• বুধবার, ২৯ জুন ২০২২, ১০:২২ অপরাহ্ন |
শিরোনাম :
শিক্ষককে পিটিয়ে হত্যা: প্রধান আসামি জিতু গ্রেপ্তার সৈয়দপুরে কিশোরী ধর্ষণের ঘটনায় বিজিবি সদস্যকে আত্মসমর্পণের নির্দেশ শ্রেণিকক্ষে রাবি শিক্ষিকাকে মারতে গেলেন ছাত্র! অর্থ হাতিয়ে নেওয়ার অভিযােগ এনজিও’র দুই কর্মকর্তা গ্রেফতার জলঢাকায় মাদকদ্রব্যের অপব্যবহার রোধকল্পে সমন্বিত কর্মপরিকল্পনা প্রণয়নে কর্মশালা ইউনূস, হিলারি ও চেরি ব্লেয়ারের ওপর নিষেধাজ্ঞা দেওয়ার দাবি সংসদে মার্কেট-শপিং মলে মাস্ক বাধ্যতামূলক করে প্রজ্ঞাপন খানসামায় র‌্যাবের অভিযান ইয়াবাসহ দুই মাদককারবারী গ্রেপ্তার ডোমার ও ডিমলায় প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ ১০ উদ্যোগ নিয়ে কর্মশালা নীলফামারীতে ৫ সহযোগীসহ কুখ্যাত চোর ফজল গ্রেপ্তার

না.গঞ্জে সেভেন মার্ডার: অভিযোগের তীর র‌্যাবের দিকে

75472_1সিসি ডেস্ক: নারায়ণগঞ্জে অপহরণের পর প্যানেল মেয়র নজরুল ইসলামসহ সাত জনকে হত্যার ঘটনায় সহায়তার অভিযোগ উঠেছে র‌্যাব-১১ এর বিরুদ্ধে। নিহত নজরুলের পরিবার বলেছে, র‌্যাব-১১ এর সহায়তায়ই নজরুলসহ পাঁচ জনকে তুলে নেওয়া হয়। র‌্যাবের সহায়তা ছাড়া এমন অপহরণ সম্ভব নয়। র‌্যাব-১১ এর কার্যালয়েই অপহৃত সাত জনকে রাখা হয়েছিল বলেও ধারণা করছেন তারা।
নজরুল ইসলাম নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের (নাসিক) ৩নং ওয়র্ডের কাউন্সিলর ছিলেন। গত রোববার একটি মামলায় হাজিরা দিয়ে ফেরার পথে ঢাকা-নারায়ণগঞ্জ লিংক রোড থেকে তাকেসহ পাঁচ জনকে অপহরণ করা হয়। ঘটনার পরপরই আদলতের পাশ থেকে অপহরণ করা হয় আইনজীবী চন্দন সরকারসহ ও তার চালককে। তিন দিন পর বুধবার ছয় জনের এবং বৃহস্পতিবার আরও এক জনের লাশ শীতালক্ষ্যা নদী থেকে উদ্ধার করা হয়।
শনিবার সকালে নিহত নজরুলের স্ত্রী সেলিনা ইসলাম প্রাইমনিউজ.কম.বিডিকে বলেন, ‘নারায়ণগঞ্জ দেশের একটি গুরুত্বপূর্ণ শহর। এখানের আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতির চরম অবনতির পরও র‌্যাব-১১ ও পুলিশের কোনো ভুমিকাই ছিল না। তারা সক্রিয় হলে আমার স্বামীসহ সাতজনকে এভাবে প্রাণ দিতে হতো না।’
তিনি বলেন, ‘র‌্যাব-১১ এর সহায়তায়ই আমার স্বামীসহ পাঁচ জনকে অপহরণ করা হয়। যারা অপহরণ করে, তারা আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর কার্ড দেখিয়ে নজরুলসহ পাঁচজনকে তুলে নিয়ে যায়। আমার স্বামীর প্রতিপক্ষকে সহায়তা করেছে র‌্যাব-১১।’
তাদের সহায়তা ছাড়া এমন অপহরণ সম্ভব নয় বলেও মন্তব্য করেণ তিনি।
সেলিনা ইসলাম তার দুই সন্তানকে জড়িয়ে ধরে বলেন, ‘আমার এই সন্তানদের যারা পিতৃহারা করছে, এতিম করেছে, আমাকে যারা স্বামীহারা করছে, তাদের বিচার চাই।’
তিনি বলেন, ‘কার কাছে বিচার চাইবো? এই মামলার প্রধান আসামি নূর হোসেনের গড ফাদার শামীম ওসমান। র‌্যাব-১১-পুলিশ তাদের কথায় চলতো। এদের কাছে বিচার পবো না। আল্লাহ আছেন। আমরা আল্লাহর কাছে বিচার চাই।’
কান্না জড়িত কণ্ঠে সেলিনা ইসলাম বলেন, ‘আল্লাহ ওদের বিচার করবেন। নারায়ণগঞ্জের মানুষ ওদের বিচার দেখতে চায়।’
তিনি বলেন, ‘আমাদের বিশ্বাস র‌্যাব-১১ এর কার্যালয়েই অপহৃত সাত জনকে একত্রে রাখা হয়েছিল। অপহৃতদের উদ্ধারে এবং অপহরণকারীদের গ্রেফতারে র‌্যাবের কোনো তৎপরতাই ছিল না।’
উৎসঃ   প্রাইমনিউজবিডি


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ