• শনিবার, ২৫ জুন ২০২২, ১১:০৭ পূর্বাহ্ন |

অভিভাবকহীন গ্রামীণ ব্যাংক

Greemen Bankঅর্থ-বাণিজ্য ডেস্ক: গ্রামীণ ব্যাংক নিয়ে শুরু হয়েছে নতুন নাটক। সরকার বলছে, চেয়ারম্যান খন্দকার মোজাম্মেল হকই এর অভিভাবক। কিন্তু চেয়ারম্যান বলছেন, তিনি পদত্যাগ করেছেন। গ্রামীণ ব্যাংক সম্পর্কে কোনো খোঁজখবরও রাখেন না। আবার পরিচালকরা বলছেন, খন্দকার মোজাম্মেল হক জানুয়ারি মাসেও বোর্ড সভা করেছেন। তবে ব্যাংক নিয়ন্ত্রণমূলক কার্যক্রম ভারপ্রাপ্ত এমডিকে দিয়ে চালানো হচ্ছে। আর এ নাটকের কারণে অভিভাবকহীন গ্রামীণ ব্যাংকে প্রশাসন এবং কর্মচারীদের মধ্যে ফাটল ধরছে। কর্মচারী সমিতিসহ মাঠ পর্যায়ের কিছু লোক প্রশাসনের কথা মানছে না বলেও অভিযোগ উঠেছে। পাশাপাশি বিধিমালা জারির ছয় মাসের মধ্যে নির্বাচনের বিষয়ে বর্তমান পরিচালনা পর্ষদ আন্দোলনের প্রস্তুতি নিয়ে ব্যস্ত থাকায় ব্যাংকটিতে এক ধরনের হ-য-ব-র-ল অবস্থা বিরাজ করছে।

এসব বিষয়ে যোগাযোগ করা হলে গ্রামীণ ব্যাংকের চেয়ারম্যান খন্দকার মোজাম্মেল হক নিজেকে গ্রামীণ ব্যাংকের চেয়ারম্যান বলতে নারাজ। তিনি আলোকিত বাংলাদেশকে বলেন, আমি গ্রামীণ ব্যাংকের চেয়ারম্যান পদ থেকে পদত্যাগ করেছি। এখন আর আমি গ্রামীণ ব্যাংক সম্পর্কে কোনো খোঁজখবর রাখি না। গ্রামীণ ব্যাংক থেকে কোনো সুযোগ-সুবিধাও নিচ্ছি না। আর ব্যাংক তো চালায় এমডি। আর চেয়ারম্যান লাগে বোর্ড মিটিংসহ আরও কিছু কাজের জন্য। এগুলো আমি অনুমোদন দিয়ে দিয়েছি।

সরকার এখনও আপনার পদত্যাগপত্র গ্রহণ করেনি। সে হিসেবে আপনিই তো গ্রামীণ ব্যাংকের চেয়ারম্যান_ একথা বললে তিনি বলেন, সরকার পদত্যাগপত্র গ্রহণ করেনি, সেটা সরকারের ব্যাপার। আর গ্রামীণ ব্যাংকের চেয়ারম্যান পদের জন্য লোক খোঁজা হচ্ছে। সহসাই সরকার সেটা পেয়ে যাবে।

কিন্তু আপনি তো বলেছিলেন, গ্রামীণ ব্যাংক কমিশন প্রতিবেদন না দেয়া পর্যন্ত আপনি চেয়ারম্যান থাকবেন। কিন্তু কমিশন তো এখনও পূর্ণাঙ্গ প্রতিবেদন সরকারের কাছে জমা দেয়নি_ এমন প্রশ্নের উত্তরে তিনি বলেন, কমিশন যেটা দিয়েছে সেটাই পূর্ণাঙ্গ প্রতিবেদন। এটা আর কোনো দিনও পূর্ণাঙ্গ হবে না। ওদের সময় শেষ হয়ে গেছে। ওরা একটা প্রতিবেদন দিয়েছে। তাই এটাই পূর্ণাঙ্গ প্রতিবেদন।

ওয়াশিংটন ও মেক্সিকো সফর সম্পর্কে অবহিতকরণ উপলক্ষে প্রেস ব্রিফিংয়ের পর চেয়ারম্যানের বক্তব্যের ব্যাপারে দৃষ্টি আকর্ষণ করা হলে অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত আলোকিত বাংলাদেশকে বলেন, মোজাম্মেল হক বললেই তো হবে না যে তিনি গ্রামীণ ব্যাংকের চেয়ারম্যান নন। আইন অনুযায়ী তিনিই এখনও গ্রামীণ ব্যাংকের চেয়ারম্যান। তিনি আমাকে বলেছেন, গ্রামীণ ব্যাংক কমিশন প্রতিবেদন দেয়ার আগ পর্যন্ত তিনি চেয়ারম্যান থাকবেন। এখন তিনি উল্টো কথা বললে তো হবে না।

গ্রামীণ ব্যাংক বর্তমানে কে নিয়ন্ত্রণ করছে জানতে চাইলে মন্ত্রী বলেন, ওদের (নির্বাচিত পরিচালক) শেয়ার বেশি। তাই ওরাই এখন নিয়ন্ত্রণ করছে। তবে বিধিমালা অনুযায়ী নির্বাচন হলে বোর্ডে কেউ থাকবে না। তখন সব ঠিক হয়ে যাবে।

নির্বাচন হলে বর্তমান পরিচালনা পর্ষদ ভেঙে যাবে। এটা নিয়ে কোনো ঝামেলা হবে কিনা প্রশ্ন করা হলে তিনি বলেন, ওরা (নির্বাচিত পরিচালক) ঝামেলা করলে তো ঝামেলা হবেই। তবে আমার মনে হয় না কোনো ঝামেলা হবে। আর ঝামেলা হলেও সেটা হতে দেব না।

গ্রামীণ ব্যাংক কে নিয়ন্ত্রণ করছে জানতে চাইলে ব্যাংকের নির্বাচিত পরিচালক তাহসিনা খাতুন বলেন, গ্রামীণ ব্যাংকের চেয়ারম্যান তো এরশাদের মতো আচরণ করছেন। উনি আমাদের সঙ্গে বলেন এক কথা, আর সংবাদ মাধ্যমে বলেন অন্য কথা। উনি তো জানুয়ারি মাসেও আমাদের সঙ্গে বোর্ড মিটিং করলেন। তবে এখন গ্রামীণ ব্যাংকের কার্যক্রম নিয়ন্ত্রণ করছেন ভারপ্রাপ্ত এমডি মোঃ শাহজাহান। আন্দোলনের ব্যাপারে তিনি বলেন, আমরা আন্দোলনে যাব। আলোচনা চলছে। আমাদের ব্যাংক কীভাবে রক্ষা করতে হয় তা আমরা ভালোই জানি। বিধিমালা অনুযায়ী নির্বাচন হলে দেশে অরাজকতা সৃষ্টি হবে। এটা নিয়ে সবাই শঙ্কিত। তারপরও সরকার তাদের কাজ চালিয়ে যাচ্ছে। এটা অন্যায়। এদিকে, অভিযোগ উঠেছে না-সরকার, না-ড. ইউনূস_ গ্রামীণ ব্যাংক এখন চলছে মুষ্টিমেয় কিছু লোকের দ্বারা। দুই বছর ধরে উচ্চ পর্যায়ে ১০-১২টি পদ খালি থাকলেও তা পূরণ করা হচ্ছে না। ফিল্ডে পদবি ও চেয়ার বদল হচ্ছে না। যে কারণে উচ্চপদস্থ এসব কর্মকর্তার নির্দেশ অনেক ক্ষেত্রেই কর্মচারী সমিতিসহ মাঠ পর্যায়ের লোক মানছেন না। অর্থমন্ত্রীর কাছে এ ব্যাপারে জানতে চাইলে তিনি বলেন, সমিতির ব্যাপারটা জানি না। এটা নিয়ে মাথাও ঘামাই না। ব্যাংকের নির্বাচিত পরিচালক তাহসিনা খাতুন বলেন, কিছু ঝামেলা হয়েছিল। এখন আর নেই। ব্যাংক ভালোভাবেই চলছে।

উৎসঃ   আলোকিত বাংলাদেশ


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ