• বুধবার, ২৯ জুন ২০২২, ১০:৪৩ অপরাহ্ন |
শিরোনাম :
বাড়ি ফিরে ভাইয়ের মৃত্যুর খবর পেলেন বাংলাদেশের ফুটবলার শিক্ষকের মামলায় রাবির বহিষ্কৃত সেই শিক্ষার্থী গ্রেপ্তার নিজ আসন থেকে উঠে এসে রওশনের সঙ্গে কথা বললেন প্রধানমন্ত্রী গ্রামীণফোনের সিম বিক্রি নিষিদ্ধ করেছে বিটিআরসি শিক্ষককে পিটিয়ে হত্যা: প্রধান আসামি জিতু গ্রেপ্তার সৈয়দপুরে কিশোরী ধর্ষণের ঘটনায় বিজিবি সদস্যকে আত্মসমর্পণের নির্দেশ শ্রেণিকক্ষে রাবি শিক্ষিকাকে মারতে গেলেন ছাত্র! অর্থ হাতিয়ে নেওয়ার অভিযােগ এনজিও’র দুই কর্মকর্তা গ্রেফতার জলঢাকায় মাদকদ্রব্যের অপব্যবহার রোধকল্পে সমন্বিত কর্মপরিকল্পনা প্রণয়নে কর্মশালা ইউনূস, হিলারি ও চেরি ব্লেয়ারের ওপর নিষেধাজ্ঞা দেওয়ার দাবি সংসদে

মধ্যপাড়া কঠিন শিলা প্রকল্প থেকে পাথর উত্তোলন বন্ধ

Silaমোঃ আফজাল হোসেন, ফুলবাড়ী (দিনাজপর): দেশের উত্তরাঞ্চলের একমাত্র দিনাজপুরের পার্বতীপুর উপজেলার মধ্যপাড়া কঠিন শিলা প্রকল্পটি। গত ১৫ বছর ধরে খুড়িয়ে খুড়িয়ে চলতে থাকলেও লাভের মুখ দেখতে পায়নি প্রকল্পটি। পর্যাপ্ত পরিমাণে পাথর উত্তোলন হচ্ছে না। কোটি কোটি টাকার হারাচ্ছে সরকার। মধ্যপাড়া কঠিন শীলা প্রকল্পটি বাস্তবায়নের শুরু থেকে উত্তর কোরিয়ার নাম নাম কোম্পানী উৎপাদনের দায়িত্ব নেন। উৎপাদন শুরু করলেও ভূগর্ভের নীচে পাথর উঠানোর যন্ত্রপাতি ছিল অতি পুরাতন। উন্নত বিশ্বের অন্যান্য দেশের খনিগুলিতে যখন অত্যাধনিক যন্ত্রপাতি ব্যবহার করা হচ্ছিল তখন ঐ কোম্পানিটি অতি পুরাতন যন্ত্রপাতি ভূগর্ভের নীচে ব্যবহার করে ১ হাজার থেকে ১২শত মেট্রিক টন ১২শত থেকে ১৭শত মেট্রিক টন পাথর উত্তোলন করত।  কিন্তু দেশের উন্নয়ন কাজে পাথরের পরিমান এত বেড়ে যায় যে, মধ্যপাড়া কঠিন শীলা প্রকল্প থেকে সরবরাহ করা সম্ভব ছিল না। ধীরে ধীরে উৎপাদন কমে যাওয়ায় পাথর ক্রেতা ঠিকাদারেরা উল্টো ভারত থেকে কম দামে পাথর ক্রয় করা শুরু করে। এরই মধ্যে ২ হাজার ১৩ সালের আগষ্ট মাসে  কোরিয়ান কোম্পানী চলে যায়। খনিটি অব্যাহত লোকশানের মুখে বন্ধ হওয়ার উপক্রম হওয়ায় কঠিন শিলা খনিটি বাচানোর জন্য ৬বছরের জন্য খনির উৎপাদন এবং রনা বেনের দায়িত্ব দেওয়া হয় বেলারুসের (জেএসসি) ট্রেস্ট সকটোষ্ট্রয় ও দেশীয় প্রতিষ্ঠান জার্মানীয়া কর্পোরেশন লিঃ নিয়ে গঠিত জার্মানীয় টেষ্ট কনসোর্টিয়াম-জিটিসিকে গত বছরের ২রা সেপ্টেম্বর ১ হাজার ৪ শত কোটি টাকার একটি চুক্তি স্বারিত হয়। ২০১৪ সালের চলতি বছরের ২০ শে ফেব্র“য়ারী এই নতুন কোম্পানিটি খনির পরিচালানার দায়িত্ব গ্রহণ করেন। এত দিন বাংলাদেশ পেট্রো বাংলা এই খনিটির পরিচালনা করে আসছিল। এ দিকে খনিতে ডিটোনেটর সংকট দেখা দেওয়ায় ভূগর্ভ থেকে পাথর উত্তোলন করতে পারছে না বলে জানান ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান জিটিসি। চলতি বছরের ১৩ এপ্রিল ডিটোনেটর শেষ হয়ে যায়। খনির উৎপাদন বন্ধ রেখে জিটিসি খনির রণাবেণের কাজ শুরু করে। এদিকে প্রাপ্ত তথ্যের সূত্র থেকে জানা যায়, সরকারি ব্যবস্থাপনায় বিদেশ থেকে ডিটোনেটর (ডিনামাইন) আনতে অনেক সময়ের প্রয়োজন। সেজন্য কোম্পানিটি ভারত থেকে ডিটোনেটর (ডিনামাইন) আনার উদ্যোগ গ্রহণ করেন। অপর দিকে মধ্যপাড়া গ্রাণাইট মাইনিং কোম্পানী লিঃ এর (এমজিএমসিএল) ব্যবস্থাপনা পরিচালক সৈয়দ আবুল ফজল নাজমুল আহসান হায়দার পাথর উৎপাদন বন্ধ থাকার বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, ২৭ এপ্রিলের মধ্যে ভারত থেকে বিস্ফোরক খনিতে পৌঁছানোর কথা। রণাবেণের কাজ শেষ করে উৎপাদনে যেতে আরও প্রায় চলতি মাসের ১৫ দিন সময় লাগতে পারে বলে তিনি জানান। জিটিসি কোম্পানীটি খনির দায়িত্ব নেওয়ার পর রণাবেণের কাজে বিপুল পরিমাণ অর্থ ব্যয় করার পর এখন পর্যন্ত তারা উৎপাদনে কেন যেতে পারছে না তা রহস্যজনক। অপরদিকে তারা বলছে উন্নত প্রযুক্তির যন্ত্রপাতি আনার পরে খনির উৎপাদন পুরোদমে শুরু হবে। আসলে কোনটি ঠিক এই নিয়ে স্থানীয় প্রশাসন ও খনির শ্রমিকদের মধ্যে নানারকম জল্পনা কল্পনার সৃষ্টি হয়েছে। এখন কোম্পানীটি যেভাবে চলছে তাতে গত কয়েক মাসে প্রায় ১০০ কোটি টাকার তি হয়েছে সরকারের। বর্তমান খনি থেকে ৫০০ থেকে ৭০০ মেঃ টন পাথর উত্তোলন হচ্ছে। এভাবে চলতে থাকলে মধ্যপাড়া কঠিন শিলা প্রকল্পটি কোনদিন লাভের মুখ দেখবে না।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ