• মঙ্গলবার, ০৫ জুলাই ২০২২, ০৩:৪৪ পূর্বাহ্ন |
শিরোনাম :

আর কত খুন হলে আতঙ্কিত হবো?

Rezwরেজোয়ান সিদ্দিকী: এ সপ্তাহের লেখাটির শিরোনাম ভেবে রেখেছিলাম ‘চোর, মূসা ভাই, চোর চোর’। একটু পুরনো হলেও বিষয়টি নিয়ে আমি গভীরভাবে ভেবেছি। সরকার নানারূপ ঢাকঢোল পিটিয়ে স্বাধীনতা যুদ্ধে যেসব বিদেশী অবদান রেখেছিলেন তাদের পুরস্কৃত করার জন্য স্বাধীনতা দিবসকে সামনে রেখে বাংলাদেশে ডেকে এনেছিল। সেখানে তাদের দেয়া হয়েছে একটি করে ক্রেস্ট, ‘সোনার মেডেল’ আর সম্মাননাপত্র। দেশের সচেতন মুক্তিযোদ্ধারা প্রশ্ন তুলেছিলেন যে, বিদেশীদের ক্রেস্ট দেয়ার আগে, সম্মাননা দেয়ার আগে, দেশে মুক্তিযুদ্ধে যেসব সাধারণ মানুষ অবদান রেখেছিলেন, জীবনবাজি রেখে যুদ্ধ করেছিলেন, গ্রুপে গ্রুপে নিয়ে এসে তাদের সম্মাননা দেয়া উচিত ছিল। কিন্তু এ কথা তো সবারই জানা আছেÑ গাঁয়ের যোগী গাঁয়ে ভিক্ষা পায় না, ভিন গাঁয়ের যোগীদের তোষামোদ করে। কাজের কাজ কিছু নেই। এ সরকার কেবল লোক দেখাতে ব্যস্ত। দেশের মানুষের কী হলো না হলো, তাদের জীবন কতটা নিরাপদ থাকল না থাকল, অর্থনৈতিক উন্নয়ন কী হলো না হলো এসব নিয়ে সরকার থোড়াই পরোয়া করে।
প্রধানমন্ত্রীর রাজনীতিতে ঢোকার সময়ের কথা মনে হয়। আওয়ামী লীগের সভানেত্রীর দায়িত্ব নেয়ার সময় তিনি বিবিসিকে বলেছিলেন, রাজনীতিকে তিনি ঘৃণা করেন। তা সত্ত্বেও রাজনীতিতে কেন এলেন, এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি অকপটে বলেছিলেন, পিতৃহত্যার প্রতিশোধ নিতে। প্রতিশোধ তিনি নিয়েছেন। কিন্তু প্রতিশোধস্পৃহা তার শেষ হয়ে যায়নি। হরতাল-অবরোধে মানুষের কষ্ট হয় কি না, এ প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেছিলেন, যে দেশের মানুষ মুজিব হত্যার বিচার করেনি, তাদের কষ্ট হওয়াই উচিত। এরপর লোক দেখানোর জন্য কত কী যে তিনি করেন, তার কোনো সীমা-পরিসীমা নেই।

এখন এক ধুয়া উঠেছে, গিনেস বুকে নাম ওঠানো। বড় মানব পতাকা করে, বেশি লোক জাতীয় সঙ্গীত গেয়ে গিনেস বুকে নাম ওঠানোর প্রাণান্ত প্রয়াস হচ্ছে। গিনেস বুক কী, কী তার মাজেজা, সেটি বাংলাদেশের লোক খুব কমই পরোয়া করে। এ সম্পর্কে জানে আরো নামমাত্র কিছু লোক। শফিক রেহমান এ সম্পর্কে বিস্তারিত লেখার আগে বোধহয় কেউ তা জানতই না। কিন্তু গিনেস বুকে নাম উঠলে কোনো রাষ্ট্রের শিং গজায় না। অর্থনীতি বা কূটনীতিতে তার কোনো প্রভাব পড়ে না। এই বইয়ে হাজার হাজার রেকর্ড লিপিবদ্ধ আছে, প্রয়োজন ছাড়া সেদিকে কেউ ফিরেও তাকায় না। কিন্তু স্তাবক পরিবেষ্টিত সরকার তা নিয়ে কত হল্লাই না করল। মনে হলো, বাংলাদেশের কোনো নভোযান যেন মঙ্গল গ্রহে পৌঁছে গেছে। ফলে এসব কর্মকাণ্ডে সরকারের ‘চোর’ ইমেজের কোনো পরিবর্তন ঘটল না। চুরির অভিযোগ শুরু হয়েছিল সৈয়দ আবুল হোসেন, সুরঞ্জিত সেনগুপ্ত, মোশাররফ হোসেন ভূঁইয়া প্রমুখকে দিয়ে। পরে দেখা গেল এই কাতারে শামিল আছেন আরো ডজন ডজন মন্ত্রী-এমপি ও আওয়ামী নেতা। যাদের কারো কারো সম্পদ বেড়েছে হাজার গুণ। বরাবরের মতোই প্রধানমন্ত্রী তাদের পক্ষে সাফাই গাইলেন।

এতে সরকারের চোর ইমেজ আরো শক্তিশালী হলো। তার সাম্প্রতিকতম উদাহরণ হলো, বিদেশীদের সম্মাননা দেয়ার সোনার মেডেল। ঘোষণা করা হয়েছিল যে, ওই সোনার মেডেলে থাকবে এক ভরি করে স্বর্ণ। কিন্তু পরীক্ষা করে দেখা গেল, তাতে মোটে তিন আনা স্বর্ণ রয়েছে। বাকি সবই খাদ। আর পিতল বা অন্যান্য সঙ্কর ধাতু। এর চেয়ে লজ্জাজনক ঘটনা একটা রাষ্ট্রের জন্য খুব কমই ঘটে। বিদেশী মেহমানদের ডেকে এনে সোনার নামে পিতলের মেডেল ধরিয়ে দেয়ার ভেতরে যে লজ্জা তা জাতির মুখে চুনকালি মেখে দিয়েছে। কিন্তু আশ্চর্য ঘটনা এই যে, এই জালিয়াতি সম্পর্কে প্রধানমন্ত্রী থেকে শুরু করে সরকারের চাপাবাজ মন্ত্রীরা একেবারে নীরব হয়ে রইলেন। এখন পর্যন্ত আমরা জানতে পারিনি যে, ওই স্বর্ণচুরির জন্য কে দায়ী। প্রধানমন্ত্রীর নিশ্চুপতা কি প্রমাণ করে না যে, এই চুরিতে তারও সায় আছে? তা নাহলে যেসব কথা কথাই নয়, সেগুলো ধরে তিনি যে মাত্রায় শোরগোল তোলেন হ্যান করেঙ্গা, ত্যান করেঙ্গা বলেন, তিনিও কেন চুপ করে আছেন?

মরহুম সাংবাদিক এ বি এম মূসা প্রধানমন্ত্রীর কাছে টক-লাগা টেলিভিশন টক-শোতে বলেছিলেন, সরকারের দুর্নীতিবাজ মন্ত্রী-এমপিদের দেখলে যেন জনগণ তাদের ‘চোর চোর’ বলে ধাওয়া দেয়। সে কারণেই আজকের লেখার ও রকম একটি শিরোনাম ভেবেছিলাম। কিন্তু তার মধ্যে নারায়ণগঞ্জে ঘটে গেল এক ভয়াবহ লোমহর্ষক অপহরণ ও খুনের ঘটনা। গত ২৭ এপ্রিল দিনে-দুপুরে একদল ঘাতক প্রকাশ্য রাজপথ থেকে তুলে নেয় নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের প্যানেল মেয়র কাউন্সিলর নজরুল ইসলামসহ সাতজন মানুষকে। এ খবর ছড়িয়ে পড়ার সাথে সাথে বিক্ষোভে ফেটে পড়ে নারায়ণগঞ্জের অধিবাসীরা। বিুব্ধ হাজার হাজার সাধারণ মানুষ রাজপথে নেমে এসে সড়ক অবরোধ করে প্রতিবাদ জানাতে থাকে। তারা অপহৃতদের অক্ষত ও জীবিত ফেরত পাওয়ার দাবি জানাতে থাকেন। গুম-অপহরণ এখন এক রাষ্ট্রীয় ব্যাধিতে পরিণত হয়েছে। কে কখন কোথা থেকে গুম হয়ে যাবে তার কোনো নিশ্চয়তা নেই। আর আশ্চর্যের ঘটনা এই যে, যারা গুম করে, তাদের একজনকেও আজ পর্যন্ত সরকার শনাক্ত করতে পরেনি কিংবা একজনকেও উদ্ধার করতে পারেনি।

গুম-অপহরণকারীরা কখনো কখনো মুক্তিপণ দাবি করে। ক্ষমতা থাকলে পরিবারের সদস্যরা সে টাকা দিয়ে তাদের স্বজনকে ছাড়িয়ে আনে। কখনো কখনো টাকা দিয়েও অপহৃতের সন্ধান মেলে না। কখনো কখনো তাদের লাশ পাওয়া যায় নদী, খাল, বিল, মাঠে, ঘাটে। কখনো কখনো লাশের কোনো হদিসই মেলে না। এ গুম হত্যাকাণ্ড যদি রাজনৈতিক হয়, তাহলে তাকে জীবিত ফেরত পাওয়ার কোনো আশাই থাকে না। আর আশ্চর্যের ঘটনা হলো এই যে, এর একটি ক্ষেত্রেও র‌্যাব-পুলিশ কাউকে উদ্ধার করতে পারেনি। গত কয়েক বছরে এ সংখ্যা হাজার ছাড়িয়ে গেছে।
নজরুল ইসলামসহ যে সাতজনকে অপহরণ করা হয়েছিল, গত ৩০ এপ্রিল তাদের লাশ ভেসে ওঠে শীতলক্ষ্যায়। তাদের প্রত্যেককে হাত-পা বেঁধে, ছুরিকাঘাতে একই কায়দায় হত্যার পর পেট চিরে দেয়া হয়। তারপর তাদের মৃতদেহের সাথে ইটের বস্তা বেঁধে শীতলক্ষ্যায় ডুবিয়ে দেয়া হয়। শুনেছি, পেট চিরে দেয়া হয় এই কারণে যে, তাতে লাশের পেটে গ্যাস জমতে পারে না। আর লাশ সহজে ভেসে ওঠে না। ওই সাতজনের ছয়জনের লাশ ভেসে উঠেছিল ৩০ এপ্রিল। আর একজনের লাশ ভেসে ওঠে ১ মে। এখনো বিক্ষোভে উত্তাল নারায়ণগঞ্জ। এই বিক্ষোভ যখন চরমে, তখন নারায়ণগঞ্জ থেকেই অপহৃত হন আরেক ব্যবসায়ী সৈয়দ সাইফুল ইসলাম। তার পরিবারের কাছে নাকি ২০ লাখ টাকা মুক্তিপণ দাবি করা হয়েছে। কিন্তু মুক্তিপণের টাকা নিয়ে তারা কোথায় যাবেন, সেটি অপহরণকারীরা বলেনি। নারায়ণগঞ্জের সাধারণ মানুষ নতুন করে আবারো বিুব্ধ হয়ে রাজপথে নেমে আসে। সে যা-ই হোক, শেষ পর্যন্ত তিনি উদ্ধার হয়েছেন।

আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য ‘কালো বিড়াল’খ্যাত সাবেক মন্ত্রী সুরঞ্জিত সেনগুপ্ত বলেছেন, গুম-খুন সব মাত্রা ছাড়িয়ে গেছে। কয়জন খুন হলে সেটা মাত্রার মধ্যে, কয়জন গুম হলে সেটা মাত্রার মধ্যে, সেটি আমাদের জানা নেই। তিনি বলেছেন, নারায়ণগঞ্জের সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব ও মেয়র আইভি সমর্থিত আওয়ামী লীগ নেতা রেজাউর রহমানের ছেলে ত্বকী হত্যার যদি বিচার হতো, তাহলে এই ঘটনা ঘটত না। নারায়ণগঞ্জের মেয়র সেলিনা হায়াত আইভি বলেছেন, আর কত লাশ পড়লে নারায়ণগঞ্জের গডফাদারদের মন ভরবে। স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী আসাদুজ্জমান খান কামাল এই শোকাবহ ঘটনার পর যে বিবৃতি দিয়েছেন তাতে তাকে রাক্ষসের সাথে তুলনা করা যেতে পারে। তিনি বলেছেন, গুম-অপহরণ বাড়েনি। এতে আতঙ্কিত হওয়ার কিছু নেই। এক দিনে একসাথে সাতটি মানুষকে একই জায়গা থেকে তুলে নিয়ে হত্যা করা হলো, প্রতিদিনই ১৫-২০ জন মানুষকে এভাবে হত্যা করা হচ্ছে, যেখানে সেখানে বেওয়ারিশ লাশের ছড়াছড়ি। একটি ক্ষেত্রেও র‌্যাব-পুলিশ স্বউদ্যোগে কাউকে উদ্ধার করতে পারল না। তারপরও আতঙ্কের কিছু থাকবে না? দক্ষিণ কোরিয়ায় ফেরিডুবির ঘটনায় সে দেশের প্রধানমন্ত্রী পদত্যাগ করেছেন। তার ব্যক্তিত্ব আছে, বিবেক আছে। সে কারণেই তিনি বিবেকের দংশনে পদত্যাগ করেছেন। প্রধানমন্ত্রী কিংবা স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রীর বিবেক বলে কিছু আছে কি না জানা নেই। প্রতিমন্ত্রী বলেছেন, দুই-এক দিনের মধ্যেই হত্যাকারীদের ধরা হবে। কিন্তু এক দিন না যেতেই ফের অপহরণ হলেন সিদ্ধিরগঞ্জের ব্যবসায়ী সৈয়দ সাইফুল ইসলাম। এখন কামালের জবাব কী?
এ কথা সবাই জানেন, নারায়ণগঞ্জের গডফাদার বলে কুখ্যাত শামীম ওসমান ও নারায়ণগঞ্জের সিটি মেয়র সেলিনা হায়াতের দ্বন্দ্বে নারায়ণগঞ্জ এখন মৃত্যুর উপত্যকায় পরিণত হয়েছে। দীর্ঘকাল ধরে সেখানে গডফাদার বলে চিহ্নিত আওয়ামী লীগের এমপি শামীম ওসমান। আগেরবার সে আসনে এমপি ছিলেন কবরী। এবার তাকে মনোনয়ন না দিয়ে প্রহসনের নির্বাচনের মাধ্যমে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় শামীম ওসমানকে এমপি করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। বিনা নির্বাচনের যে ১৫৩ জন এমপির নাম ঘোষণা করা হয়, শামীম ওসমানও তার অন্তর্ভুক্ত। আইভিও আওয়ামী লীগই করেন। কিন্তু শামীম ওসমানের নির্দেশে চলেন না। দ্বন্দ্বটা সেখানে। নারায়ণগঞ্জের হত্যাকাণ্ডের উৎস তাই আওয়ামী লীগের অভ্যন্তরীণ কোন্দল ও দ্বন্দ্ব।

এমন দ্বন্দ্ব আমরা দেখেছিলাম ১৯৭৪ সালে শেখ মুজিব সরকারের পতনের বছরখানেক আগে থেকে। ওই দ্বন্দ্বের সূত্র ধরে ১৯৭৪ সালের ৪ এপ্রিল ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের মহসিন হলে প্রতিপক্ষের সাত ছাত্রকে গুলি করে হত্যা করা হয়েছিল নিচতলায় হলের লিফটের সামনে। রক্তে ভেসে গিয়েছিল পুরো চত্বর। এবার নারায়ণগঞ্জেও দেখলাম একসাথে একই দিনে সাতজনের হত্যাকাণ্ড। সরকার বেশ নির্বিকারই আছে। ১৯৭৪ সালের ওই সাত ছাত্র হত্যার বিচার আজ পর্যন্ত হয়নি। হয়তো হবেও না কোনো দিন। নারায়ণগঞ্জে যে সাতজন মানুষ খুন হলো, তার আসামিরা ধরা পড়বে ও বিচার হবে এমন আশা খুব কম মানুষই করেন। আসলে পতনের আগে সরকারের এমন দশাই হয়।
(নয়া দিগন্ত)


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ