• শনিবার, ২৫ জুন ২০২২, ১১:২৬ পূর্বাহ্ন |

ঘাসফুল কার ছিলো

তানজিন তামান্না:

1চন্দানুভব

…প্রতিসন্ধ্যায় শিমক্ষেতকে ভালবেসে

গোলাপী শিমক্ষেতের নিচে হোঁচট খায় সন্ধ্যা । চন্দনাকে ধরতে হুমড়ি খাচ্ছে ছাইপাসেরা। এইসব ভীম-রথি চাখতে চাখতে, হাওয়া-পাল্টাহাওয়া গিলতে গিলতে টা….ন টান খপ্পরবাজী।

রাসায়নিক হয়ে উঠছে শিমফুলের প্রেমিক-পতঙ্গরা….
এসময় উদ্বাস্তু
কাল হয়ে ফেঁসে ফেঁসে যায় আলো-অন্ধকার

গৃহবন্দী…

ধানসিড়ি

শীতকে ভেংচি কেটে ফিরবে কাঠগোলাপ। পুরাতন লাইব্রেরীর ধুলো থেকে উদ্ধার হবে প্রিয় কোনো বই। উটকো লোকের ফিসফিসানি, চোখ বাঁকানীকে উপেক্ষা করে কবিতা লিখবে খোলা মাঠ…
সত্যি শেষ হবে পরাধীন, প্রশ্নবিদ্ধ এসময়?

….তবু অবরোধের একটু ফাঁকে সেদিন স্বপ্ন কুড়োচ্ছিল দেবদারুর ছায়ারা। ঠিক তার মাথার উপর দু’টো চিলছানা নিচ্ছিল ছোঁবিদ্যায় হাতেখড়ি ।

আবার কি ব্যবচ্ছেদ হবে কলমিলতার সন্তানদের! আপনি কোথায় ফিরবেন ধানসিড়ির ছেলে?

দৃশ্যান্তর

মচমচে রোদ তরতাজা দুপুরে লাফিয়ে লাফিয়ে চলে। এ দৃশ্যে দেয়ালের ছায়াটা ঈষৎ বাঁকা । ছায়াটা ঘুম ভালবাসে।

সবুজপোকা অবিকল ঘাসেরই মত। ওদের পাশ কাটিয়ে বেসামাল পা পিষে ফেলে ঘাসফুলের বেদম বিকাল। ঘাসফুল কার ছিলো? এ দৃশ্যে কুয়াশারা বিজয়ী, সুযোগমতো যাত্রা করে শরতের ভোরে…

সোণালুভুল

ডটচিহ্নে মাথা গুঁজেছে স্মৃতিরা…
ধুলো ঝেড়ে দাঁড়ায় শীতে জমা দিনগুলোর পরদিন। গতরাতে মনখারাপের পাশে একা নদী ভিজেছে কুয়াশায়। তার ঠোঁট থেকে লাল লাল ক্ষত তুলছিল ভৈরবীরাত…

আর ওল্টানো পাতায় হেমন্তের কবিতা থেকে ঝুপঝাপ, টুপটাপ ঝরে আত্মজন্মা সোণালুভুল…

মন

খয়েরী পর্দার ফাঁকে মাখনরঙা বিছানাঘর। দরজায় পাশে দুলছিল অন্ধকার। দু’হাতের বৃন্ত থেকে স্বপ্ন গড়িয়ে যায় শিমুল তুলার বাঁলিশে। যে শিমুলের প্রজাপতি হতে ঝুম বৃষ্টিতে ভিজেছিল বৃশ্চিক।

এখন হালকা শীত। বৃশ্চিক ঘাসফড়িং হয়ে নাচে ।

সংগৃহিত: rnews


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ