• সোমবার, ২৭ জুন ২০২২, ০৮:৪০ পূর্বাহ্ন |
শিরোনাম :
পদ্মা সেতুর রেলিংয়ের নাট খোলা বায়েজিদ আটক নীলফামারী জেলা শিক্ষা অফিসার শফিকুল ইসলামের শ্বশুড়ের ইন্তেকাল সৈয়দপুর সরকারি বিজ্ঞান কলেজের গ্রন্থাগারের মূল্যবান বইপত্র গোপনে বিক্রি ফেনসিডিলসহ সেচ্ছাসেবক লীগের নেতা গ্রেপ্তার এ সেতু আমাদের অহংকার, আমাদের গর্ব: প্রধানমন্ত্রী বাংলাদেশ-ভারতে রেল যোগাযোগ বন্ধ থাকবে ৮ দিন পদ্মা সেতুর উদ্বোধন বাংলাদেশের জন্য এক গৌরবোজ্জ্বল ঐতিহাসিক দিন: প্রধানমন্ত্রী পদ্মা সেতুর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে যেতে মানতে হবে যেসব নির্দেশনা সৈয়দপুরে বিস্কুট দেয়ার প্রলোভনে শিশুকে ধর্ষণের অভিযোগ গণমানুষের সমর্থনেই পদ্মা সেতু নির্মাণ সম্ভব হয়েছে: প্রধানমন্ত্রী

জ্বলন্ত নারায়ণগঞ্জ, প্রয়াত নাসিম ওসমান

Kaderকাদের সিদ্দিকী

বিসমিল্লাহির রাহমানির রাহিম
অনেক দিন তোমাকে লেখা হয়নি। এর মধ্যে কত কিছু যে হয়ে গেছে, এক এক করে লিখতে গেলে বিষাদ সিন্ধু হবে। দিগন্ত টিভিতে ‘সবার উপরে দেশ’ নামে একটা অনুষ্ঠান করতাম। অনেকেই সেটা দেখেছে। আওয়ামী ঘরানার কারো কারো ভালো লাগেনি। আমি যে এখন আর আওয়ামী লীগ করি না তা তারা বুঝতে চান না। কারো কারো অভিযোগ জামায়াত সমর্থিত বা মালিকানাধীন টিভিতে যাওয়া ঠিক হয়নি। অনেকে মনে করে তারা অনেক অনেক অর্থ ব্যয় করেছে। যদিও এর কিছুই সত্য নয়। প্রতি পর্বে ১৫-২০ হাজার সম্মানী দিয়েছে ওই পর্যন্তই। এক দিনের জন্য দিগন্তের একটা গাড়িও ব্যবহার করিনি। অনুষ্ঠানের একটা সিডিও আনিনি। বলেছি দেশের কথা, তোমার কথা, সর্বোপরি মুক্তিযুদ্ধের কথা। যে কারণে শাহবাগের গণজাগরণ মঞ্চ আমায় রাজাকার বলে গালাগাল করতে পিছপা হয়নি। কিন্তু কেউ তার প্রতিবাদ করেনি। যিনি মুক্তিযুদ্ধের সময় পাকিস্তানের চাকরি করেছেন তার ছবি উঠেছে, তোমার ছবি ওঠেনি। জয় বাংলা স্লোগান হয়েছে তাতে তোমার জায়গা হয়নি। তবু অনেকে হাততালি দিয়েছে। আমি দিইনি বলে আমার সব দোষ। মহান দয়াময় আল্লাহকে লাখো কোটি শুকরিয়া। রাজাকারের নাতি গণজাগরণ মঞ্চের মুখপাত্রের আস্ফালন এক বছরও টিকেনি, সব লণ্ডভণ্ড হয়ে গেছে। তুমি তো জানোই বোকাসোকা মানুষ আমি, অনেক কিছু দেখি কিন্তু অত গভীরে তলাতে যাই না। দিগন্তে গেছি আমার, তোমার, সর্বোপরি দেশের কথা বলতে, অবলীলায় বলেছি। এক দিনের জন্যও কেউ কোনো বাধা দেয়নি, কোনো কথা বলেনি। আমার স্বার্থ যেমন আমার কথা বলা, নিশ্চয়ই তাদেরও স্বার্থ ছিল- তা হয়তো চ্যানেলটিকে জনপ্রিয় করা। আমি যখন অনুষ্ঠান শুরু করেছিলাম তখন চ্যানেলটি র‌্যাঙ্কিংয়ে ছিল ১৫-১৬। বন্ধ হওয়ার সময় ১-২-৩ এর মধ্যে ওঠানামা করছিল। সে অর্থে বলা যায় অবশ্যই তাদেরও লাভ হয়েছিল।

দু’বছরের কম হবে না, নয়া দিগন্তে ‘পিতাকে পুত্র’ লিখছি। সেখানেও নানা মুনির নানা মত। জামায়াতের পত্রিকায় আমার মতো মানুষ লিখি কেন? পে না হলে সমালোচকদের সমালোচনা যে বন্ধ হবে না তা বোঝার বয়স হয়েছে। চরকায় তেল দেয়া যার অভ্যাস সে নিজের পরের দেখে না, চরকা পেলেই তেল দেয়। আমার অবস্থাও তাই। বহু দিন পর লিখতে গিয়ে কোনো আত্মপ্রবঞ্চনা না করে তোমাকে কথাগুলো জানালাম। দেশের নানা স্থানে প্রতিদিন নানা দাঙ্গা-হাঙ্গামা, খুন-খারাবি, গুমের ঘটনায় মানুষ একবারে দিশেহারা। বিশেষ করে নারায়ণগঞ্জে এক সাথে সাতজন অপহরণ ও পরে তাদের লাশ শীতলক্ষ্যা থেকে বিধ্বস্ত অবস্থায় পাওয়া দেশবাসীকে নিদারুণ নাড়া দিয়েছে। এসব দেখেও স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী বলছেন, অপহরণ গুমের সংখ্যা খুব একটা বাড়েনি। পিতা তুমিই বলো, কাকে কী বলি? সরকারপ্রধান তোমার কন্যা, আমার ভগ্নি মিলেমিশে সবাই তাকে যে ডুবাতে বসেছে এটাও তিনি যদি না বুঝতে চান আমি কতটা কী করতে পারি? চার দিকে তাকিয়ে কোনো আলোর সন্ধান পাচ্ছি না। তুমি তোমার রুহানি আলো দিয়ে আমাদের পথ দেখাও। না হলে বড় বেশি অশান্তিতে আছি। যখন লেখাটি তৈরি করছি তখন সারা বিশ্বের শ্রমজীবী মানুষের সবচেয়ে প্রিয় দিন পয়লা মে। অনেকেই মে পালন করছে, মে দিবসের অনেক অনুষ্ঠান করছে। খুনিরা তোমাকে হত্যার পর আমরা যারা প্রতিবাদ প্রতিরোধ সংগ্রাম গড়ে তুলেছিলাম সেখানেও নারায়ণগঞ্জের জনাব শামসুজ্জোহার ছেলে নাসিম ওসমান ছিল। সে ৩০ এপ্রিল গভীর রাতে ভারতের দেরাদুনে ইন্তেকাল করেছে (ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাহি রাজিউন)। দেরাদুন থেকে সড়কপথে দিল্লি এনে হজরত খাজা নিজাম উদ্দিন চিশতির মাজারে লাশ ধুয়ে ঢাকায় এনে গতকাল জাতীয় সংসদের দণি প্লাজা সংসদ সদস্য নাসিমের জানাজা শেষে পিতার পাশে কবর দেয়া হয়েছে।
শুনেছিলাম দুই যুদ্ধ এক রকম হয় না। মুক্তিযুদ্ধে তা প্রত্যও করেছি। কোটি কোটি মানুষের চেহারা একজনের সাথে আরেকজনের যেমন মিল নেই, ঠিক তেমনি কোনো সমরের একটার সাথে আর একটার কোনো মিল থাকে না। কিন্তু মৃত্যু সংবাদ যে দু’টি বা তারও বেশি একই রকম হয় তা বারবার প্রত্য করছি। গত ২০ জানুয়ারি ঘুম থেকে উঠে বারান্দায় বসতেই ফরিদ বলেছিল, জানেন, শাজাহান ভাই মারা গেছেন। আঁতকে উঠেছিলাম। কারণ শওকত মোমেন শাজাহান ওই সময় মারা যাবে কল্পনাতেও ছিল না।

শওকত মোমেন শাজাহান আমার বহু দিনের কর্মী, বীর মুক্তিযোদ্ধা। তোমার মৃত্যুর প্রতিবাদে এক কাপড়ে ঘর থেকে যখন বেরিয়ে যাই তখন সে কারাগারে ছিল। কয়েক বছর পর মুক্তি পেয়ে ময়মনসিংহের কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ে মারামারি খুনাখুনিতে জড়িয়ে পড়ে আমার কাছে গিয়েছিল। সেখান থেকে শিপ্রা গুহকে নিয়ে দেশে ফিরে। তারপর কত কিছু হয়েছে। সব কিছুর অবসান এপার থেকে ওপার পাড়ি ২০ জানুয়ারি ২০১৪। ঠিক একই রকম ঘুম থেকে উঠে বারান্দায় বসেছিলাম। পাশেই আমার মায়ের বোনা নারকেল গাছ। গাছগুলোর লম্বা লম্বা ডালপালা প্রতিদিন আমায় হাতছানি দেয়। কেবলই পত্রিকা উল্টাচ্ছি। দীপের মা এসে পত্রিকার পাতা উল্টাতে উল্টাতে বলল, ‘জানো, নাসিম ওসমান মারা গেছে?’ কী বলো? সেই আঁতকে ওঠা। কারণ নাসিমের মৃত্যু সংবাদের জন্য মোটেই প্রস্তুত ছিলাম না। নাসিমের বাবা প্রবীণ আওয়ামী লীগার শামসুজ্জোহা সাহেবকে বহু আগেই চিনতাম কিন্তু নাসিমকে নয়। ’৭৫ এর ১৫ আগস্ট তুমি নিহত হলে নারায়ণগঞ্জের এক ঝাঁক যুবক আমার সাথে প্রতিরোধ সংগ্রামে অংশ নিয়েছিল। তার মধ্যে নাসিম ছিল অন্যতম। তোমার জ্যেষ্ঠ পুত্র কামালের সাথে নাসিমের ছিল প্রগাঢ়ও বন্ধুত্ব।

১৪ আগস্ট তার বিয়েতে গভীর রাত পর্যন্ত কামাল নারায়ণগঞ্জে ছিল। বন্ধুরা সেখানেই থেকে যেতে বলেছিল, সে থাকেনি। পর দিন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে তোমার যাওয়ার কথা ছিল তাই সে চলে এসেছিল। হয়তো মৃত্যুই তাকে ধানমন্ডিতে টেনে এনেছিল। ঘাতকেরা সপরিবারে তোমাকে হত্যা করলে নববধূ ফেলে নাসিম গারো পাহাড়ের চূরায় আমার কাছে গিয়েছিল। বছরখানেক আগে কোথায় যেন লিখেছিলাম, নাসিম আর মঞ্জু মোটা কাচের চশমা পরতো। একবার ওদের চশমা ভেঙে গেলে চোখগুলো রক্তজবার মতো হয়ে গিয়েছিল। আমি তখনো চশমার মাহাত্ম্য বুঝতাম না। আজ ৪০ বছর চশমা ব্যবহার করি। যাদের চোখে পাওয়ার আছে তাদের চশমা ছাড়া এক মুহূর্ত চলে না, চশমা ছাড়া কী যে কষ্ট তা হাড়ে হাড়ে টের পাই। তোমার মেয়ে আমার বোন মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী হাসিনাকে দেখেছি, চশমা খুলে পড়লে খুঁজে পান না। চশমা খুঁজতে আরেক চশমা লাগে। খালি চোখে অন্ধের মতো হাতিপাতি করেন। তোমার হত্যার প্রতিবাদ প্রতিরোধ সংগ্রামে আমরা সে যে কী নিদারুণ কষ্ট করেছি তা লিখে বোঝাতে পারব না। চোখে দেখলেও অনেকে উপলব্ধি করতে পারত না। কারণ সবার বোধশক্তি এক নয়। প্রথম প্রথম বহু দিন সে সীমান্তে উল্কার মতো ছুটে বেরিয়েছে। তারপর শিলিগুড়ি, বর্ধমান, কলকাতা, পাটনা, ইল্লি-দিল্লি কত জায়গায় আমার সাথে গেছে বলে শেষ করা যাবে না। প্রবাসে আমাদের চরম দুঃসময়ে দুলালের সাথে ছোট বোন শাহানার বিয়ে হয়। নাসিম ওসমানকে সেই বিয়েতে উকিল দেয়া হয়। প্রচলিত শরিয়তে মুসলমান মেয়েদের বাপ দু’জন। এক জন্মদাতা, অন্যজন বিয়ের সাী। অনেকেই উকিল বাপের গুরুত্ব বুঝে না। তাই দায়িত্ব পালন করে না। নাসিম ওসমানও উকিল বাপের সম্পর্ক জানত না। জানলে নিশ্চয়ই পালন করত। আমার ছেলে দীপ, কাজী শহীদের উকিল বাপ। সে তার মেয়েকে বাপের মতো কিছুই করে না। যেমন আমার বিয়েতে উকিল হয়েছিল বড় ভাইয়ের ছেলে অনিক সিদ্দিকী। পুত্রের দায়িত্ব তো নয়-ই, বাপের দায়িত্ব সম্পর্কেও কানাকড়ি জানে না। সম্পর্ক সম্পর্কে জানা না থাকলে এমনই হয়। আমাদের যখন চরম দুর্দিন তখন নেতাজী সুভাষ বোসের সহকর্মী ফরোয়ার্ড ব্লকের নেতা শ্রী সমর গুহ এমপির সাথে নাসিম ও সাভারের মাহবুবকে নিয়ে পাটনার কদমকুয়ায় গিয়েছিলাম শ্রী জয়প্রকাশ নারায়ণের সাথে দেখা করতে। সে যাত্রায় জয়প্রকাশজিকে বোঝাতে না পারলে শ্রী মোরারজি দেশাইর সরকারের আমলে আমাদের ভারতে থাকা সম্ভব হতো না।
তোমার হত্যার প্রতিরোধ শেষে দেশে ফিরে নাসিম অনেক দিন জননেত্রীর ছায়া হয়ে ছিল। পরে টিকতে না পেরে জাতীয় পার্টিতে যোগ দেয়। জাতীয় পার্টির দুঃসময়ে পার্টির জন্য অনেক করেছে। দোষে গুণে মানুষ। পরিচয়ের প্রথম দিন থেকে শেষ দিন পর্যন্ত একই রকম সমীহ করেছে, যা সবার মধ্যে পাওয়া যায় না। কিন্তু নাসিমের মধ্যে পাওয়া গেছে। সর্বশেষ দেখা মোহাম্মদপুরের বাড়িতে। কৃষক শ্রমিক জনতা লীগের এক অনুষ্ঠানে আর্থিক সাহায্য চেয়েছিলাম। এক লাখ টাকা নিয়ে এসেছিল। ভেবেছিলাম শুধু চাঁদা দিতেই এসেছে। আলাপ আলোচনা শেষে বিদায় দিতে দরজার কাছে গিয়ে দেখি মস্ত বড় এক কর্কশিটের বাক্স। এটা কী? কে এনেছে? বলতেই বিনয়ের সাথে নাসিম বলল, স্যার, কত দিন পর আপনার বাসায় এলাম তাই ক’টা মাছ এনেছি। ও চলে গেল। খুলে দেখি এলাহি কারবার। ৬০-৭০ কেজির কম হবে না।

দু’টা রুই, একটা বিশাল আইরকাটা, ৪-৫ কেজি চিংড়ি, ১০-১২টা ইলিশ, ১৫-২০টা রূপচাঁদা। আমার ছেলেমেয়েরা চিংড়ি আর রূপচাঁদার পাগল। আমার এক কর্মী হাবিবুন নবী সোহেলের যেমন গরুর গোশত হলে ভাত লাগে না। ছেলেমেয়েরাও তেমন রূপচাঁদা আর চিংড়ি হলে তাদের আনন্দের সীমা থাকে না। দীপ-কুঁড়ি-কুশি তিন ভাই বোন এক সাথে হৈ হুল্লোড় করে খায়। নাসিম ওসমান আর ইহজগতে নেই আচমকা খবরটি শুনে কত কথা যে মনে পড়ছে। বিপদে-আপদে, সুদিনে-দুর্দিনে একই রকম থাকা খুব একটা বেশি মানুষ পাওয়া যায় না। কিন্তু নাসিম ছিল সব সময় একই রকম। এস এম আকরামের সভাপতিত্বে নারায়ণগঞ্জের এক জনসভায় জোহা পরিবার নারায়ণগঞ্জের সন্ত্রাসী পরিবার বলে গালাগাল করলে আমি খুবই ব্যথিত হয়েছিলাম। একটি পরিবারের কারো কর্মকাণ্ড খারাপ হতেই পারে সে জন্য সম্পূর্ণ পরিবারকে দোষারোপ করা আমার ভালো লাগেনি। তাই ওই ধরনের ঢালাও গালাগালের প্রতিবাদ করেছিলাম। সে নিয়ে নাসিম বলেছিল, ‘কাদের সিদ্দিকী কখনো সত্য বলতে ভয় করে না, পিছপা হয় না। বঙ্গবন্ধুর হত্যার পর বহু বড় বড় নেতা হাত পা গুটিয়ে বসে থাকলেও তিনি প্রতিবাদ করতে পিছপা হননি।’ সেই নাসিম নেই। তার সাথে আর কোনো দিন কোনো খানে দেখা হবে না ভাবতেই যেন কেমন লাগে। ’৭৫ সালে আমরা বোকারা যারা তোমার হত্যার প্রতিবাদ করেছিলাম ধীরে ধীরে তাদের অনেকেই চলে যাচ্ছে। আমিও চলে যাবো। কিন্তু দুঃখ থেকে গেল হঠাৎ করে তুমি চলে যাওয়ায় মুক্তিযোদ্ধারা কোনো মর্যাদা পেল না। তোমার কন্যা বারবার সরকারপ্রধান হওয়ার পরও তোমার হত্যার প্রতিরোধ যোদ্ধারা কোনো মর্যাদা পেল না। বরং আমাদের সাথে প্রতি পদে পদে কেন যেন চরম শত্রুর মতো আচরণ করা হলো। নাসিম সংসদ সদস্য না হলে সংসদের দণি প্লাজায় তার জানাজা হতো না, তেমন কোনো রাষ্ট্রীয় সম্মান পেত না। তোমার হত্যার প্রতিবাদ করতে গিয়ে যারা জীবন দিয়েছে তাদের জন্য পর পর কয়েকবার সংসদে প্রস্তাব এনেছিলাম- তা গ্রহণ করা হয়নি। কেন হয়নি হয়তো তুমি বলতে পারো, তোমার কন্যা বলতে পারেন- আমরা কেউ তার নিগুঢ় রহস্য জানি না, বুঝতে পারি না। আমরা যারা তোমায় ভালোবেসেছিলাম কোনো দিন তোমার অপমান সহ্য করতে পারিনি। তারা অবহেলিত আর যারা তোমার কলিজা খুবলে খেতো, শরীরের চামড়া ছুলত তারা কী চমৎকার দাপটের সাথে চলেছে ভাবলে বড় ব্যথা লাগে। রুহানি শক্তিতে যদি কিছু পারো করো, আর চুপ করে থেকো না। এভাবে দেশ ও জাতি বেশি দিন চলতে পারে না। তুমি নাসিমের পরিবার পরিজনের জন্য দোয়া করো। আমরাও তার আত্মার মাগফিরাত কামনা করছি। আল্লাহ যেন তাকে মাফ করেন, বেহেশতবাসী করেন- আমিন।
(নয়া দিগন্ত)


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ