• বৃহস্পতিবার, ৩০ জুন ২০২২, ০৪:১৭ পূর্বাহ্ন |

কুড়িগ্রামে এনজিও কর্মকর্তাকে অপহরণ করেছে পুলিশ

Opoসিসি ডেস্ক: পুলিশ সদস্যদের একের পর এক অপরাধের ঘটনা ফাঁস হওয়ার পর কুড়িগ্রামে পুলিশ বাহিনীতে শৃংখলা নিয়ে প্রশ্ন দেখা দিয়েছে। ফেনসিডিলসহ আসামি ধরা পড়ার পর টাকার বিনিময়ে ছেড়ে দেয়া এবং ব্যবসায়ীদের দোকানে ফেনসিডিল রেখে গ্রেফতারের চেষ্টার দুটি ঘটনায় ৩ পুলিশ কর্মকর্তাকে শাস্তিমূলক বদলি করা হয়। এর রেশ কাটতে না কাটতেই এক এনজিও কর্মকর্তাকে অপহরণ করে মুক্তিপণ দাবির পর দুই পুলিশ সদস্যকে গ্রেফতারের ঘটনায় তোলপাড় শুরু হয়েছে। এ ঘটনায় জড়িত আরও এক পুলিশ কনস্টেবল এখনও পলাতক রয়েছেন। অভিযুক্ত ৩ পুলিশ কনস্টেবলকে সাময়িকভাবে বরখাস্ত করা হয়েছে এবং তাদের বিরুদ্ধে অপহরণপূর্বক চাঁদাবাজির অভিযোগ এনে রেকর্ড করা হয়েছে মামলা।
পুলিশ ও ভুক্তভোগীদর সূত্রে জানা যায়, কুড়িগ্রামের রৌমারী উপজেলার টাপুরচর ত্রিমোহনী সংস্থা নামে এনজিওর কর্মকর্তা মাইদুল ইসলাম বুধবার বিকালে তার ছোট ভাই কুড়িগ্রাম সরকারি কলেজের ব্যবস্থাপনা বিভাগের দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্র লিটন রানার সঙ্গে কলেজপাড়া এলাকার ফ্যান্টাসি ছাত্রাবাসে দেখা করতে যান। সন্ধ্যা ৬টার দিকে বাড়িতে ফেরার পথে কুড়িগ্রাম ডিবি পুলিশের কনস্টেবল আতিকুজ্জামান, কুড়িগ্রাম কোর্টে কর্মরত কনস্টেবল মামুনুর রশিদ ও শাহ আলম এবং ডিবি পুলিশের এসআই মশিউরের মোটরসাইকেল ড্রাইভার মনু মেকারসহ কয়েকজন মাইদুল ইসলামকে অস্ত্রের মুখে অপহরণ করেন। পরে মাইদুলকে কুড়িগ্রাম সদরের মোগলবাসা এলাকায় নিয়ে গিয়ে এক বাড়িতে আটকে রাখেন। তার মুক্তির জন্য ১০ হাজার টাকা মুক্তিপণ দাবি করা হয়। অপহরণকারীদের কথামতো কলেজ রোডের বিকাশের এজেন্ট-০১৭৮৮২৬২৬৪৮ নম্বরে ১০ হাজার টাকা পাঠিয়ে দেন অপহৃতের ছোট ভাই লিটন। এ ব্যাপারে কুড়িগ্রাম সদর থানায় অভিযোগ করলে পুলিশ অভিযানে নামে। সাদা পোশাকে পুলিশ অবস্থান নেয় কুড়িগ্রাম পৌর বাজারের বিকাশ এজেন্ট শহিদের দোকানে। এখান থেকে বিকাশের টাকা উত্তোলন করতে আসেন ডিবি পুলিশের সোর্স মনু মেকার ও পুলিশ সদস্য মামুনুর রশিদ। রাত সাড়ে ১১টার দিকে টাকা উত্তোলন করার সময় এসআই আবদুল গফুরের নেতৃত্বে পুলিশ তাদের হাতেনাতে গ্রেফতার করে। পরে তাদের স্বীকারোক্তি অনুযায়ী ডিবি পুলিশের কনস্টেবল আতিকুজ্জামানকে রাতেই গ্রেফতার করে পুলিশ। এ সময় কুড়িগ্রাম কোর্টে কর্মরত কনস্টেবল শাহ আলম পালিয়ে যান। এ ঘটনার পর রাত ১টার দিকে অপহৃত মাইদুলকে ছেড়ে দেয় অপহরণকারীরা। অপহৃত মাইদুলের ছোট ভাই লিটন বাদী হয়ে অপহরণপূর্বক চাঁদাবাজির অভিযোগে মামলা করেছেন বৃহস্পতিবার। এ ঘটনায় গ্রেফতারকৃত ডিবি পুলিশের কনস্টেবল আতিকুজ্জামান, কুড়িগ্রাম কোর্টে কর্মরত কনস্টেবল মামুনুর রশিদ ও মনু মেকারকে কড়া নিরাপত্তায় বিকাল সাড়ে ৩টার দিকে আদালতের মাধ্যমে জেলহাজতে প্রেরণ করা হয়েছে। এ মামলায় মোট আসামি ৪ জন। এর মধ্যে কুড়িগ্রাম কোর্টে কর্মরত কনস্টেবল শাহ আলম পলাতক রয়েছেন। তাকে গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে। তবে আসামিরা স্বীকারোক্তিতে অপরাধ স্বীকার করে নেয়ায় রিমান্ড চাওয়ার সম্ভাবনা নেই বলে তদন্তকারী কর্মকর্তা এসআই আবদুল গফুর জানান।
কুড়িগ্রাম সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোঃ আবদুল বাতেন মিয়া জানান, অভিযুক্ত ৩ পুলিশ সদস্যকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে। এদের একজন এখনও পলাতক রয়েছেন। কুড়িগ্রাম কোর্ট পরিদর্শক সোহরাব হোসেন জানান, শুক্রবার মাস্টার প্যারেডে শাহ আলম অনুপস্থিত ছিলেন।
ডিবি পুলিশের বিরুদ্ধে নানা অভিযোগ : শুক্রবার অনুসন্ধান করে জানা গেছে, অভিযুক্ত ৩ পুলিশ সদস্য বর্তমানে কোর্ট ও ডিবিতে কর্মরত থাকলেও ৩ জনই ডিবিতে কর্মরত ছিলেন। এর মধ্যে মামুনুর রশিদ ছিলেন ডিবির ক্যাশিয়ার। ৩-৪ দিন আগে তিনি কোর্ট পুলিশে যোগ দেন। ডিবিতে থাকার সময় রাতে নানা অভিযোগে মানুষকে আটক করে অর্থ বাণিজ্যের অভিযোগ রয়েছে তাদের বিরুদ্ধে। পরে কর্মস্থল পরিবর্তন হলেও সোর্সসহ সিন্ডিকেট সদস্যরা আটক বাণিজ্য অব্যাহত রাখেন। এনজিওর কর্মকর্তা অপহরণের বিষয়টি জানাজানি হলে পুলিশ মামলা গ্রহণে বাধ্য হয়। তবে সিন্ডিকেটের বাকি সদস্যদের বিরুদ্ধে কী ব্যবস্থা নেয়া হয় তা কৌতূহলের বিষয় হয়ে দাঁড়িয়েছে। এর আগে দুটি ঘটনায় শুধু শাস্তিমূলক বদলি করেই ক্ষান্ত ছিল পুলিশ প্রশাসন। এবারেও আপস-মীমাংসার মাধ্যমে বিষয়টি নিষ্পত্তির চেষ্টা করছে পুলিশের একটি অংশ।
এর আগে গত ৩ এপ্রিল ডিবি বিভাগের এএসআই আনোয়ারের নেতৃত্বে ৬ সদস্যের একটি দল কলেজ মোড় এলাকায় অবস্থিত তহুরা ফটোস্ট্যাট দোকানের ভেতরে ঢুকে একটি ফেনসিডিলের বোতল রাখতে গেলে ব্যবসায়ী নুর ইসলাম নুরু তাতে বাধা দেন। এ সময় আনোয়ার অন্য সহকর্মীদের ফেনসিডিল রাখার দায়ে নুর ইসলাম নুরুকে গ্রেফতার করতে নির্দেশ দেন। উপস্থিত লোকজন ডিবি পুলিশের দলকে ঘেরাও করে রাখেন। পরিস্থিতি বেগতিক দেখে ডিবি পুলিশের অন্য সদস্যরা কৌশলে পালিয়ে যান। এ সময় বিক্ষুব্ধ লোকজন ডিবির এএসআই আনোয়ারকে গণধোলাই দেন। তাকে উদ্ধার করে থানা পুলিশ। এএসআই আনোয়ারকে চিলমারী থানায় বদলি করা হয়। কনস্টেবল আনিস, শাহিদ, মোক্তার, মিজান ও শাহ আলমের বিরুদ্ধে তদন্তের আশ্বাস দেন পুলিশ সুপার। ৫ এপ্রিল সীমান্ত থেকে মোটরসাইকেল, ফেনসিডিল এবং চুপসিসহ (ফেনসিডিলের বিকল্প এক ধরনের মাদক) এক চোরাকারবারিকে আটকের পর টাকার বিনিময়ে শুধু চুপসি দিয়ে মামলা দায়েরের অভিযোগ উঠায় এএসআই রাসেল মণ্ডল ও এএসআই আসাদুজ্জামান আসাদকে প্রত্যাহার করা হয়েছে। এএসআই রাসেল মণ্ডলকে রাজিবপুর থানায় এবং আসাদকে চিলমারী থানায় শাস্তিমূলক বদলি করা হয়। একই দিনে সদর উপজেলার ভোগডাঙা এলাকায় কুড়িগ্রামের ডিবি পুলিশ কাগজপত্র না থাকার অভিযোগে চোরাই মোটরসাইকেলসহ ৩ ব্যক্তিকে আটকের পর মামলা না দিয়ে ৬০ হাজার টাকায় দফারফা করে ছেড়ে দিয়েছে।
পুলিশের একের পর এক অপরাধমূলক কাজে জড়িত হওয়ার ঘটনা প্রকাশের পর সাধারণ মানুষ এ নিয়ে নানা আলোচনা করলেও মাঝেমধ্যে শাস্তিমূলক বদলির মধ্যে সীমাবদ্ধ ছিল অপরাধীদের শাস্তি। তবে এবার দুই কনস্টেবলকে গ্রেফতারের খবর প্রকাশের পর বিষয়টি এখন কুড়িগ্রামে টক অব দ্য জেলা।
এ বিষয়ে কুড়িগ্রামের পুলিশ সুপার সঞ্জয় কুমার কুণ্ডু জানান, অভিযোগ পাওয়ার পর দায়ী পুলিশ সদস্যদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে। কোনো প্রকার শৈথল্য প্রদর্শন করা হয়নি।

উৎসঃ   যুগান্তর


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ