• সোমবার, ২৭ জুন ২০২২, ০৬:১৬ পূর্বাহ্ন |
শিরোনাম :
পদ্মা সেতুর রেলিংয়ের নাট খোলা বায়েজিদ আটক নীলফামারী জেলা শিক্ষা অফিসার শফিকুল ইসলামের শ্বশুড়ের ইন্তেকাল সৈয়দপুর সরকারি বিজ্ঞান কলেজের গ্রন্থাগারের মূল্যবান বইপত্র গোপনে বিক্রি ফেনসিডিলসহ সেচ্ছাসেবক লীগের নেতা গ্রেপ্তার এ সেতু আমাদের অহংকার, আমাদের গর্ব: প্রধানমন্ত্রী বাংলাদেশ-ভারতে রেল যোগাযোগ বন্ধ থাকবে ৮ দিন পদ্মা সেতুর উদ্বোধন বাংলাদেশের জন্য এক গৌরবোজ্জ্বল ঐতিহাসিক দিন: প্রধানমন্ত্রী পদ্মা সেতুর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে যেতে মানতে হবে যেসব নির্দেশনা সৈয়দপুরে বিস্কুট দেয়ার প্রলোভনে শিশুকে ধর্ষণের অভিযোগ গণমানুষের সমর্থনেই পদ্মা সেতু নির্মাণ সম্ভব হয়েছে: প্রধানমন্ত্রী

কাপ্তাই হ্রদে মাছ শিকার বন্ধ

timthumb.phpরাঙ্গামাটি: কাপ্তাই হ্রদে মাছের সুষ্ঠু প্রজনন, বংশ বৃদ্ধি, মজুদ এবং ভারসাম্য রক্ষার স্বার্থে আজ বৃহস্পতিবার রাত ১২টা থেকে কাপ্তাই হ্রদ এলাকায় সকল প্রকার মাছ ধরা, সংরক্ষণ, বাজারজাতকরণ, মাছ শুকানো এবং পরিবহণ নিষিদ্ধ ঘোষণা করেছে রাঙ্গামাটি জেলা প্রশাসন। পরবর্তী নির্দেশ না দেয়া পর্যন্ত এ নিষেধাজ্ঞা কার্যকর থাকবে। রাঙ্গামাটির জেলা প্রশাসক মোঃ মোস্তফা কামাল নির্বাহী ক্ষমতায় স্বাক্ষরিত এক বিজ্ঞপ্তিতে এ আদেশ দেয়া হয়। মাছের প্রাকৃতিক প্রজননের স্বার্থে প্রতিবছর এ প্রজনন মৌসুমে কাপ্তাই হ্রদে মাছ শিকারের ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হয়। সাধারণত এ নিষেধাজ্ঞা তিন থেকে সাড়ে ৩ মাস পর্যন্ত বলবৎ থাকে। রবিবার এ সংক্রান্ত কমিটির এক সভায় মাছ শিকার বন্ধের নিষেধাজ্ঞার বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।
জেলা প্রশাসনের আদেশে বলা হয়, বৃহস্পতিবার রাত বারোটার আগে ধৃত মাছ পরবর্তী ১৪ ঘণ্টার মধ্যে পরিবহন সম্পন্ন করতে হবে। কেবল শুটকি মাছ পরবর্তী ৩ দিনের মধ্যে অর্থাৎ আগামী ৪ মে সন্ধ্যা ছয়টার মধ্যে পরিবহন সম্পন্ন করতে হবে। নিষেধাজ্ঞা চলাকালীন সময়ে জেলায় সকল প্রকার বরফ কল বন্ধ থাকবে। এছাড়া নির্ধারিত অভয়াশ্রমসমূহে সব সময়ের জন্য মাছ ধরা পূর্বের মতোই বন্ধ থাকবে। প্রশাসন সূত্র জানায়, এ বছর কিছুটা আগেভাগেই হ্রদের পানি কমে যাওয়ায় শিকারীদের হাত থেকে ডিমওয়ালা মাছ রক্ষার স্বার্থে মাছ শিকারের ওপর নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়। এই মৌসুমে হ্রদে যে পরিমাণ পানি থাকার কথা সে পরিমাণ পানি নেই।
রাঙ্গামাটির জেলা প্রশাসক মোঃ মোস্তফা কামাল বলেন, এ বছর মাছ পাচার রোধে প্রশাসন থেকে কড়া নজর রাখা হবে। নিয়মানুযায়ী এবছরও মাছ শিকারের ওপর নির্ভরশীল জেলে পরিবারগুলোকে প্রতিমাসে ২০ কেজি করে ভিজিএফ চাল দেওয়া হবে, তবে ইতোমধ্যে নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্য সামগ্রীর দাম বৃদ্ধি পাওয়ায় এ বছর তা বাড়ানোর চেষ্টা করা হবে।
প্রসঙ্গত মাছ শিকার নিষিদ্ধকালীন মৌসুমে জেলে পরিবারগুলোর খাদ্য সহায়তার জন্য দেয়া ভিজিএফ চাল বিতরণ নিয়ে জটিলতা এড়াতে ইতোমধ্যে জেলার বিভিন্ন উপজেলায় প্রকৃত জেলেদের তালিকা তৈরি ও তাদের ছবিসহ পরিচয়পত্র প্রণয়নের কাজ চলছে। এখনো পরিচয়পত্র প্রদান করা না হলেও জেলেদের প্রকৃত সংখ্যা মৎস্য বিভাগে রয়েছে। এতে অনাহুত সমস্যা থেকে মুক্তি পাওয়া যাবে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ