পদে জিয়াউদ্দিন আহমদ বাবলুকে বসানোর ওই নকশার প্রথম অগ্রগতি। সরকারের আশীর্বাদে আনপ্রেডিক্টেবল এরশাদকে জাতীয় কাউন্সিলের আগে ‘তালমাতাল’ করে দিতে পরিকল্পিতভাবে নানা ইস্যুর সৃষ্টি করে এরশাদকে অস্থির করে রাখা হবে। (উল্লেখ্য ভোটের সময় আটক এরশাদকে পাগল বানানোর চেষ্টা হয়েছিল বলে দলের নেতাকর্মীরা অভিযোগ তুলেছিলেন)। কেউ কেউ মনে করছেন তারই অংশ হিসেবে মঞ্জুর হত্যা মামলার রায় পিছিয়ে দেয়া হয়। দ্বিতীয়তঃ এরশাদ পদত্যাগ করছেন এমন গুজব ছড়িয়ে দিয়ে অনলাইন মিডিয়ায় রিপোর্ট করানো হয়। সে রিপোর্ট সি-িকেটের মাধ্যমে প্রচার করা হয়। যদিও সাবেক প্রেসিডেন্ট হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ পদত্যাগের গুজব উড়িয়ে দিয়ে বলেছেন, ‘আই অ্যাম দ্য সুপ্রিম অথরিটি, আমি কার কাছে পদত্যাগ করবো? কে সেই বীর পুরুষ? আজীবন আমি দলের নেতৃত্ব দেব।’ মুখে এরশাদ যতই এ দাবি করুক না কেন বাস্তব পরিস্থিতি এতো সহজ নয়। সূত্রের দাবি আগামী ডিসেম্বরে জাতীয় কাউন্সিলের মাধ্যমে এরশাদের নেতৃত্ব ‘ছিনতাই’ করা হবে। আর এতে যাতে এরশাদ কোনো বাঁধা হয়ে দাঁড়াতে না পারেন সে জন্য এরশাদপ্রেমী দলের নেতাকর্মীদের বোঝানো হবে সাবেক প্রেসিডেন্ট দলের নেতৃত্ব দেয়ার অবস্থায় নেই। তাই বিকল্প নেতৃত্ব দিতে রওশন এরশাদকে বেঁছে নিতে হচ্ছে।
জাতীয় পার্টির কেন্দ্র থেকে শুরু করে তৃণমূলের নেতাকর্মীদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে ৫ জানুয়ারীর নির্বাচন বর্জনের এরশাদের ঘোষণা ভালভাবে নেননি সরকার। ভারতের পররাষ্ট্র সচিব সুজাতা সিংয়ের সঙ্গে এরশাদের বৈঠকের ‘কথাবার্তা’ জনসন্মুখে প্রকাশ করার ঘটনা মেনে নিতে পারেনি দিল্লীর সাউথ ব্লক। আর সংসদের বিরোধী দলীয় নেতা হওয়ার পর রওশন এরশাদ ময়মনসিংহ সফরে যাওয়ার সময় বিরোধী দলীয় নেতার পতাকার পাশাপাশি গাড়ীতে দলীয় চেয়ারম্যানের পতাকা ব্যবহার করার পর এরশাদের বিক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া মেনে নিতে পারেননি। অভিযোগ রয়েছে এসব কারণে দিল্লীর সাউথ ব্লক, সরকার এবং স্ত্রী রওশন তিনপক্ষ একজোট হয়ে জাতীয় পার্টির নেতৃত্ব থেকে এরশাদকে মাইনাস করার দীর্ঘমেয়াদী কৌশল চলছে। এ জন্যই প্রথমে মহাসচিব পদে রদবদল ঘটিয়ে দিল্লীর সাউথ ব্লক ও সরকারের অনুগত জিয়াউদ্দিন আহমদ বাবলুকে জাতীয় পার্টির মহাসচিব করা হয়। রওশনের অনিচ্ছায় ইমানুয়েল কনভেনশন সেন্টারে এরশাদ আয়োজিত মতবিনিময় সভায় এমপিরা কেউ যাননি। তবে সম্প্রতি গুলশানের স্পেকট্রা কনভেনশন সেন্টারে এরশাদ আয়োজিত পার্টির প্রেসিডিয়াম ও এমপিদের যৌথ সভায় সকলেই উপস্থিত হন। এখানেই এরশাদকে প্রথম ধাক্কা দেয়া হয়। দলের বেশ কয়েকজন নেতা জানান, বিদেশী একটি সংস্থার চাপ আর কিছু ব্যক্তিগত কর্মকা-ের কারণে কর্মচারী কাম হঠাৎ নেতা শুনীল শুভ রায়কে এরশাদ ছাড়তে পারছেন না। দলের সিনিয়র নেতাদের মতামতের চেয়ে শুনীলের কথায় গুরুত্ব দেন বেশি। কর্মচারী কাম হঠাৎ নেতার মতামতকে গুরুত্ব দেয়ার গোপন রহস্য রওশন এরশাদসহ দলের সব নেতাকর্মীই জানেন। এ জন্য গৃহপালিত বিরোধী দলীয় নেতা রওশন এরশাদ স্বামী এরশাদের ওপর বেজায় ক্ষিপ্ত। আগেও তিনি এ নিয়ে কথা বলেছেন। কাজ না হওয়ায় এরশাদের খবর জানতে বিশেষ ব্যবস্থা গ্রহণ করেন তিনি। পৃথক পৃথক বাসায় থাকার পরও স্ত্রী রওশন স্বামী এরশাদের নিত্যদিনের কর্মকা-ের খোঁজ-খবর পেয়ে যান। এরশাদ বাথরুমে গেলেও সঙ্গে সঙ্গে রওশনকে ফোন করে তা জানিয়ে দেয়া হয়। নীল-নকশা অনুযায়ী স্পেকট্রা কনভেনশন সেন্টারের সভায় রওশন এরশাদসহ বেশ কয়েকজন নেতা এরশাদকে উদ্দেশ্য করে আক্রমণাত্মক বক্তব্য দেন। রওশন এরশাদ ব্যক্তিগত কর্মচারী কাম হঠাৎ নেতার প্রতি এরশাদের কেন এতো দরদ তা জানতে চান। (উল্লেখ ৫ জানুয়ারীর বিতর্কিত নির্বাচনে এরশাদের নির্দেশ অমান্য করে কর্মচারী কাম হঠাৎ নেতা খুলনার দাকোপ বাটিয়াঘাটা আসন থেকে প্রার্থী হয়েছিলেন। বিদেশী একটি গোয়েন্দা সংস্থার মাধ্যমে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় বিজয় নিশ্চিত করার পর রওশন এরশাদের বিরোধিতার কারণে সে আসনে ইসি ভোট গ্রহণে বাধ্য হয়)। সোহেল রানাকে আক্রমণ করেন রওশন এরশাদ। তিনিও পাল্টা জবাব দেন। তিনি বুঝিয়ে দেন যে মহাসচিব বাবলুর চেয়ে তার (সোহেল রানা) রাজনৈতিক অভিজ্ঞতা অনেক বেশি। স্ত্রীর এমন আক্রমণাত্মক বক্তব্য এবং উপস্থিত অধিকাংশ নেতা তার সমর্থন করায় এরশাদ কিংকর্তব্যবিমূঢ় হয়ে পড়েন। রাগে, ক্ষোভে তিনি অস্থির হয়ে পড়েন। নিজে নিজে বিড় বিড় করে বলতে থাকেন পদত্যাগ করবো। অবশ্য কেউ কেউ বলছেন এরশাদ পদত্যাগ করেছিলেন। কিন্তু কারা কাছে তিনি পদত্যাগ করেছিলেন তা অস্পষ্ট। টাকার বিনিময়ে যারা স্ত্রী রওশন এরশাদকে স্বামী সাবেক প্রেসিডেন্ট এরশাদের ২৪ ঘন্টা কর্মকা-ের তথ্য পাচার করে দেন তারা বিষয়টি যথাযথভাবে জানিয়ে দেন। (একই কৌশল করতেন হাওলাদারও। এরশাদ কি ধরনের কাপড় পরে বের হচ্ছেন জানার পর হাওলাদারও সেই ধরনের কাপড় পরিধান করে বের হতেন) আর যায় কোথায়। অনলাইনের সাংবাদিককে ফোন করে এরশাদের পদত্যাগের গুজব ছড়িয়ে দেয়া হয়। শুরু হয় এরশাদের পদত্যাগের গুঞ্জন। তবে সূত্রের দাবি এরশাদকে জাতীয় পার্টি থেকে মাইনাস করার পরিকল্পনা অব্যাহত রয়েছে। জাতীয় কাউন্সিলে সেটা সফল করতে আরো কয়েক দফায় এরশাদকে মানসিকভাবে দুর্বল করতে নাটকের অবতারণা করা হবে। পাশাপাশি মামলার চাপতো রয়েছেই। রওশনপন্থীরা মনে করেন পরিস্থিতি এমন পর্যায়ে নেয়া হবে তাতে করে দুর্বল চিত্তের এরশাদ নিজেই চেয়ারম্যান পদ থেকে সরে যাওয়ার প্রস্তাব দিতে বাধ্য হবেন।
‘শৈবাল দীঘিরে বলে উচ্চ করি শির/ লিখে রেখো, এক ফোঁটা দিলেম শিশির’ প্রবাদের মতো অবস্থা হয়েছে এরশাদ আর তার স্ত্রী রওশন এরশাদের। জাতীয় পার্টির এ অবস্থা আনার পিছনে এরশাদের একক কৃতিত্ব। দলের কেন্দ্র থেকে শুরু করে শেকড়ের নেতারা এরশাদ বলতে পাগল। রওশন এরশাদকে রাজনীতিতে এনেছেন এরশাদ। তিনিই স্ত্রীকে কয়েক দফায় এমপি, মন্ত্রী করেছেন। সেই রওশন শৈবালের মতো দীঘিরে (এরশাদ) বড়াই করে বলছেন, আমিই সব তুমি নও। বিদেশী গোয়েন্দা সংস্থা, সরকারকে ব্যবহার করে এরশাদের নেতৃত্বের প্রতি চ্যালেঞ্জ ছুঁড়ে দিয়েছেন। জাতীয় পার্টির নেতাদের মতে এরশাদ ব্যক্তিগত কিছু দুর্বলতার কারণে তাকে ঘিরে রাখা সুবিধাবাদী নেতা-কর্মচারীদের বিতাড়িত করতে পারছেন না। দলের নেতাকর্মীরা ওই সব কর্মচারী ও সুবিধাবাদী ধুরন্ধর ব্যাক্তিদের পছন্দ করেন না। সে সুযোগ নিচ্ছেন রওশন এরশাদ। তবে জাতীয় পার্টির প্রেসিডিয়ামের কয়েকজন সদস্য জানান, তারা মনে করেন এরশাদ এখনো জাতীয় পার্টিতে অপ্রতিদ্বন্দ্বী। ষড়যন্ত্র যতই হোক এরশাদ যদি সিন্ডিকেট করা কয়েকজন কর্মচারী ও নেতাকে দূরে সরিয়ে রেখে, সংসদ সদস্যদের প্রত্যাখ্যান করে নিজের পায়ে দাঁড়িয়ে জনগণের কাতারে সামিল হন; তাহলে তিনি হারানো ইমেজ ফিরে পাবেন। দল তার নিয়ন্ত্রণ থেকে কেউ ছিনতাই করতে পারবে না। আর যদি এমপিরা আমার সঙ্গে থাকবে না এ ভয়ে নিজেকে গুটিয়ে নেন এবং সুবিধাভোগীদের মতো সুবিধা নিয়ে দলের নেতৃত্ব নিয়ে ‘নাটক নাটক’ খেলেন তাহলে জাতীয় কাউন্সিলে দলের চেয়ারম্যান পদ থেকে এরশাদের বিদায় অবধারিত।
উৎসঃ   ইনকিলাব


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ