• শনিবার, ০২ জুলাই ২০২২, ০২:১৬ পূর্বাহ্ন |

গিদারী নদীর প্রবেশ মুখে ভারতের বাঁধ

75232_1সিসি ডেস্ক: লালমনিরহাটের উপর দিয়ে প্রবহমান তিস্তা নদীর উজানে ভারতের গজলডোবা বাঁধ নির্মাণ ও একতরফা পানি প্রত্যাহারের কারণে বাংলাদেশের এক সময়ের খরস্রোতা তিস্তা এখন মৃতপ্রায়। আর এর বিরূপ প্রভাব পড়েছে গোটা উত্তরবঙ্গে।

এবার ভারত শুরু করেছে গিদারী নদীর প্রবেশপথে আরেকটি বাঁধ নির্মাণের কাজ, যা মরণফাঁদ হয়েছে ধরা দিয়েছে লালমনিরহাটের আদিতমারী উপজেলার দুর্গাপুর ইউনিয়নের তিনটি গ্রামের ছয় হাজারেরও বেশি মানুষের ভাগ্যে।

সরেজমিনে দেখা গেছে, ভারতের সিংগীমারী নদী বাংলাদেশ অংশে ধরলা নাম নিয়ে লালমনিরহাট জেলার উপর দিয়ে প্রবাহিত হয়েছে। যৌথ নদী রক্ষা আইন অমান্য করে ধরলার শাখা গিদারী নদীর মুখে বাঁধ নির্মাণের কাজ শুরু করেছে ভারত। ৬০০ ফুট দৈর্ঘ্য ও ৩০ ফুট উচ্চতার নির্মাণাধীন এই বাঁধের কাজ সম্পন্ন হলে পানির স্বাভাবিক গতিপ্রবাহ বন্ধ হয়ে শুষ্ক মৌসুমে গিদারী নদী হারাবে তার নাব্যতা, শুরু হবে নদীভাঙন, ব্যাহত হবে কৃষিকাজ।

আর বর্ষা মৌসুমে পানি ফুলে-ফেঁপে গিদারীর দুই কূল ছাপিয়ে দেখা দেবে অকাল বন্যা যা রূপ নিতে পারে স্থায়ী জলাবদ্ধতায়। ফলে হুমকির মুখে পড়বে লালমনিরহাট সদর উপজেলার দুর্গাপুর ইউনিয়নের বানিয়াটারী, কুঠিবাড়ী ও নামাটারী গ্রামের ছয় সহশ্রাধিক মানুষ ও চার হাজার একর আবাদী জমি।

সীমান্ত এলাকার কৃষক হারুন, রবিউল ইসলাম, মতিয়ার রহমান জানান, ভারতের কোচবিহার জেলার দিনহাটা মহকুমার দড়িবাস গ্রামের দুই শতাধিক পরিবারকে বন্যার কবল থেকে রক্ষা ও কৃষিকাজের সুবিধার জন্য গ্রামটির উপর দিয়ে প্রবহমান সিংগীমারী নদী থেকে বাংলাদেশের গিদারী নদীর প্রবেশ মুখের ভাটিতে বাঁধটি নির্মাণ করছে ভারত।

বাঁধটি নির্মাণের কাজ শুরু করার কারণে এলাকাবাসীর মধ্যে ব্যাপক ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে। গ্রামবাসীদের মধ্যে বিরাজ করছে চরম উত্তেজনা।

বিজিবির রংপুর সেক্টর কমান্ডার কর্নেল জুলফিকার আলী ও ১৫ বিজিবির অধিনাযক ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে এই বিষয়ে স্থানীয়দের সঙ্গে কথা বলেছেন।

উৎসঃ   নতুন বার্তা


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ