• মঙ্গলবার, ০৫ জুলাই ২০২২, ০২:৫৪ পূর্বাহ্ন |
শিরোনাম :

বদরগঞ্জে জাপা নেতার বিরুদ্ধে চাউল আত্মসাতের অভিযোগ

Badarganj Madrasa Photo-001বদরগঞ্জ (রংপুর) প্রতিনিধি: রংপুরের বদরগঞ্জে জাপানেতার বিরুদ্ধে গ্রামীণ অবকাঠামো উন্নয়নের ১১ মেট্রিক টন চাউল আত্মসাতের অভিযোগ পাওয়া গেছে। জানা যায়, গ্রামীণ অবকাঠামো উন্নয়নের নামে মাদ্রাসার মাঠ ভরাট ও প্রাচীর নির্মাণের ওই বরাদ্দ পান পৌর জাতীয় পার্টির(জাপা) সভাপতি আব্দুর রাজ্জাক। বরাদ্দকৃত টাকা দিয়ে কাজ করার কথা থাকলেও তিনি কাজ না করে ওই টাকা আত্মসাত করেন। এছাড়াও তিনি প্রভাব খাটিয়ে মাদ্রাসার মাঠের ভেতরের বিভিন্ন প্রজাতীর অন্তত ২০টি ফলজ ও বনজ গাছ কেটে নিয়েছেন। এ ঘটনাটি ঘটেছে বদরগঞ্জ উপজেলার মধুপুর ইউনিয়নের রাজারামপুর পাইটকাপাড়া গ্রামে।
শুক্রবার সরেজমিনে গিয়ে জানা যায়, রাজারামপুর নজবিয়া দারুস সুন্নত ফোরকানিয়া মাদ্রাসা মাঠের গর্ত ভরাটের জন্য ত্রাণ মন্ত্রণালয় থেকে ৯ মেট্রিক টন চাল বরাদ্দ দেওয়া হয়। ঈদগা মাঠের প্রাচীর নির্মাণের জন্য বরাদ্দ দেওয়া হয় আরও ২ মেট্রিক টন চাল। এতে কাগজে কলমে প্রকল্প চেয়ারম্যান করা হয় মধুপুর ইউনিয়নের ওয়ার্ড মহিলা সদস্য উম্মে কুলসুমের স্বামী রফিকুল ইসলামকে। নামে মাত্র তিনি প্রকল্পের চেয়ারম্যান হলেও বরাদ্দের সমূদয় টাকা হাতিয়ে নিয়েছেন জাপা নেতা আব্দুর রাজ্জাক। মাটি কাটার নামে গোটা মাঠে ঘাসের ওপর সামান্য কিছু মাটি ঢেলে দেওয়া হয়েছে। প্রাচীর নির্মাণ করা হয় তিন নম্বর গড়িয়া ও সালোট ইট দিয়ে। দুর্ণীতির আশ্রয় নিয়ে সামান্য কিছু কাজ করে আত্মসাত করা হয়েছে প্রকল্পের পুরো টাকা। এতে মাদ্রাসার অবকাঠামোগত উন্নয়ন বঞ্চিত করা হয়েছে। এলাকাবাসী এর প্রতিবাদ করে কোন ফল পাননি। প্রভাবশালী আব্দুর রাজ্জাক উন্নয়নের নামে তার ক্ষমতার দাপটে মাদরাসার অন্তত ২০টি গাছ কেটে সাবাড় করেছেন। এতে মাদ্রাসার সৌন্দর্যও বিনষ্ট হয়েছে। এদিকে মধুপুর ইউনিয়নের সংশ্লিষ্ট তহশীলদার মিজানুর রহমানের গাছকাটার বিষয়টি দেখভালের দায়িত্ব থাকলেও তিনি কোন ব্যবস্থা নেননি। অভিযোগ রয়েছে তার সঙ্গে যোগসাজস করে কেটে নেওয়া হয়েছে গাছগুলি।
ওই মাদ্রাসার শিক্ষক জাহাঙ্গীর আলম বাদশা অভিযোগ করে বলেন, ঈদগাহ মাঠে ছোট বড় ২০টি গাছ ছিল। গাছগুলো এখনও পরিপূর্ণ হয়ে ওঠেনি। প্রাচীর নির্মাণের নামে প্রভাবশালী জাপা নেতা আব্দুর রাজ্জাক গাছগুলো কেটে নেন। শুধু তাই নয়, মাঠ ভরাটের টাকাও তিনি আত্মসাত করেছেন। একই ধরণের কথা বলেন আনিছুল হক। তিনি বলেন, নামমাত্র কাজ করে পুরো টাকা আত্মসাত করা হয়েছে।
বদরগঞ্জ পৌর জাপার সভাপতি আব্দুর রাজ্জাক অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, এলাকাবাসীর সঙ্গে সমন্বয় করে মাটি ভরাট ও গাছ কাটা হয়েছে। আমাকে হেয় করতে একটি মহল ষড়যন্ত্র করেছে।
বদরগঞ্জ উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা (পিআইও) মিজানুর রহমান বলেন, ওই প্রকল্পের কাজ এখনও শেষ হয়নি। পুরো কাজ সুষ্ঠুভাবে সম্পন্ন না হলে তদন্ত করে প্রকল্প চেয়ারম্যানসহ অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ