• সোমবার, ২৭ জুন ২০২২, ০৫:২২ অপরাহ্ন |

খানসামায় চাষিদের মাঝে ডলোচুন বিতরণ

Dolochunখানসামা (দিনাজপুর) প্রতিনিধি: দিনাজপুরের খানসামায় আরডিআরএস বাংলাদেশ, ইএসডিএ এবং কর্ণেল বিশ্ববিদ্যালয়ের আর্থিক সহায়তায় এফপিবিপি প্রকল্প’র আওতায় আবাদী জমির অম্লত্ব দূর করতে চাষিদের মাঝে বিনামূল্যে ডলোচুন বিতরণ করা হয়েছে।
সূত্রমতে, উপজেলার মোট আবাদী জমির পরিমাণ ১৬ হাজার ১শ হেক্টর। যার মধ্যে ৬ হাজার ৫শ হেক্টর জমি তীব্র অম্লীয়। তাই এসব জমি অম্লমুক্ত করতে গত কয়েক সপ্তাহ ধরে ধারাবাহিক ভাবে উপজেলার ছয় ইউনিয়নের ৬শ জন চাষির মাঝে ৪ কেজি করে ডলোচুন বিতরণ করা হচ্ছে। বৃহত্তর রংপুর, দিনাজপুর সহ সিলেট চট্টগ্রাম, বরেন্দ্র ও মধুপুর অঞ্চলের অধিকাংশ মাটিই তীব্র অম্লীয়। এসব অঞ্চলের মাটিতে ফসফরাস, ক্যালসিয়াম, অ্যালুমিনিয়াম ও মলিবডেনামের স্বল্পতা এবং অ্যালুমিনিয়ম, আয়রণ ও ম্যাঙ্গানিজ অধিক পরিমাণে থাকায় ফসলের বৃদ্ধি বাধাগ্রস্থ হয়। ফলে, এসব অঞ্চলের জমিতে চাষকৃত ফসলের কাঙ্খিত ফলন হয় না।
গবেষণায় দেখা গেছে, বাংলাদেশে প্রায় ৮৫ লাখ হেক্টর আবাদী জমির মধ্যে অম্লীয় জমির পরিমাণ প্রায় ৫১ লাখ হেক্টর এবং তীব্র অম্লীয় জমির পরিমাণ ৩৪ লাখ হেক্টর। তবে, এসব জমিতে ডলোচুন, ডলো-অম্লচুন বা ডলোমাইট সুপারিশকৃত মাত্রায় প্রয়োগ করলে বছরে অতিরিক্ত ৫০ থেকে ৬৫ লক্ষ টন ফসল উৎপাদন করা সম্ভব। কেননা, ডলোচুনে সন্তোষজনক মাত্রায় ক্যালসিয়াম ও ম্যাগনেসিয়াম থাকায় তীব্র অম্লীয় মাটির অম্লত্ব হ্রাস করতে সাহায্য করে।
গবেষণালব্ধ ডলোচুনের ব্যবহার বিধিতে বলা হয়েছে, গম, ভুট্টা, আলু, সরিষা এবং ডাল, মসলা ও সবজি জাতীয় ফসলের ফলন ১০ থেকে ৫০ শতাংশ বৃদ্ধি পায়। ডলোচুন একবার প্রয়োগ করলে পরবর্তী তিন বছর ধরে জমিতে কাজ করে এবং ম্যাগনেসিয়াম জাতীয় কোন সার প্রয়োগের প্রয়োজন হয় না বলেও গবেষকরা উল্লেখ করেন।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ