• রবিবার, ০৩ জুলাই ২০২২, ০৫:১৬ পূর্বাহ্ন |

জামায়াত রাজপথে আছে থাকবে

Jamat॥ জামশেদ মেহেদী॥

অবশেষে সমস্ত মিথ্যাচার এবং সুসংগঠিত অপপ্রচারের ধূম্রজাল কাটিয়ে বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামী, আওয়ামী লীগ সরকার এবং রাজপথের আন্দোলন সম্পর্কে তার অবস্থান পরিষ্কার করতে সম হয়েছে। এটি ছিলো একটি কঠিন কাজ। কারণ অধিকাংশ প্রিন্ট এবং ইলেকট্রনিক মিডিয়া এবং তথাকথিত সুশীল সমাজ আওয়ামী লীগ ও সেক্যুলারিস্টদের প্রতি অন্ধভাবে অনুগত। এত প্রতিকূলতার মাঝেও ১৯ দলের অবিসংবাদিত নেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার কাছে জামায়াতে ইসলামীর ঢাকা মহানগরীর নায়েবে আমীর মাওলানা আবদুল হালিম দ্ব্যর্থহীন ভাষায় ঘোষণা করেছেন যে জামায়াত অতীতে রাজপথে ছিলো, এখনো আছে এবং ভবিষ্যতেও থাকবে। ৫ জানুয়ারির নির্বাচনের আগের দিনগুলোতে জামায়াত রাজপথে থেকেছে, আওয়ামী মাস্তান বাহিনী এবং আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর দমন ও নিপীড়নমূলক বুলেট বোমাকে ভয় করেনি। আন্দোলনের প্রশ্নে জামায়াতের আপোষহীন অবস্থানের কারণে জামায়াতে ইসলামী এবং ইসলামী ছাত্র শিবিরের প্রায় ৩ শত নেতা ও কর্মী শহীদ হয়েছেন। তারপরেও জামায়াত ভয় পায়নি এবং রাজপথ থেকে পালিয়েও যায় নি। জামায়াতের প্রায় সমস্ত শীর্ষনেতা যখন বিচারের নামে মৃত্যুদণ্ডের সম্মুখীন তখন তাদেরকে মৃত্যুর মুখে রেখে জামায়াতে ইসলামী সরকারের সাথে কোনোরূপ আপোষ করতে পারে না। একজন দুইজন নয়, দুই এক শত নয়, হাজার হাজার নেতা কর্মীকে কারাগারের অন্ধ প্রকোষ্ঠে রেখে, শত শত নেতা কর্মীকে রিমান্ডের নামে প্রায় পঙ্গু অবস্থানে রেখে সরকারের সাথে জামায়াতের গোপন আঁতাতের প্রশ্ন সম্পূর্ণ অবান্তর। যারা এইসব গুজব ছড়িয়ে বেড়াচ্ছে তারা হয় সংগঠন এবং রাজপথের আন্দোলন সম্পর্কে কোনো ধারণাই রাখে না, অথবা জেনে শুনে তারা জ্ঞানপাপী সেজেছে। তাদের এই ওয়াইল্ড প্রোপাগান্ডার আসল মতলব হলো, দেশের বৃহত্তম দুটি বিরোধী দল বিএনপি ও জামায়াতে ইসলামীর মধ্যে ফাটল সৃষ্টি করা এবং এর মাধ্যমে এক ঢিলে দুই পাখী মারা। অর্থাৎ একটি তীর ছুঁড়ে জামায়াত ও বিএনপি উভয়কে ধরাশায়ী করা এবং নিজেদের মতার মসনদকে পাকাপোক্ত করা।

জামায়াত শিবিরের ওপর

আবার জুলুমের স্টিম রোলার

বেগম জিয়া তথা দেশবাসীর নিকট জামায়াতের এই অবস্থান পরিষ্কারের পর ১ সপ্তাহও যায়নি, সরকার আবার আগের হিংস্রতা নিয়ে জামায়াতের বিরুদ্ধে নিষ্ঠুর অভিযান চালিয়েছে। গত ২৭ এপ্রিল রোববার সাতীরায় একটি ছাত্রাবাসকে পুলিশ চারদিক থেকে ঘেরাও করে ফেলে এবং অতঃপর বৃষ্টির মতো গুলিবর্ষণ শুরু করে। পুলিশের এই নিষ্ঠুর হামলায় সাতীরা শহর ছাত্র শিবিরের সেক্রেটারি ২৭ বছর বয়স্ক টগবগে তরুণ আমিনুর রহমান নিহত হয়েছেন। আমিনুর রহমান ছাড়াও আরো ৭ জন গুলিবিদ্ধ হয়েছেন। রোববার দুপুরে সাতীরা শহরে কামালনগর ছাত্রাবাসে এই ভয়াবহ ঘটনা ঘটে। ঘটনার সময় মুহুর্মুহু গুলির শব্দে গোটা এলাকা প্রকম্পিত হয়ে ওঠে। এলাকার সাধারণ মানুষ দিগি¦দিক ছোটাছুটি শুরু করে। পুলিশের ভয়ে অনেকেই বাড়ির প্রধান ফটকে তালা দিয়ে কেউ ঘরের খাটের নিচে আবার কেউ ছাদে গিয়ে আশ্রয় নেন। এলাকাবাসী জানান, হঠাৎ করে যেন মনে হলো, এ যেন কোনো যুদ্ধত্রে। একটি ছাত্রাবাসে ছাত্ররা যখন দুপুরের খাবার খাচ্ছিল তখনই এমন আচমকা ঘটনায় আমরা হত-বিহ্বল হয়ে পড়েছি।

জামায়াতের ওপর

আওয়ামী আক্রোশ

শুধু শিবির নেতাকে হত্যা করেই আওয়ামী সরকার ান্ত হয়নি। যারা জনগণ কতৃক নির্বাচিত হয়েছেন তাদেরকেও আওয়ামী লীগ রেহাই দিচ্ছে না। গাইবান্ধা জেলার সুন্দরপুর উপজেলার চেয়ারম্যান মাজেদুর রহমান ও ভাইস চেয়ারম্যান শাহ সোলায়মান আলম সাজা। তারা গাইবান্ধা জেলা জামায়াতের সহকারী সেক্রেটারি এবং সুন্দরগঞ্জ উপজেলা জামায়াতের সহকারী সেক্রেটারি। তারা সদরে এসেছিলেন জনগণের নির্বাচিত চেয়ারম্যান এবং ভাইস চেয়ারম্যান হিসেবে শপথগ্রহণ করার জন্য। কিন্তু জনগণের সেই রায়কে পদদলিত করে আওয়ামী সরকারের সাদা পোশাকধারী পুলিশ তাদেরকে সেখান থেকেই গ্রেফতার করে।

বিএনপি জামায়াত জোট

ভাঙ্গার আবারও অপচেষ্টা

বিএনপি এবং সেই সাথে ১৯ দলীয় জোটের ঐক্যে ভাঙ্গন ধরানোর জন্য হেন কাজ নাই যা আওয়ামী লীগ সরকার এবং দল হিসেবে আওয়ামী লীগ করছে না। প্রচার মাধম্যের দিক দিয়ে আওয়ামী লীগ সবচেয়ে শক্তিশালী। এই মুহূর্তে ইলেকট্রনিক মিডিয়াতে অর্থাৎ টেলিভিশন জগতে আওয়ামী অনুগত টেলিভিশনের সংখ্যা কম করে হলেও ১৫টি। এছাড়া বাংলাদেশ টেলিভিশন (বিটিভি), বিটিভি ওয়ার্ল্ড এবং বিটিভি (সরাসরি)তো রয়েছেই। এছাড়া সংবাদপত্র জগতে আওয়ামী অনুগত অন্তত ৮টি সংবাদপত্র রয়েছে। সেগুলোও বিএনপি জামায়াত জোট ভাঙ্গার ব্যান্ডওয়াগনে যোগ দিয়েছে। ব্রিটিশ ব্রডকাস্টিং কর্পোরেশন বা বিবিসি নিরপেতার আবরণে ঢাকা থাকলেও বিশ্ব রাজনীতির পটভূমিতে, বিশেষ করে আমেরিকার সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে যুদ্ধ ঘোষণার পটভূমিতে তারা যে নীতি গ্রহণ করেছে, সেটি আওয়ামী সরকার বা দল হিসাবে আওয়ামী লীগের পে চলে যাচ্ছে। এই প্রবল মতাধর প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক মিডিয়ার ভয়াবহ শক্তিতে বলীয়ান হয়ে আওয়ামী লীগ তারস্বরে প্রচার করছিলো যে, বিএনপি এবং জামায়াতের মিত্রতা শেষ হয়েছে। আওয়ামী লীগের তথাকথিত বুদ্ধিজীবী এজেন্টরা সারাদেশে এই ভূয়া বার্তাটি ছড়িয়ে দেয় যে, আওয়ামী লীগ এবং জামায়াতের মধ্যে অতি সঙ্গোপনে একটি সখ্যতা প্রতিষ্ঠিত হয়েছে। আওয়ামী প্রোপাগান্ডায় বলা হয় যে, আওয়ামী লীগ এবং জামায়াতের মধ্যে যে গোপন সমঝোতা হয়েছে, সেই সমঝোতা অনুযায়ী জামায়াতে ইসলামী আর আওয়ামী লীগ সরকারকে ডিস্টার্ব করবে না। তারা রাজপথের আন্দোলন অনির্দিষ্টকালের জন্য স্থগিত রাখবে। বিনিময়ে আওয়ামী লীগ সরকার জমায়াতে ইসলামীকে মাঠে নামতে দেবে। আওয়ামী উন্মাদ প্রচারণা মোতাবেক, বিনিময়ে আওয়ামী লীগ সরকার যুদ্ধাপরাধের বিচার কিছু দিন বন্ধ রাখবে।

আওয়ামী লীগের রাজনৈতিক হিসাব হলো এই যে জামায়াতে ইসলামী এবং ইসলামী ছাত্র শিবির যদি ১৯ দল থেকে বেরিয়ে আসে তাহলে ১৯ দল তাৎণিকভাবে পঙ্গু এবং নিষ্ক্রিয় হয়ে যাবে। উপজেলা নির্বাচন এবং ঘর গোছানোর কথা বলে বিএনপি আপাতত আন্দোলনকে নিয়মতান্ত্রিকতার মধ্যে সীমাবদ্ধ রাখবে। এর ফলে বিএনপি আন্দোলন থেকে কিছুদিনের জন্য ছুটি নেবে। এরপর বিএনপি যদি আন্দোলনের পথে পা বাড়ায় তাহলে জামায়াতের হাজার হাজার কর্মীর সক্রিয় সমর্থনের অভাবে তারা মাঠে বেশিণ টিকতে পারবে না।

তথাকথিত নিরপে

পত্রিকা দুটির ভূমিকা

বাংলাদেশে একই হাউজ থেকে যুগপৎ দুইটি দৈনিক পত্রিকা বের হয়। একটি ইংরেজি ভাষায় এবং অপরটি বাংলা ভাষায়। এই দুইটি পত্রিকা সবসময় বস্তুনিষ্ঠতা এবং নিরপেতার লেবাস পরে থাকে। কিন্তু সময় যখন ক্রিটিক্যাল হয় তখন এই দুইটি পত্রিকা বিএনপি, জামায়াত এবং অন্যান্য ইসলামী দলগুলোর ছিদ্রান্বেষণে ব্যস্ত হয়ে পড়ে। তখন মনে হয়, তাদের মিশনই হচ্ছে ভুল ধরার নামে বিএনপি, জামায়াত এবং ইসলামী দলগুলোর সমালোচনা করা। বাস্তবে দেখা যায় যে, আপনার সাথে আমার সম্পর্ক যদি ভালো না থাকে তাহলে আপনার শত্রু আমার বন্ধু হয়ে যায় এবং আমার শত্রু আপনার বন্ধু হয়ে যায়। সুতরাং এই দুইটি তথাকথিত নিরপে পত্রিকা যখন বিএনপি ও জামায়াতের সমালোচনা করে তখন ফর্মুলা মোতাবেক সেটি আওয়ামী লীগের পে চলে যায়। এভাবে তারা সুকৌশলে আওয়ামী লীগ ও আওয়ামী সরকারের জনপ্রিয়তার পতনকে ঠেকিয়ে রাখছে। এই দুইটি পত্রিকা ও আরো দুই একটি আওয়ামী বান্ধব পত্রিকা ইদানীং জামায়াত এবং বিএনপির ছিদ্রান্বেষণে কেমন ব্যস্ত, তার দুই একটি নমুনা দেখুন।

জামায়াতের ভূমিকায়

খালেদা ুব্ধ

গত ২১ এপ্রিল ডেইলি স্টার প্রথম পৃষ্ঠায় ডাবল কলাম শিরোনামে একটি রিপোর্ট ছেপেছে। রিপোর্টটির শিরোনাম, “Khaleda unhappy over jamaat role/Suspects its secret deal with govt”. বাঙ্গানুবাদ : জামায়াতের ভূমিকায় খালেদা ুব্ধ/ সরকারের সাথে গোপন চুক্তি আছে বলে সন্দেহ। প্রিয় পাঠক, এই শিরোনামের পর খবরটি সম্পর্কে আপনাদের নিশ্চয় একটি ধারণা হয়েছে। জামায়াতের সাংগঠনিক কর্ম তৎপরতার অনুপস্থিতিতে খালেদা জিয়া নাকি সন্দেহ প্রকাশ করেছেন যে জামায়াতে ইসলামী সরকারের সাথে কোনো গোপন সমঝোতায় এসেছে কিনা। হেফাজতে ইসলামের প্রধান আহমদ শফী সম্প্রতি মন্তব্য করেছেন যে, আওয়ামী লীগ সরকারের সাথে তার কোনো শত্রুতা নাই। হেফাজতের আমীরের এই মন্তব্যেও বেগম জিয়া ুব্ধ হয়েছেন বলে পত্রিকাটি মন্তব্য করেছে। ডেইলি স্টারের রিপোর্ট মোতাবেক গত বৃহস্পতিবার রাতে গুলশান অফিসে অনুষ্ঠিত জোটের এক সভায় বেগম খালেদা জিয়া খেলাফত মজলিশ এবং ইসলামী ঐক্যজোটের প্রধানদেরও সমালোচনা করেন। এই দুই নেতা হেফাজতের আমীরকে সঠিকভাবে হ্যান্ডেল করতে পারেনি বলেও তিনি অসন্তোষ প্রকাশ করেন। বেগম জিয়া আরো বলেন যে, উপজেলা নির্বাচনে বিএনপি প্রার্থীর সাথে ভোট যুদ্ধে লিপ্ত হওয়া জামায়াতে ইসলামীর উচিত হয়নি। ডেইলি স্টারের ঐ রিপোর্ট মোতাবেক ওই মিটিংয়ে জামায়াতের প্রতিনিধি মওলানা আব্দুল হালিমকে বেগম জিয়া নাকি জিজ্ঞাসা করেন যে, এখন জামায়াতে ইসলামের কোনো কর্ম তৎপরতা নাই কেন? তিনি আরো জানতে চান যে, তাদের শীর্ষ নেতাগণকে যুদ্ধাপরাধের মামলা থেকে বাঁচাবার জন্য জামায়াতে ইসলামী সরকারের সাথে কোনো গোপন সমঝোতা করেছে কিনা? তিনি নাকি জামায়াত নেতাকে এইমর্মে হুঁশিয়ার করে দেন যে, সরকারের সাথে কোনো প্রকার গোপন চুক্তি বা সমঝোতা জামায়াত নেতাদেরকে বাঁচাতে পারবে না।” ওই পত্রিকার রিপোর্ট মোতাবেক তিনি বলেন, “আপনারা আওয়ামী লীগকে চেনেন না। এই দলটির কোনো চরিত্র নাই। আপনারা সরকারের সাথে যদি লবিং করেনও তাহলেও দিনের শেষে দেখবেন এতে করে জামায়াতের কোনো ফায়দা হয়নি।” ডেইলি স্টারের রিপোর্ট মোতাবেক, বিএনপি নেত্রীর প্রশ্নের জবাবে মওলানা হালিম বলেন, বিগত সরকার বিরোধী আন্দোলনে জামায়াত সক্রিয় ভূমিকা পালন করেছে। এর ফলে আমাদের অপূরণীয় তি হয়েছে। আমাদের অসংখ্য নেতা ও কর্মী শাহাদাৎ বরণ করেছেন। তৎসত্বেও আগামী দিনে ১৯ দলের আন্দোলনে জামায়াতে ইসলামী সক্রিয় ভূমিকা পালন করবে।

জামায়াতের জনপ্রিয়তা বৃদ্ধি

এই ধরনের অসংখ্য প্রচারণা রয়েছে। আমরা সেগুলো ছাপিয়ে পাঠককে ভারাক্রান্ত করতে চাই না। তবে একটি বিষয় পরিষ্কার হয়ে গেছে যে, বিগত আন্দোলনে জামায়াতের কর্মী ও নেতাদের ত্যাগ এবং নিষ্ঠা দেখে জনগণ দলে দলে জামায়াতের প্রতি আকৃষ্ট হচ্ছে। তারই প্রতিফলন হলো উপজেলা নির্বাচন। এই নির্বাচনের ফলাফল দেখে সরকারের মাথা খারাপ হয়ে গেছে। তাই জামায়াতকে ধ্বংস করার জন্য একদিকে দলটির বিরুদ্ধে সিন্ডিকেটেড মিথ্যা প্রচারণা চালানো হচ্ছে, অন্যদিকে আবার জুলুম-নির্যাতনের স্টিম রোলার চলছে। কিন্তু এগুলো করে সত্যকে কোনো দিন চেপে রাখা যাবে না।

উৎসঃ   সোনার বাংলা


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ