• রবিবার, ০৩ জুলাই ২০২২, ০২:৪৭ পূর্বাহ্ন |

চাণক্যের কৌশল বিএনপি সফল হবে তো!

Roniগোলাম মাওলা রনি:
তাকে বলা হয় ‘প্রাচীন ভারতের কাসিক্যাল রাজনীতির জনক’। কেবল মেধা দিয়ে যে রাজ্য জয় এবং সাম্রাজ্য ও সুশাসন প্রতিষ্ঠা করা সম্ভব, তা বিশ্ববাসীকে চোখে আঙুল দিয়ে দেখিয়ে দিয়ে গেছেন তিনি। কূটনীতি ও রাজনীতির সব জটিল উপাখ্যান বুঝাতে বিশ্ববাসী প্রায় দুই হাজার চার শ’ বছর ধরে তার নামটিই উচ্চারণ করছে। আর তিনি হলেন পণ্ডিত চাণক্য। ভালো নাম কৌটিল্য বা বিষ্ণুগুপ্ত। সবাই বলে থাকেনÑ চাণক্যের কারণেই ভারতবর্ষের ইতিহাসের সবচেয়ে ক্ষমতাধর, সবচেয়ে বড় এবং সবচেয়ে মহান গণতান্ত্রিক সম্রাট হতে পেরেছিলেন চন্দ্রগুপ্ত মৌর্য।
তার জন্ম হয়েছিল ৩৭০ খ্রিষ্টপূর্বাব্দে আর মারা গিয়েছিলেন ঠিক ৮৭ বছর পর অর্থাৎ ২৮৩ খ্রিষ্টপূর্বাব্দে। তিনি ছিলেন তক্ষশীলা বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্থনীতি ও রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক। খ্রিষ্টের জন্মের ৬০০ বছর আগে প্রতিষ্ঠিত তক্ষশীলা ছিল পৃথিবীর সবচেয়ে নামকরা বিশ্ববিদ্যালয়। আজকের পাকিস্তানের রাজধানী ইসলামাবাদের ২০ মাইল উত্তর-পশ্চিমে তক্ষশীলার ধ্বংসাবশেষ দেখা যাবে। স্থানটি পাঞ্জাব প্রদেশের রাওয়াল পিন্ডি জেলার সেই গ্রামে অবস্থিত, যেখানটায় এসে ইতিহাসবিখ্যাত এবং সম্রাট শেরশাহ নির্মিত গ্রান্ডট্রাংক রোড শেষ হয়েছে।
চাণক্য কী করতেন? তিনি কি কেবল সারা দিন কূটনামি করতেন? নাকি অন্য কিছু! জানা মতে, তিনি সব কিছু করতেন এবং অনেক কিছু শ্রেষ্ঠত্বের সাথে করতেন। তার প্রতিটি কর্মই হাজার বছরের ইতিহাসে অমরত্ব পেয়েছে। তিনি ছিলেন রাজনীতি ও অর্থনীতির পৃথিবীর প্রথম লেখক। তার লিখিত বই অর্থশাস্ত্র-এর উচ্চতা আজ অবধি কেউ অতিক্রম করতে পারেননি। তাকে মনে করা হয় সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ প্রধানমন্ত্রী এবং সম্রাটের উপদেষ্টা। আনুগত্য, বিশ্বস্ততা ও রাজদরবারে অসাধারণ দক্ষতা প্রদর্শনের মতো গুণের ঊর্ধ্বে স্থান পেয়েছিল যুদ্ধের ময়দানে তার অসীম বীরত্ব, সাহসিকতা এবং যুদ্ধজয়ের নিত্যনতুন কৌশল।
চন্দ্রগুপ্ত মৌর্যই ভারতবর্ষের একমাত্র শাসক, যিনি চাণক্যের বন্ধু। উপদেষ্টা, সেনাপতি ও প্রধানমন্ত্রীর সহযোগিতায় অতি অল্প সময়ের মধ্যে সমগ্র উত্তর ভারত একীভূত করেছিলেন। ভারতের কোনো সম্রাট এত বড় রাজ্য দখল করতে পারেননি, শাসন বা সুশাসন তো পরের কথা। পরিণত বয়সে স্বেচ্ছায় নিজ পুত্র বিন্দুসারের কাছে ক্ষমতা হস্তান্তর করে যে ইতিহাস রচনা করেছেন তা-ও কেউ দেখাতে পারেননি আজ অবধি। ভারতে তো নয়ই, পৃথিবীতেও নেই কোনো উদাহরণ- যেখানে এত বড় সাম্রাজ্যের সম্রাট পুত্রের কাছে ক্ষমতা দিয়ে চলে গেছেন ঈশ্বর-বন্দনায়; প্রিয় বন্ধুকে সাথে নিয়ে ত্রিবেণীসঙ্গমে। বিন্দুসারের ছেলের নামই মহামতি অশোক। চন্দ্রগুপ্ত-বিন্দুসার-অশোক মিলে বিশ্বরাজনীতিতে যে মাইলফলক স্থাপন করেছেন, তা মূলত সম্ভব হয়েছিল চাণক্যের সফল কূটনীতির কারণে।
বিএনপির থিংক ট্যাংক ইদানীং যে চাণক্যনীতি অনুসরণ করছে, তা হলফ করে বলতে পারব। কিন্তু তার আগে পাঠকদের জানানো দরকার কূটনীতি, যুদ্ধনীতি ও সফলতার ময়দানে চাণক্যের কিছু কৌশল সম্পর্কে। এতে করে বিএনপির কর্মকৌশল বুঝা অনেকটা সহজ হবে। ভারতে তখন নন্দবংশের রাজত্ব। রাজধানী ছিল পাটালীপুত্র, যা কিনা বর্তমানের বিহার রাজ্যের রাজধানী পাটনা। রাজার নাম ধনানন্দ। খুবই প্রভাবশালী ক্ষমতাশালী এবং বড় মাপের শাসক। এই রাজার রাজপ্রাসাদে জন্ম নেন চন্দ্রগুপ্ত। তিনি ছিলেন রাজার আত্মীয়। মেধাবী চন্দ্রগুপ্তকে রাজা অত্যধিক স্নেহ করতেন। এই নিয়ে কানাঘুষা শুরু হলে রাজা বিরক্ত হয়ে চন্দ্রগুপ্তকে প্রাসাদ থেকে বের করে দেন। কিশোর চন্দ্রগুপ্ত এতে ভারি অপমানিত বোধ করেন। তার বক্তব্য, কী দরকার ছিল অতিশয় স্নেহ দিয়ে অতিরিক্ত সম্মানিত করার? আবার লোকলজ্জায় নিজের দেয়া সম্মানকে ফেরত নিয়ে লোকসমাজে আমাকে হেয় করার অধিকার রাজাকে কে দিলো?
চন্দ্রগুপ্ত মনের দুঃখে চলে গেলেন তক্ষশীলায় প্রিয় বন্ধু চাণক্যের কাছে। চাণক্যের বুদ্ধি, পরামর্শ ও আশ্বাসে তিনি যেন নবজীবন পেলেন এবং বড় হওয়ার স্বপ্ন দেখতে লাগলেন। এই সময়টিতেই আলেকজান্ডার ভারত আক্রমণ করেন। পাঞ্জাবের রাজা ক্ষত্রিয় বীর পুরুর সাথে তার যুদ্ধ হয় ৩২৬ খ্রিষ্টপূর্বাব্দে ঝিলাম নদীর তীরে। দুই বন্ধু মিলে গভীরভাবে যুদ্ধ, এর কলাকৌশল এবং জয়-পরাজয়ের ইতিবৃত্ত পর্যবেক্ষণ ও মূল্যায়ন শুরু করেন। পুরু ছিলেন স্থানীয় রাজা। অন্য দিকে ধনানন্দ ছিলেন ভারতবর্ষের সবচেয়ে বড় সম্রাট। তিনি আলেকজান্ডারের সৈন্যবাহিনীর মোকাবেলায় ঝিলাম নদীর তীরে দুই লাখ সৈন্যের সমাবেশ ঘটান, কিন্তু গ্রিক বীর এত বড় বাহিনীর বিরুদ্ধে যুদ্ধে অবতীর্ণ না হয়েই স্বদেশে ফেরত যান। আর এই ঘটনা থেকেই চাণক্য চন্দ্রগুপ্ত অসাধারণ এক ঐতিহাসিক শিক্ষা গ্রহণ করেন।
তক্ষশীলায় বসে চাণক্য এমন কূটকচাল চালেন, যাতে করে নন্দবংশে গৃহদাহ শুরু হয়ে যায়। রাজকুমারগণ একজন আরেকজনের বিরুদ্ধে উঠেপড়ে লাগলেন। এরপর কূটকৌশল ছড়িয়ে দেন রাজদরবারে। উজির-নাজিররা দিনরাত ঝগড়াঝাটি করে রাষ্ট্রের ভিত নড়িয়ে দিলেন। একসময় ধনানন্দ মানসিক ভারসাম্য হারিয়ে ফেলেন। ঠিক এই সময়ে অর্থাৎ ৩২২ খ্রিষ্টপূর্বাব্দে অল্প আয়োজনের ছোট্ট একটি সামরিক অভিযানের মাধ্যমে দুই বন্ধু মিলে বিশাল সাম্রাজ্যের রাজধানী দখল করে নিলেন। চাণক্যনীতির প্রধান অস্ত্র ছিল- প্রতিপক্ষের বিশ্বাস ও ভালোবাসার জায়গায় আঘাত করা। এতে প্রতিপক্ষ অধৈর্য হয়ে পড়ে এবং অস্থিরভাবে আবোল-তাবোল বলতে থাকে। কিছু দিন পর তারা যখন নিজেদের দীর্ঘ দিনের বিশ্বাস ও ভালোবাসা সম্পর্কে সন্দিহান হয়ে ওঠে, তখনই শুরু হয় নতুন আঘাত। সেই আঘাতের উপযুক্ত প্রত্যাঘাত দেয়ার ক্ষমতা তখন আর প্রতিপক্ষের থাকে না।
এবার আমরা চাণক্যনীতির আলোকে বিএনপির সাম্প্রতিক কিছু কর্মকাণ্ড নিয়ে আলোচনা করতে পারি। প্রথমেই বলছি ‘জিয়াউর রহমানকে দেশের প্রথম রাষ্ট্রপতি’ বলে ঘোষণা প্রসঙ্গে। জনাব তারেক রহমান যখন এটি বললেন তখন আওয়ামী লীগের লোকজন প্রতিক্রিয়া দেখালেন বটে; কিন্তু তার দাবির কোনো জবাব দিলেন না। হতে পারে এটা আওয়ামী লীগের কৌশল যে, তারেক রহমান কখন, কোথায় কী বললেন তাতে আওয়ামী লীগের কিছু আসে-যায় না। এমনটি যদি হয় তাহলে আখেরে তারেকেরই লাভ। কারণ তিনি নিজেও চান আওয়ামী লীগ তাকে তাচ্ছিল্য করুক এবং তাদের গণনার বাইরে রাখুক; আর এই সুযোগে তিনি তার কাজটি এগিয়ে নিয়ে যাবেন কাক্সিত জায়গায়।
বিএনপির থিংক ট্যাংক বঙ্গবন্ধুকে মূল্যায়ন করে এইভাবে, তিনি ইতিহাসের কতগুলো অসাধারণ অধ্যায় পেয়েছিলেন। কিন্তু সেগুলোর একটিও কাজে লাগাতে পারেননি। নিয়তি তাকে সফলতার স্বর্ণসিংহাসনে বসিয়েছিল। কিন্তু তিনি নিজে সেই সিংহাসনের ভিত নড়বড়ে করে দিয়েছিলেন। বিএনপি মূল্যায়ন করে, ‘ঊনসত্তর’ কি বঙ্গবন্ধুকে সৃষ্টি করল, নাকি বঙ্গবন্ধু ‘ঊনসত্তর’ সৃষ্টি করলেন। পাকিস্তানের সামরিক শাসনামলের বেশির ভাগ সময় তিনি জেলে ছিলেন। মুক্তিযুদ্ধের সময়ও জেলে। মাঝখানে ঊনসত্তর ও সত্তরের রক্তঝরা দিনগুলো। ফলে স্বাধীন বাংলাদেশে পা রেখে তার পক্ষে বোঝা সম্ভব ছিল না ৯ মাসের রক্তাক্ত উপাখ্যান সম্পর্কে। এ কারণে তিনি চতুর লোকদের দ্বারা বিভ্রান্ত হয়েছিলেনÑ অন্য দিকে আপনজন থেকে চলে যাচ্ছিলেন দূর থেকে ক্রমেই দূরে এবং একসময় বহু দূরেÑ
বিএনপির থিংক ট্যাংক মনে করে, প্রতিষ্ঠিত হওয়ার পর আওয়ামী লীগ দলটিতে ১৯৬৩ সাল অবধি বিভিন্ন ব্যক্তি নেতৃত্বে ছিলেন। এদের মধ্যে মওলানা আবদুল হামিদ খান ভাসানী, হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দী, আতাউর রহমান খান, আবুল মনসুর আহমদ প্রমুখ বঙ্গবন্ধুর চেয়ে নেতৃত্বের দিক দিয়ে এগিয়ে ছিলেন। বিশেষ করে ভাসানী ও সোহরাওয়ার্দীর কর্মী হিসেবেই বঙ্গবন্ধুর রাজনীতিতে অভিষেক হয়। বর্তমান আওয়ামী নেতৃত্ব বঙ্গবন্ধু ব্যতিরেকে অন্য কারো কর্তৃত্ব ও কৃতিত্ব মানতে নারাজ। আর এই ক্ষেত্রেই বিএনপি চাণক্যনীতি প্রয়োগ করে বঙ্গবন্ধুর পরিবর্তে অপরাপর নেতার নাম করে নানা রকম প্রশস্তিমূলক কথা বলবে এবং ওই নেতার সাথে বঙ্গবন্ধুর কিছু ব্যক্তিগত আচরণকে সামনে এনে জনসমক্ষে তাকে খাটো করার চেষ্টা করবে।
চাণক্যনীতিতে বিএনপির দ্বিতীয় কৌশলটি হবে, আমাদের মহান মুক্তিযুদ্ধে বঙ্গবন্ধু, তার পরিবার-পরিজন এবং আওয়ামী লীগ নেতৃবৃন্দের সশরীরী অংশগ্রহণ না করা নিয়ে বহুমুখী কিচ্ছাকাহিনী রচনা করে তা ব্যাপক হারে প্রচার করা। এমনকি পাকিস্তানে বন্দী অবস্থায় পাক সামরিক জান্তার সাথে বঙ্গবন্ধু ও ড. কামাল হোসেনের বিভিন্ন কথাবার্তার গোপন দলিল তারা হস্তগত করে জনমনে বিভ্রান্তি ছড়াতে শুরু করবে। তারা মনে করে, মুক্তিযুদ্ধ এবং বঙ্গবন্ধু ব্যতিরেকে আওয়ামী লীগের কোনো অর্জন নেই, যা নিয়ে দলটির নেতাকর্মীরা একযোগে গর্ব করতে পারেন। কাজেই এই অভিন্ন সম্ভ্রম ও মর্যাদার জায়গায় যদি আঘাত করা যায় তবে আওয়ামী লীগ ধৈর্য হারিয়ে ফেলবে।
সম্প্রতি বিএনপির পক্ষ থেকে দু’টি চাণক্য কৌশল প্রয়োগ করা হয়েছে। তারেক রহমান বলেছেন, জিয়াই হলেন দেশের প্রথম রাষ্ট্রপতি এবং বঙ্গবন্ধু ছিলেন অবৈধ প্রধানমন্ত্রী। এ দু’টি দাবির পক্ষে তিনি তার মতো করে তথ্য-উপাত্তও হাজির করেছেন। এসব নিয়ে পত্রপত্রিকা ও সামাজিক মাধ্যমে ঝড় উঠেছে। বর্তমান ডিজিটাল দুনিয়ায় অনলাইন পত্রিকা ও ফেসবুকের গুরুত্ব দেশে প্রচলিত প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক মিডিয়ার চেয়ে বহুগুণ বেশি। দেশের সবগুলো বাংলা ও ইংরেজি দৈনিক মিলিয়ে প্রচারসংখ্যা কত হবে? বড়জোর ১৫-১৬ লাখ। অন্য দিকে কেবল ফেসবুক ব্যবহারকারীর সংখ্যাই ৫০ লাখের বেশি। ফেসবুক, টুইটার, বিভিন্ন ব্লগ, অনলাইন পত্রিকা, সব মিলিয়ে ভার্চুয়াল জগতের পাঠক দেশ-বিদেশ মিলিয়ে দুই কোটি। এসব পাঠকের সবারই একটি করে ল্যাপটপ বা কম্পিউটার কিংবা নিদেনপক্ষে দামি মোবাইল সেট রয়েছে। পাঠকদের সবাই মোটামুটি শিক্ষিত, সচ্ছল এবং নিজস্ব সমাজ বা পরিবারে একটি স্বতন্ত্র অবস্থান রয়েছে। কাজেই বিএনপি যদি এই বিরাট শ্রেণীর মানুষকে উদ্দেশ করে প্রপাগান্ডা চালায়, তবে সামাল দেয়া তাদের প্রতিপক্ষের জন্য দুষ্কর হয়ে পড়বে।
বিএনপি মনে করছে, তারা অতীতের যেকোনো সময়ের চেয়ে ভালো আছে। কারণ তারেক রহমান, কোকো ও বেগম জিয়া সম্পর্কে সরকার গত পাঁচ বছরে সর্বোচ্চ মাত্রায় চেষ্টা করে এমন কিছু নেই যা করেনি। তাদেরকে ছোট করার জন্য এহেন কুৎসা নেই যা বলা হয়নি; এহেন হুমকি নেই যা দেয়া হয়নি এবং এহেন চাপ নেই যা প্রয়োগ করা হয়নি। ফলে বর্তমান বিএনপি হলো একটি সবল ও জনপ্রিয় সরকার কর্তৃক সর্বোচ্চ তাপ-চাপ-বল প্রয়োগের পর টিকে যাওয়া সংগঠন। তারা বিশ্বাস করে তাদের ওপর যা করা হয়েছে তার কিয়দংশও যদি প্রতিপক্ষের ওপর করা হতো, সে ক্ষেত্রে কাউকে পাওয়া যেত না। তারা এখন আফসোস করে, অতীতের ১৫ ফেব্রুয়ারির নির্বাচনের পর ক্ষমতা ছেড়ে দেয়ার জন্য এবং এইবার যদি সরকার টিকে যায়। তবে তারাও ভবিষ্যতে এই পথে হাঁটবে। বর্তমান প্রেক্ষাপটে বিএনপির বিশ্বাস জন্মেছে, সরকার জিয়া পরিবারের বিরুদ্ধে যেসব আর্থিক দুর্নীতি ও অনিয়মের কথা বলে আসছে, তা হয় জনগণ শুনতে শুনতে বিরক্ত হয়ে গেছে, নয়তো বিশ্বাস করছে না কিংবা মনে করছে ক্ষমতায় থাকলে সবাই এমন করে।
বাঙালির চিরায়ত অভ্যাস ও মনমানসিকতার জন্যই তারা প্রতিনিয়ত পরিবর্তন কামনা করে থাকে। রাজনীতিতে এই পরিবর্তনের আকাক্সা আরো প্রবল। কাজেই মানুষের সেই আকাক্সার আগুনে ঘি ঢালার জন্য দলটি হাতে নিয়েছে কিছু ব্যতিক্রমধর্মী উদ্যোগ। তারা হয়তো কোনো আন্দোলন-সংগ্রামে পারতপক্ষে যাবে না। আন্দোলন করে এ দেশে কিছু হয় না, অতীতেও হয়নি। সেনাবাহিনী এবং বৈশ্বিক রাজনীতির প্রভাবশালীদের চাপে অতীতে কয়েকবার ক্ষমতার পালাবদল হয়েছে। এখন আর সেই পরিস্থিতি নেই। বঙ্গবন্ধুর আমলে জাসদ যে সরকারবিরোধী সশস্ত্র আন্দোলন গড়ে তুলেছিল, তা এশিয়ার কোনো দেশে হয়নি। এমনকি ভাসানীও বলেছিলেন, বন্দুকের জবাব বন্দুক দিয়েই দেয়া হবে। কিন্তু ফলাফল কী হয়েছে? জাসদ পেরেছে? পারেনি। ৫ জানুয়ারির নির্বাচনের আগে এ দেশে যা হয়েছে তা কখন কোন দেশে কতবার হয়েছে? কিন্তু ফলাফল সরকারের পক্ষে। শুধু বাংলাদেশ নয়Ñ একই অবস্থা পাকিস্তান, আফগানিস্তান, থাইল্যান্ড, মিসর ও সিরিয়ায় ঘটেছে। অর্থাৎ সরকার টিকে গেছে। এ অবস্থায় সরাসরি কোনো আন্দোলন-সংগ্রামে না গিয়ে কেবল প্রচার-প্রপাগান্ডা এবং অপেক্ষা করা; ঠিক যেন পাকিস্তানের নওয়াজ শরিফের মতো।
তারেক রহমানের প্রবাসজীবনকেও বিএনপি দেখছে ইতিবাচক হিসেবে। এশিয়ার অনেক নেতা প্রবাস থেকে ফিরে ক্ষমতা লাভ করেছেন নিকট অতীতে। কেউ কেউ তো আবার জাতীয় বীরের মর্যাদা লাভ করেছেন। নওয়াজ শরিফ, আসিফ আলী জারদারি, বেনজির ভুট্টো থেকে শুরু করে আয়াতুল্লাহ খোমেনি পর্যন্ত অনেকেই তাদের প্রবাসজীবনকে রাজনৈতিক সফলতার হাতিয়ার হিসেবে নিয়েছেন। সাম্প্রতিককালে তারেক রহমানের তৎপরতায় বিএনপি মনে করে তাদের নেতা লন্ডন-প্যারিসের মতো কসমোপলিটান শহরে থেকে খারাপ কিছু শেখেননি; বরং নতুন চাণক্যনীতির বদৌলতে আওয়ামী লীগ যে উত্তেজিত হয়ে যাচ্ছেতাই বলছে, তা তাদের ভালোই লাগছে।
ইতঃপূর্বে তারেক রহমান যে দু’টি বিষয় সামনে নিয়ে এসেছেন তা নিয়ে আওয়ামী লীগ যদি প্রতিক্রিয়া দেখায় তাহলেও তাদের যেমন লোকসান, যদি না দেখায় তবে লোকসানের পরিমাণ আরো বাড়তে থাকবে। তার বক্তব্যের পর আওয়ামী লীগ নেতাদের কেউ বলেছেন, ও একটা পাগল। আবার কেউ বলেছেনÑ অর্বাচীন বা বালক। কিন্তু তার কথার যুৎসই উত্তর আওয়ামী লীগ দেয়নি। অন্য দিকে কেউ কেউ বলছেন, ‘ওরে লন্ডন থেকে ধইরা নিয়া আয়’। কিন্তু এসব তো রাগের কথা কিংবা কথার কথা। তারেক রহমানকে ফালতু, বালক বা পাগল মনে করার কোনো কারণ নেই। তিনি দেশের প্রধান রাজনৈতিক দলের পোর্টফলিওতে দ্বিতীয় গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তি, কিন্তু কার্যত এক নম্বর ব্যক্তি। কাজেই তাকে যদি রাজনৈতিকভাবে মোকাবেলা করা না হয়, সে ক্ষেত্রে আওয়ামী লীগের দায়দেনা দিনকে দিন বাড়তে থাকবে।
আমি নিশ্চিত- আগামী দিনে বিএনপি সুকৌশলে এগোবে আওয়ামী লীগ এবং এর নেতৃবৃন্দকে মর্যাদাহীন করার জন্য। ইতোমধ্যেই তারা প্রধানমন্ত্রীর পারিবারিক নাম ধরে বক্তৃতা-বিবৃতি দিচ্ছেন। এরপর শুরু করবেন বঙ্গবন্ধু পরিবার সম্পর্কে এবং তাদের ব্যক্তিগত জীবন সম্পর্কে প্রপাগান্ডা। তারা বঙ্গবন্ধুকে তৎকালীন ‘আলফা ইন্স্যুরেন্সের দালাল’ বলে বক্তব্য দিয়েছেন। এরপর বলবেন, বত্রিশ নম্বরের বাড়ি এলো কোথা থেকে। তারপর শেখ কামাল, শেখ নাসের, তোফায়েল আহমেদ, আমু সম্পর্কে সেইসব কথাবার্তা বলবেন যা একসময় জাসদ-গণবাহিনী, সর্বহারা ও ছাত্র ইউনিয়নের নেতৃবৃন্দ বলতেন ১৯৭৪-৭৫ সালে।
বিএনপি যখন এসব পুরনো এবং প্রায় ভুলে যাওয়া প্রসঙ্গ তুলে আনবে, তখন আওয়ামী লীগ সেগুলোর যুৎসই জবাব না দিয়ে ধৈর্যহারা হয়ে পড়বে। বিএনপি বলবে, এসব তো আমাদের কথা নয়; এগুলো তাদের কথা যারা এখন সরকারের গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তি এবং একই সাথে মন্ত্রিপরিষদের প্রভাবশালী সদস্য। প্রপাগান্ডা ভালোমতো চালাতে পারলে আওয়ামী লীগে শুরু হবে গৃহদাহ। সর্বস্তরের নেতাকর্মীরা দাবি তুলবেন ওইসব লোকের বহিষ্কার। অন্য দিকে, দলটির শীর্ষ নেতৃবৃন্দ আশা করবেনÑ বাম ঘরানার যেসব নেতা বঙ্গবন্ধু, তার পরিবার ও শাসনামল নিয়ে ’৭৩-’৭৫ সালে নানামুখী প্রচার-প্রপাগান্ডা চালিয়েছিলেন, তারা ২০১৪ সালের পরিবর্তিত পরিস্থিতিতে প্রকাশ্যে অতীতের ভুল স্বীকার করে বক্তৃতা-বিবৃতি প্রদান করবেন। তারা বঙ্গবন্ধুর সপক্ষে নানা যুক্তিও তুলে ধরে বিএনপির প্রপাগান্ডার জবাব দেবেন, এমন আশা-আকাক্সার বিপরীতে তারা কেবল বিএনপি নেতৃবৃন্দের দুর্নীতি নিয়ে যখন কেবল পুরনো কথাগুলো বারবার বলবেন এবং বঙ্গবন্ধুর সপক্ষে কিছুই বলবেন না কিংবা নিজেদের ভুল স্বীকার করবেন না, তখন আওয়ামী লীগ ধৈর্য হারিয়ে ফেলবে।
চাণক্যনীতির মূল লক্ষ্য হলো আওয়ামী লীগে গৃহদাহ সৃষ্টি করা, যাতে করে শাসক দল এবং তাদের শরিকদের মধ্যে বিশ্বাস-অবিশ্বাস ও সন্দেহের ডালপালা বহু শাখা-প্রশাখায় বিস্তার লাভ করে এবং শেষমেশ প্যাঁচ লাগে, তেমনি প্যাঁচ লেগেছিল ওয়াটার লু যুদ্ধের আগে। ব্রিটিশ সেনাপতি ওয়েলিংটনের কূটকৌশলের কাছে ভুবনবিখ্যাত ফরাসি বীর নেপোলিয়ন কিভাবে পরাজিত হয়েছিলেন, সেই ফর্মুলার সন্ধান বিলেতে বসে জনাব তারেক রহমান হয়তো পেয়েই গেছেন। তাই তো এত তোড়জোড়Ñ কিন্তু শেষমেশ কি সফলতা আসবে? দেখাই যাক না কিসে কী হয়!

উৎসঃ   নয়া দিগন্ত


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ